রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন নিয়ে ফের নীরবতা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১২ জুলাই, ২০১৭
  • ৩৪ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি ::
গত রমজানে তোড়জোড় শুরু হয়েছিল আওয়ামী লীগের জেলা কমিটি গঠনের। তারপর আবারও নীরবতা। গত দেড় বছর ধরে এভাবেই তৃণমূলের হাজার হাজার নেতাকর্মীদের নিয়ে সাপ-লুডু খেলছেন শীর্ষ নেতারা। পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রকাশ না করায় হতাশ তারা। ২০১৯ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে রাজপথের সক্রিয় ও ত্যাগীদের দিয়ে দ্রুত পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের দাবি জানিয়েছেন তৃণমূল নেতৃবৃন্দ।
তৃণমূল আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২০১৬ সনের ২৫ ফেব্রুয়ারি উৎসবমুখর পরিবেশে প্রায় দেড়যুগ পরে জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের প্রধান অতিথি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সভাপতি হিসেবে আলহাজ্ব মতিউর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক পদে ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমনের নাম ঘোষণা করেন। সম্মেলনকে কেন্দ্র করে ঝিমিয়ে পড়া তৃণমূল আবার উজ্জীবিত হলেও পরবর্তীতে অনৈক্য ও প্রকাশ্য বিরোধিতার কারণে কর্মীদের ধরে রাখতে পারেননি সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। দুই নেতা দুই বলয়ে তৃণমূল কর্মীদের বিভক্তি করে পথচলায় দলের প্রতি নিবেদিতপ্রাণ কর্মীরা আরো হতাশ হন। গত দেড় বছরে তৃণমূলকে চাঙ্গা করতে কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। বরং কর্মসূচি পালনের নামে তাদের মধ্যে আরো গভীরভাবে বিভক্তি রেখা টানা হয়েছে। এখন পর্যন্ত গত দেড় বছরে বড় কোন অনুষ্ঠান করতে দেখা যায়নি কমিটির দুই শীর্ষ নেতাকে।
জানা গেছে, গত মাসে কেন্দ্রের কাছে পূর্ণাঙ্গ কমিটির জন্য পৃথকভাবে তালিকা দেন সভাপতি মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন। ব্যারিস্টার ইমন মাঝে-মধ্যে সাংসদদের নিয়ে তাদের এলাকায় বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকা-ের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকছেন। ব্যারিস্টার ইমনের অনুসারীরা জেলা শহরে তাঁর নির্দেশে কর্মসূচি পালন করেন। অন্যদিকে সভাপতি মতিউর রহমান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট ও পৌর মেয়র আয়ূব বখত জগলুলকে টেনে এনে কিছু অনুষ্ঠান করছেন। দুই নেতার একজনও জেলা শহরে তৃণমূল কর্মীদের নিয়ে বড় কোন অনুষ্ঠান করতে পারেননি। তাছাড়া তৃণমূল নেতাকর্মীরা জরুরি প্রয়োজনে তাদেরকে এলাকায় না পাওয়ায় হতাশায় নিয়মিত ভোগেন।
তৃণমূল কর্মীরা জানান, ২০১৯ সনের জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নিজের ইচ্ছে মতো মনোনয়ন পেতে একই আসনের জন্য প্রচারণা চালাচ্ছেন। এ বিষয়ে তৃণমূলের কোন মতামত নিচ্ছেননা তারা। বরং নিজের বলয়ের কিছু কর্মীদের নিয়ে তারা মনোনয়নের প্রচার চালাচ্ছেন বলে তৃণমূল কর্মীদের অভিযোগ।
নেতাকর্মীদের অভিযোগ, গত দেড় যুগ ধরে দ্বন্দ্ব-কোন্দলে জর্জরিত তৃণমূল। গত স্থানীয় নির্বাচনগুলোতে এই কোন্দলের কারণে এবং প্রার্থী বাছাইয়ে ভুল সিদ্ধান্তের কারণে স্থানীয় নির্বাচনে ভরাডুবি ঘটেছে আওয়ামী লীগের। স্থানীয় নির্বাচনে দ্বন্দ্ব-কোন্দলের কারণে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুক্তাদীর আহমদকে বহিষ্কার করা হয়। তার সঙ্গে একই সময়ে সিলেট মহানগর আ.লীগ নেতা জগলু চৌধুরীকে বহিষ্কার করে ফের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হলেও মুক্তাদীর আহমদের ক্ষেত্রে তা হয়নি। এ কারণে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের একটি অংশ হতাশ। আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে তৃণমূলের সকল কর্মীকে ঐক্যবদ্ধ করতে না পারলে নির্বাচনে বিরাট প্রভাব পড়বে বলে মনে করেন প্রবীণ নেতাকর্মীরা।
জানা গেছে, ঐতিহ্যবাহী এই দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দলীয় আদর্শ, চেতনা, প্রগতিমুখী চিন্তা বিকাশে এখন পর্যন্ত কোন উদ্যোগ নেননি। তৃণমূল কর্মীদের নিয়ে কখনো কর্মশালাও করতে পারেনি সংগঠনটি। দলীয় গঠনতন্ত্রসহ দলটির মৌলিক আদর্শ সম্পর্কে জানেনা নতুন প্রজন্মের নেতাকর্মী। তারা এদিকে দৃষ্টি আকর্ষণের আহ্বান জানান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের। তাছাড়া তৃণমূল নেতাকর্মীরা বলছেন দলটিতে মাঠে থেকে সার্বক্ষণিক শ্রম দিয়েছেন, দলের জন্য ত্যাগ করেছেন এমন নেতাদের বদলে সুবিধাবাদী কিছু ব্যক্তিকে আশ্রয় দেওয়া হচ্ছে। এতে তৃণমূল কর্মীরা আরো দূরে সরে যাচ্ছে। মাঠে নড়বড়ে হচ্ছে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক অবস্থা। মনোবলে চিড় ধরেছে তৃণমূল আওয়ামী লীগের কর্মীদের। তারা নানা কারণে হতাশায় নিমজ্জিত থাকলেও তাদের খোঁজ-খবর নিচ্ছেনা কেউ।
জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ একাধিক নেতা জানান, দ্রুত পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন না হলে নেতাকর্মীদের মধ্যে মানসিক দূরত্ব আরো বাড়বে। সৃষ্টি হবে দ্বন্দ্ব-কোন্দলের।
জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও বিশিষ্ট আইনজীবী আক্তারুজ্জামান আহমাদ সেলিম বলেন, তৃণমূল কর্মীরা হলেন আওয়ামী লীগের প্রাণ। নানা কারণে তাদের মনোবল ভেঙ্গে যাচ্ছে। তাদের প্রকৃত মূল্যায়ন হবে যদি আসন্ন কমিটিতে স্থান পান। এই নেতা দ্রুত পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রকাশের আহ্বান জানান।
পৌর মেয়র ও আ.লীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য আয়ূব বখত জগলুল বলেন, দেড় বছর হয়ে গেছে। পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের লক্ষণ নেই। এ কারণে আ.লীগের হাজার হাজার নেতাকর্মী হতাশ। তারা নেতাদের কোন নির্দেশনা পাচ্ছেনা। যার ফলে গত জাতীয় নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী থাকার পরও তারা বিভক্ত ছিলেন। শীঘ্রই পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করে আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে তাদের ঐক্যবদ্ধ করার উদ্যোগ নিতে হবে। যেসব নেতাকে তারা নিয়মিত এলাকায় পান তাদেরই কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদ দেওয়ার অনুরোধ জানান তিনি।
জেলা আ.লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমানের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলেও তিনি ফোন ধরেননি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24