বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন

দিরাইয়ে স্কুলছাত্রী মুন্নীর- খুনের ঘটনায় গ্রেফতার -১,২ জনকে আসামী করে মামলা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৪৮ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
দিরাই পৌর শহরে বখাটের ছুরিকাঘাতে দিরাই বালিকা বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী সুমাইয়া আক্তার মুন্নীকে (স্কুলের নাম হুমায়রা আক্তার মুন্নী) খুনের ঘটনায় ইয়াহিয়া চৌধুরীসহ ২ জনকে আসামী করে মামলা হয়েছে। মামলার দ্বিতীয় আসামী তানভির আহমদ চৌধুরীকে সোমবার বিকাল সাড়ে ৪ টায় গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
পুলিশ জানায়, সোমবার বিকাল ৪ টায় নিহত মুন্নীর মা রাহেলা বেগম বাদী হয়ে খুনী ইয়াহিয়া সর্দার (২২) ও তার বন্ধু দিরাই শহরের আনোয়ারপুরের বাসিন্দা আবুল কালাম চৌধুরীর ছেলে তানভির আহমদ চৌধুরীর (২২) নামোল্লেখ করে খুনের মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পরপরই বিকাল সাড়ে ৪ টায় দিরাই শহরের কলেজ রোডের নিজ দোকান থেকে তানভিরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তানভিরের গ্রামের বাড়ী দিরাই উপজেলার তাড়ল গ্রামে।
দিরাই পৌর শহরের আনোয়ারপুরের নয়া হাটির মাদানী মহল্লা এলাকার ইতালী প্রবাসী হিফজুর রহমানের মেয়ে মুন্নীকে গত প্রায় ১ বছর ধরে উত্যক্ত করে আসছিল বখাটে ইয়াহিয়া। ৩ মাস আগে সুনামগঞ্জ র‌্যাব অফিসে ঐ বখাটের নামে অভিযোগ করেছিলেন মুন্নীর মা রাহেলা বেগম। পরে র‌্যাব’এর সুনামগঞ্জ ক্যাম্পে ঐ বখাটে ও তার বাবা জামাল সর্দারকে ডাকা হয়েছিল। ইয়াহিয়ার পক্ষে কেবল জামাল সর্দারই আসেন। র‌্যাবের পক্ষ থেকে জামাল সর্দারকে শাসিয়ে দেওয়া হয়, তার ছেলেকে এই পথ থেকে ফেরানোর দায়িত্বও দেওয়া হয়। এরপরও ইয়াহিয়া তাকে উত্যক্ত করতো।
মুন্নীর মামা আজিজুর রহমান বললেন,‘মুন্নীকে হত্যা করার পর শুনেছি, সে প্রায়ই মুন্নীকে হুমকি দিতো। মুন্নীর মা রাহেলা বেগমের মোবাইলেও অকথ্য ভাষায় গালি দিতো। এই মোবাইল পুলিশের কাছে আছে।’
মুন্নীর মামাতো ভাই আফজল হোসেন জানান, মুন্নী ও তার ফুফু তাদের বাসায়ই থাকতেন। স্কুলে যাওয়া আসার পথে ইয়াহিয়া বিরক্ত করতো। মুন্নীকে হত্যা করার সময় মুন্নী ও তার মা ছাড়া কেউই বাসায় ছিলেন না। ইয়াহিয়ার সঙ্গে ৪-৫ জন ছিলো বলে জেনেছেন তারা।
মুন্নীর মা রাহেলা বেগম এখনো স্বাভাবিক হননি। তিনি কেবলই কাঁদছেন। ইয়াহিয়ার হুমকি দেবার বিষয়টি পুলিশকে জানানো হলনো না কেন? এমন প্রশ্ন করলে রাহেলা বেগম কান্নায় ভেঙে পড়েন।
পুলিশ সুপার বরকতুল্লাহ্ খান বলেন,‘মুন্নীর মা রাহেলা বেগম বাদী হয়ে সোমবার বিকালে মামলা দায়ের করেছেন। এই মামলা আসামী তানভিরকে সঙ্গে সঙ্গে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ইয়াহিয়াকে গ্রেপ্তারের জন্য নানাভাবেই চেষ্টা করা হচ্ছে।’
র‌্যাব-৯’এর সুনামগঞ্জ ক্যাম্প’এর অধিনায়ক লে. কমান্ডার ফয়সল আহমদ জানান, খুনী ইয়াহিয়াকে গ্রেপ্ততার করতে র‌্যাব অভিযান শুরু করেছে। সম্ভাব্য অনেক স্থানকে টার্গেট করে এই অভিযান চলছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24