শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২০, ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
স্বামীর প্রতি স্ত্রীর ভালোবাসার অনন্য নজির পাইলগাঁও বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ের  শতবর্ষ উৎসব পালনে স্থগিতাদেশ হাইকোর্টে স্থগিত  জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে পুড়ল দুইটি দোকানঘর জগন্নাথপুর স্বরূপ চন্দ্র সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া সম্পন্ন শীর্তাতদের পাশে যুক্তরাজ্য আ.লীগের সেক্রেটারির সৈয়দ ফারুক রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচারের এখতিয়ার রয়েছে জাতিসংঘের আদালতের নওগাঁ সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত জগন্নাথপুরে সাবেক মেম্বার সমাজসেবী ছুরত মিয়ার দাফন সম্পন্ন বাসুদেব মন্দিরে তারকব্রহ্ম মহানামযজ্ঞ উপলক্ষে সন্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে সরকারি ভূমি থেকে ২৭টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

নদী-হাওরের দেশ হয়ে পড়ছে জলশুণ্য

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৪ মার্চ, ২০১৬
  • ১২১ Time View

গোলাম সরোয়ার লিটন::
হাওর আর নদী ব্যষ্টিত তাহিরপুর উপজেলার আয়তন ৩৩৭ বর্গ কিলোমিটার। বছরের ৬ মাস উপজেলার সামান্য কিছু স্থল ভাগ ছাড়া সবটুকুই থাকে জলমগ্ন। অভ্যন্তরীণ সড়ক যোগাযোগ নেই বললেই চলে। এখানে নৌপথই ভরসা। হেমন্তকালে প্রয়োজনের তাগিদে লোকজন পায়ে হেঁটে কিংবা সাইকেল ও মোটর সাইকেলে চলাচল করতে পারলেও মালামাল পরিবহনের একমাত্র ভরসা জলপথ। কিন্তু বর্তমানে নদীগুলো নাব্যতা হারানোয় এর বিরুপ প্রভাব পড়েছে উপজেলাবাসীর জীবনযাত্রায়।
এ উপজেলায় বৌলাই, রক্তি ও পাটলাই- তিনটি প্রধান নদী। মেঘালয় পাহাড় থেকে নেমে আসা বালু আর পলি জমে এ নদীগুলো নাব্যতা হারানোয় মরে গেছে এগুলোর শাখা নদী ও খালগুলোও। হাওরগুলোতে দেখা দিয়েছে জলাবদ্ধতা। এ কারণে প্রতি বছরই হাওরগুলোতে বাড়ছে অনাবাদি জমির পরিমাণ। উপজেলার ব্যবসাবাণিজ্য পড়েছে হুমকির মুখে। নদীপথের দুরাবস্থার কারণে তাহিরপুরে দ্রব্যমুল্যের দাম পাশর্^বর্তী উপজেলাগুলোর চেয়ে কিছুটা বেশী। হাওরের পাশ দিয়ে বয়ে চলা নদীগুলো হেমন্তে শুকিয়ে পড়ায় বন্ধ হয়ে পড়েছে হাওরের জমিতে সেচের পানি দেওয়া। বিপন্ন হতে চলেছে নদীপাড়ের লোকজনের জীবন ও জীবিকা। যে উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে নদীর পাড়ে হাটবাজারসহ বিভিন্ন স্থাপনা গড়ে ওঠেছিল সে উদ্দেশ্য ব্যর্থ হয়ে পড়েছে একালে।
