দোষ স্বীকার করায় রিজভীর দিকে তেড়ে গেলেন নেতারা

নিউজ ডেস্ক: বিএনপি যে পরনির্ভরশীল দল তা নিজ মুখেই স্বীকার করে নিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ। ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য বন্ধুরাষ্ট্রের কাছে নালিশ করার বিষয়ে আভাস দিয়েছেন রিজভী আহমেদ। নিরুপায় হয়ে জনগণের কাছে নিজেদের ভাগ্য তুলে দেওয়ার পরিস্থিতি তৈরি করায় এবং রিজভী আহমেদের বেফাঁস কথা-বার্তার প্রেক্ষাপটে রিজভীকে মারার জন্য তেড়ে আসেন বিএনপি বেশ কয়েকজন নেতা। জনগণকে ব্যবহার করে আস্তাকুঁড়ায় ছুঁড়ে ফেলে দেওয়ার জন্য খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকেও গালিগালাজ করেন নেতারা। প্রেস ব্রিফিংয়ের পর কার্যালয়ে হইচই বেধে যায়। পরে অন্যান্য নেতাদের সহযোগে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

২৩ জুন নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এই কথা বললে উপস্থিত নেতারা রিজভীকে ঘেরাও করে বক্তব্য ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য চাপ দেন। নেতারা রিজভীকে দালাল ও বেঈমান বলেও গালিগালাজ করেন। দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া, নির্বাচন, জনগণের উপর আস্থা-ভরসার বিষয়ে প্রেস ব্রিফিং করেন রিজভী। রিজভী বলেন, জনগণই বিএনপির শেষ ভরসা। জনগণকে সাথে নিয়ে আন্দোলন-কর্মসূচির আয়োজন করতে হবে। রিজভী আহমেদের বক্তব্যর পরপরই নিজেদের মধ্যে কোন্দলে জড়িয়ে পড়েন কয়েকজন সিনিয়র নেতা। মোয়াজ্জেম হোসেন আলালসহ একাধিক নেতা রিজভীকে গালিগালাজ করেন। বিএনপিকে করুণা ও অবহেলার পাত্র বানানোর জন্য রিজভীকে একহাত নেন নেতারা। ঘরে বসে বসে টিভি দেখে দিনশেষে প্রেস ব্রিফিং করার জন্য রিজভীকে অপমান করেন নেতারা। ঘরে না বসে সাহস থাকলে রাস্তায় নেমে আন্দোলন করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার সাহস দেখানোর জন্যও চ্যালেঞ্জ করেন নেতারা। মাইক নেতা হিসেবেও রিজভীকে ব্যঙ্গ করেন তারা।

এছাড়াও জনগণ থেকে বিএনপির বিচ্ছিন্নতার জন্য উপস্থিত নেতারা খালেদা জিয়া, তারেক রহমানকেও গালি দেন। জনগণকে পুড়িয়ে আবার তাদের কাছে পাওয়ার উচ্চাভিলাসের জন্য নিজেদের দায়ী করেন তারা। এসময় রিজভী বলেন, আমাকে দৈনিক প্রেস ব্রিফিং করার জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তোমরা কে আমাকে গালি দেওয়ার? সাহস থাকলে লন্ডনে গিয়ে নালিশ করো। এরপরই রিজভীকে মারার জন্য তেড়ে আসেন নেতারা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» মাদকবিরোধী অভিযানে নিহত দুই শতাধিক

» ‘জনপ্রশাসন পদক’ পেলেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো: সাবিরুল ইসলাম

» মৃত্যুের ৩২ বছর পরও লাশ অজ্ঞত!

» চিকিৎসকদের নৈতিকতা নিয়ে প্রশ্ন হাইকোর্টের

» জগন্নাথপুরে প্রভুপাদ শ্রীশ্রীকৃষ্ণ চরণ গোস্বামীর আর্বিভাব তিথি পালিত

» মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেলেন ৩৮ বীরাঙ্গনা

» সংস্কারের অভাবে জৌলুস হারাচ্ছে জগন্নাথপুরের পাইলগাঁও জমিদারবাড়ী

» নিহত সন্তানদের দাফনের অধিকার দাবীতে ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভ

» ছাতকের সেই ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

» মৌলভীবাজারে মানবতাবিরোধী অপরাধে চারজনের মৃত্যুদন্ড

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

দোষ স্বীকার করায় রিজভীর দিকে তেড়ে গেলেন নেতারা

নিউজ ডেস্ক: বিএনপি যে পরনির্ভরশীল দল তা নিজ মুখেই স্বীকার করে নিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ। ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য বন্ধুরাষ্ট্রের কাছে নালিশ করার বিষয়ে আভাস দিয়েছেন রিজভী আহমেদ। নিরুপায় হয়ে জনগণের কাছে নিজেদের ভাগ্য তুলে দেওয়ার পরিস্থিতি তৈরি করায় এবং রিজভী আহমেদের বেফাঁস কথা-বার্তার প্রেক্ষাপটে রিজভীকে মারার জন্য তেড়ে আসেন বিএনপি বেশ কয়েকজন নেতা। জনগণকে ব্যবহার করে আস্তাকুঁড়ায় ছুঁড়ে ফেলে দেওয়ার জন্য খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকেও গালিগালাজ করেন নেতারা। প্রেস ব্রিফিংয়ের পর কার্যালয়ে হইচই বেধে যায়। পরে অন্যান্য নেতাদের সহযোগে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

২৩ জুন নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এই কথা বললে উপস্থিত নেতারা রিজভীকে ঘেরাও করে বক্তব্য ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য চাপ দেন। নেতারা রিজভীকে দালাল ও বেঈমান বলেও গালিগালাজ করেন। দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া, নির্বাচন, জনগণের উপর আস্থা-ভরসার বিষয়ে প্রেস ব্রিফিং করেন রিজভী। রিজভী বলেন, জনগণই বিএনপির শেষ ভরসা। জনগণকে সাথে নিয়ে আন্দোলন-কর্মসূচির আয়োজন করতে হবে। রিজভী আহমেদের বক্তব্যর পরপরই নিজেদের মধ্যে কোন্দলে জড়িয়ে পড়েন কয়েকজন সিনিয়র নেতা। মোয়াজ্জেম হোসেন আলালসহ একাধিক নেতা রিজভীকে গালিগালাজ করেন। বিএনপিকে করুণা ও অবহেলার পাত্র বানানোর জন্য রিজভীকে একহাত নেন নেতারা। ঘরে বসে বসে টিভি দেখে দিনশেষে প্রেস ব্রিফিং করার জন্য রিজভীকে অপমান করেন নেতারা। ঘরে না বসে সাহস থাকলে রাস্তায় নেমে আন্দোলন করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার সাহস দেখানোর জন্যও চ্যালেঞ্জ করেন নেতারা। মাইক নেতা হিসেবেও রিজভীকে ব্যঙ্গ করেন তারা।

এছাড়াও জনগণ থেকে বিএনপির বিচ্ছিন্নতার জন্য উপস্থিত নেতারা খালেদা জিয়া, তারেক রহমানকেও গালি দেন। জনগণকে পুড়িয়ে আবার তাদের কাছে পাওয়ার উচ্চাভিলাসের জন্য নিজেদের দায়ী করেন তারা। এসময় রিজভী বলেন, আমাকে দৈনিক প্রেস ব্রিফিং করার জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তোমরা কে আমাকে গালি দেওয়ার? সাহস থাকলে লন্ডনে গিয়ে নালিশ করো। এরপরই রিজভীকে মারার জন্য তেড়ে আসেন নেতারা।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।