মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ১২:২৩ পূর্বাহ্ন

জৌলুস হারাচ্ছে কারী ক্যাপিটেল খ্যাত ব্রিকলেন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬
  • ৩৩ Time View

আমিনুল হক ওয়েছ: পুরো বৃটেনের রেস্টুরেন্ট সেক্টরের সংকটের মতোই জৌলুস হারাচ্ছে কারী ক্যাপিটেল খ্যাত ব্রিকলেন। মাত্র কয়েক বছর আগেও ব্রিকলেনে বাংলাদেশী মালিকানাধীন প্রায় ৫৫টি কারী হাউস ছিল। আর এখন রয়েছে ত্রিশটির মতো। তবে শুধুমাত্র স্টাফ সর্টেজ বা ভিএটি ইত্যাদি সমস্যা নয়, সিটির খুব কাছাকাছি হওয়ায় রেন্ট-রেইটও খুবই চড়া। খরচ কোলাতে না পেরে অনেকেই গুটিয়ে ফেলছেন ব্যবসা। আর নতুন করে আসছে ভিন্ন ক্যাজিন কিংবা নতুন ধারার কোনো ব্যবসা।

ব্রিকলেন। বিশ্ব জুড়ে এক নামে সুপরিচিত। ইস্ট লন্ডনে ফাইনান্সিয়াল সিটি ক্যানারিওয়াফ থেকে অদুওে আর সিটি অব লন্ডনের সীমান্তে। ইনার সিটি বারা টাওয়ার হ্যামলেটসের ব্রিকলেনের মাত্র ৫শ বছরের ইতিহাস ঘাটলে দেখা যায়, এই ব্রিকলেনে আইরিশ কমিউনিটির দাপট ছিলো আলাদা এক মাত্রায়। তারপর আসে জুইস কমিউনিটি। পঞ্চাশের দশকে সূচিত হয় বাংলাদেশী কমিউনিটির যাত্রা।

আবাসিক অবস্থানের পাশাপাশি কারী হাউস তথা রেস্টুরেন্ট ব্যবসার মাধ্যমে-চ্যালেনজিং সূচনা হয়ে ওঠে সফলতার ইতিহাস। বাঙ্গালীদের ঘামে-শ্রমে-মেধায়-মননে ব্রিকলেন খ্যাতি পায় কারী ক্যাপিটেল হিসেবে।কিন্তু এখন কেমন আছে সেই ঐতিহ্যবাহী ব্রিকলেন? জবাবে ব্রিকলেন-বাংলাটাউন রেস্টুরেন্ট এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট গোলজার খান বলেন, ভালো নেই। স্টাফ সংকটতো লেগেই আছে। সেই সঙ্গে উচু রেন্ট রেইট ইত্যাদি কারণে ক্যারি ক্যাপিটালের ঐতিহ্য এখন হারিয়ে যাওয়ার পথে।

পুরো বৃটেন থেকে আলাদা নয় ব্রিকলেন। আছে ভিন্ন কিছু সমস্যাও। এসব কারনে জৌলুস হারাচ্ছে। এ কথা বলেন বিবিসিসিআইয়ের সাবেক প্রেসিডেন্ট শাহগীর বখত ফারুক। তিনি চল্লিশ বছর যাবত ব্যবসা সূত্রে বৃকলেনেই আছেন। শিঘ্রই সেই স্মৃতি ও বাস্তবতা নিয়ে তার একটি বইও প্রকাশিত হবে।

মাত্র কয়েক বছর আগেও ছিলো ৫৫টির মতো রেস্টুরেন্ট। এখন আছে ত্রিশটি। স্টাফ সংকটের পাশাপাশি সিটির কাছাকাছি হিসেবে রেন্ট রেইটও চড়া।

সত্যি এখন আর বৃকলেনের দু পাশ জুড়ে শুধু কারী হাউস নেই। ভিন্ন ভিন্ন কালচারের রেস্টুরেন্ট ও ফোডশপ এসে যোগ হচ্ছে। এসেছে চাইনিজ, জাপানি সুসি। রেস্টুরেন্ট বন্ধ হয়েছে। প্রতিষ্ঠা পেয়েছে প্রোপাটি শপ বা ইটালিয়ান রেস্টুরেন্ট। ব্রিকলেনের বিখ্যাত ক্যাফেনাজ রেস্টুরেন্ট বন্ধ হয়ে এখন চলছে ভিন্ন ব্যবসায়। ক্যাফেনাজের মালিক একসময়ের সফল রেস্টুরেন্ট মিলিয়নিয়ার মুকিম আহমদের এখন কোনো কারী হাউস নেই। ক্ষোভের সঙ্গে বললেন, ব্রিকলেনে বাঙালী কারি ব্যবসা ধ্বসের কারণ। বললেন, এখানকার ব্যবসায়ীরা কোয়ালিটি নয় কনটেন্টের দিকে ছিলেন বেশি মনোযোগি। কিন্তু কাস্টমাররা কোয়ালিটিসম্পন্ন খাবার না পেয়ে ধীরে ধীরে ব্রিকলেন বিমুখ হয়ে গেছেন সেটা টের পেতে অনেক দেরী হয়েছে আমাদের।

বৃকলেনের মূখে ওসবর্ন স্ট্রিটে ছিলো সুপরিচিত রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ি সিরাজ হকের মালিকানাধিন ক্লিফটন। এখন সেটি বিখ্যাত টার্কিশ ব্র্যান্ডের রেস্টুৃরেন্ট। এদিকে ঐতিহ্যবাহী গ্রামীন খাবারের মজাদার সব ম্যুানো নিয়ে সেজেছে কিছু রেস্টুরেন্ট। এসব রেস্টুরেন্ট মূলত বাংলাদেশী কাস্টমারাই বেশী যাচেছন। স্বাধ নিতে ঢুকছেন অবাঙাালীরাও।

জমজমাট ব্রিকলেন, কারী হাউসের জন্য বিখ্যাত বৃকলেনের গৌরব কী হারিয়ে যাবে? না এখনও সময় আছে ধরে রাখার, পুরোনো প্রভাবে ফিরে যাওয়ার-সেই প্রশ্নই ঘুর পাক খাচ্ছে-অনেকের মনে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24