বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:০৫ অপরাহ্ন

দূর্ভোগের যেন শেষ নেই জগন্নাথপুরের নগরবাসীর , কর্তৃপক্ষ উদাসিন

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৩ জুন, ২০১৭
  • ৫১ Time View

স্টাফ রিপোর্টার :: শনিবার কয়েক ঘন্টা বৃষ্টিতে জগন্নাথপুর পৌরশহর জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। শহরের বিভিন্ন সড়ক বৃষ্টির পানিতে ডুবে যাওয়ায় জনদূর্ভোগ উঠে চরমে। পানি নিস্কাশনের ড্রেনেজ ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়ায় দীর্ঘদিন ধরে এসমস্যা বিরাজ করে আসছে। বিশেষ করে শহরের প্রানকেন্দ্র পৌর পয়েন্ট থেকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কার্য্যালয়ের মোড় পর্যন্ত করুণ অবস্থা বিরাজ করছে অনেক দিন ধরে। সংকট উত্তরণে কর্তৃপক্ষের কোন পদক্ষেপ নেই। ফলে দূর্ভোগের সঙ্গে বসবাস করতে হচ্ছে নগরবাসীকে।
পৌর নাগরিকরা জানান, শনিবার ভোর থেকে সকাল ১১ টা পর্যন্ত ভারি বর্ষনে অধিকাংশ পৌরশহরের রাস্তা ঘাট পানিতে তলিয়ে যায়। জগন্নাথপুর পৌরশহরের সবচেয়ে ব্যস্ততম এলাকা পৌরসভার কার্যালয়ের সামন থেকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ভবনের মুখ পর্যন্ত সড়কে অসংখ্যা খানানন্দ সৃষ্টি হয়ে চলাচলে অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। সেই সঙ্গে বৃষ্টির পানিতে সড়কে ডুবে যায়। সড়কের পাশের ড্রেন থেকে ময়না আর্বজনা বৃষ্টির পানিতে ভেসে সড়কে জমে থাকে। আবদুল খালিক উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে রানীগঞ্জ সড়কে বড় গর্ত বৃষ্টি হয়ে পুকুরে পরিনত হয়েছে। যে কারনে শিক্ষার্থীসহ ওই সড়কের পথচারিরা দূর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। পৌরশহরের উত্তর ইকড়ছই আবাসিক এলাকায় জগন্নাথপুর- সুনামগঞ্জ সকড়ের দুই পাশে কোন ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় পানিবন্ধী হয়ে পড়েন স্থানীয় লোকজন। এছাড়াও শহরের থানার রোড, উপজেলা পরিষদ রোড, ইকড়ছইসহ বিভিন্ন সড়কে সামান্য বৃষ্টিতে জলমগ্ন হয়ে পড়ে। ইকড়ছই এলাকার বাসিন্দা আপ্তাব উদ্দিন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, কয়েক ঘন্টা বৃষ্টির পানিতে পানিবন্ধী হয়ে পড়েছে আমরা। বাড়ির সামনের রাস্তাটি পানিতে ডুবে গেছে। বসতঘরের সামনে পানি অবস্থান করছে। এ সমস্যা কয়েক যুগ ধরে বিরাজ করছে। একাধিকবার কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করা হলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি।

জানা যায়, ১৯৯৯ সালে জগন্নাথপুর পৌরসভা গঠন করা হলে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে পানি নিস্কাশনের জন্য একটি ড্রেন নির্মাণ করা হয়। এবং পাগলা-জগন্নাথপুর-রানীগঞ্জ-আউশকান্দি আঞ্চলিক মহাসড়কের অংশ হিসেবে সড়ক নির্মাণ করে। দীর্ঘদিন ধরে কোন সংষ্কার না হওয়ায় ময়লা আবর্জনা ভরে ড্রেনেজ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ে। ড্রেনের ওপরের স্লাব ভেঙ্গে যাওয়া ও রক্ষনা বেক্ষন না থাকায় সামান্য বৃষ্টি হলে পানি নিস্কাশন না হয়ে উক্ত সড়কে পানি জমে থাকে।
শহরের ব্যবসায়ী বকুল গোপ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, পৌরসভার সামনের ড্রেন পানি নিস্কাশনের বদলে মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। প্রায়ই ড্রেনের মুখ খোলা থাকায় দুর্ঘটনা ঘটছে। জরুরী ভিত্তিতে সংষ্কার করা প্রয়োজন।

আবদুল খালিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিশ্বজিৎ দাস জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, সড়কে সংস্কার না হওয়ায় পিচ উঠে বড় গর্ত সৃষ্টি হয়ে পুকুরের ন্যায় পরিনত হয়েছে সড়কটি। ফলে বৃষ্টির দিনে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের যাতায়াতে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয়। সমস্যা সমাধানে বিষয়টি দ্রুত সুনজর দেয়া দরকার।

জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আবদুল মনাফ ঁজগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের বাস্তবায়নাধীন সড়ক ড্রেনে পৌরসভার কাজ করার এখতিয়ার নেই। তারপরও আমাদের সাধ্য অনুযায়ী নাগরিক দূর্ভোগ এড়াতে আমরা কাজ করছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24