সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:২০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

জেলা পরিষদ নির্বাচনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০১৫
  • ৪৬ Time View

জেলা পরিষদ নির্বাচনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা শক্তিশালী করার লক্ষ্যে গুরুত্বপূর্ণ এ প্রতিষ্ঠানটিকে আরও কার্যকর করতে এ উদ্যোগ নিয়েছে। ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত চেয়ারম্যানসহ পূর্ণাঙ্গ জেলা পরিষদ গঠনের বিষয়টি সরকারের নীতি-নির্ধারণী মহলে আলোচনা চলছে। সংশ্লিষ্টদের মতে, জেলা পরিষদে নির্বাচন দেয়ার মাধ্যমে অনির্বাচিত প্রশাসকদের শাসনের অবসান ঘটতে যাচ্ছে। দলীয় বিবেচনায় নিয়োগ পাওয়া দেশের ৬১ জেলার বেশিরভাগ প্রশাসকের লাগামহীন অনিয়ম-দুর্নীতিতে বিব্রত সরকার বর্তমান অবস্থার পরিবর্তন আনতে এ উদ্যোগ নিয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
জেলা পরিষদে নির্বাচন দেয়ার বিষয়ে বুধবার সরকারের অবস্থান স্পষ্ট করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন। সচিবালয়ে ডিসি সম্মেলন থেকে বেরিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বর্তমানে জেলা পরিষদে প্রশাসক নিয়োজিত রয়েছে। নির্বাচন দেয়ার বিষয়টি সরকারের সক্রিয় বিবেচনাধীন রয়েছে। এ সময় মন্ত্রীর পাশে একই মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. মসিউর রহমান রাঙ্গা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জেলা পরিষদে নির্বাচনের ঈঙ্গিত দেন। ৫ জুন জাতীয় সংসদে বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, অদূর ভবিষ্যতে জেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
পার্বত্য চট্টগ্রামের তিনটি জেলা বাদে বাকি ৬১টি জেলা পরিষদে ২০১১ সালের ১৫ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাদের প্রশাসক নিয়োগ করে সরকার। তখন স্থানীয় সরকার বিভাগসহ সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিরা বলেছিলেন, ছয় মাসের মধ্যে নির্বাচন দিয়ে জেলা পরিষদ গঠন করা হবে। এর পর সাড়ে তিন বছরের বেশি সময় পর জেলা পরিষদের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আইন অনুযায়ী, একজন চেয়ারম্যান, ১৫ জন সদস্য ও সংরক্ষিত আসনের পাঁচজন নারী সদস্য নিয়ে জেলা পরিষদ গঠন করা হবে। চেয়ারম্যান ও এই ২০ জন সদস্যকে নির্বাচন করবেন সংশ্লিষ্ট এলাকার সিটি কর্পোরেশন (থাকলে), উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত প্রতিনিধিরা।
জেলা পরিষদ নির্বাচন প্রসঙ্গে বিএনপি তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে নির্বাচন না হওয়ায় জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলটির অংশ নেয়ার বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হলে অংশ নেয়া বা না নেয়ার বিষয়ে দলটির সর্বোচ্চ ফোরামে আলোচনা হবে। এর আগে স্থানীয় সরকারভুক্ত সিটি কর্পোরেশন ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনগুলোতে অংশ নিয়েছিল বিএনপি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন যুগান্তরকে বলেন, নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা হোক, তারপর বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এখন পর্যন্ত বিষয়টি নিয়ে দলের ভেতরে আলোচনা হয়নি। একই ধরনের মন্তব্য করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার (অব.) আ স ম হান্নান শাহ।
স্থানীয় সরকার বিভাগ সূত্র জানায়, স্থানীয় সরকারের গুরুত্বপূর্ণ এ প্রতিষ্ঠানের নির্বাচনের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগও প্রস্তুত। সরকারের শীর্ষমহলের সবুজ সংকেত পাওয়ার পরই জেলা পরিষদগুলোতে নির্বাচনের আয়োজন করতে নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) অনুরোধ জানানো হবে। এদিকে নির্বাচন কমিশন সূত্র জানিয়েছে, জেলা পরিষদ নির্বাচনের বিষয়ে সরকারের কোনো নির্দেশনা পাওয়া যায়নি। স্থানীয় সরকার বিভাগের নির্দেশনা পেলেই নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হবে। এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে নির্বাচন কমিশন সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, জেলা পরিষদে নির্বাচনের বিষয়ে সরকার থেকে কোনো চিঠি পাইনি। স্থানীয় সরকার বিভাগ যদি নির্বাচনের আয়োজন করতে বলে আমরা বিষয়টি দেখব।
স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞদের মতে, এভাবে দীর্ঘদিন ধরে অনির্বাচিত ব্যক্তিদের দিয়ে জেলা পরিষদ পরিচালনা করানো কোনোভাবেই ঠিক নয়। এতে জবাবদিহি থাকে না। নির্বাচন বিশেষজ্ঞ ও সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন যুগান্তরকে বলেন, সংবিধান ও উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীনস্থ সংস্থাগুলো জেলা পরিষদ, উপজেলা, ইউনিয়ন পরিষদ জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে পরিচালনার কথা। কিন্তু জেলা পরিষদে অনির্বাচিতদের প্রশাসক নিয়োগ দেয়ায় সংবিধানের লংঘন হচ্ছে। অনির্বাচিত প্রশাসকদের খামখেয়ালিপনায় চলছে জেলা পরিষদের কার্যক্রম।
এর আগে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) এক সংবাদ সম্মেলনে জানায়, প্রশাসনিক জটিলতা ও রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবে বাংলাদেশের জেলা পরিষদগুলো অকার্যকর প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছ। সংস্থাটির প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বাংলাদেশের স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করতে যে জেলা পরিষদ গঠন করা হয়েছিল, সেখানে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি না থাকাই এটি অকার্যকর হওয়ার অন্যতম কারণ। প্রশাসক নিয়োগের মাধ্যমে জেলা পরিষদকে স্থবির করে রাখা হয়েছে বলেও বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ করা হয়।
সংশ্লিষ্টরা জানান, স্থানীয় সরকারের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ স্তর জেলা পরিষদ ১২টি বাধ্যতামূলক কাজ করে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে জেলার সব উন্নয়ন কার্যক্রম পর্যালোচনা, উপজেলা পরিষদ ও পৌরসভার নেয়া প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা, জনসাধারণের ব্যবহারে উদ্যান, খেলার মাঠ ও উন্মুক্ত স্থানের ব্যবস্থা ও রক্ষণাবেক্ষণ। এছাড়া শিক্ষা, সংস্কৃতি, সমাজকল্যাণ, জনস্বাস্থ্য, অর্থনৈতিক কল্যাণসহ কিছু ঐচ্ছিক কাজও করবে। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জেলার উন্নয়নমূলক কমিটির সভাপতি। তবে নির্বাচন না হওয়ায় বর্তমানে সরকারের নিযুক্ত প্রশাসকরাই এ কমিটির সভাপতি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বেশিরভাগ জেলা প্রশাসক অনিয়ম-দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েছেন। ভুয়া প্রকল্পের নামে হরিলুট শুরু করেছেন। এসব অভিযোগ নিয়ে দলের ভেতরে ও বাইরে সমালোচনা চলছে। বিষয়টি নিয়ে দলীয় বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে রয়েছেন। অনেক জেলায় প্রশাসকদের ও তার অনুসারীদের সঙ্গে দলীয় নেতাকর্মীদের প্রকাশ্য বিভেদ দেখা দিয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24