মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
রাধারমন দত্ত এ দেশের লোক সংস্কৃতির ভান্ডার কে সমৃদ্ধ করেছেন: জেলা প্রশাসক ‘আওয়ামী লীগে দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল না’ জগন্নাথপুরে মূল্য তালিকা না থাকায় ভ্রাম‌্যমান আদাতের অভিযানে জরিমানা আদায় ঈদে মীলাদুন্নবী (সা:) উপলক্ষে জগন্নাথপুরে র‌্যালি ও আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত সুনামগঞ্জে নৌকাডুবিতে প্রহরীর মৃত্যু দেখে নিন যে স্থানে জন্মগ্রহণ করেছিলেন মহানবী (সা.) বাবরি মসজিদ ধ্বংসকারী সেই বলবীর সিং এখন মুসলিম! রাধারমণের মৃত্যুবার্ষিকীতে ‘ক্লোজআপ ওয়ান’র সেরা প্রতিযোগি সালমা জগন্নাথপুর আসছেন সোমবার সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় সিলেটের নুরুল নিহত

টাওয়ার হ্যামলেটস নির্বাচনী মামলার রায়ে লুৎফুর রহমান অপসারিত

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৯ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১৯২ Time View

আমিনুল হক ওয়েছ লন্ডন থেকে : পূর্ব লন্ডনের বাঙালি অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের নির্বাহী মেয়রের পদ থেকে লুৎফুর রহমানকে অপসারণ করা হয়েছে। নির্বাচনে ধর্মের ব্যবহার, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বিরুদ্ধে অসত্য বক্তব্য প্রদান এবং আর্থিক অনুদান দিয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করার আনীত অভিযোগে আদালতে তাকে দোষী সাব্যস্ত করে তাঁকে মেয়র পদ থেকে অপসারণের আদেশ দেন। একই কারণে বিচারক গত বছরের ২২ মে অনুষ্ঠিত টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের মেয়র নির্বাচন বাতিল ঘোষণা করেন এবং খালি হওয়া মেয়র পদের পুন:নির্বাচনে লুতফুর রহমানকে অযোগ্য ঘোষণা করেন।
লুতফুর রহমানের অন্যতম সহযোগী এবং ফাইন্যান্সবিষয়ক কেবিনেট মেম্বার কাউন্সিলার আলিবর চৌধুরীকেও দোষী সাব্যস্ত করে তাঁর কাউন্সিলার পদ বাতিল ঘোষণা করেছে আদালত।
তবে রায়ে অসন্তুষ্ট লুতফুর রহমান ইতোমধ্যে ব্রিটেনের খ্যাতনামা দুটি আইনী প্রতিষ্ঠানের পরামর্শ নেয়ার কাজ শুরু করেছেন। এই প্রতিষ্ঠান দুটি প্রাথমিকভাবে রায়ের কপি এবং সাক্ষীদের বর্ণনা পড়ে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন কি না- সেবিষয়ে লুতফুর রহমানকে পরামর্শ দেবেন। অপরদিকে টাওয়ার হ্যামলেটস ফার্স্ট এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, লুতফুর রহমান শুরু থেকেই তাঁর বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন এবং তিনি এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন। টাওয়ার হ্যামলেটস ফার্স্টের কাউন্সিলাররা সহকর্মী আলিবর চৌধুরীর প্রতিও সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেছেন। গত ২৩ এপ্রিল বৃহস্পতিবার