বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ১০:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব জগন্নাথপুরে আমনের ফলনে কৃষক খুশি জগন্নাথপুরে দুই মেধাবী শিক্ষার্থীর সহায়তায় এগিয়ে এলেন লন্ডন প্রবাসী মোবারক আলী

ঠিকাদারী প্রথা বিলুপ্তির দাবী

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১০ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৫১ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি ::
ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে পাউবো’র বাঁধ ভেঙে ফসলহানির ঘটনায় রোববার দুপুরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় উপস্থিত সুধীজনের তোপের মুখে পড়েন পাউবো’র সিলেট অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাই এবং সুনামগঞ্জ পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী আফছার উদ্দিন। এছাড়া সভায় ফসল রক্ষা বাঁধের কাজে ঠিকাদারি প্রথা বিলুপ্তির দাবি জানানো হয়।
জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভার শুরুতে বক্তব্য রাখেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি।
বক্তব্যে এমএ মান্নান পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী আফছার উদ্দিনকে বলেন, আমি এই সিজনে আপনার সাথে প্রথম কথা বলেছি। এই ক্রাইসিস শুরু হওয়ার পর আমি আপনাকে ফোন করেছি। আপনি আমাকে ফোন করেন নাই।
এ সময় আফছার উদ্দিন কথা বলতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান বলেন, ডোন্ট ক্রস মি। ক্রস করবেন পরে। আপনার সাথে কথা বলার পরে আপনি আমাকে তাৎক্ষণিক একটা রিপোর্ট দিয়েছেন। যাই হোক যা হয়ে গেছে একটা বিপর্যয়। একটি প্রাকৃতিক বিপর্যয় যার জন্য মানুষেরও কিছু গাফিলাতি ছিল।
এমএ মান্নান বলেন, বাঁধের কাজ পিআইসিতে আনার জন্য আমারই ভূমিকা ছিল। এর আগে ঠিকাদারি সিস্টেমে হতো। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলি। তখন আপনাদের ডিপার্টমেন্টের সিই সাব আপত্তি করেছিল। তখন বলেছিল পিআইসি ভালো কাজ করবে না। এরা টেকনিক্যাল লোক নয়। উল্টা-পাল্টা কাজ করবে। ঠিকাদারদের দিয়ে করানো ভাল। কিন্তু আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলেছিলাম, আমি মনে করি পিআইসি ভালো হবে। এরা আমাদের লোক, নদীর পাড়ে থাকে, হাওরের পাড়ে থাকে তাদের মমত্ববোধ আছে। শেষমেশ বলেছিলাম যদি কিছু অপচয় হয়ও এদের মধ্যে যাবে বাইরে যাবে না। প্রধানমন্ত্রী একমত হলেন এবং ওই বছর থেকেই আমার পিআইসি সিস্টেমে গেলাম। এবার বোধহয় সিস্টেমটা আগের জায়গায় গেছে। বিষয়টি আমি জানি না। এ ব্যাপারে তিনি পাউবো’র সিলেট অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাই-এর কাছে জানতে চান।
