রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৪২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের এবার বর্ষসেরা প্রতিনিধি হলেন আশিক মিয়া বঙ্গবন্ধুকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড, হিসেবে আখ্যা দিল জাতিসংঘ জগন্নাথপুরে তিন লাখ টাকা মূল্যের সরকারি গাছ ‘কেটে’ নিলেন যুবলীগ নেতা।

নবীগঞ্জ উপজেলা সংবাদ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৮ মার্চ, ২০১৬
  • ১৯ Time View

নবীগঞ্জে মাদ্রাসা ছাত্রীর অত্মহত্যা
রাকিল হোসেন নবীগঞ্জ থেকে : নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের উত্তর কসবা গ্রামে লাভনী(১৭)নামে এক মাদ্রাসা ছাত্রী তীরের সাথে গলায় ওড়না পেছিয়ে আত্বহত্যা করেছে। সে ওই গ্রামের মৃত জায়ফর উলার মেয়ে। স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়,গত বুধবার রাতে লাভনী খাওয়া ধাওয়া শেষে মায়ের সাথে একি খাটে ঘুমিয়ে ছিল। রাত প্রায় সাড়ে ৩টার সময় তার মা পাশে লাভনীকে দেখতে না পেয়ে পাশের রুমে গিয়ে ঘরের তীরের সাথে গলায় ওড়না পেছানো ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। এ সময় তার চিৎকারে লোকজন ছুটে আসেন। গ্রামবাসী আত্বহত্যার বিষয়টি পুলিশকে জানালে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ইনাতগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ধর্মজিৎ সিনহা সঙ্গীয ফোর্স নিযে ঘটনা স্থলে উপস্থিত হয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করেন। ময়না তদন্ত শেষে সন্ধায় গ্রামের কবর স্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে। লাভনী স্থানীয় কসবা দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণীর ছাত্রী। ইনাতগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ধর্মজিৎ সিনহা বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন,পরিবারটি আর্থিক অবস্থা অসচ্ছল হওয়ায় হয়তো মায়ের কাছে কোন কিছু আবদার করেছিল। সেই আবদার পূরণ না হওয়ায় আত্বহত্যার করেছে।

নবীগঞ্জে পুলিশের বিশেষ অভিযানে ২ মাদক স¤্রাটসহ গ্রেফতার ৩

নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ আব্দুল বাতেন খাঁন’র নেতৃত্বে গত বুধবার রাতে উপজেরার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে নবীগঞ্জের কুখ্যাত মাদক স¤্রাট দু’ সহোদর সাফি মিয়া (২৫) ও হামদু মিয়া (২৮)কে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃত মাদক ব্যবসায়ীদ্বয় পৌর এলাকার পুর্ব তিমিরপুর গ্রামের মকছুদ মিয়ার ছেলে। তারা দীর্ঘদিন ধরে মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত বলে জানাগেছে। এছাড়া একই রাতে কুর্শি ইউপির সুলতানপুর গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে আব্দুল মন্নানকে সন্দেহভাজন চোর হিসেবে গ্রেফতার করা হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, নবীগঞ্জ পৌর এলাকার পুর্ব তিমিরপুর গ্রামের মকছুদ মিয়ার দু’ছেলে সাফি মিয়া ও হামদু মিয়া দীর্ঘদিন ধরে বিদেশী মদসহ বিভিন্ন মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। এ সব মাদক বিক্রি করে রাতারাতি প্রচুর অর্থ বিত্তের মালিক হয়েছেন। গাড়ী-বাড়ি করে বিলাস বহুল জীবন যাপন করে আসছে। বিগত ২৯ ফেব্রুয়ারী রাতে শহরের নতুন বাজার এলাকা থেকে সুগন্ধ্যা কনফেকশনারীর দোকান থেকে বিপুল পরিমান বিদেশী মদসহ দোকান মালিক ছালিক মিয়াকে পুলিশ গ্রেফতার করে। এ খবরে অনেক মাদক ব্যবসায়ী গা ঢাকা দেয়। আলোচনার ঝড় উঠে নবীগঞ্জে। প্রসংশিত হয় পুলিশের অভিযান। ওই সময় ধৃত ছালিক মিয়ার তথ্যমতে পুলিশ মাদক নিয়ন্ত্রনে বিশেষ অভিযানে নামে। তার অংশ হিসেবে থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ আব্দুল বাতেন খাঁন’র নেতৃত্বে গত বুধবার রাত ১১ টার দিকে একদল পুলিশ পুর্ব তিমিরপুর গ্রাম থেকে মাদক স¤্রাট সাফি মিয়া ও তার ভাই হামদু মিয়াকে গ্রেফতার করে। তাদেরকে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে মাদক আইনে মামলা নং ২ তারিখ ০১-০৩-২০১৬ইং জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। পুলিশের মাদক, জুয়া ও সমাজ বিরোধী কার্যকলাপের বিরুদ্ধে বিশেষ অভিযানে এবং মাদক স¤্রাটদের গ্রেফতারে এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে।
এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ আব্দুল বাতেন খাঁন বলেন, পুলিশের এ সব অভিযান অব্যাহত থাকবে। কোথাও মাদক, জুয়া, যাত্রা ও সমাজ বিরোধী কার্যকলাপ চলতে দেয়া যাবে না। তিনি পুলিশের এই বিশেষ অভিযানে সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

