মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ০৯:১৫ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কের বেহালদশা:সরকার দলের নেতাকর্মীদের ক্ষুব্দ প্রতিক্রিয়া

স্টাফ রিপোর্টার::
  • Update Time : শনিবার, ১ জুন, ২০১৯
  • ৭৩১ Time View

জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-সড়কের বেহালদশা নিয়ে ক্ষমতাশীন দলের যথ ক্ষোভ। জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটমককে অনলাইন পত্রিকায় গত

বৃহস্পতি ও শুক্রবার  জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ-রশিদপুর সড়কের করুণ অবস্থা নিয়ে দুইটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। ওই দুই প্রতিবেদনের ফেসবুক লিংকে দেখা যায় ক্ষমতাশীন আওয়ামীলীগের দলীয় নেতাকর্মীদের ক্ষুব্দ প্রতিক্রিয়া বেশি।   জগন্নাথপুর পৌর যু্বলীগ নেতা সৈয়দ জিতু মিয়া তার প্রতিক্রিয়ায় জগন্নাথপুর উপজেলা প্রকৌশলী গোলাম সারোয়ারের উদ্দেশ্য  লিখেন, ৩ বছরের আগে কাজ করার কোন নিয়ম নেই, তাহলে জনগণ জাহান্নামে যাক।আরেক পৌর যু্বলীগ নেতা আকমল হোসেন ভুঁইয়া লিখেছেন কি অদ্ভুত নিয়ম তিন বছর না গেলে কাজ করানো যাবেনা, অথচ কাজের বেলায় ব্যাপক অনিয়মের মধ্য দিয়ে কাজ সম্পন্য হয়। যা ভোগ করে সাধারণ জনগণ । জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জয়দ্বীপ সুত্রধর বীরেন্দ্র মন্তব্য করেছেন, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি সহ দায়িত্বশীল পদে অধিষ্ঠিত সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিদের অবহেলার কারণে জনদূর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে, আমাদের মতো ক্ষুদ্র রাজনৈতিক কর্মীরা অসহায়, শুধ চেয়ে চেয়ে দেখছি এবং জনসাধারণের সরকার ও দলের বিরুদ্ধে করা আপওিকর মন্তব্য শুনে যাচ্ছি, জনদূর্ভোগ লাঘবে আমাদের এলাকার মাননীয় সংসদ সদস্য ও মন্রী পরিষদের জ্যেষ্ঠ সদস্য পরিকল্পনা মন্রী মহোদয়ের সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সহসভাপতি হরমুজ আলী বন্তব্য করেন, বাহ, কী করিতকর্মা প্রশাসন, প্রাইভেট যানবাহন চলাচলে অনুপযোগী রাস্তায় ভারী যানবাহন চলছে, খানাখন্দে আটকে যাচ্ছে ঘন্টার পর ঘন্টা, দেখার কেউ নেই। আগের দিনে বাচ্চারা যেমন জড়ো হয়ে বাইস্কোপ দেখতো তেমনি মানুষ জড়ো হচ্ছে আর সরকারের চৌদ্দগুষ্টি উদ্দার করছে অথচ কারো কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই। আমি বিশ্বাস করতে শুরু করেছি এটা পরিকল্পিত ভাবে করা হচ্ছে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য, না হয় খুব সামান্য টাকা খরছ করে আর কিছু না হউক অন্তত মানুষ চলাচলের উপযোগী করার জন্য সাময়িক সংস্কার করা যেতো। এই ভ্রুক্ষেপহীনতার শিকড় কোথায়?

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে জগন্নাথপুর থেকে কেউনবাড়ি পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার সংস্কার করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নূরা এন্টারপ্রাইজ। কিন্তু কাজে ব্যাপক অনিয়ম ও নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহার করায় নির্মাণের তিন মাসের মাথায়ই সড়কের একাধিক স্থানে ভাঙন ও গর্ত সৃষ্টি হয়। জগন্নাথপুর উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ২০১৮ সালেও ১০ লাখ টাকার সংস্কারকাজ বাস্তবায়ন করে। বর্তমানে এই ১৩ কিলোমিটার অংশই বেহাল। পিচ উঠে সড়কজুড়ে গর্ত আর খান্দাখন্দে ভরে গেছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, সড়ক সংস্কারের নামে সরকারি বরাদ্দ অর্থ লুট হয়। আর বছরের পর বছর দুর্ভোগ পোহাতে হয় জনসাধারণকে।।

এ প্রসঙ্গনে স্থানীয় সরকার উপজেলা প্রকৌশলী গোলাম সারোয়ার জানান, ‘২০১৭ সালে যখন সড়কটির কাজ হয়, তখন আমি এ উপজেলায় ছিলাম না। আমি এসেই সড়কের নাজুকদশা দেখেছি। গত বছর কিছু মেরামত করেছি। এবারও জরুরি মেরামতের জন্য ১৩ লাখ টাকার টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তবে একটি সড়ক সংস্কারের তিন বছরের মধ্যে পুনরায় সংস্কার করার নিয়ম না থাকায় কাজ করা যাচ্ছে না। আগামী অর্থবছরে সংস্কার করা হবে।’ স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর বিশ্বনাথ উপজেলার প্রকৌশলী হারুনুর রশীদ ভূঁইয়া বলেন, ‘আমি এ উপজেলায় নতুন যোগ দিয়েছি। খোঁজখবর নিয়ে পদক্ষেপ নেব।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24