বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন

ধর্ম হোক যার যার উৎসব হোক সবার

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৫ এপ্রিল, ২০১৬
  • ৬৪ Time View

জয়ন্ত রায়:: ” অভয়-চিত্ত ভাবনা-মুক্ত যুবারা ,শুন! মোদের পিছনে চীৎকার করে পশু, শকুন ! ভ্রূকুটি হানিছে পুরাতন পচা গলিত শব, রক্ষণ-শীল বুড়োরা করিছে তা ‘রি স্তব শিবারা চেঁচাক , শিব অটল । নিরভীক বীর পথিক-দল, জোর কদম, চল রে চল
সুপ্রভাত। বাংলা নব বর্ষের প্রাণ ভরা শুভেচ্ছা, ভালবাসা সবাইকে। কিন্তু সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সময়ের বাধা নিষেধে আমার ভালবাসা এবং ভাল লাগা নিঃসংকোচে প্রকাশ করতে পারছি কই। আসলে নিয়মের জোয়াল এক সময় অভ্যাসে পরিণত হয়। আর অভ্যাসের দীর্ঘকালীন স্থায়িত্ব সেটা দেশ এবং সমাজের প্রগতির রথের চাকা কে ক্রমাগত পেছনে ঠেলে দিয়ে কুসংস্কারের অন্ধ অচলায়তনে বন্দী করে রাখে । সেই বন্দী দশা থেকে মুক্তি দিতে কোন এক নন্দিনীর জন্য অপেক্ষা করতে হয় শতাব্দী কাল। যে পৌরষদীপ্ত কণ্ঠের আহ্বানে মুক্তির চেতনা জেগেছিল আমাদের তারুন্যে, তাঁর আত্মজাকে এ যুগের নন্দিনী ভেবে আমাদের সকল বিশ্বাস আর আস্থা স্থাপন করেছিলাম । বলতে কষ্ট হয় তিনি আমাদের নিরাশ করেছেন। কারণ নির্মোহ তিনি নন। সম্পদের মোহ তাঁর না থাকলে ও ক্ষমতার মোহ তাঁর প্রচণ্ড। পৃথিবীর গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা সম্বলিত সব দেশের মধ্যে তাঁর মত একচ্ছত্র ক্ষমতার অধিকারী এই মুহূর্তে আর কেউ নেই বলে আমার মনে হয়। তার প্রক্রিষ্ট প্রমাণ সুপ্রিম কোর্টের মহামান্য বিচারপতির ভিন্ন মত প্রকাশের প্রেক্ষিতে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর অস্বস্থি এবং মন্তব্য। তিনি এটা ও ইঙ্গিতের মধ্যে বলে দিয়েছেন, প্রধান বিচারপতির ও নিরঙ্কুশ স্বাধীন মতামত প্রকাশের সুযোগ নেই। তাই আমরা দেখি প্রশাসনিক প্রভাব খাটিয়ে তিনি হাইকোর্টের মাধ্যমে রাষ্ট্র ধর্ম ইসলামকে বহাল রেখে তাঁর প্রতি নিক্ষিপ্ত বিরোধীদের অভিযোগের তীর থেকে নিজেকে রক্ষা করেছেনই শুধু নয় ,কট্টর ইসলাম্পন্থীদের সমর্থন নিশ্চিত করেছেন। তাদেরকে খুশী করার জন্য আবহমান বাঙালির অন্যতম অসাম্প্রদায়িক অনুষ্ঠান,” বর্ষবরণের বিরু্রদ্ধে ফতোয়া জারী করার ব্যাপারে তিনি নীরব থেকেছেন। চাপাতি ওয়ালাদের ভয়ে তাঁর সরকার সিটিয়ে গেছে । তাই নিরাপত্তার অজুহাতে মানুষের উৎসব উদযাপনের স্বতঃস্ফূর্ত আনন্দকে সময়ের শেকল পড়িয়েছেন। না হলে তাঁর মত শক্তিশালী প্রধান মন্ত্রী কেন টেলিভিশান এবং বেতার ভাষণে এই অতি উগ্রবাদী ধর্ম ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বৃহত্তর জনগোষ্টীকে নিশ্চিত করছেন না ?। তাই আমরা প্রশ্ন করতেই পারি আমাদের করের টাকায় ক্রমাগত বেড়ে চলেছে সামরিক এবং অন্যন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কলেবর। অথচ নাগরিকের নিরাপত্তাদানে তাদের ব্যর্থতা প্রশ্নবিদ্ধ। আমি জানি নববর্ষের এ সকালে সরকারের প্রতি বিরূপ মনোভাব প্রকাশের জন্য আমার প্রতি তারা ক্ষুব্ধ হবেন। কিন্তু নীরবতা এবং ঔদাসীন্য কি পরিণতি ডেকে আনতে পারে তার জন্য হাজার বছরের ইতিহাস ঘাটার প্রয়োজন নেই। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের অব্যবহিত আগে ইউরোপের ইতিহাসের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করলেই যথেষ্ট। আমার কাছে সরকারের চেয়ে দেশ বড়। হাজার বছরের কৃষ্টি সংস্ক্রিতির স্বপ্নময় যে দেশ লাভের জন্য আমার তারণ্যে আমাকে যুদ্ধের ময়দানে টেনে নিয়ে গিয়েছিল তার ঐতিহ্যের অবলুপ্তি আমার কাছে কোন ক্রমেই গ্রহন যোগ্য নয়। তাই বাংলাদেশের প্রগতিশীল তরুণদের, জাতীয় কবির উপরোক্ত লাইন কটি মনে মনে উচ্চারণ করে আমাদের নিয়ম ভাঙ্গার ঐতিহ্যকে স্মরণে রেখে নববর্ষের মিলন মেলায় দৃপ্ত পদক্ষেপে এগিয়ে চলার আহ্বান জানাচ্ছি। আবার ও বিশ্বের সকল বাঙালিকে নববর্ষের সাদর সম্ভাষণ। ধর্ম হোক যার যার উৎসব হোক সবার এই হোক নববর্ষের প্রত্যয়। (লেখক- সাবেক প্রধান শিক্ষক নয়াবন্দর উচ্চ বিদ্যালয় বর্তমান আমেরিকা প্রবাসী)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24