শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুরের সাম্রাটে সমাপনী পরীক্ষার্থীদের সংবর্ধনা জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র মনাফকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

জামামগঞ্জে ১৯ সদস্যের পরিবার ১৮ মাস বাড়ি ছাড়া

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ৬১ Time View

বিন্দু তালুকদার ও গোলাম সরোয়ার লিটন
পারিবারিক ঝগড়াকে কেন্দ্র করে ১৮ মাস ধরে বাড়ি ছাড়া আছে সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলী ইউনিয়নের মশালঘাট গ্রামের মৃত লাল মিয়ার ১৯ সদস্যের পরিবার।
২০১৭ সালের এপ্রিল মাস থেকে বাড়ি ছাড়া আছে গ্রামের ওই একান্নবর্তী কৃষক পরিবারটি। আপন চাচাতো ভাই রেজাউল করিম লিটনের পরিবারের ভয়ে বাড়ি আসতে পারছেন না বলে অভিযোগ মৃত লাল মিয়ার ছেলে নাহিদ হাসান বাচ্চুর পরিবারের লোকজনের। রেজাউল করিম লিটন গ্রামের মৃত আনোয়ার হোসেনের ছেলে ও নাহিদ হাসান বাচ্ছু মৃত লাল মিয়ার ছেলে। লাল মিয়া ও আনোয়ার হোসেন আপন ভাই ছিলেন।
বাচ্চুর অভিযোগ, বাড়িতে না থাকায় তাদের পাঁচ ভাইয়ের পরিবারের ঘরবাড়িও ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। লুট করেছে আসবাবপত্র। হাওরে কৃষি জমিও চাষ করতে দিচ্ছে না চাচাতো ভাইরা। দীর্ঘদিন ধরে বাড়িছাড়া থাকার কারণে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে বাচ্চুর পরিবারের লোকজন। বন্ধ হয়ে পড়েছে তাদের একমাত্র বোন অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ফারহানার লেখাপড়াও। বর্তমানে তার মা, ৫ ভাই ও বোন ফারহানা আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে আশ্রিত হিসেবে মানবেতর জীবন যাপন করছে।
জামালগঞ্জ থানার এএসআই সাঈদুর রহমান ও স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল বাতেন বলেন,‘ হামলার শিকার হতে পারে এই ভয়ে মৃত লাল মিয়ার পরিবারের লোকজন বাড়ি আসছেন না।’
তারা জানান, প্রতিপক্ষ চাচতো ভাই তাদের ঘরবাড়ি লুট করে নিয়েছে। এমনকি কৃষি জমিও করতে দিচ্ছে না। এ কারণে কৃষি নির্ভর ওই পরিবারটি সহায় সম্বলহীন হয়ে অন্যের বাড়িতে আশ্রিত হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।
স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, মোস্তফা মিয়া, আনোয়ার মিয়া, লাল মিয়া ও চান মিয়া একই মায়ের গর্ভে জন্ম নেওয়া চার ভাই। এই চার ভাইয়ের কেউই এখন আর বেঁেচ নেই। জীবদ্দশায় জায়গা সম্পদ নিয়ে ওই চার ভাইয়ের মধ্যে মনোমালিন্য ছিল। জায়গা সম্পদ নিয়ে মামলাও ছিল। আর এরই ধারাবাহিকতায় জায়গা সম্পদ নিয়ে তাদের উত্তরসূরিরা এখনও বিবাদে লিপ্ত। ২০১৭ সালের ১৭ এপ্রিল মৃত আনোয়ার ও চাঁন মিয়ার পরিবারের সাথে মৃত লাল মিয়ার পরিবারের সংঘর্ষ হয়। এ নিয়ে দুই পক্ষেই মামলা পাল্টা মামলা হয়। দুই পক্ষই এখন আদালত থেকে জামিনে থাকলেও লাল মিয়ার পরিবারের কেউই বাড়ি ফিরতে পারছেন না।