এ সময় পাউবো’র প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাই বলেন, ‘অবস্থাটা বলি, ৭দিনে ২৯ শে মার্চ হতে ৪ এপ্রিল সুনামগঞ্জে পানি বাড়ছে প্রায় ১৮ ফিট। এটা সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক বিপর্যয়। বৃষ্টিপাত হয়েছে সিলেটে-সুনামগঞ্জে ৪৮২ মিলিমিটার ৭ দিনে। সিলেটে ৬৪১ মিলিমিটার। যা সম্পূর্ণ আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গিয়েছিল। আর স্যার যেটা প্রশ্ন করেছেন সেটা হইল। যে আমাদের গতবারও কিছু বিপর্যয় হইছিল এপ্রিলের ২৫ তারিখের দিকে। আমরা তখন আমাদের হিসাবে প্রায় ৮০ পার্সেন্ট, ৭৫ পার্সেন্ট। এবার আমাদের ৫০ বছরের ইতিহাসে দেখা গেছে যে, মার্চে ২৮-২৯ ফিটের ফ্লাড আসে নাই। পানি অত্যাধিক বৃদ্ধি পেয়েছিল। তার মানে গতবার যে আপনার ফ্লাড হইছিল তখন আমাদের যে ৩৬টি হাওরে আমাদের ১৫শ কিলোমিটার বাঁধ আছে। আমি হিসাব করে দেখেছি এর মধ্যে প্রায় ৫শ জায়গায় ভাঙন হইছে। ভাঙন মানে পাবলিক কাট।
সভায় এমপি পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ পাউবো’র প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাই’র কাছে জানতে চান পিআইসি’র এই কাজে কত টাকা বরাদ্দ ছিল। এ সময় প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল হাই বলেন, বরাদ্দের পরিমাণ ছিল পিআইসিতে ২০ কোটি ৮০ লাখ টাকা। আর আমরা ঠিকাদার দিয়ে করছিলাম ৪৮ কোটি টাকা।
অবশ্য এতো দিন সুনামগঞ্জ পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী আফছার উদ্দিন গণমাধ্যমকে বলে আসছিলেন বাঁধের কাজে পিআইসি’র বরাদ্দ ১০ কোটি ৭০ লাখ টাকা।
পাউবো’র প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাই তার বক্তব্যে বলেন, ঠিকাদার সাবদের কাজটা হইল বাঁধটিকে উঁচু করে দেয়া। আর পিআইসি’র কাজটা হইল ভাঙনগুলো বন্ধ কইরে দিবেন। মোস্ট ইমপরটেন্ট যেটা পিআইসি’র কাজটা।
আব্দুল হাই বাঁধ ভাঙনের জন্য পিআইসি’র উপর দায় চাপানোর চেষ্টা করেন। তিনি বলেন, পিআইসিটা আমাদের দেয়ার কথা হল নভেম্বরের ৩০ তারিখের মধ্যে, পিআইসিটা গঠন করার কথা। আমরা ডিসেম্বরের ১৫ তারিখ কাজ শুরু করবো। ফেব্রুয়ারির ২৮ তারিখে শেষ করবো। এইবার যেটা আমাদের হইছে আমরা পিআইসি পেয়েছি জানুয়ারি মাসে।
এ সময় এমএ মান্নান প্রশ্ন করেন পিআইসি চেয়েছেন কবে। উত্তরে পাউবো’র প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল হাই বলেন, পিআইসি চেয়েছি সেপ্টেম্বরে, অক্টোবরে।
প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাই আরো বলেন, হাওর অঞ্চলে কাজ করার একচ্যুয়েলি সময় হল ডিসেম্বরের ১৫ তারিখের পরের থেকে। আমরা আগস্টের ১৫ তারিখ ওয়ার্ক অর্ডার দিয়েছিলাম যাতে করে মোবিলাইজটা কইরে রাখতে পারে এবং ডিসেম্বরের ১৫-৩০ তারিখের দিকে কাজটা শুরু করতে পারে। মিনিমাম একটা লোককে ৩ মাস সময় দিতে হয়। যে মার্চের মধ্যে কাজটা শেষ করতে পারে। ইন দ্য মিন টাইম আমাদের হাওর প্রকল্পটা খুব সিক প্রজেক্ট ছিল যে ৫ বছরে মাত্র ১৮ পার্সেন্ট প্রোগ্রেস হইছে। তিনি জানান, ১২টার মতো কন্টাকটার (ঠিকাদার) কাজ শুরু করতে পারে নাই। আমরা লেটে ওয়ার্ক অর্ডার দিছি। আশা করতেছিলাম এবার যতটুক পারি করবো, আগামী বার বাদ বাকি কাজগুলোর বাঁধ উঁচু করে দেব।