লন্ডনের রয়্যাল কোর্ট অব জাস্টিসে গঠিন বিশেষ নির্বাচনী আদালতের বিচারক রিচার্ড মৌরি কিউসি ওই রায় ঘোষণা করেন। পেশার সলিসিটর লুতফুর রহমানের আচরণের বিষয়টি যুক্তরাজ্যের সলিসিটর্স রেগুলেটরি অথোরিটিকে (এসআরএ) জানানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। লুতফুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগগুলোর বিষয়ে পুনরায় তদন্ত করার কথা বিবেচনা করছে মেট্রোপলিটান পুলিশ। আদালতের রায়ের পরপরই কাউন্সিলের বর্তমান ডেপুটি মেয়র অলিউর রহমান ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।
এদিকে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, আগামী ১১ জুন কাউন্সিলের নির্বাহী মেয়র পদে পুন:নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আলিবর চৌধুরীকে কাউন্সিলার পদ থেকে বরখাস্ত করার কারণে খালি হওয়া স্টেপনি ওয়ার্ডেও একই দিন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
পুন:নির্বাচনের তারিখ ঘোষণামাত্রই বিভিন্ন মহলে নতুন নির্বাচনের প্রার্থীতা নিয়ে শুরু হয়েছে তোড়জোড়। ইতোমধ্যে টাওয়ার হ্যামলেটস লেবার পার্টি জন বিগসকে মেয়র পদে দলীয় প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছে। আগের নির্বাচনে জন বিগস লুতফুর রহমানের কাছে প্রায় সাড়ে তিন হাজার ভোটে পরাজিত হয়েছিলেন। ২২ মে’র নির্বাচন বাতিলের দাবিতে পিটিশনকারীদের অন্যতম এনডি এর্লামও জানিয়েছেন তিনি পুন:নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হচ্ছেন। সদ্য সাবেক মেয়র লুতফুর রহমান এই নির্বাচনে প্রার্থী হতে না পারলেও তাঁর নিজের প্রতিষ্ঠিত দল টাওয়ার হ্যামলেটস ফার্স্টের পক্ষ থেকে মেয়র পদে প্রার্থী দেয়া হবে বলে জানা গেছে।
গত বছরের মে মাসে লুতফুর রহমান দ্বিতীয় মেয়াদে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের নির্বাহী মেয়র পদে বিজয়ী হন। ওই নির্বাচন বাতিলের দাবিতে পিটিশন দাখিলের প্রেক্ষিতে মাত্র ১১ মাসের মাথায় পদ হারালেন লুতফুর রহমান। তিনি ছিলেন যুক্তরাজ্যের প্রথম কোনো মুসলিম এবং অশ্বেতাঙ্গ কাউন্সিল মেয়র।
বিচারক আদেশে বলেন, ‘লুতফুর রহমান ইসলাম বিদ্বেষের দোহাই দিয়ে তাঁর সমালোচকদের মুখ বন্ধ রেখে নিজের রাজনৈতিক ভবিষ্যত গড়েছেন। রায়ে প্রকৃত পক্ষে হেরেছেন টাওয়ার হ্যামলেটসের বাসিন্দারা বিশেষ করে বাংলাদেশি সম্প্রদায়। যাদের ভূল পথে পরিচালিত করে ভুক্তভোগী করা হলো’।
যুক্তরাজ্যের ভবিষ্যত নির্বাচনে অর্থ, বর্ণবাদ এবং বিশেষ করে ধর্মের প্রভাব বন্ধে আইনী পরিবর্তনের পরামর্শ দিয়েছেন বিচারক।
