সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:১৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

জগন্নাথপুর বিএনপির মূল বলয় কোনঠাসা নিস্ক্রিয় যুবদল, আর ছাত্রদলের কমিটি নেই ১৩ বছর ধরে

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০১৫
  • ৫৭ Time View

বিএনপির রাজনীতি-
স্টাফ রিপোর্টার:: বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের সাংগঠনিক কার্যক্রমে নেতাকর্র্মীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। দীর্ঘদিন ধরে নের্তৃত্ব নিয়ে কোন্দল গ্রুপিংয়ের কারণে বিএনপি জগন্নাথপুর উপজেলা শাখার মূল বলয় এখন কোনঠাসা হয়ে পড়েছে। দল ছেড়ে অনেকে আওয়ামীলীগে যোগদান করছেন। বিএনপি ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, এ উপজেলায় দীর্ঘদিন ধরে বিএনপি নেতা আক্তার হোসেন ও কবির আহমদের নের্তৃত্বে পৃথক দুই বলয়ের মাধ্যমে সাংগঠনিক কার্যক্রম চলছিল। ২০০২ সালে আক্তার হোসেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও কবির উদ্দিন উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতির দায়িত্বে থাকাকালীন সময়েই তাদের মধ্যে নের্তৃত্ব নিয়ে বিরোধ দেখা দেয়। তখন থেকে দুই ধারায় বিএনপি বিভক্ত। কবির বলয়ে সাবেক জেলা বিএনপি নেতা আবু হোরায়রা ছাদ মাষ্টারসহ বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতাকর্মী ছিলেন। অপরদিকে আক্তার হোসেনের নের্তৃত্বে উপজেলা বিএনপি একটি শক্তিশালী অবস্থানে রূপ নেয়। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে এ দুই নেতা পৃথক বলয়েই সাংগঠনিক কাজ চালিয়ে গেলেও বিএনপির মূল নের্তৃত্বে ছিলেন আক্তার হোসেন ও লুৎফুর রহমান। ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকে নের্তৃত্ব ও আন্দোলন নিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। পৃথক বলয়ে তারা আন্দোলন চালিয়ে যান। এবস্থায় জাতীয়পার্টি থেকে বিএনপিতে যোগ দেন লেঃ কর্নেল অবঃ সৈয়দ আলী আহমদ। তিনি কবির বলয়ে যোগ দিলে তারা শক্তিশালী হতে থাকেন। অপরদিকে কবির আহমদ এর ভাই কয়ছর এম আহমদ যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাথে ঘনিষ্টতার সুবাধে জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির কমিটি তাদের নিয়ন্ত্রনে নেয়ার চেষ্ঠা চালায়। গত বছর তারা পুরোপুরি সফল হন। কর্নেল অব সৈয়দ আলী আহমদ কে আহ্বায়ক ও কবির আহমদ কে প্রথম যুগ্ম আহ্বায়ক করে জগন্নাথপুর উপজেলা বিএপির আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। ঘোষিত কমিটিতে উপজেলা বিএনপি সভাপতি জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আক্তার হোসেন উপেক্ষিত হলেও তার বলয়ের বেশ কিছু সংখ্যক নেতাকর্মীরা সদস্য হিসেবে স্থান পান। নতুন কমিটির অভিষেক দিনে দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আক্তার হোসেনের পক্ষের নেতাকর্মীরা ও কবির হোসেনের পক্ষের নেতাকর্মীদের শক্তির মহড়া পুলিশের হস্তক্ষেপে নিয়ন্ত্রনে আসে। এরপর থেকে কর্নৈল অবঃ সৈয়দ আলী আহমদ ও কবির আহমদের নের্তৃত্বে উপজেলা বিএনপি তাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। অপরদিকে আক্তার হোসেন রাজনীতির মাঠ থেকে ক্রমশ দূরে সরে যাচ্ছেন। দলীয় কেন্দ্রেীয় কর্মসূচীতে আক্তার বলয়ের নেতাকর্মীদের আগের মতো মাঠে দেখা যায় না। অপরদিকে কর্নৈল অবঃ সৈয়দ আলী আহমদ ও কবির আহমদের নের্তৃত্বে সাংগঠনিক কাজ চলছে। অতি সম্প্রতি কর্নৈল অবঃ সৈয়দ আলী আহমদ উপজেলার আটটি ইউনিয়নে বিএনপি নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষনা দেন। ওই কমিটিতে আক্তার বলয়ের নেতাকর্মীরা নেই। এতে আক্তার বলয়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ রয়েছে। অপরদিকে এ দুই বলয়ের বাহিরে থাকা পৌর বিএনপির আহ্বায়ক এম এ মতিন সরকার বিরোধী আন্দোলনে অংশ নিতে গিয়ে জেলে গেলেও বিএনপির কোনস্তরের নেতাকর্মীদের মাঠে সক্রিয় আন্দোলনে দেখা যায়নি। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ব্এিনপির অন্যতম যুব সংগঠন যুবদল কমিটি থাকলেও গ্রুপিং কারণে তাদেরও কোন সাংগঠনিক তৎপরতা নেই। ছাত্রদলের অবস্থা আরো করুণ। ২০০২সালে উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি গঠন করা হলে রাজু আহমদকে সভাপতি ও কবির আহমদকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। কিছুদিনের মধ্যে রাজু আহমদ লন্ডনে চলে যান আর কবির আহমদ উপজেলা বিএনপির রাজনীতিতে যুক্ত হয়ে পড়েন। সে সময় পৌর ছাত্রদলের সভাপতির দায়িত্ব পান আলফুজ্জামান বকুল। বর্তমানে বকুলের নের্তৃত্বে ছাত্রদলের একটি অংশ সাংগঠনিনক তৎপরতা চালালেও রুহেলের নের্তৃত্বে রয়েছে আরেকটি বৃহৎঅংশ। বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত হয়ে রয়েছে ছাত্রদলের রাজনীতি। সাংগঠনিক কাঠামো না থাকায় হযবরল অবস্থায় ছাত্রদল। বিএনপির রাজনীতির এমন হযবরল অবস্থায় দল ছাড়েন পৌর বিএনপি নেতা জগন্নাথপুর পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সফিক মিয়া। তিনি তাঁর অনুসারীদের নিয়ে আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় নেতা এম এ মান্নানের হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে আওয়ামীলীগে যোগদান করেন।
পৌর ছাত্রদল সভাপতি আলফুজ্জামান বকুল বলেন,এক যুগেরও বেশী সময় ধরে উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি না হওয়ায় নের্তৃত্ব জট লেগেছে। আমরা দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রদলের কমিটির জন্য দাবী জানিয়ে আসছি। নানা জটিলতায় কমিটি না হওয়ায় ছাত্রদল নেতাকর্মীরা নের্তৃত্ব জটে রয়েছেন।
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি এম এ মালেক খান বলেন, বিএনপিকে যারা ব্যক্তি কেন্দ্রীক দলে পরিণত করতে চান তাদের অসীত্ব থাকবে না। তিনি বলেন, দলের সংকটময় সময়ে যারা দায়িত্বে আছেন তাদের উচিৎ সবাইকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে এখন সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করা। কারণ আমরা সবাই শহীদ জিয়ার আর্দশের সৈনিক। বেগম খালেদা জিয়ার নের্তৃত্বে সরকার বিরোধী আন্দোলনে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার বিকল্প নেই।
উপজেলা বিএনপির প্রথম সদস্য কবির আহমদ বলেন, বর্তমান আহ্বায়ক কমিটি বর্তমান সরকারের দমন নীতির বিরুদ্ধে রাজপথে অগ্রনী ভূমিকা রাখছে। বিএনপি বলে যারা দাবী করেন দলের দুঃসময়ে তাদেরকে মাঠে দেখা যাচ্ছেন। এখন যারা মাঠে কাজ করছেন তারাই প্রকৃত বিএনপি। আমরা তাদেরকে নিয়ে আওয়ামীলীগ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছি।
উপজেলা বিএনপি সাবেক সভাপতি পৌর মেয়র আক্তার হোসেন বলেন, বর্তমান উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক অগঠনতান্ত্রিক আটটি ইউনিয়নে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করেছেন। প্রতিটি ইউনিয়নে আমাদের কমিটি থাকা স্বত্বেও কমিটি বিলুপ্ত না করে মনগড়া আহ্বায়ক কমিটি দেয়া হয়েছে। এতে তৃণমুলের নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। আমরা বিষয়টি জেলার নেতৃর্বৃন্দকে অবহিত করেছি।
জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপি আহ্বায়ক কর্ণেল অবঃ সৈয়দ আলী আহমদ বলেন,জগন্নাথপুর বিএনপিতে কোন কেন্দাল গ্রুপিং নেই। বর্তমান আহ্বায়ক কমিটি দলকে শক্তিশালী করতে কাজ করছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24