মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:১৬ পূর্বাহ্ন

জলমগ্ন হাওরে ধান তুলতে কৃষকদের সীমাহীন কষ্ট তারপরও বেঁচে থাকার সংগ্রামে প্রাণপণ লড়াই

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০১৫
  • ৯৪ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক::চোখের সামনে নিজের কষ্টার্জিত সোনালী ফসল তলিয়ে যাচ্ছে। আর আমি চেয়ে চেয়ে দেখছি এর চেয়ে বড় কষ্ট আর নেই। তাই শিশু সন্তানকে নিয়েই চেষ্ঠা করছি পানি থেকে ধান কাটার। গতকাল সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওরপাড়ের জলমগ্ন জমিতে ছেলে বাবার ধান তোলার দৃশ্য ক্যামেরাবন্ধিকালে দুঃখ ভরাকন্ঠে এমন কষ্টের কথা জানান নলুয়ার হাওরের কৃষক গৌছ মিয়া। তিনি বলেন, অনেক ধার দেনা করে ২০ কেদার জমি বর্গাচাষ করেছি। গৃহস্থকে ধান দিয়ে সারা বছরের আহার জোগাড়ের সোনালী স্বপ্ন বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। শ্রমিক সংকটের কারণে পাকা ধান কাটতে পারছিন না। তাই রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেছে জানিয়ে তিনি বলেন, ২০ কেদার জমির মধ্যে ইতিমধ্যে ১০ কেদার জমির ধান তুলতে পেরেছি। হাওরে পানি ঢুকে চার কেদার জমি তলিয়ে গেছে। তাই শ্রমিক না পেয়ে শিশু সন্তানকে নিয়ে পানিতে ধান কাটতে নেমেছি। শুধু গৌছ মিয়াই নন হাওরে এবার
অনেক কৃষক কৃষি শ্রমিক সংকটের কারণে পাকা ধান গোলায় তুলতে পারছেন না। কৃষকরা জানান,প্রতি বছর ধান কাটার মৌসুমে দেশের উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে ধান কাটার নাইয়া (শ্রমিক) আসত। এবার পর্যাপ্ত শ্রমিক না আসায় কৃষকরা বিপাকে পড়েছেন।
ভূরাখালি গ্রামের কৃষক রফিক মিয়া বলেন, কয়েকদিনের টানা বর্ষনে জমির পাকা ধান তলিয়ে গেছে। চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া কিছু করার ছিল না। তিনি বলেন, অনেক চেষ্ঠা করেও শ্রমিক না পাওয়ায় ধান কাটতে পারিনি।
ইসমাইল চক গ্রামের কৃষক সুনু মিয়া বলেন, এবার হাওরে বাম্পার ফলন হয়েছিল। ধান কাটাও শুরু করেছিলাম। ছিল না অকাল বন্যার ভাব তারপরও কয়েক দিনের ভারি বর্ষণে তিন কেদার জমির ফলন তলিয়ে গেছে। তিনি জানান, দুই হাল জমির মধ্যে সব কাটতে পারলেও তিন কেটার কাটতে পারেননি।
সরেজমিনে নলুয়ার হাওর ঘুরে দেখা গেছে, হাওরের নি¤œাঞ্চলের জমিগুলোতে বৃষ্টির পানি জমে রয়েছে। পাকা ধানের সোনালী আভা দেখা গেলেও শ্রমিক সংকটের কারণে ঠিকমতো কাটা যাচ্ছে না। তারপরও কৃষকরা অনেক কষ্ট করে পানির মধ্যে থেকে ধান কাটছেন। কেউবা ধান কাটার পর নৌকা দিয়ে ধান বোঝাই করে শুকনো জায়গায় এনে রাখছেন। তারপর মাড়াই দিয়ে বাড়িতে আনছেন। কৃষকদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, এবার কৃষকরা ধান তুলতে গিয়ে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। মইয়ার হাওরের বড় ডহর বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে হাওরে পানি প্রবেশ করায় কয়েক শত একর জমি পানিতে তলিয়ে গেছে। এছাড়াও বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধতা তৈরী হওয়ায় ধান কাটতে অনেক কষ্ট হচ্ছে। ভেজা ধান বাড়িতে আনতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে কৃষকদেরকে। এছাড়াও অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা ও পরিবহণের সুব্যবস্থা না থাকায় ধান আনতে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন কৃষকরা। উপজেলার হাওর উন্নয়ণ পরিষদের সভাপতি শহিদুল ইসলাম জানান, নলুয়ার হাওরের রাস্তার অবস্থা খুব নাজুক যে কারণে কৃষকরা ধান আনতে খুব কষ্ট পাচ্ছেন। তিনি বলেন, বোরো মৌসুমে কৃষকরা মনের আনন্দে ধান কাটেন। কিন্তুু এবারের চিত্র ভীন্ন কারণ জমিতে পানি থাকায় কৃষকদেরকে পানির মধ্যে ধান কাটতে হচ্ছে। জোঁকের কারণে অনেক জমির ধান কাটা যাচ্ছে না।