বাংলাদেশের সিলেটের বালাগঞ্জের সিকান্দরপুরে জন্ম নেয়া লুতফুর রহমান লেবার দলের রাজনীতিক ছিলেন। ২০১০ সালে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের মেয়র নির্বাচনের মনোনয়ন নিয়ে বিরোধের জের ধরে তিনি লেবার দল থেকে বেরিয়ে আসেন। ওই নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে তিনি লেবার দলের প্রার্থীকে পরাজিত করে মেয়র নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালে তিনি নিজের প্রতিষ্ঠিত টাওয়ার হ্যামলেটস ফার্স্ট দলের ব্যানারে নির্বাচন করে পুনরায় বিজয়ী হন।
এই নির্বাচনে টাওয়ার হ্যামলেটস ফার্স্ট দলের প্রচার- প্রচারণা নিয়ে নানা বিতর্ক উঠে। শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে ধর্মের ব্যবহার, বর্ণবাদের আশ্রয়, পোস্টাল ভোটে জালিয়াতি, ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদর্শন এবং আর্থিক প্রভাবের অভিযোগ এনে নির্বাচন বাতিল চেয়ে আদালতে পিটিশন দাখিল করেন চার বাসিন্দা। এরা হলেন- আজমল হোসাইন, এনডি এর্লাম, এঙ্গেলা মফেট এবং ডেবি সায়মন।
গত ২ ফেব্রুয়ারি এই পিটিশনের শুনানী শুরু হয়। উভয় পক্ষের অর্ধ শতাধিক সাক্ষী আদালতে সাক্ষ্য প্রদান করেন।
বিচারক বলেন, লুতফুর রহমান নিজে এবং তাঁর এজেন্টদের মাধ্যমে একাধিক নির্বাচনী অপরাধ সংগঠিত করেছেন। ধর্মীয় প্রভাব খাটানোর বিষয়ে রায় দেয়া কঠিন উল্লেখ করে বিচারক বলেন, ‘লুতফুর রহমানকে ভোট দেয়া ইমানী দায়িত্ব’ বাংলাদেশি মুসলিম ধর্মীয় নেতাদের এমন প্রচারণার বিষয়ে রায় এড়ানো খুব কঠিন। তিনি বলেন, টাওয়ার হ্যামলেটসে মুসলিম এবং অশ্বেতাঙ্গরা সংখ্যালঘু নয়। এ এলাকায় বর্ণবাদী দল ইংলিশ ডিফেন্স লীগের অস্তিত্বও নেই। তাই লুতফুর রহমান বর্ণবাদের শিকার হয়েছেন এমন দাবি অবাস্তব।
এদিকে লুতফুর রহমানকে অপসারণ করার বিষয়টি মেনে নিতে পারছেন না তাঁর সমর্থকরা। রায়ে ক্ষুব্ধ সমর্থকরা বলছেন, বারার ৩৭ হাজার ভোটার লুতফুর রহমানকে ভোট দিয়ে দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত করেছেন। তাঁর বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত দুর্নীতির কোনো আলামত পাওয়া যায়নি। স্বতন্ত্র মেয়র হিসেবে তিনি টাওয়ার হ্যামলেটসের সকল কমিউনটির মানুষকে সমানভাবে সেবা প্রদানে অন্যন্য সাফল্য অর্জন করেছেন উল্লেখ করে তাঁরা আরো বলেন, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের রোষানলের শিকার হওয়ার কারণে লুতফুর রহমানের বিরুদ্ধে এমন রায় এসেছে। ইতোমধ্যে রায় পনুবির্বেচনার জন্য চারজন ভোটারের নেতৃত্বে একটি পাল্টা পিটিশন চালু করা হয়েছে। এছাড়া, আগামী ৩০ এপ্রিল বৃহস্পতিবার লুতফুর রহমানের সমর্থনে পূর্ব লন্ডনের ওয়াটার লিলি হলে একটি সভার আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া, জুডিশিয়াল রিভিউর জন্য আইনী ব্যয়ে লুতফুর রহমানকে সহায়তা দিতে ইতোমধ্যেই কমিউনিটির বিভিন্ন সংগঠন এবং ব্যক্তি এগিয়ে এসেছেন।