তবে জামালগঞ্জ থানার ওসি আবুল হাসেম জানিয়েছেন, লাল মিয়ার ছেলে নাহিদ হাসান বাচ্চুর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করার জন্য খোঁজছে। অন্যরা হয়তো আবারও মারামারি হতে পারে এই ভয়ে বাড়ি আসে না।
স্থানীয় ও মামলার কাগজপত্র থেকে জানা যায়, ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে মশালঘাট গ্রামের বাসিন্দা চাচাত দুই ভাই নাহিদ হাসান বাচ্চুর পরিবার ও রেজাউল করিম লিটনের পরিবারের মধ্যে ঝগড়া হয়। ঝগড়ায় আহত হওয়ার ঘটনা ঘটে এবং পরস্পরকে আসামী করে দুইটি মামলা হয়। প্রথম মামলাটি করেন রেজাউল করিম লিটন। লিটন মামলায় আসামী করেন আপন চাচা লাল মিয়ার স্ত্রী, লাল মিয়ার ৫ ছেলে ও দুই পুত্রবধূসহ ৮ জনকে। এই মামলার পর লাল মিয়ার ৪ নম্বর ছেলে আবু সাঈদও একটি মামলা করেন। আবু সাঈদ আসামী করেন তার আপন বড় চাচা আনোয়ার মিয়ার স্ত্রী, আনোয়ার মিয়ার চার ছেলে, এক মেয়ে, দুই পুত্রবধূ, আনোয়ার মিয়ার ছোট ভাই মৃত চাঁন মিয়ার স্ত্রী, দুই ছেলে, দুই বউ, তিন মেয়ে, চান মিয়ার এক মেয়ের জামাই ও এক নাতিকে।
জামালগঞ্জ থানার এএসআই সাঈদুর রহমান বলেন,‘লুটপাট ও বিভিন্ন ধরনের হুমকি ধামকির কারণে মৃত লাল মিয়ার পরিবারের গ্রাম ছাড়া হওয়ার লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পাই।’
গ্রাম ছাড়া নাহিদ হাসান বাচ্চু বলেন, ‘পারিবারিক জায়গা সম্পদের বিরোধে ঝগড়া হয়েছিল। এতে দুই পক্ষই আহত হয়েছে। কিন্তু আমরা ১৯ সদস্যের পরিবার ১৯ মাস ধরে বাড়ি যেতে পারছি না। আমাদের একমাত্র অবলম্বন হাওরের কৃষি জমিও চাষ করতে পারছি না। নিঃস্ব হয়ে পরিবারের লোকজন ৪টি উপজেলায় আশ্রিত হয়ে খুবই কষ্টে দিন কাটাচ্ছি।’
অভিযুক্ত রেজাউল করিম লিটন বলেন,‘আমার চার ভাই ও এক বোনকে এরা (বাচ্ছুর পরিবার) দা দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করেছে। এই অপরাধবোধ থেকেই তারা বাড়ি আসছে না।’ তবে লুটপাট ও বাড়ি ভাঙ্গচুরের ঘটনাটি সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে দাবি করেন তিনি।
স্থানীয় বেহেলী ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুল বাতেন বলেন,‘ আমরা অনেকবার চেষ্টা করেছি পরিবারটিকে গ্রামে ফিরিয়ে আনতে আর বিষয়টি মীমাংসা করে দিতে। কিন্তু লিটনের পরিবার থেকে সহযোগিতা পাচ্ছি না।’
জামালগঞ্জ থানার ওসি মো. আবুল হাসেম বলেন,‘ জমি-জমা নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে বিরোধ দীর্ঘদিনের। মারামারি নিয়ে দুইপক্ষের মামলা আদালতে চলমান রয়েছে। শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থানের বিষয়ে দুই পক্ষকে থানায় ডেকে আপোষ নিষ্পত্তি করে দেয়া হয়েছে। তবে নাহিদ হাসান বাচ্চুর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। পুলিশ তাকে গ্রেফতারের জন্য খোঁজছে। হয়ত আবারও বিরোধ বা মারামারি হওয়ার ভয়েই তারা বাড়িতে আসে না। ’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24