বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:২৮ অপরাহ্ন

নবীগঞ্জে কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী বন্যা কবলিত গ্রাম পরিদর্শনে জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাবৃন্দ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২২ জুলাই, ২০১৫
  • ৫৫ Time View

রাকিল হোসেন :নবীগঞ্জে কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী বন্যা কবলিত গ্রাম পরিদর্শনেউপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ, থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ আব্দুল বাতেন খান প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের কুশিয়ারা নদীর পানি উপচে পড়ে ১০টি গ্রাম অকাল বন্যায় প্লাবিত ও পানি বন্দি লোকদের খবর পেয়ে পরিদর্শন করেছেন। তারা কসবা, দীঘলবাক, জামারগাঁও, রাধাপুর, দীঘলবাক বাজার, রাধাপুর প্রাইমারী স্কুল ও কুশিয়ারা ডাইকের সৃষ্ট ফাটল পরির্দশন করেছেন। এ সময় বাজারের ভিতর জলাবদ্ধতা দূরনী করনে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলমগীর চৌধুরী ও ইউএনও মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ উক্ত বাজারে পুর্বে দেয়া ৬০ হাজার টাকা বরাদ্ধ বর্ধিত করে ১ লাখ টাকা এবং দ্রুত ডাইকের ভাঙ্গন রোধে ১ হাজার বালির বস্তা বরাদ্ধের ঘোষনা দেন। এছাড়া রাধাপুর স্কুলের কোমলমতি ছেলে-মেয়েদের স্কুলে আসা যাওয়ার জন্য বাঁেশর সাকো নির্মাণে স্থানীয়দের প্রতি আহ্বান জানান। এতে উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনের পক্ষ থেকেও প্রয়োজনে সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। গত ক’দিনের অবিরাম বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে কুশিয়ারা নদীর পানি উপচে গিয়ে নদীর তীরবর্তী প্রায় ১০ টি গ্রাম কসাব, দীঘলবাক, রাধাপুর, জামারগাওঁ, কুমারকাদা, আহম্মদপুর, গালিমপুর, মাধবপুর, ফাদুল্লা, মতুরাপুর এলাকার সিংহভাগ বাড়ি ঘরে ও আঙ্গিনায় পানি উঠে বন্যায় কবলিত হয়েছে। এতে লোকজন পানি বন্দি অবস্থায় জীবন যাপন করছে। অনেকেই হাটু পানি ভিজে, কেউ কেউ বাশেঁর সাকো বা কলাগাছের ভেলায় ছড়ে চলাচল করছেন। এছাড়া রাধাপুর গ্রামের নানু মিয়ার বাড়ি সংলগ্ন স্থানে কুশিয়ারা ডাইকের ফাটল দেখা দিয়ে ভাঙ্গনের সৃষ্টি হওয়ার খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল ছুটে যান। এ সময় বেশ কিছু পানিতে কবলিত বাড়িঘর ও স্কুল এবং ফাটল দেয়া ডাইক পরিদর্শন শেষে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী বলেন, কুশিয়ারা নদীর পানি উপচে গিয়ে নদীর তীরবর্তী ঘরবাড়ি ও স্কুল আক্রান্ত হয়েছে। এতে জনসাধারনের দুভোর্গের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের উদ্যোগ নেয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ বলেন, খবর পেয়ে ছুটে এসেছি। নদীর পানি উপচে লোকজন আক্রান্ত হয়েছে। কুশিয়ারার নদীর পানি বর্তমানে বিপদ সীমার নীচে রয়েছে। বিষয়টি সার্বক্ষনিক উপজেলা প্রশাসনের মনিটরিংয়ে রয়েছে। অবস্থা দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সরকারের প্রতি সুপারিশ করা হবে। পরিদর্শন কালে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ দুলাল উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল জাহান চৌধুরী, নবীগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি এটিএম সালাম, সাধারণ সম্পাদক মোঃ সরওয়ার শিকদার, দীঘলবাক ইউপির প্রাক্তন চেয়ারম্যান এওলামিয়া, ইউপি আওয়ামীলীগের সভাপতি গোলাম হোসেন, আওয়ামীলীগ নেতা আজিজুর রহমান, গোলজার হোসেন, সাংবাদিক রাকিল হোসেন ও মতিউর রহমান মুন্না প্রমূখ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24