শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুরের সাম্রাটে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র মনাফকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

জরিপে এগিয়ে টিউলিপ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৩ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১৩৬ Time View

আমিনুল হক ওয়েছ লন্ডন থেকে:: লন্ডনের তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ আসন হ্যাম্পস্টিড অ্যান্ড কিলবার্ন থেকে লেবার দলের প্রার্থী হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি রেজওয়ানা সিদ্দিক টিউলিপ। অস্কারজয়ী অভিনেত্রী গ্লেন্ডা জ্যাকসন ১৯৯২ সাল থেকে এই আসনটিতে টানা এমপি নির্বাচিত হয়ে আসছেন। বার্ধক্যজনিত কারণে তিনি ইস্তফা দেওয়ার পর লেবার পার্টির প্রায় ৯শ সদস্যের সরাসরি ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী কাউন্সিলর স্যালি গিমসন ও হ্যাকনি কাউন্সিলের ডেপুটি মেয়র সোফি লিন্ডেনকে পরাজিত করে মনোনয়ন লাভ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোটবোন শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপ সিদ্দিক।
সাম্প্রতিক জরিপগুলোয় দেখা গেছে, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে টিউলিপই এগিয়ে আছেন। তাকে নিয়ে ব্রিটেনের গণমাধ্যমেও ফলাও করে প্রতিবেদন ছাপা হচ্ছে। ৩২ বছর বয়সি টিউলিপের মাধ্যমে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের নির্বাচনী আলোচনায় উঠে এসেছে বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামও। মাত্র ১৬ বছর বয়সে লেবার পার্টিতে যোগ দেন টিউলিপ।
আমাদের সময়কে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে রাজনীতিতে আসা প্রসঙ্গে টিউলিপ সিদ্দিক বলেন, আমার নানা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন বাংলাদেশের জাতির পিতা। আমার পরিবারের লোকেরা জনগণের সেবক। তারা সমাজে সমতা ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রাম করেছেন, করছেন। এটাই আমার রাজনীতিতে আসার বড় কারণ।
টিউলিপ বলেন, ২০১০ সালে হ্যাম্পস্টিড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ লড়াই হয়েছিল। গ্লেনডা জ্যাকসন প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ পার্টির প্রার্থীর চেয়ে মাত্র ৪২ ভোট বেশি পেয়েছিলেন। কাজেই আগামী ৭ মের নির্বাচনেও হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। লেবার পার্টি ক্ষমতায় এলে মানুষ কি উপকার পাবেন আমি সবার মাঝে তা তুলে ধরার চেষ্টা করছি।
নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির বিষয়ে টিউলিপ বলেন, বিজয়ী হলে বাড়ির ট্যাক্স, বাড়িভাড়া, ইমিগ্রেশন, ব্যাংক ঋণের বিষয়গুলোতে কল্যাণকর নতুন কিছু করব, সরকারি কল্যাণ ব্যয় হ্রাস করা, ধনীদের আয়ের ওপর কর-হার বৃদ্ধি এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি প্রতিষ্ঠানগুলোর সুযোগ বৃদ্ধি করা, হাউজিং ও মানসম্পন্ন সোশ্যাল হাউস নির্মাণ করা, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও শক্তিশালী স্থানীয় অর্থনীতি, স্থানীয় ব্যবসা-বাণিজ্যে সহায়তা, যুবসমাজের জন্য অধিকতর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ, কমিউনিটি সেফটি, বয়স্কদের সেবা ও ফ্রি হোম কেয়ার, শিল্প ও ঐতিহ্য, স্বাস্থ্যসেবায় জিপি সার্জারিতে ফান্ডিং, ছাত্রছাত্রীদের টিউশন ফি কমিয়ে আনার বিষয়ে আমি সচেষ্ট হব। এলাকার মানুষের যে কোনো সমস্যা সমাধানে আমি থাকব। এসব কল্যাণ সাধনে লেবার পার্টিকে ক্ষমতায় দেখতে চাই। এড মিলিব্যান্ডকে আমরা প্রধানমন্ত্রী বানাতে চাই।