আব্দুল হাই বলেন, পিআইসি’র ১৫-১৬ কোটি টাকায় আমরা হাওর বাঁচিয়ে দিতে পারি। ৭ মিটার পানি হলেও আমরা ৯০ পার্সেন্ট হাওর বাঁচিয়ে দিতে পারি। বিগত ১০ সালের পরে এই ৫-৬ বছর হাওর বেঁচে গেছে এবং সবাই সুফলটা পেয়েছে এবং এবার ৮.১ মিটার পানি এসে গেছে। যা নিয়ন্ত্রণের বাইরে ছিল। এটা ন্যাশনাল ডিজাস্টার। পিআইসি’র ব্যাপারে উত্তর দিচ্ছি, ৩০ শে নভেম্বরের মধ্যে আমার পিআইসি অ্যাপপ্রোভ করার কথা। আমরা পেয়েছি অনেকগুলো জানুয়ারি মাসে। জানুয়ারি তাও শেষের দিকে। মাননীয় সংসদ সদস্য মহোদয়রা অনেক ব্যস্ত থাকেন, প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের কথা বলেছি উনারা ব্যস্ত থাকেন, ইলেকশনও ছিল। তবু আমরা এজ আরলি এজ পসেবল ফেব্রুয়ারিতে আমরা কাজটা শুরু করে দিয়েছিলাম। আমরা যদি আর ১৫টা দিন সময় পেতাম আশা করি কাজটা শেষ হইয়া যাইতো। এখন মার্চের ২৯ তারিখ পানি চলে আসছে।
এমএ মান্নান প্রশ্ন করলে প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাই জানান, পিআইসি’র সংখ্যা ছিল ২০৮টি। আমাদের বাজেট ছিল ১০ কোটি ১২ লাখ টাকা। যেটা খুব নগণ্য ছিল। আমরা পরে বিভিন্নভাবে বলাবলি করে এনে ২০ কোটি টাকায় মেকআপ করেছি। আমরা ইতোমধ্যে ১২ কোটি টাকা পেয়েছি। ফিল্ডে গিয়ে আমি যেটা দেখেছি শুধু পিআইসি’র ইউপি মেম্বার ছাড়া আর কাউকে দেখা যায় না।
এএম মান্নান স্পষ্টভাবে জানতে চান পিআইসির বরাদ্দ কত। এ সময় প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী পিআইসি’র বরাদ্দ ২০ কোটি ৮০ লাখ আর ঠিকাদারের বরাদ্দ ৪৮ কোটি টাকা।
প্রতিউত্তরে প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বলেন, টাকা যেখানে বেশি তাহলে সেখানেই বেশি ক্ষতি। এ সময় প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী আমতা আমতা করে বলেন, স্যার পিআইসি’র কাজটার মধ্যে আমাদের ১৫ থেকে ১৬ কোটি টাকা থাকে স্যার। এটা ফিক্সড স্যার এবং আমরা কন্টাকটারি (ঠিকাদারি) ৪৮ কোটি টাকার কাজ নাও করতাম, যদি ১৬ কোটি টাকার কাজ করতে পারতাম তাহলে আমাদের হাওর বেঁচে যাইতো। এইটা হইল ২৮টা প্যাকেজে কাজ। কাজের অগ্রগতি ৭০ পার্সেন্ট। আমরা ৯ কোটি টাকার মধ্যে পেমেন্ট দিয়েছি ৩ কোটি ৩৬ লাখ টাকা। পরের ৪৮টা প্যাকেজে এইটা হয়েছিল ৩৯ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। এটা আমাদের এভারেজে প্রগ্রেসের হিসাব ৫০ পার্সেন্ট।
প্যাকেজ শুরু হতে দেরি হয়েছিল কেন জানতে চান প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান। এ সময় প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী এর সদুত্তর দিতে পারেননি। তিনি প্রসঙ্গ ভিন্ন দিকে নেয়ার চেষ্টা করেন।
এ সময় জেলা আ.লীগের সভাপতি মতিউর রহমান বলেন, আপনি যে উত্তর দিচ্ছেন প্রশ্নের সঙ্গে এর কোনো সামঞ্জস্য নাই। আপনি আগস্ট মাসে কাজের অর্ডার দিছেন। টাইম দিছেন কয় মাসের। প্রধান প্রকৌশলী বলেন, ৩১ মার্চের মধ্যে শেষ করার কথা…।
সভায় এমপি পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ বলেন, আপনার বলেছেন ৭০ ভাগ এবং ৫০ ভাগ হয়েছে। এবং ১২টা কাজ টেন্ডারের এটা শুরুই হয় নাই। কিন্তু বাস্তব কথা কোথাও ৭০ পার্সেন্ট কাজ হয় নাই, ৫০ পার্সেন্ট কাজও হয় নাই। এখানে যারা আছেন তারা সবাই বলবে এখানে ৭০ ভাগ তো না ৫০ ভাগও কাজ হয়নি। তাই আমি মনে করি আপনাদের বিভাগীয় পর্যায়ে তদন্ত না হওয়া পর্যন্ত ৭০ পার্সেন্ট, ৫০ পার্সেন্ট সব বিল দেয়া বন্ধ রাখবেন।
এ প্রসঙ্গে প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল হাই জানান, মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের তত্ত্বাবধানে আমাদের টাস্ক ফোর্স আছে। টাস্কফোর্সের অধীনে আমরা প্রতিটা কাজে পিউর চেক করাইছি। সেটা প্রজেক্টেরও, পিআইসি’রও।
