বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ১১:৪৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ও উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত প্রমাণ পেলে বহিরাগতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব- জগন্নাথপুরে ডিসি জগন্নাথপুরে কলেজছাত্রীর ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযাগ,বখাটের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার জগন্নাথপুরে দিনভর বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প পরির্দশন শেষে ডিসি-জনগনের দোরগোড়ায় সেবা পৌছে দেয়া হচ্ছে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সন্মেলন ৬ নভেম্বর যুবলীগের চেয়ারম্যানের গণভবনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা! সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৫ তুহিন হত্যা:জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন কলকলিয়া ইউনিয়ন আ,লীগ সেক্রেটারী দীপাল বাবুর শ্রাদ্ধ আজ মীরপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থী কে কত ভোট পেলেন

ত্রিভূজ প্রেমের বলি জগন্নাথপুরের প্রেমিক- জৈন্তাপুরের প্রেমিকা

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২২ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ৬৫ Time View

স্টাফ রিপোর্টার : জগন্নাথপুরে বন্ধুকে কুপিয়ে আহত করার পর সিলেটের একটি হোটেল থেকে প্রেমিক-প্রেমিকার লাশ পাওয়া গেছে।
রোববার রাতে সিলেট নগরীর সোবহানীঘাটে মেহেরপুর আবাসিক হোটেলের একটি কক্ষ থেকে পুলিশ প্রেমিক-প্রেমিকার লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।
জানা যায়, জগন্নাথপুর পৌরশহরের জগন্নাথপুর এলাকার বাসিন্দা মতিলাল দেবের ছেলে মিণ্টু দেবের সঙ্গে তার মাসতুতো (খালাতো) বোন জৈন্তাপুর উপজেলা সদরের রুমি পাল দেবের মধ্যে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে উঠে। তাদের প্রেমের সর্ম্পকের কথা মিণ্টুর বন্ধু জগন্নাথপুর এলাকার বাসিন্দা বাটুল দেবের ছেলে বাপন দেব জানত্ব। এক সময় বাপন তার বন্ধুর প্রেমিকার সঙ্গে প্রেমের সর্ম্পকে জড়িয়ে পড়ে। এ বিষয়টি মিণ্টু জানতে পেরে বন্ধুর প্রতি প্রচন্ডভাবে রেগে যায়। যার জের ধরে শনিবার রাতে বাড়ি ফেরার পথে পৌরএলাকার বটেরতল নামকস্থানে অতর্কিতভাবে মিণ্টু বাপনের ওপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে তাকে গুরুত্ব আহত করে পালিয়ে যায়। আহতাবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা দুইজনই একসঙ্গে বাড়ি ফিরছিল জগন্নাথপুর সদর বাজার থেকে।

এ ঘটনার পর দিন রোববার দুপুর ১২টার দিকে মিণ্টু দেব তার প্রেমিকাকে নিয়ে সিলেট নগরীর সোবহানীঘাট পয়েন্টস্থ আবাসিক হোটেল মেহেরপুরে স্বামী স্ত্রী পরিচয় দিয়ে একটি কক্ষ ভাড়া দেয়। ওই দিন রাত ১০টার দিকে কোতোয়ালি থানা হোটেল কক্ষ থেকে মিণ্টু ও রুমির লাশ উদ্ধার করে। পুলিশ মিণ্টুর লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। আর রুমির লাশ বিছানায় শোয়ানো ছিল।
মিণ্টু দেবের বাবা জগন্নাথপুর এলাকার বাসিন্দা মতিলাল দেব জানান, তার ছেলে রূপচাদাঁ কোম্পানির এসআর হিসেবে কাজ জগন্নাথপুরে কাজ করত। মিণ্টু ও বাপনের মধ্যে বন্ধুত্ব সর্ম্পক ছিল।
তিনি বলেন, বন্ধু বাপনের সঙ্গে তার প্রেমিকাকে নিয়ে বিরোধ দেখা দেয়। যে কারনে বাপনকে মারধর করে ওই রাতেই আমার ছেলে পালিয়ে যায়। রোববার রাতে খবর পেয়েছি সে আত্মহত্যা করেছে। ময়নাতদন্তে শেষে পুলিশ ছেলের লাশ হস্তান্তর করেছে। সন্ধ্যায় সিলেটের ছালিবন্দর শশ্মানঘাটে তার লাশ সৎকার করা হয়েছে।
বাপনের জ্যাটা (চাচা) কুঞ্জন দেব জানান, বাপনের সঙ্গে প্রেমের সর্ম্পক রয়েছে সন্দেহে মনে করে ক্ষোভে মিণ্টু বাপনের উপর হামলা চালিয়ে তাকে গুরুত্বর আহত করে পালিয়ে গেছে। বাপন বর্তমান ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
সিলেট কোতোয়ালি থানার ওসি গৌছুল হোসেন জানান, হোটেল কক্ষ থেকে তরুন-তরুনীর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত শেষে লাশ পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। ময়না তদন্তের রির্পোট পাওয়ার পর তাদের মৃতে্যুর কারন জানা যাবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24