দোয়ারাবাজারে ফুটবল প্রতিযোগিতায় হরিণ পুরস্কার রাখায় টুর্নামেন্ট পণ্ড করল বনবিভাগ

স্টাফ রিপোর্টার
মায়া হরিণ আটক করে, এই হরিণকে প্রথম পুরস্কার ঘোষণা দিয়ে ফুটবল টুর্নামেন্ট ঘোষণা করে উল্লাস করা হলো না দোয়ারাবাজার উপজেলার রহিমেরপুর গ্রামবাসীর। বেরসিক বন বিভাগের কারণে ভেস্তে গেল অভিনব পুরস্কারের ফুটবল টুর্নামেন্ট।
একটি মায়া হরিণকে প্রথম পুরস্কার ঘোষণা দিয়ে আকর্ষণীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করা হয়েছিল দোয়ারাবাজারের নরসিংপুর ইউনিয়নের রহিমেরপুর মধ্যমাঠে। দ্বিতীয় পুরস্কার ঘোড়া, তৃতীয় পুরস্কার খাসি ও চতুর্থ পুরস্কার ছিল ভেড়া। আগামী ১৭ এপ্রিল এই টুর্নামেন্টের উদ্বোধন হওয়ার কথা ছিল।
টুর্নামেন্টের প্রচারের জন্য পোস্টার ছাপা হয়েছিল। পোস্টারে উল্লেখ করা হয়েছিল। টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করবেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান ইমদাদ রেজা চৌধুরী। টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ ফি ধরা হয়েছিল ২ হাজার ১০০ টাকা। টুর্নামেন্টের ফি জমা দেয়ার জন্য স্থান নির্ধারণ করা হয়েছিল রহিমেরপুর পাশ্ববর্তী মাছিরপুরের জননী এন্টারপ্রাইজ।
এলাকায় এই পোস্টার সাঁটানোর পর প্রশ্ন উঠে, এই মায়া হরিণ পাওয়া গেলো কীভাবে?
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সোমবার ফুটবল টুর্নামেন্টের পোস্টারের ছবি প্রকাশ হলে টনক নড়ে বন বিভাগের। খোঁজ নিয়ে সোমবার বিকালে দোয়ারাবাজারের বন কর্মকর্তা সালাউদ্দিন রহিমেরপুর গিয়ে মায়া হরিণ উদ্ধার করেন। গ্রামের শাহীদ আলীর বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় পুরস্কারের সেই মায়া হরিণ।
টুর্নামেন্টের পরিচালনা কমিটির সদস্য ফয়েজ উদ্দিন বলেন, ‘এক মাস আগে দলছুট এই হরিণ সীমান্তের ওপার থেকে এপারে আসে। হরিণটি জবাই করতে বা কাউকে নিতে দেওয়া হয়নি, এটি দিয়ে টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়েছিল। সোমবার বিকেলে বন বিভাগের কর্মকর্তা সালাউদ্দিন এসে হরিণটি উদ্ধার করে নিয়ে গেছেন।’
জানতে চাইলে জেলা বন বিভাগের কর্মকর্তা সালাউদ্দিন বলেন, ‘দোয়ারা বাজারের রহিমেরপুরের শহীদ আলীর বাড়ি থেকে পুরুষ মায়া হরিণটি সোমবার বিকালে উদ্ধার করা হয়। এটির বয়স তিন বছর। এটি লম্বায় ৩৫ ইঞ্চি এবং উচ্চতায় ১৮ ইঞ্চি। সঙ্গে সঙ্গেই হরিণটি সিলেটের খাদিমনগর জাতীয় উদ্যানে নিয়ে যাওয়া হয়। সিলেট বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তার নির্দেশে খাদিমনগর জাতীয় উদ্যানে রাতেই এটি অবমুক্ত করে দেওয়া হয়।’
এদিকে, আগামী ১৭ এপ্রিল দোয়ারাবাজারের রহিমেরপুরে আয়োজিত এই টুর্নামেন্টটি স্থগিত হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন টুর্নামেন্ট পরিচালনা কমিটির সদস্য ফয়েজ উদ্দিন।
সুনামগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান ইমদাদ রেজা চৌধুরী বলেন,‘আমাকে দোয়ারাবাজারের এই টুর্নামেন্ট উদ্বোধন করার আমন্ত্রণ করা হয়েছিল। পুরস্কার দেবার কথা আমার নয়। টুর্নামেন্টে কী পুরস্কার দেওয়া হবে সেটি আমি জিজ্ঞেসও করিনি, আমি যেহেতু পুরস্কার বিতরণি অনুষ্ঠানের অতিথি নয়, এটি আমার জানাও জরুরি ছিল না।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» পরীক্ষা কেন্দ্রে ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে আটক-১

» দলকে না জানিয়ে এমপি হিসেবে শপথ নিলেন বিএনপির জাহিদুর

» ‘ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার সঙ্গে শ্রীলঙ্কা হামলার সম্পর্কের প্রমাণ নেই’

» ক্লাসে শিক্ষকদের সিগারেট-পান নিষিদ্ধ

» জগন্নাথপুরে এক সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

» জগন্নাথপুরে নিসচা’র উদ্যোগে লিফলেট বিতরণ

» জগন্নাথপুরের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে আনহার মিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান

» জগন্নাথপুরে সু-সেবা নেটওয়ার্ক কমিটির ত্রিমাসিক পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত

» জগন্নাথপুরে যুক্তরাজ্য প্রবাসি গীতিকার আক্কাছ মিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান

» হবিগঞ্জে প্রেমিক হত্যার পর খাটের নিচে মাটিতে পুতে রাখে প্রেমিকা

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

দোয়ারাবাজারে ফুটবল প্রতিযোগিতায় হরিণ পুরস্কার রাখায় টুর্নামেন্ট পণ্ড করল বনবিভাগ

স্টাফ রিপোর্টার
মায়া হরিণ আটক করে, এই হরিণকে প্রথম পুরস্কার ঘোষণা দিয়ে ফুটবল টুর্নামেন্ট ঘোষণা করে উল্লাস করা হলো না দোয়ারাবাজার উপজেলার রহিমেরপুর গ্রামবাসীর। বেরসিক বন বিভাগের কারণে ভেস্তে গেল অভিনব পুরস্কারের ফুটবল টুর্নামেন্ট।
একটি মায়া হরিণকে প্রথম পুরস্কার ঘোষণা দিয়ে আকর্ষণীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করা হয়েছিল দোয়ারাবাজারের নরসিংপুর ইউনিয়নের রহিমেরপুর মধ্যমাঠে। দ্বিতীয় পুরস্কার ঘোড়া, তৃতীয় পুরস্কার খাসি ও চতুর্থ পুরস্কার ছিল ভেড়া। আগামী ১৭ এপ্রিল এই টুর্নামেন্টের উদ্বোধন হওয়ার কথা ছিল।
টুর্নামেন্টের প্রচারের জন্য পোস্টার ছাপা হয়েছিল। পোস্টারে উল্লেখ করা হয়েছিল। টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করবেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান ইমদাদ রেজা চৌধুরী। টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ ফি ধরা হয়েছিল ২ হাজার ১০০ টাকা। টুর্নামেন্টের ফি জমা দেয়ার জন্য স্থান নির্ধারণ করা হয়েছিল রহিমেরপুর পাশ্ববর্তী মাছিরপুরের জননী এন্টারপ্রাইজ।
এলাকায় এই পোস্টার সাঁটানোর পর প্রশ্ন উঠে, এই মায়া হরিণ পাওয়া গেলো কীভাবে?
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সোমবার ফুটবল টুর্নামেন্টের পোস্টারের ছবি প্রকাশ হলে টনক নড়ে বন বিভাগের। খোঁজ নিয়ে সোমবার বিকালে দোয়ারাবাজারের বন কর্মকর্তা সালাউদ্দিন রহিমেরপুর গিয়ে মায়া হরিণ উদ্ধার করেন। গ্রামের শাহীদ আলীর বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় পুরস্কারের সেই মায়া হরিণ।
টুর্নামেন্টের পরিচালনা কমিটির সদস্য ফয়েজ উদ্দিন বলেন, ‘এক মাস আগে দলছুট এই হরিণ সীমান্তের ওপার থেকে এপারে আসে। হরিণটি জবাই করতে বা কাউকে নিতে দেওয়া হয়নি, এটি দিয়ে টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়েছিল। সোমবার বিকেলে বন বিভাগের কর্মকর্তা সালাউদ্দিন এসে হরিণটি উদ্ধার করে নিয়ে গেছেন।’
জানতে চাইলে জেলা বন বিভাগের কর্মকর্তা সালাউদ্দিন বলেন, ‘দোয়ারা বাজারের রহিমেরপুরের শহীদ আলীর বাড়ি থেকে পুরুষ মায়া হরিণটি সোমবার বিকালে উদ্ধার করা হয়। এটির বয়স তিন বছর। এটি লম্বায় ৩৫ ইঞ্চি এবং উচ্চতায় ১৮ ইঞ্চি। সঙ্গে সঙ্গেই হরিণটি সিলেটের খাদিমনগর জাতীয় উদ্যানে নিয়ে যাওয়া হয়। সিলেট বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তার নির্দেশে খাদিমনগর জাতীয় উদ্যানে রাতেই এটি অবমুক্ত করে দেওয়া হয়।’
এদিকে, আগামী ১৭ এপ্রিল দোয়ারাবাজারের রহিমেরপুরে আয়োজিত এই টুর্নামেন্টটি স্থগিত হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন টুর্নামেন্ট পরিচালনা কমিটির সদস্য ফয়েজ উদ্দিন।
সুনামগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান ইমদাদ রেজা চৌধুরী বলেন,‘আমাকে দোয়ারাবাজারের এই টুর্নামেন্ট উদ্বোধন করার আমন্ত্রণ করা হয়েছিল। পুরস্কার দেবার কথা আমার নয়। টুর্নামেন্টে কী পুরস্কার দেওয়া হবে সেটি আমি জিজ্ঞেসও করিনি, আমি যেহেতু পুরস্কার বিতরণি অনুষ্ঠানের অতিথি নয়, এটি আমার জানাও জরুরি ছিল না।’

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।