কাজের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে টিউলিপ বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী গর্ডন ব্রাউন, লেবার লিডার এড মিলিবান্ডের ক্যাম্পেইনে কাজ করেছি। এছাড়া এমপি টিসা জোয়েলের পলিসি অ্যাডভাইজার, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, সেভ দ্য চিলড্রেন, বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো আসনের সাবেক লেবার এমপি ওনা কিং, টুটিং এলাকার লেবার এমপি ও সাবেক মন্ত্রী সাদেক খান, লেইটন ওয়ানস্টেড এলাকার সাবেক লেবার এমপি হ্যারি কোহেনের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। এমপি হিসেবে নির্বাচিত হলে সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে চাই।
টিউলিপ বলেন, গত বছরের ১৫ জুলাই প্রার্থী হিসেবে আমি মনোনয়ন পাওয়ার পরদিন সকাল ৯টা থেকেই নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছি। নির্বাচনী এলাকা সম্পর্কেও আমার ভালো ধারণা রয়েছে। প্রতিদিন মানুষের দরজায় গিয়ে কড়া নাড়ছি, লিফলেট বিলি করছি। কিন্তু আমার আসল কাজ এখনো রয়ে গেছে। সে কাজটি হচ্ছে নির্বাচনে হ্যাম্পটেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনে লেবার দলকে জয়ী করা। এ জন্য আরও কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছি।নতুন প্রজন্মের মূলধারার রাজনীতিতে আসার বিষয়ে টিউলিপ বলেন, রুশনারা আলীর মতো ব্যক্তিত্বরাই আমাদের রাজনীতিতে আসার সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরণা। উনাকে দেখে আমরা আরও সাহস পেয়েছি, শিখেছি কীভাবে প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করতে হয়। তিনি বলেন, মেধাবী নতুন প্রজন্মকে লেবার রাজনীতি সব সময় স্বাগত জানায়। রুশনারা আলী ২০১০ সালে এমপি হয়ে যাত্রা শুরু করেছিলেন। সে যাত্রায় আমরাও তার সহযোগী। ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বাংলাদেশিদের আরও প্রতিনিধিত্ব বাড়বে আমার বিশ্বাস।
যুক্তরাজ্য প্রবাসী বাঙালিদের সহযোগিতা কামনা করে টিউলিপ বলেন, নানা ও খালার মতো আমিও সবার সহযোগিতা চাই। আশা করছি, এমপি নির্বাচনে আমাকে সবাই সহযোগিতা করবেন।
টিউলিপ বলেন, টোরি সরকারের বৈরি নীতির কারণে অভিবাসী মানুষ কষ্টে আছে। অভিবাসীরা ব্রিটেনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। তবু তাদের নিয়ে নানা নেতিবাচক প্রচারণা চালানো হচ্ছে। তাই ব্রিটেনের নিম্নবিত্ত মানুষের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সামাজিক উন্নয়ন নিশ্চিত ও অভিবাসনসহ বিভিন্ন বিষয়ে লেবার পার্টির বিকল্প নেই। গত ৫ বছরের কোয়ালিশন সরকারের সমালোচনা করে টিউলিপ বলেন, শুধু ইমিগ্রেশন নয়, স্বাস্থ্য ও অর্থনীতিসহ সব সেক্টরেই কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্বাধীন জোট সরকার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে।
১৯৮২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর লন্ডনের মিচহ্যামে জন্মগ্রহণ করেন টিউলিপ। ইউনিভার্সিটি কলেজ অব লন্ডন থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক এবং কিংস কলেজ থেকে একই বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের পর ২০১১ সালে তিনি পলিটিকস পলিসি অ্যান্ড গভর্নমেন্ট বিষয়ে দ্বিতীয়বার স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন। টিউলিপের বাল্যকাল কেটেছে বাংলাদেশ, ব্রুনাই, ভারত, সিঙ্গাপুর ও স্পেনে। ২০১০ সালের মে মাসে তিনি ক্যামডেন রিজেন্ট পার্ক ওয়ার্ডের প্রথম বাঙালি মহিলা কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। টিউলিপ তার স্বামী ক্রিশ্চিয়ান পার্সির সঙ্গে বর্তমানে ওয়েস্ট হ্যাম্পস্টিডে বাস করছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24