শনিবার, ১৭ অগাস্ট ২০১৯, ১১:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের এবার বর্ষসেরা প্রতিনিধি হলেন আশিক মিয়া বঙ্গবন্ধুকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড, হিসেবে আখ্যা দিল জাতিসংঘ জগন্নাথপুরে তিন লাখ টাকা মূল্যের সরকারি গাছ ‘কেটে’ নিলেন যুবলীগ নেতা।

ধর্মপাশায় ৩০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিলো প্রতারক

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২ জুলাই, ২০১৯
  • ৮০ Time View

ধর্মপাশায় ভুয়া কাগজ-পত্র দিয়ে জলমহাল ইজারা প্রদানসহ নানাভাবে প্রতারণার মাধ্যমে এক ব্যক্তির কাছ থেকে ৩০ লাখ হাতিয়ে নেবার অভিযোগ ওঠেছে এক প্রতারকের বিরুদ্ধে। ওই প্রতারকের নাম গাফ্ফার চৌধুরী অপু। সে সিলেট শহরের হাউজিংস্টেট এলাকার আব্দুল হামিদ চৌধুরী’র ছেলে। বর্তমানে সে মোহনগঞ্জ উপজেলার বিরামপুর ইউনিয়নের বরখাসিয়া গ্রামে বাড়ি করেছেন।
নেত্রকোণার মোহনগঞ্জ উপজেলার বরখাসিয়া গ্রামের উজ্জ্বল মিয়া সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এসে এমন তথ্য জানালেন। পরে উজ্জ্বল মিয়া স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, ২০১৭ সালের শেষের দিকে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি খন্দকার মোশারফ হোসেন ও ভূমি মন্ত্রনালয়ের সচিব এম. আউয়ালসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর জাল করে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার ধানকুনিয়া হাওরের পাথরেরকুর বিল লিজ এনে দেয়ার কাগজপত্র তার হাতে তুলে দেন গাফ্ফার চৌধুরী।
উজ্জ্বল মিয়া এসময় গাফ্ফার চৌধুরী’র দেওয়া সকল কাগজপত্র দেখান সাংবাদিকদের। এসময় সোনালী ব্যাংকসহ বিভিন্ন ব্যাংকের শতাধিক জাল পে-অর্ডার, বিভিন্ন দফতরের ভুয়া কাগজ দেখান উজ্জ্বল মিয়া। এই সবকিছুই গাফ্ফার চৌধুরী মুন্সিয়ানা। গাফ্ফার চৌধুরী এমন কাজ করে বিভিন্ন সময়ে তার কাছ থেকে ৩০ লাখ হাতিয়ে নেয়। অন্য আরও অনেক নিরীহ মানুষকে জমি বন্দোবস্ত দেওয়াসহ জলমহাল ও নদী ইজারা দেবার কথা বলে টাকা হাতিয়েছেন গাফ্ফার চৌধুরী।
গাফ্ফার চৌধুরী’র সঙ্গে উজ্জ্বল মিয়াও প্রতারণায় যুক্ত ছিলেন কী-না? সাংবাদিকরা এমন প্রশ্ন করলে উজ্জ্বল মিয়া বলেন, আমি সহজ সরল মানুষ, কিছুটা লোভে পড়েছিলাম। এজন্য টাকা দিয়েছিলাম। এসময় উজ্জ্বল মিয়ার ছেলে প্রবাসী হীরা মিয়াও উপস্থিত ছিলেন।
এ প্রসঙ্গে গাফ্ফার চৌধুরী’র বক্তব্য জানতে চাইলে তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
উপস্থিত জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার মঞ্জুরুল আলম জানান, যারা প্রতারণার শিকার হয়েছেন, তারা সংশ্লিষ্ট কোন দপ্তরে যোগাযোগই করেননি। তিনি জানান, জালিয়াতচক্রকে গ্রেফতারের জন্য আধুনিক প্রযুক্তির সহায়তা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24