প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাই বলেন, প্রধান প্রকৌশলীর নেতৃত্বে একটা কমিটি করা আছে। যেটা সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ করেন আমাদের মন্ত্রী মহোদয়। সেখানে আমাদের ইঞ্জিনিয়ার, এসডি উনারা সবাই থাকেন। তারা মেজারমেন্ট নিবেন। সেই মেজারমেন্ট অনুযায়ী বিল হবে। এর মধ্যে দুই নম্বর করার কোনো ব্যত্যয় নাই।
এমপি ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাইকে প্রশ্ন করেন তুষার শিরনি খাইছেন কখনো? বাঁধে তুষার শিরনির মতো মাটি ফালাইছে। আপনি বলছেন ২৮ তারিখে কমিটি দিছি আমি। ক্লোজারগুলা বাঁধে পিআইসিরা। পিআইসিদের টাকা দিছেন পরে। ২৮ তারিখে বলছেন কমিটি দিসি… এই জাঙ্গাল কিন্তু ভাঙে নাই। আমি ৮দিন হাওরে ঘুরছি। আপনার একচেঞ্জ সাহেব (আফছার উদ্দিন) কয়দিন হাওরে গেছে জিগান। কারণ এখানে পিআইসি’রা যারা টাকা নিতে আসে ৩দিন ৪দিন এখানে বসে থাকে। এদের কাছ থেকে ১০ পার্সেন্ট টাকা না নিলে টাকা (বিল) দেয় না। রেকর্ড করেন এইটা।
এমপি রতনের কথা শেষ হতে না হতেই কথা বলতে শুরু করেন পাউবো’র প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাই। এ সময় এমপি রতন তাকে থামতে বলেন। তিনি বলেন, পিআইসি’র সদস্যরা দু’তিন শহরে এসে বসে থাকে। হোটেল ভাড়া দেয়। তুষার শিরনির মতো কন্টাকটররা মাটি ফালাইছে। আমাদের হালির হাওরে যান। সেখানে দেখলাম আসানপুরের ওইখানে দাঁড়ালাম সেখানে মাটি কাটছে। কন্টাকটারের নাম বলার দরকার নাই। কন্টাকটার কন্টাকটারই। সে কার ভাই, কার মামাতো ভাই, কার চাচাতো ভাই, কার পার্টনার, দিস ইজ নট ফ্যাক্ট। আমি চাই একটা কমিটি করা হোক ডিসি সাহেবের নেতৃত্বে। কে কতটুকু কাজ করছে, দোষ ত্রুটি কি খুঁজে বের করে একটা রিপোর্ট আমরা উপস্থাপন করি এবং এর ব্যাপারে প্রয়োজনবোধে দুদকে মামলা করার জন্য আমরা সুপারিশ করবো।
সভায় জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট তার বক্তব্যে বলেন, যদি সুনামগঞ্জের হাওর টিকাতে হয় পিআইসি’র সিস্টেম চেঞ্জ করতে হবে। হাওরে যাদের ধান আছে, জমি আছে তাদের যদি পিআইসিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয় তাহলে বাঁধ টিকবে, নতুবা বাঁধ টিকবে না।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম.এনামুল কবির ইমন বলেন, পিআইসি সংশ্লিষ্ট কমিটির সদস্য হওয়া উচিত কৃষকদেরকেই। কারণ বাঁধ নির্মাণে ঠিকাদারি প্রথা খুব একটা কাজে লাগেনি। আজকের সভায় আলোচিত পিআইসি ও ঠিকাদারদের দুর্নীতির বিষয়ে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া উচিত। দুদকেও মামলা হতে পারে। অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর উদ্দেশে ব্যারিস্টার ইমন বলেন, আপনি অর্থ ও পরিকল্পনা দুটি মন্ত্রণালয়েরই দয়িত্বে রয়েছেন। ভবিষ্যতে সুনামগঞ্জে কৃষকদের ফসল ঘরে উঠা নিশ্চিত করতে আপনি একটি মহাপরিকল্পনা করলে সুনামগঞ্জবাসী উপকৃত হবে।
পৌর মেয়র আয়ূব বখত জগলুল বলেন, জেলার সব কয়টি হাওর ডুবে গেছে। তবে দোষীরা যেই হোক না কেন, যে যতবড় ঠিকাদার হোক না কেন শাস্তি অবশ্যই পেতে হবে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে যদি পিআইসিরাও জড়িত থাকে তাহলে তদন্তের মাধ্যমে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হোক।