এদিকে লেবার দলের মেয়র প্রার্থী জন বিগস এই রায়কে স্বাগত জানিয়ে বলেছেন, এই রায়ের মাধ্যমে সত রাজনীতির বিজয় হয়েছে। আগামী ১১ জুন মেয়র পদে পুন:নির্বাচন টাওয়ার হ্যামলেটসে গণতন্ত্র এবং জবাবদিহিতা ফিরিয়ে আনার মোক্ষম সুযোগ বলে তিনি মন্তব্য করেন। টাওয়ার হ্যামলেটস লেবার গ্রুপের লিডার কাউন্সিলার র‌্যাচেল সন্ডার্স বলেন, যতদিন লুতফুর রহমান ক্ষমতায় ছিলেন ততদিন বিভাজন এবং স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে টাওয়ার হ্যামলেটসকে উন্নয়ন বিমুখ করে রেখেছিলেন। অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনের মাধ্যমে অংশিদারিত্বের ভিত্তিতে সামনে এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে টাওয়ার হ্যামলেটস লেবার পার্টি সম্ভাব্য সবকিছু করবে বলে জানান তিনি।

রায় নিয়ে বির্তক
লন্ডন, ২৭ এপ্রিল : রেকর্ড সংখ্যক ভোটারের অংশগ্রহণে বাঙালি-অবাঙালি মিলে ৩৭ হাজার লোকের ভোটে গত বছর টাওয়ার হ্যামলেটসে অনুষ্ঠিত মেয়র নির্বাচনে নির্বাচিত হয়েছিলেন লুৎফুর রহমান। সেই নির্বাচিত মেয়রকে পদচ্যুত করা হলো কোনো নির্বাচনের মধ্য দিয়ে নয়, তাঁকে গ্রেফতার করার মধ্য দিয়ে নয়, কোনো জুরি ট্রায়ালের মধ্য দিয়ে নয় বরং মাত্র চারজন স্থানীয় বাসিন্দার অভিযোগের প্রেক্ষিতে। ১৯৮৩ সালের রিপ্রেজেন্টেশন অব পিপল অ্যাক্টের আওতায় লুৎফুর রহমানের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি অপরাধ প্রমাণিত হয়েছে বলে রায় দিয়েছেন মামলার বিচারক রিচার্ড মওরি কিউসি।
এই রায় নিয়ে নানা বির্তক সৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্ন মহলের পক্ষ থেকে নানা বক্তব্য তুলে ধরা হয়েছে। এরই কিছু পত্রিকা পাঠকদের উদ্দেশে তুলে ধরা হলো।
লুৎফুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল ভোট প্রতারণা, পোস্টাল ভোটে অনিয়ম, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য প্রচার করা, ক্যানভাসারদের অর্থ প্রদান, ঘুষ দেওয়া, পরকালে শাস্তির ভয় দেখানো (স্পিরিচুয়াল ইনজুরি) এবং চা-বিস্কুট ও পানীয় পরিবেশন করে ভোটারদের প্রভাবিত করা। প্রভাবশালী সংবাদপত্র গার্ডিয়ানে চিঠি লিখে টনি গ্রিনস্টেইন নামে জনৈক ব্যাক্তি বলেছেন, লুৎফুর রহমানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণ করা হয়েছে একটি নির্বাচনী আদালতে; অথচ দুর্নীতির অভিযোগ সাধারণত উত্থাপিত হয়ে থাকে ক্রিমিনাল কোর্টে। ক্রিমিনাল কোর্টে গেলে একজন অভিযুক্ত লোক আগে থেকেই তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগগুলো সম্পর্কে সুনির্দিষ্টভাবে অবহিত থাকেন; অভিযোগের সাথে সংশ্লিষ্ট বিদ্যমান প্রমাণাদি সম্পর্কে জানতে পারেন এবং সেই অনুযায়ী আইনী প্রক্রিয়ায় এগিয়ে যেতে পারেন। টনি গ্রিনস্টেইন আরও বলেন, পুলিশ ইতোপূর্বে এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য প্রমাণ পায়নি জানার পরও একজন মাত্র জাজের পক্ষে কোনো জুরি ছাড়া এই ধরনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে কাউকে দোষী সাব্যস্ত করা অসম্ভব। তবে হাইকোর্টের নতুন রায় ঘোষিত হওয়ার পর লুৎফুর রহমানের বিরুদ্ধে নতুনভাবে ক্রিমিনাল ইনকোয়ারি শুরু করা যায় কিনা তা খতিয়ে দেখছে মেট্রোপলিটন পুলিশ। বিষয়টি নিয়ে সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত দোটানায় আছে মেট পুলিশ। কেননা, গত এপ্রিল মাসেও লুৎফুর রহমানের বিরুদ্ধে পোস্টাল ভোট প্রতারণা ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত করে কিছুই খুঁজে পায়নি মেট পুলিস। সাবেক লণ্ডন মেয়র ক্যান লিভিংস্টনও হাইকোর্টের রায়ে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেছেন, লুৎফুর রহমান যদি আইন ভঙ্গ করেই থাকেন, তবে পুলিশ কেন তাকে গ্রেফতার করলো না? এলবিসি রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাতকারে ক্যান লিভিংস্টন মামলার বিচারক রিচার্ড মওরি কিউসি সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে বলেন, ‘‘(তিনি একজন) অনির্বাচিত আমলা হয়ে একটি নির্বাচনের ফলাফল তিনি উল্টে দিয়েছেন। আমার মনে হয় বিষয়টি অত্যন্ত অত্যন্ত দুশ্চিন্তার‘‘।
লুৎফুর রহমান কীভাবে ভোটে কারচুপি করলেন?
চার জন পিটিশনার তাদের অভিযোগে বলেন, পরকালের ভয় দেখিয়ে নাকি লুৎফুর রহমান ভোট বাগিয়ে নিয়েছেন। অভিযোগ প্রমাণ করতে পিটিশনাররা লুৎফুরকে সমর্থন করে ইমামদের একটি যৌথ বিবৃতি এবং একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে লুৎফুরের পক্ষে জনৈক ইমামের একটি বক্তব্যকে প্রমাণ হিশাবে দাখিল করেন।
খোদ ইসলামেই নির্বাচন নিয়ে নানা মত রয়েছে। টাওয়ার হ্যামলেটসেও কতিপয় লোককে নির্বাচনে ভোট দেওয়া হারাম-এমন তথ্য প্রচার করে ক্যাম্পেইন করতে দেখা যায়। এছাড়া লুৎফুর রহমানই প্রার্থী হিশাবে আল্লাহর সবচেয়ে প্রিয় প্রার্থী-এমন তথ্যও ইসলামিক দৃষ্টিকোণ থেকে বিতর্কিত। শুধু তাই নয়, মানুষ হয়ে আল্লাহর সবচেয়ে প্রিয় ব্যাক্তিকে সুনিশ্চিতভাবে বেছে নেওয়া ইসলামিক দৃষ্টিকোণ থেকে অসম্ভব। ফলে ইমামদের বক্তব্য ও বিবৃতি সত্যিকার অর্থে নির্বাচনে প্রভাব ফেলেছে কিনা-এটি ইসলামিক দৃষ্টিকোণ থেকেও প্রমাণ করা সম্ভব নয়।
বিচারক রিচার্ড মওরি কিউসি ইমামদের বক্তব্য বিবৃতিকে আমলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবং ওই সব বিষয় ভোটারদের মধ্যে স্পিরিচুয়াল ইনজুরির হুমকি সৃষ্টি করেছিল।
পোস্টাল ভোট প্রতারণা সংক্রান্ত দুই ধরণের অভিযোগ ছিল লুৎফুর রহমানের বিরুদ্ধে। বিচ্ছিন্ন কয়েকটি পোস্টাল ভোট প্রতারণার অভিযোগকে আমলে নিয়েছেন বিচারক। লুৎফুর রহমানের তীব্র সমালোচক ও ডানপন্থী সংবাদপত্র টেলিগ্রাফের সাংবাদিক এন্ড্রু গিলিগানের বক্তব্য আমলে নিয়ে বিচারক পোস্টাল ভোট প্রতারণা হয়েছে বলে রায় দিয়েছেন। উল্লেখ্য, সাংবাদিক এন্ড্রু গিলিগান তার প্রতিবেদনে টাওয়ার হ্যামলেটসের দুই কাউন্সিলারের দুটি ঠিকানা রয়েছে বলে উল্লেখ করেছিলেন। বিচ্ছিন্ন এমন ঘটনাকে সত্য হিসাবে গ্রহণ করলেও গণহারে পোস্টাল ভোট প্রতারণা হয়েছে বলে প্রমাণ হয়নি রিচার্ড মওরি কিউসির আদালতে।