বৌলাই নদী ঃ এককালের খর¯্রােতা এই নদীটির পাড়েই তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ, থানা পুলিশ ষ্টেশন ও স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স গড়ে ওঠেছে। কিন্তু গত ২৫ বছর ধরে নদীটি উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর থেকে বালিজুরী ইউনিয়নের হুসেনপুর পর্যন্ত শুকিয়ে যায়। নদীটির এই শুকিয়ে যাওয়া অংশের দৈর্ঘ্য প্রায় ৮ কিলোমিটার। দিন দিন নদীটির শুকিয়ে যাওয়া অংশের দৈর্ঘ্য বেড়েই চলেছে। আর এ কারণে নভেম্বর মাসেই এ পথে নৌ-চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। উপজেলা সদরের পাশ দিয়ে পূর্ব-পশ্চিম দিকে বয়ে চলা এ নদীটি পশ্চিমে দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের সুলেমানপুর এলাকায় পাটলাই নদীর সঙ্গে মিলিত হয়েছে। এ নদী দিয়েই পূর্ব দিকে সুনামগঞ্জ জেলা শহর এবং পশ্চিম দিকে নেত্রকোণার মোহনগঞ্জ, কলমাকান্দা, সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা ও কিশোরগঞ্জের ভৈরবসহ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে তাহিরপুরের নৌ যোগাযোগ। নদীটির নাব্যতা সংকটে হেমন্তে উপজেলা সদরের সঙ্গে অভ্যন্তরীণ ও বাইরের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। উপজেলা সদর বাজারসহ বিভিন্ন হাটবাজারে মালামাল পরিবহন কঠিন হয়ে পড়ে।
তাহিরপুর বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এরশাদ হোসেন বলেন, তাহিরপুর বাজারের অধিকাংশ মালামাল আসে ভৈরব ও সুনামগঞ্জ থেকে। হেমন্তে বৌলাই নদীটি শুকিয়ে যাওয়ায় ছোট নৌকায় করে মালামাল সুলেমানপুর আনা হয়। সুলেমানপুর থেকে ট্রলিতে তাহিরপুর টি এন্ড টি অফিসের সামনে। সেখান থেকে বাজারে আনতে হয়। এতে করে ৫শত কিলোমিটার নৌপথে যে ঝামেলা হয়, তার চেয়েও অধিক খরচ ও দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এতে করে পরিবহন খরচ বেড়ে যায়। নদীটিতে নাব্যতা থাকলে সরাসরি তাহিরপুর বাজারে পৌছানো যেত।
নদী তীরবর্তী ঠাকুরহাটির বাসিন্দা সদর ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড সদস্য জোসেফ আখঞ্জি বলেন, নদী শুকিয়ে যাওয়ায় প্রতিদিন এলাকাবাসীকে দুই কিলোমিটার পথ হেঁটে গোসল করতে হয়।
মধ্য তাহিরপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী গৃহবধু রতিফুল বানু বলেন, বৌলাই নদী হেঁেট পাড়ি দিয়ে এক কিলোমিটার দুরে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের পুকুরে গোসল ও কাপড় ধোয়ার কাজ করতে হয়। এতে দিনের বেশির ভাগ সময় চলে যায়।
উজান তাহিরপুর গ্রামের কৃষক নুরুল হক বলেন, আগে পাম্প দিয়ে বৌলাই নদীর পানি তুলে জমির সেচে ব্যবহার করতাম। কিন্তু নদীটি শুকিয়ে যাওয়ায় জমিতে সেচের পানি দেয়া যায়না। আমাদের হাওরের জমিতে নদী ছাড়া সেচের বিকল্প কোন ব্যবস্থা নেই।
রক্তি নদী ঃ ভারতের মেঘালয় থেকে উৎপন্ন হয়ে যাদুকাটা নদীটি তাহিরপুর উপজেলার উত্তর পূর্ব প্রান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ
DSC04299
