শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:৪৯ অপরাহ্ন

নবীগঞ্জে পৌর নির্বাচনকে ঘিরে ব্যানার ফেষ্টুনের প্রতিযোগিতা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৪৪ Time View

ইনাতগঞ্জ থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা : আগামী ডিসেম্বর মাসে পৌর নির্বাচন অনুষ্টানের আভাস পেয়েই সরগরম হয়ে উঠেছে নবীগঞ্জ পৌর শহর। ব্যানার, ফেষ্টুন, পোষ্টার ও দেয়াল লিখনে চেয়ে গেছে পুরো শহর। পৌর এলাকার ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে চলছে মতবিনিময়। পৌর এলাকার সর্বত্র এখন আগাম নির্বাচনের উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। সেই সাথে দেখা দিয়েছে একে অপরকে নিয়ে কাদা ছুরাছুরি ও নোংরামীর হুলি খেলা। উৎসাহ, উদ্দীপনার মধ্যে গতকাল হঠাৎ করে থমকে দাড়ায় নির্বাচনী আমেজ। তিন বারের জননন্দিত মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরীর পৌর কর্তৃপক্ষের দেয়া পৌরবাসীর প্রতি আসন্ন ঈদুল আযহা’র শুভেচ্ছা পেষ্টুনকে কেটে টুকরো টুকরো করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে। ধিক্কার ও নিন্দার ঝড় উঠে পুরো পৌর শহরে। গত রবিবার রাতে কে বা কারা শেরপুর রোডস্থ শিবপাশার ১নং ব্রীজের সন্নিকটে টাঙ্গানো তৃতীয় বারের মতো বিপুল ভোটে বিজয়ী পৌর মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরীর ঈদ শুভেচ্ছা পেষ্টুনটি বে¬ড দিয়ে কেটে টুকরো টুকরো করে রাখা হয়েছে। সেই সাথে এর পাশেই একই রাতে পৌরসভার প্যানেল মেয়র এবং আসন্ন নির্বাচনে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব ছাবির আহমদ চৌধুরী’র একটি বিশাল ঈদ শুভেচ্ছা পেষ্টুন টানানো হয়েছে। যে রাতে মেয়র এর পেষ্টুন কাটা হয়েছে, সেই রাতে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীর পেষ্টুন টাঙ্গানোর ঘটনায় অভিযোগের তীর যাচ্ছে আলহাজ্ব ছাবির আহমদ চৌধুরীর দিকে। সেই অভিযোগ করেছেন খোদ পৌর মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরী ও তার শর্থীতরা। ঘটনার খবর পেয়ে গতকাল সোমবার সকালে পৌর মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরী, সংশি¬ষ্ট ওর্য়াড কাউন্সিলর সন্তোষ দাশসহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এই ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ আব্দুল বাতেন খানের নির্দেশনায় এসআই চান মিয়ার নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। মুহুর্তের মধ্যেই ঘটনাটি এলাকায় ছাউর হলে জনমনে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। ক্ষোভ ও নিন্দার ঝড় উঠে পুরো শহরে। এ ব্যাপারে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর সন্তোষ দাশ জানান, রাত ৮/৯ টার দিকে তিনি উলে¬খিত স্থানে শুধুমাত্র পৌর মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরীর পেষ্টুনটি শুভা পাচ্ছিল। কিন্তু রাত প্রভাতের সাথে সাথে তিনি খবর পান কে বা কারা মেয়র এর পেষ্টুন বে¬ড দিয়ে কেটে দিয়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে এসে কাটা পেষ্টুনের পাশাপাশি প্যানেল মেয়র আলহাজ্ব ছাবির আহমদ চৌধুরীর বিশাল একটি পেষ্টুন দেখতে পান। তিনি জানান, যারাই এই কাজটি করেছে তা নিন্দনীয়। নাম অপ্রকাশের শর্তে আশপাশের অনেক লোকজন জানিয়েছেন, রবিবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে ৫/৭ জনের একদল লোকজন প্যানেল মেয়র আলহাজ্ব ছাবির আহমদ চৌধুরীর ঈদ শুভেচ্ছা পেষ্টুনটি টিক মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরীর পুর্বে দেয়া পেষ্টুনের সাথে লাগিয়ে টাঙ্গাতে দেখেছেন। তাদের ধারনা ওরা ঐ ব্লেড দিয়ে মেয়রের পেষ্টুন কেটে দিয়েছে। এছাড়া নবীগঞ্জ হাসপাতাল সড়কেও মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরীর ঈদ শুভেচ্ছার অপর একটি পেষ্টুন কেটে দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে পৌর মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরী এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, মানুষের ভালবাসায় পর পর ৩ বার মেয়র নির্বাচিত হয়েছি। ধর্মীয় বিভিন্ন উৎসবে মেয়র হিসেবে পৌর কর্তপক্ষ শুভেচ্ছা ব্যানার ও পেষ্টুন দিয়ে থাকে। এবারও সম্মানিত নাগরিকদের পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়ে তারা বিভিন্ন পয়েন্টে পেষ্টুন দিয়েছেন। যারা এই ঘৃণ্যতম কাজটি করেছে, মূলত আমার জনপ্রিয়তায় ঈশ্বারিত হয়ে নোংরা মনের পরিচয় দিয়েছে। তিনি দাবী করেন গভীর রাতে তার দেয়া পেষ্টুনের পাশে যারা নতুন নতুন পেষ্টুন লাগিয়েছেন তাদের ধারাই এই কাজ হয়েছে। তিনি বলেন, পেষ্টুন কেটে মানুষের হৃদয় থেকে তার মুছা যাবে না। অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরী বলেন, উক্ত ন্যাক্কার জনক ঘটনার বিচারের ভার পৌর নাগরিকবৃন্দের উপর ছেড়ে দিলাম। এদিকে একাধিকবার মোবাইল ফোনে কল দিয়েও প্যানেল মেয়র ও সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব ছাবির আহমদ চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24