মেয়র নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রের বাইরে ভোটারদের ভয়-ভীতি (ইন্টিমিডেশন) দেখানোর অভিযাগ ছিল। তবে আদালতে তা প্রমাণিত হয়নি। বাংলাদেশী কমিউনিটির মধ্যে গ্রান্ট বিতরণ করার মাধ্যমে নির্বাচনের আগে ভোট বাগিয়ে নেওয়া এবং ভোট বাগিয়ে নিতে গিয়ে গ্রান্ট তিবরণ প্রক্রিয়াকে অপব্যবহার করেছেন লুৎফুর রহমান-এই অভিযোগও সত্য হিশাবে মেনে নিয়েছেন বিচারক রিাচর্ড মওরি কিউসি। এই তথ্য প্রমাণ করতে গিয়ে পিটিশনাররা নীরিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রাইসওয়াটারহাউজকুপার্সের প্রতিবেদনকেই মূল দলিল হিশাবে ব্যবহার করেছেন। অথচ ওই প্রতিবেদনে মেয়র হিশাবে লুৎফুর রহমানের বিরুদ্ধে কোনো প্রতারণা বা দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া যায়নি বলেই উল্লেখ করা হয়েছিল। প্রাইওয়াটারহাউসকুপার্সের প্রতিবেদনে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলকে সামগ্রিকভাবে দূর্বল ব্যবস্থাপনার জন্য দায়ী করা হয়েছিল।
মামলার রায়ে বলা হয়েছে বাঙলা ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়া স্বাভাবিকভাবে লুৎফুর রহমানের পক্ষে ছিল; উপরন্তু তাদেরকে পক্ষে রাখতে লুৎফুর রহমান ঘুষ দিয়েছেন। কতিপয় টেলিভিশনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতমূলক প্রতিবেদন প্রচারের অভিযোগ অফকমের রিপোটেও প্রমাণিত হয়েছে। কিন্তু এর দায়ভার কি লুৎফুরের? বিষয়টি প্রকৃতপক্ষে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সম্পাদকের উপরই বর্তায়। কিন্তু পুরো বিষয়টির সাথে লুৎফুরকে জড়িয়ে পিটিশনারদেও অভিযোগকেই সত্য হিশাবে গ্রহণ করেছেন বিচারক।
আদালত তার রায়ে বলেছেন, নির্বাচনকালীন সময়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জন বিগসকে বর্ণবাদী হিশাবে চিহ্নিত করার চেষ্টা করেছেন লুৎফুর রহমান। আদালত লুৎফুর রহমানের প্রতিপক্ষের অভিযোগকে সত্য হিশাবে গ্রহণ করেছেন। কিন্তু টাওয়ার হ্যামলেটসের কমিউনিটিগুলোর তৃণমূল পর্যায়ে এই রায় নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে অস্বস্তি। আদালত কর্তৃক মেয়র পদ থেকে লুৎফুর রহমান উৎখাত হওয়ার পর আগামী ১৯ জুন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নতুন নির্বাচন। নিজেকে ভিক্টিম হিশাবে ভোটারদেও সহানুভৃতি নিয়ে আবার মেয়র হওয়ার দৌড়ে অংশ নিতে যাচ্ছেন লেবার পার্টির প্রার্থী জন বিগস। আদালতের রায়ে অস্বস্তিতে থাকা কমিউনিটি কাকে মেয়র হিশাবে নির্বাচিত করে-সেটিই এখন দেখার বিষয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24