করেছে। নদীটি বাংলাদেশ সীমান্তের প্রায় ৫ কিলোমিটার ভেতরে উপজেলার ফাজিলপুরে নামক স্থানে নাম নিয়েছে রক্তি। এখানেই নদীটি বৌলাই নদীর সঙ্গে মিলিত হয়। বৈচিত্রময় মনোহর রুপের কারণে পাহাড়ী নদী যাদুকাটাকে দেশের অন্যতম সৌন্দর্য্যরে নদী হিসাবে বিবেচনা করা হয়। নদীটির ওপারে মেঘালয়ের বিশাল পাহাড় আর এপারে তাহিরপুর উপজেলার সীমান্তে অবস্থিত সুদৃশ্য বারেক টিলা। আর এই বারেক টিলার পাশ দিয়েই নদীটি বাংলাদেশ সীমান্তে প্রবেশ করেছে। এ কারণে দুই দেশের সীমান্তে নদীটি অপরুপ দৃশ্য ধারণ করেছে। মনে হয় যাদুকাটা যেন নৈসর্গিক সৌন্দর্য্যরে লীলাভুমি। বর্ষায় এর বুকদিয়ে প্রবাহিত নদীর তীব্র ¯্রােতধারা আর হেমন্তে শুকিয়ে যাওয়া নদীর বিশাল এলাকাজুড়ে ধুধু বালুচর । এটি পর্যটকদের কাছে এক মনোমুগ্ধকর দৃশ্য। তবে হাওরপাড়ের বাসিন্দাদের কাছে শুকিয়ে যাওয়া নদীটি জীবন জীবিকার চরম হুমকি হয়ে ওঠেছে।
যাদুকাটা নদীর ¯্রােতে মেঘালয় থেকে নেমে আসা বালি আর পাথরের কারণে রক্তি নদীটি সম্পদশালী ও গুরুত্বপূর্ণ। এর সবুজাভ স্বচ্ছ পানি পর্যটকদের বিশেষভাবে আকৃষ্ট করে। এ নদী থেকে প্রতিবছর প্রায় পাঁচ কোটি ঘনফুট বালু, এক কোটি ঘনফুট নুড়ি, বোল্ডার ও ভাঙ্গা পাথর আহরণ করে দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হয়ে থাকে। নদীটিতে প্রত্যক্ষভাবে প্রায় ৩০ হাজার শ্রমিক কাজ করে থাকে। এর মধ্যে প্রায় ১৫ হাজার হচ্ছেন বারকি শ্রমিক । (২ ফুট প্রস্ত আর ৪০ ফুট দীর্ঘ একটি বারকি নৌকা। সাধারণত ২ জন শ্রমিক একটি বারকি নৌকা চালনা করে থাকেন। নদী থেকে বালি কিংবা পাথর সংগ্রহ করে বারকি নৌকা বোঝাই করা হয়। একটি বারকি নৌকায় ৪০ থেকে ৫০ বর্গফুট বালু কিংবা পাথর নেওয়া যায়) । নদীটিতে প্রতিদিন চলাচলকারী শত শত বারকি নৌকার সারি যাদুকাটা নদীর রূপকে অপরূপ করেছে।
তবে এই বালু-পাথরের কারণে নদীটি নাব্যতা হারিয়েছে। নদী থেকে সংগৃহিত বালু পাথর দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠাতে স্টীল দ্বারা নির্মিত নৌকা ব্যবহার হয়ে থাকে। নৌকা ভেদে ৫শ থেকে ১০ হাজার বর্গফুট বালু পাথর পরিবহন করে এ প্রতিটি নৌকা। নদীটি দিয়ে শীতের শুরু থেকেই বড় নৌকার পরিবর্তে ছোট নৌকা চালাতে হয়। হেমন্তেকালে কয়েক মাস নৌ-চলাচল একেবারেই বন্ধ হয়ে পড়ে। এ সময় অধিকাংশ শ্রমিকই বেকার হয়ে পড়ে। রোববার রক্তি নদীর বিশম্ভরপুর উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের রঙ্গারছড় এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, নদীটির ওপর সেতু নির্মাণ হচ্ছে। আর এ সেতুটিতে পাইলিং করতে নদীর তলদেশের বেশীরভাগ অংশই ভরাট করে নিয়েছে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার।
আর নদীটির যাদুকাটা এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে পাড়কেটে অপরিকল্পিতভাবে ও অতিমাত্রায় বালু-পাথর সহ বিভিন্ন সম্পদ আহরণের ফলে নদীটির পরিবেশগত চরম বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের ঘাগটিয়া এলাকায় ৩’শ ফট প্রস্তের নদীটি বর্তমানে ৩ হাজার ফুট প্রস্ত হয়ে ওঠেছে। গতকাল শুকিয়ে যাওয়া যাদুকাটা নদীর বারিকটিলা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, নদীর বুকে মেশিন দিয়ে পাথর সংগ্রহ চলছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, প্রায় আড়াই শতাধিক মেশিন এখান থেকে পাথর উত্তোলন করছে। প্রতিটি মেশিন দৈনিক এক হাজার ফুট পাথর উত্তোলন করে নদীর নীচ থেকে। এজন্য নদীর বুকে গভীর গর্ত করা হচ্ছে। পাথর উত্তোলনের জন্য গর্ত থেকে ওঠানো বালু পড়ছে নদীটির মুল অংশে। আর এ কারণে মেঘালয় থেকে নেমে আসা নদীটিতে হেমন্তের ক্ষীণ প্রবহমান ধারাটিও বন্ধ হওয়ার পথে। নদীর পানির রং ও সৌন্দর্য্য পড়েছে চরম হুমকিতে।