বাঘমারা থেকে আসা কৃষি শ্রমিক সর্দার ময়না বেপারী বলেন, আমি প্রতি বছর ৪০ জন শ্রমিক নিয়ে জগন্নাথপুওে আসি এবার আমার সাথে এসেছেন ২০ জন শ্রমিক। এছাড়াও পানির মধ্যে কষ্টের জন্য সবাই ধান কাটতে চায় না বলে পাকা ধান কাটতে বিলম্ভ হচ্ছে।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্র জানায় নলুয়া ও মইয়ার হাওরে এবার ২১ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। অব্যাহত বর্ষন ও মইয়ার হাওরের বড় ডহর বাঁধ ভেঙ্গে প্রায় কমপক্ষে ৫ হাজার হেক্টর জমির ফসল তলিয়ে গেছে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান বলেন, মইয়ার হাওরের ৮০ ভাগ ধান কাটা শেষ হয়েছে অনেক আগেই। নলুয়ার হাওরের ৪০ ভাগ ধান কাটার বাকী রয়েছে। শ্রমিক সংকটের কারণে কৃষকরা এবার ধান কাটতে পারছেন না। তিনি বলেন, আমরা ক্ষয়ক্ষতি নিরূপনের কাজ করছি। প্রাথমিক ধারনায় মনে হচ্ছে, হেক্টর জমি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ণ পরিষদের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া বলেন, কৃষকরা এবার সীমাহীন দুর্ভোগের মধ্যে ধান তুলছেন। হাওরপাড়ের কৃষকদের দু:খ কষ্ট নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাস হবে না। তার মতে ধানের নায্যা মূল্যে না পেলে কৃষকরা এবার ক্ষতিগ্রস্থ হবেন। কারণ অব্যাহত ঝড়ো বৃষ্টিতে পাকা ধানের ফলন ঝড়ে যাওয়ায় কাঙ্খিত উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন না হওয়া ও ধান কাটা ও পরিবহণে ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় কৃষকরা চিন্তিত।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ বলেন, কৃষকরা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে দিন রাত পরিশ্রম করে আমাদের অর্থনীতির চাকাকে সচল রাখছেন। তাই কৃষকরা যাতে ধানের নায্য দাম পান সে বিষয় নিশ্চিত করতে হবে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির বলেন, কষ্ট হলেও কৃষকরা ধান কাটছেন। কারণ তাদের কষ্টার্জিত সোনালী ফসল পানিতে তলিয়ে যাবে এটা মেনে না নিয়ে কৃষকরা প্রাণপণ প্রচেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার মতে জগন্নাথপুরের হাওরগুলোতে কৃষকরা এবার কিছু ক্ষতিগ্রস্থ হলেও প্রথমে যে উৎসাহ উদ্দীপনায় ধান কাটছিলেন। শেষ সময় এসে বৈরী আবাহওয়া ও বাঁধ ভাঙ্গার কারণে দুর্ভোগে পড়ে গেছেন।
পানি উন্নয়ণ বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সাঈদ আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বড় ডহর বেড়িবাঁধটি দুর্বৃত্তরা মাছ শিকারের জন্য কেটে দেয়ায় কৃষকরা সামান্য ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। তবে আমরা বাঁধটি মেরামত করায় বড় ধরনের কোন ক্ষতি হয়নি। তিনি বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজে অবহেলার কারণে দুই পিআইসি সভাপতির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে বলে জানান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24