মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন

দুই বিভাগীয় প্রধানকে স্বপদে ফিরিয়ে আনার দাবিতে শাবি ভিসিকে ৪ ঘন্টা অবরুদ্ধ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৩ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১১৩ Time View

শাবি সংবাদদাত :: শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই বিভাগীয় প্রধানকে স্বপদে ফিরিয়ে আনার দাবি ও অপমানের প্রতিবাদে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ভিসিকে আলটিমেটাম দিয়ে বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত তাদের কর্মসূচী স্থগিত করেছে। ওই দুই বিভাগীয় প্রধানকে স্বপদে বহাল করা হবে এমন আশ্বাসের প্রেক্ষিতে ভিসি আমিনুল ইসলাম ভুঁইয়াকে বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত সময় দিয়ে নিজেদের কর্মসূচী স্থগিত করে শিক্ষার্থীরা। সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ভিসি ভবনে তালা দিয়ে রেখেছিল শিক্ষার্থীরা। সাড়ে ৪টায় শিক্ষার্থীরা ভিসি ভবনের তালা খুলে দিয়ে বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ৩৯ ঘন্টার আলটিমেটাম দিয়েছে।

জানা যায়, শাবির পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. বদিউজ্জামান ফারুক ও জিওগ্রাফি এন্ড এনভায়রনমেন্ট সাইন্স বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. শরীফ মোহাম্মদ শরাফ উদ্দিন ভিসি আমিনুল ইসলাম ভুঁইয়ার অসদাচরণের কারণে পদত্যাগ করেন। তাদের পদত্যাগের প্রতিবাদে এবং তাদেরকে স্বপদে বহালের দাবিতে সোমবার দুপুর থেকে ভিসি ভবনে তালা দিয়ে রাখে বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ভিসি আমিনুল ইসলাম ভুঁইয়া শিক্ষার্থীদের বুঝানোর চেষ্টা করেন, মঙ্গলবার পহেলা বৈশাখ। এমন দিনে ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল থাকুক, তা কারো কাম্য নয়।

ভিসি শিক্ষার্থীদেরকে আন্দোলন থেকে সরে আসার আহবান জানান। ভিসির এমন আহবানে শিক্ষার্থীরা বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত তাদের আন্দোলন স্থগিত করে। তবে এর মধ্যে যদি ওই দুই বিভাগীয় প্রধানকে স্বপদে ফিরিয়ে আনা না হয়, তবে বুধবার সকাল ৯টা থেকে ফের ভিসি ভবনে তালা দিয়ে আন্দোলন শুরু করা হবে বলে আলটিমেটাম দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

পদত্যাগকারী জিওগ্রাফি এন্ড এনভায়রনমেন্ট সাইন্স বিভাগের প্রধান অধ্যাপক শরীফ মোহাম্মদ শরাফ উদ্দিন জানান, ফলিত বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক জহির বিন আলম রোববার সকালে একাডেমিক ভবন ‘এ’ তে এসে দুই বিভাগের শিক্ষকদের অশালিন ভাষায় গালাগাল করেন। বিষয়টি ভিসির সাথে দেখা করে অবহিত করতে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান অধ্যাপক সৈয়দ বদিউজ্জামান ফারুক একাধিকবার ফোন করলেও তিনি দেখা করার সময় দেননি। পরে ওইদিন বিকেল সাড়ে ৪টায় দুই বিভাগের শিক্ষকরা ভিসির সাথে দেখা করতে গেলে তিনিও তাদের সাথে অসৌজন্যমূলক ব্যবহার করে ভিসির কক্ষ থেকে বের করে দেন।

এ ব্যাপারে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. ইয়াসমিন হক বলেন, ‘একজন ডিন তো আর ইচ্ছে করলে আমাদের অফিসে এসে অশালীন ভাষায় গালাগাল করতে পারেন না। এর আগেও ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে তিনি আমাদের শিক্ষকদের সাথে খারাপ ব্যবহার করেছেন। এ নিয়ে পাঁচ বিভাগীয় প্রধান তার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করায় তার বিরুদ্ধে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। ওই কমিটির রির্পোটে জহির বিন আলমের বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশ করেছে বলেও আমরা জানতে পেরেছি। কিন্তু অদৃশ্য কারণে শাবির সাধারণ সিন্ডিকেট সভায় রিপোর্ট এখনো প্রকাশ করেননি ভিসি।

অধ্যাপক ড. ইয়াসমিন হক আরো বলেন, ‘ভিসির সাম্প্রতিক কর্মকান্ড দেখে মনে হচ্ছে তিনি এই ক্যাম্পাস চালানোর যোগ্যতা রাখেন না।’
বিশ্ববিদ্যালয় ভালোভাবে চালানোর জন্য একজন যোগ্য ভিসি প্রয়োজন বলে তিনি মন্তব্য করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের স্পেস কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক জহির বিন আলম বলেন, ‘কতিপয় শিক্ষকরা যা বলার বলে গেছেন। যখন আমার কাছে কোন চিঠি আসবে, তখন আমি মন্তব্য করব। ক্যাম্পাসে কে কি করেছে সেটা শাবির সকলেই জানে।’

এ ব্যাপারে উপাচার্য অধ্যাপক আমিনুল হক ভুঁইয়া বলেন, ‘সমস্যা সমাধানে আমরা একটি প্রক্রিয়ার মধ্যে আছি। বিশ্ববিদ্যালয় চলতে হবে এবং ভালোভাবেই চলবে ইনশাহল্লাহ। আমার আচরণ নিয়ে শিক্ষকদের মাঝে ভুল বুঝাবুঝি হতে পারে, আশা করি এ সমস্যার সমাধান হবে। কারো প্রতি বিশেষ কোনো আধিক্য অনাধিক্য আমার নেই।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24