সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০১:২০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে প্রতিবাদের ঝড় বইছে, পাথরই হাতিয়ার, নিহত ট্রাক চালক ছাত্রলীগের দু’পক্ষে সংঘর্ষ,গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ ফারুক হত্যা মামলায় এক রোহিঙ্গা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম

দিরাইয়ে সরকারি জলমহালে টোকেন দিয়ে চাঁদাবাজি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৪৪ Time View

আবু হানিফ, দিরাই
সুনামগঞ্জের দিরাইয়ের বৃহৎ একটি জলমহালে কোন ধরনের ইজারা গ্রহণ ছাড়াই সরকার দলীয় নেতা পরিচয়ে টোকেন দিয়ে জেলেদের কাছ থেকে চাঁদা নেওয়া হচ্ছে। যারা চাঁদা দেয় তাদেরকে জলমহালে মাছ ধরতে দেওয়া হয়। যারা চাঁদা দেয় না, তাদের জাল ও নৌকা নিয়ে যায় লাঠিয়াল বাহিনী। এ নিয়ে সাধারণ জেলেদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন সময় মারাত্মক সংঘর্ষেও ঘটনাও ঘটতে পারে। শুক্রবার রাতে সাধারণ জেলেরা এই বিষয়ে দিরাই থানায় সাধারণ ডায়রি করেছে।
গত ২৫ সেপ্টেম্বর লিখিত ভাবে উপজেলার চানপুর গ্রামের ইউপি সদস্য সুকেশ বর্মন, দীলিপ বর্মন, অজিত বর্মন, খোকন বর্মন, রুণু বর্মন, গকুল বর্মন, গৌরাঙ্গ বর্মন, গোপী বর্মন, ও সেফাল বর্মনের নাম উল্লেখ করে অভিযোগ দায়ের করেন একই গ্রামের মৎস্যজীবী নীতিশ বর্মন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে শুক্রবার সরজমিন তদন্ত করেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শাকিল আহমদ। তদন্তকারী কর্মকর্তা চলে যাওয়ার পর অভিযোগকারী ও তদন্তে স্বাক্ষী প্রদানকারী জেলেদের উপর চড়াও হয় চাঁদাবাজ সি-িকেটের সদস্যরা। রাতে নিরীহ জেলে সম্প্রদায়ের লোকজন এ ব্যাপারে দিরাই থানায় সাধারণ ডায়রি করেন।
দিরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের একটি সূত্র জানায়, দিরাই উপজেলা সদরের পাশ দিয়ে বহমান শয়তানখালীর দ্বিতীয় খ- খাস কালেকশনের নামে কিছু লোক ভোগদখল করে আসছেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের নথিতে দেখা যায় ১৪২২ বাংলা সনে ১০ হাজার পাঁচ’শ টাকায় খাসকালেকশন দেওয়া হয়েছে, কিন্তু গ্রহীতার নামের অংশ খালি রয়েছে। ১৪২৩ বাংলা সনের জন্য অজিত বর্মন দুই লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকায় খাসকালেকশনে নিয়েছেন। কিন্তু চলতি বাংলা সনে কোন ধরনের ইজারা গ্রহণ ছাড়াই জলমহালটিকে খ- খ- করে বিভিন্ন জেলেদের কাছে এক থেকে দেড় লাখ টাকায় সাবলিজ প্রদান করেছেন এবং প্রায় দুই হাজার বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ধরার নৌকার বিপরীতে এগুলোর মালিকদের কাছ থেকে মাসে দুই হাজার থেকে ষাট হাজার পর্যন্ত টাকা টোকেন দিয়ে আদায় করছেন। যাদের কাছে টাকার টোকেন থাকবে না তারা নদীতে মাছ ধরতে পারবে না এমন আইন প্রতিষ্ঠিত করেছের তাঁরা।
গত ১৮ সেপ্টেম্বর চানপুর গ্রামের নীতিশ বর্মন টোকেন ছাড়া নদীতে মাছ ধরতে গেলে দিলিপ বর্মন ও সুকেশ বর্মনের লাঠিয়াল বাহিনী তাকে মারধর করে তার নৌকা ও জাল নিয়ে যায়। পরে ২৫ সেপ্টেম্বর জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন নীতিশ বর্মণ।
এব্যাপারে ইউপি সদস্য সুকেশ বর্মণ বলেন, ‘জলমহালটিতে বিগত দুই বছর যাবৎ আমরা খাসকালেকশন করছি, যেহেতু খাসকালেকশনের টাকা আমরা দেই, তাই জেলেদের কাছ থেকে আমরা টাকা নেই।’ এ বছর খাসকালেকশনেও নেই তারপরও টাকা নিচ্ছেন কেন ? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরাই খাসকালেকশনের জন্য জলমহালটি আনবো, তাই টাকা নিচ্ছি।’
তদন্তকারী কর্মকর্তা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার শাকিল আহমেদ বলেন, ‘জেলা প্রশাসক মহোদয়ের কাছে দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিন তদন্ত করেছি।’ তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল না করা পর্যন্ত এ বিষয়ে তিনি কোন মন্তব্য করবেন না বলে জানান।
দিরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মঈনুদ্দিন ইকবাল বলেন, ‘ইজারা ছাড়া জলমহালে জেলেদের কাছ থেকে কোন ধরনের টাকা নেয়ার সুযোগ নেই, আমি এলাকায় নতুন এসেছি, তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্ত করে গেছেন, যেহেতু জলমহালটি এই এলাকায় আমিও বিষয়টি দেখবো।’
দিরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তফা কামাল জানান, শুক্রবার রাতে জেলে সম্প্রদায়ের লোক তাদেরকে মাছ ধরতে বাধা প্রদান, হুমকি দেয়ার অভিযোগে সাধারণ ডায়েরি করেছেন। তারাা বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24