সভার এক পর্যায়ে সাংবাদিক পঙ্কজ দে বাঁধ নির্মাণে অনিয়ম, দুর্নীতি এবং লুকোচুরির কিছু তথ্য তুলে ধরে বলেন, যেটা ১০ কোটি টাকার ঠিকাদারি কাজ পেয়েছে সেই ঠিকাদারকে হাওরের মানুষ দেখেছে কিনা? গুডম্যান এন্টারপ্রাইজ হাওরে ৫ কোটি টাকার কাজ করেছে এই ঠিকাদারকে হাওরের লোকজন কখনো দেখেছে কিনা? ইব্রাহিম ট্রেডার্স এন্ড শাহীন আহসান এই ঠিকাদারকে হাওরের মানুষ দেখেছে কিনা কোনো দিন? প্রধান প্রকৌশলীকে উদ্দেশ করে সাংবাদিক পঙ্কজ দে বলেন, আপনি আমাদের সুনামগঞ্জের কিছু ঠিকাদারকে ১০ কোটি, ১২ কোটি টাকার কাজ দিয়েছেন। তাদের আগের কোনো অভিজ্ঞতা আছে কিনা হাওরে এতো কোটি টাকার কাজ করার। সর্বশেষ জেলা প্রশাসককে চিঠি দিয়েছেন, খাদ্য মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছেন ১২ জন ঠিকাদার কাজই ধরে নাই। সেটিও মিথ্যা ছিল। সেদিন ২৪ জন ঠিকাদার কাজ ধরে নাই। আমাদের কাছে রেকর্ড আছে। প্রমাণ চাইলে এখনই দিতে পারবো। কিন্তু আপনি চিঠি দিয়েছে ১২ জন ঠিকাদার কাজ ধরে নাই। আরেকটি বিষয় আছে, গত পরশু দিন জোয়ালভাঙ্গা হাওরে গিয়ে আপনাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম কয়টি হাওর তলিয়ে গেছে। আপনি বলেছেন ১০টি হাওর এখনো রক্ষা আছে। সাথে সাথে আমি হাওরের কৃষকদের আমার ফোন দিয়ে বলেছি আপনি দেখেন এই হাওর আছে কিনা। আপনি প্রথমেই বলেছিলেন জোয়ালভাঙ্গা হাওর আছে। আপনি একদিন আগেও বলেছিলেন ১০টি হাওর আছে। আপনি দেখান কোথায় ১০টি হাওর আছে। আপনি জনপ্রতিনিধি কৃষক সকলকে বেকায়দায় ফেলেছেন। আমাদের জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বলেছেন পিআইসিতে কৃষকদের সম্পৃক্ত করতে হবে। আমরা একমত তবে ঠিকাদারি প্রথা উঠে যেতে হবে। ঠিকাদারি কিছু বড় মানুষের পকেটে টাকা নেয়ার জন্য করা হয়।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ড. জয়া সেনগুপ্তা এমপি, মুহিবুর রহমান মানিক এমপি, অ্যাড. শামছুন নাহার বেগম শাহানা এমপি, আ.লীগ নেতা অ্যাড. আফতাব উদ্দিন আহমদ, কামরুজ্জামান চৌধুরী প্রমুখ।
সভা শেষে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান সাংবাদিকদের বলেন, হাওরের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ঋণ মওকুফের জন্য সরকারের কাছে সুপারিশ করা হবে, যাতে প্রান্তিক, গরীব, ক্ষুদ্র কৃষকরা সুবিধা পেতে পারে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাঁধ নির্মাণের গাফিলাতির বিষয়ে এখানকার সাধারণ মানুষের জনমত অত্যন্ত প্রবল। আমি গাফিলতির বিষয়টি তলিয়ে দেখার এবং এজন্য কারা দায়ী তা নির্ধারণে একটি বড় কমিটি করার জন্য সরকারের কাছে সুপারিশ করব। এছাড়া স্থানীয়ভাবে ব্যর্থতাগুলো চিহ্নিত করতে প্রশাসনও একটি কমিটি করবে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, সরকারের কম মূল্যের চাল বিক্রি, ভিজিএফসহ চলমান কিছু প্রকল্প আছে, যেগুলো বাড়ানো হয়েছে। সুনামগঞ্জের জন্য এগুলো পরিমাণে ও সংখ্যায় বাড়ানোর জন্য আমি ত্রাণ ও খাদ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24