শনির হাওরপাড়ের বারকি শ্রমিক আবুল হোসেন বলেন, নদীটিতে প্রায় ১৫ হাজারেরও অধিক বারকি শ্রমিক কাজ করে। রক্তি ও এর আশপাশের নদীগুলো শুকিয়ে যাওয়ায় অক্টোবর মাসেই বন্ধ হয়ে যায় বারকি নৌকা দিয়ে বালু পাথর উত্তোলন। এতে করে বেকার হয়ে পড়ে শ্রমিকরা।
বালিজুরী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, রক্তি ও এর আশপাশের নদীগুলো শুকিয়ে যাওয়ায় অক্টোবর মাসেই বন্ধ হয়ে যায় বারকি নৌকা দিয়ে বালু ও পাথার তোলা। এতে করে বেকার হয়ে পড়ে শ্রমিকরা। রক্তি নদীর ৭ কিলোমিটার অংশ খনন করলে বালু-পাথরসহ বিভিন্ন ব্যবসার গতি বাড়বে। এ অঞ্চলের লোকজনের জীবনমানের উন্নয়ন ঘটবে।
বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন বলেন, বালির কারণে নদীটি গুরুত্বপূর্ণ আবার বালিতেই নদীটির তলদেশ ভরাট হয়েছে। রক্তি, বৌলাই ও পাটলাই নদীটির নাব্যতা সংকট দুর করতে আমি পানি উন্নয়নবোর্ড উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত আবেদন করেছি। এমপি মহোদয় এ ব্যাপারে তৎপর রয়েছেন।
DSC04304

পাটলাই নদী ঃ দেশের উত্তর পূর্ব সীমান্তে মেঘালয় থেকে নদীটির উৎপত্তি। দেশের অন্যতম কয়লা ও চুনাপাথর শুল্কস্টেশন বড়ছড়া দিয়ে ভারত থেকে আমদানী করা সব কয়লা-চুনাপাথর এ নদী দিয়েই দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠানো হয়। কিন্তু নাব্যতা সংকটে হেমন্তকালে নদীটির দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের সুলেমানপুর এলাকায় ৮ কিলোমিটারেরও অধিক নৌজটের সৃষ্টি হয়। মার্চ ও এপ্রিল মাসে বন্ধ হয়ে পড়ে নৌ-চলাচল।
নৌযান শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা জানান, এ সময় ব্যবসা বাণিজ্য দেখা দেয় স্থবিরতা। বেকার হয়ে পড়ে কয়েক হাজার শ্রমিক। নাব্যতা সংকটে ৩০ মিনিটের পথ পার হতে ১৫ দিন পর্যন্ত সময় লাগে। হেমন্তে সীমান্ত সংলগ্ন ডাম্পের বাজার এলাকায় নদীটিতে বাঁধ দিয়ে পাহাড় থেকে নেমে আসা ছড়ার পানি আটকিয়ে নৌকায় মালামাল পরিবহনের ব্যবস্থা করা হয়। আবার প্রতি বছর বর্ষায় মাটির তৈরী এ বাঁধ ভেঙ্গে যায়। আবার প্রতি বছর হেমন্তে নতুন করে বাঁধ দেওয়া হয়। এতে করে বাঁেধর মাটিতে নদীর তলদেশ আরো ভরাট হয়ে যায়।
উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন খাঁন বলেন, পাটলাই নদীটি বড়ছড়া থেকে শ্রীপুর পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার । এবং সুলেমানপুর এলাকায় এই নদীটির শাখা পাইকরতলা নদীটি সুলেমানপুর থেকে বাশঁচাতল পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার খনন করলে নাব্যতা সংকট দুর হবে এবং নৌযান চলাচলের পথ সুগম হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24