সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:০২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের! জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত

জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি স্মরনের বিরুদ্ধে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ- জগন্নাথপুর ঘৃনার ঝড় চলছে

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৩ আগস্ট, ২০১৫
  • ১০৪ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি:: সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফজলে রাব্বি স্মরনের বিরুদ্ধে জগন্নাথপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সন্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠনে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। গত তিন দিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছাত্রলীগের নেতাকমীরা এরখম অভিযোগ তুলেছেন। এছাড়াও জগন্নাথপুরের রাজপথে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফজলে রাব্বি স্মরণ ও সাধারণ সম্পাদক রফিক চৌধুরীর বিরুদ্ধে ঝাঁড়ু ও জুতা মিছিল করে তাদেরকে অবাঞ্চিত ঘোষনা করে বিক্ষোভ মিছিল প্রতিবাদ সভা চলছে। ইতিমধ্যে স্মরণ তার কমিটির পক্ষে জগন্নাথপুরের বেশ কয়েকজন নেতার সাথে যোগাযোগ করলেও তার ঘোষিত কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে দুদিন ধরে মাঠে দেখা যাচ্ছে না। তার ঘোষিত সন্মেলন প্রস্তুতি কমিটির অধিকাংশ নেতাকমীকে জগন্নাথপুর উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাকমীরা কখনও রাজনৈতিক মাঠে দেখেননি। এমনকি তাদের কে চিনেন না দলীয় নেতাকমীরা। অভিযোগ উঠেছে স্মরণ মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে তাদের নাম কমিটিতে বিভিন্ন পদে অন্তভূক্ত করেছে। স্মরণ –রফিকের ঘোষিত অগঠনতান্ত্রিক কমিটি জগন্নাথপুর উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাকমীরা প্রত্যাখান করে রাজপথে সরব রয়েছে। পুরো জগন্নাথপুর জুড়ে নিন্দা ও ঘৃনার ঝড় উঠেছে। প্রয়াত জেলা আওয়ামীলীগ নেতা গোলাম রব্বানী ও মহিলা সংসদ সদস্য শাহানা রববানীর ইমেজকে ধ্বংস করে তাদের পুত্র স্মরনের ছাত্রলীগ নিয়ে বাণ্যিজের ঘটনায় জগন্নাথপুরে ক্ষোভের আগুন জ্বলছে। শোকের মাসে কমিটি থাকাবস্থায় অগঠনতান্ত্রিক ভাবে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে কমিটি গঠন করায় আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় নেতা মন্ত্রী এম এ মান্নানসহ জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতারাও ক্ষুব্দ।অভিযোগ উঠেছে স্মরণ তার নিজের পদ পদবি টিকিয়ে রাখতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সন্মেলনের আগে জগন্নাথপুর উপজেলা ছাত্রলীগের নেতা শাহ সাহেদ ও রুমেন মিয়ার কাছ থেকে দুই লক্ষ টাকা করে চার লক্ষ টাকা নেন। এছাড়াও সহ-সভাপতি যুগ্স সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য অনেকের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নেন। শাহেদ ও রুমেনের টাকা দেয়ার বিষয়টি তাদের ঘনিষ্টজনেরা স্বীকার করেছেন। অভিযোগ উঠেছে সুচতুর স্মরণ জগন্নাখপুর উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাকমীদের পদে স্থান দেয়ার কথা বলে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে সদ্য বিলুপ্ত কেন্দ্রীয় কমিটিকে দিয়ে তার কমিটি বহাল রেখেছে। নতুবা কেন্দ্রীয় সন্মেলনের আগে সুনামগঞ্জ জেলা সন্মেলন হওয়ার কথা। এছাড়াও স্মরণ কমিটি দেয়ার নাম করে দীঘদিন ধরে প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুরের ছাত্রলীগ নেতাকমীদের কাছ থেকে দামী দামী মুঠোফোন হাতিয়ে নিয়েছেন। এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গত কয়েকদিন ধরে স্মরণের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও ঘৃনার ঝড় বইছে। ছাত্রলীগের নেতাকমীরা তার কুশপত্তলিকা দাহ করেছেন। তবে কুশপত্তলিকা দাহ থেকে রক্ষা পান স্মরনের সহযোগী জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদ চৌধুরী। স্মরনের কুশপত্তলিকা দাহ করার চলাকালে রফিকের কুশপত্তলিকার প্রতিক টি চুরি হয়ে যাওয়া দাহ থেকে রক্ষা পান রফিক। ছাত্রলীগের নেতাকমীরা জানান, রফিক তার নিজের কমিটির অসিত্ব টিকিয়ে রাখতে স্মরনের সাথে হাত মিলানোর কারণে কমিটি অনুমোদন ও বাণ্যিজ্য নিয়ে কোন কথা বলতে পারছেন না। স্মরণ একাই সবকিছু সামাল দিচ্ছেন আর রফিক চেয়ে চেয়ে দেখছেন। নাম প্রকাশ না করে একজন ছাত্রলীগ নেতা বলেন, সঙ্গ গুনে লোহা জলে ভাসে। রফিক-স্মরনের সাথে হাত মিলাতে গিয়ে আজ ইমেজ সংকটে পড়েছে। এর আগে তার একটা ইমেজ ছিল। তোহা চৌধুরী নামের এক ছাত্রলীগ নেতা তার নিজ ফেসবুক আইডি থেকে জগন্নাখপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সন্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠনে ২০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ করেন। তার অভিযোগ অগঠনতান্ত্রিকভাবে শোকের মাসে স্মরণ- রফিক একটি অবৈধ কমিটি দিয়ে জগন্নাথপুর ছাত্রলীগে বিবাধ সৃষ্টি করেছে। তোহাসহ ছাত্রলীগের ত্যাগী নেতাকমীরা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা সাফরোজ ইসলাম বলেন, দলের পরিক্ষিত ত্যাগী নেতাকমীদের মূল্যায়ন না করে বিএনপি জামাত ও দলের দুদিনের বেইমানদের দিয়ে য়ে অবৈধ কমিটি গঠন করা হয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকমীরা তা মানতে পারে না। এ কমিটিকে রাজপথে প্রতিহত করতে আমরা প্রস্তুত। আরেক ছাত্রলীগ নেতা উপজেলা ছাত্রলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কল্যাণ কান্তি রায় সানী বলেন,জগন্নাথপুরের মাটি আওয়ামীলীগের ঘাটি। আমরা আমাদের প্রিয় নেতা আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মন্ত্রী এম এ মান্নান ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি প্রবীণ রাজনীতিবীদ সিদ্দিক আহমদের নেতৃত্বে রাজনীতি করি। তাদের আশিব্বাদে আমরা আমাদের সাংগঠনিক কাজ চালিয়ে যাব। অবৈধ কমিটির স্থান জগন্নাথপুরের মাটিতে হবে না।
জগন্নাথপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মুজিবুর রহমান মুজিব ও সাধারণ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন জুয়েল সন্মেলন প্রস্তুতি কমিটিকে হাস্যকর ও অগঠতান্ত্রিক উল্লেখ করে বলেন,ঘোষিত কমিটির ৩৫ সদস্যর মধ্যে কমপক্ষে ২০ সদস্যর রাজনৈতিক অসিত্ব নেই। তাদেরকে রাজনৈতিকভাবে আমরা চিনি না। এছাড়াও শোকের মাসে কমিটির নামে বিবাধ সৃষ্টি করায় নেতাকমীদের হতাশ হয়েছেন। তারা বলেণ, জগন্না্রথপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সক্রিয় কমিটি অব্যাহত আছে। এই কমিটির মাধ্যমে ছাত্রলীগ চলবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24