নবীগঞ্জের সদরাবাদে ঘাতক পুত্রের হাতে পিতা খুনের ঘটনায় পুত্র জীবন ও
কলেজ ছাত্র সহ আরো অজ্ঞাত রেখে কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের !
নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের বহুল আলোচিত সদরাবাদ গ্রামের ঘাতক পুত্রের হাতে নির্মমভাবে খুন হওয়া ৬৫ বছর বসয়ী বৃদ্ধ মুক্তার উল¬্যা হত্যাকান্ডের ঘটনায় ঘাতক পুত্র জীবন ও কলেজ ছাত্র সহ আরো কয়েকজনকে অজ্ঞাত রেখে নবীগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করলেন নিহতের বড় ছেলে সুমন মিয়া। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত পুত্র জীবন এর নামের পাশাপাশি অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা এফ.আই.আর হওয়ার পর পরই ওই গ্রামে আতংক বিরাজ করছে। পুলিশ কর্তৃক লাশ উদ্ধারের সময় নিহতের যুবতি কন্যা ডালিনা বেগম ও প্রতিবেশী সিরাজুল ইসলাম রাফি নামের যুবককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে থানায় নিয়ে গেলে হত্যা মামলা দায়েরের পর ডালিনাকে পুলিশ ছেড়ে দিলেও সিরাজুল ইসলাম রাফিকে উক্ত মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে কোর্টে প্রেরন করে পুলিশ। ঐ আলোচিত ঘটনাটি নিয়ে উপজেলার সর্বত্র তোলপাড় সৃষ্টির পাশাপাশি নিজ পুত্র কর্তৃক পিতাকে হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিন্দার ঝড় বইছে।
ঘটনার বিবরন ও মামলার এজহারে প্রকাশ, নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের সদরাবাদ গ্রামের মৃত রমিজ উল¬ার পুত্র মুক্তার উল¬াহ প্রায় বছর খানেক পূর্বে দুবাই থেকে বাড়িতে আসেন। বয়সের ভারে নতজানু ওই বৃদ্ধ কোন রোজি রোজগার করতে পারেন নি। এমন কি মামলার বাদী নির্মম ভাবে নিহত মুক্তার উল¬ার বড় ছেলে সুমন মিয়া বলেন, তিনি সিলেট শহরের সুবিদ বাজারস্থ মার্লিন টাওয়ারে কর্মরত রয়েছেন। তার পিতা দুবাই প্রবাস থেকে আসার পর জুয়া খেলার বদ অভ্যাস ছিল। এমনকি জোয়া খেলার নেশার টাকার প্রয়োজনে তাদের এক মাত্র মাথা গুজার ঠাই বসতভিটা খানা পার্শ্ববর্তী বাড়ির সিরাজুল ইসলাম রাফিদের নিকট বিক্রয় করিয়া দিতে চেয়েছিলেন। এ ঘটনায় মামলার বাদী সুমন সহ তার ভাই মামলার প্রধান আসামী জীবন স্ব-পরিবারের সদস্যগণ তার বাবাকে বাড়ি বিক্রি করার জন্য বাধা নিষেধ করিলেও তার পিতা তাদের কথা না শুনে বাড়ি বিক্রি করিবে বলিয়া জানান। এই ঘটনার জের ধরেই গত ১৪মার্চ দিবাগত রাত ১১টায় রাফিদের বাড়ি থেকে তার বাবাকে বিষয়টি মিমাংশা করার প্রলোভন দিয়ে তার বোন জামাই আজির উদ্দিন মুক্তার উল¬্যাহকে নিয়ে আসার সাথে সাথেই এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে।
এলাকাবাসীর সাথে আলাপকালে আরো জানাযায়, নিহত মুক্তার উল¬্যার ২ ছেলে ও ৩ মেয়ে রয়েছেন। বড় ছেলে সুমন সিলেট শহরের সুবিদ বাজারস্থ মার্লিন টাওয়ারে সিকিউরিটির কাজ করে। ঘাতক পুত্র জীবন শেরপুর মাই ওয়ান ইলেক্ট্রনিক্স দোকানে শ্রমিকের কাজ করে। কোন রকম চলছিল তাদের জীবন সংসার। সংসারের ভরণ পোষন ও একটি মেয়ের বিবাহ দিতে গিয়ে কিছু বাড়ি রকম জায়গা বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেন মুক্তার উল¬াহ। এই জায়গা বিক্রয় নিয়ে পিতা পুত্রের মধ্যে এমন কি পুরো পরিবারে মধ্যে গত ২ সপ্তাহ ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে গত সোমবার দিবাগত রাত অনুমান সাড়ে ১১টা ৫০মিনিটে সময় পিতা ও পুত্রের মধ্যে কথার কাটাকাটি এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে পুত্র জীবন তার হাতে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে ধাওয়া করে পিতাকে। ওই সময় পিতা মুক্তার উল¬াহ পাশ্ববর্তী পুকুরে ঝাপ দিয়ে পড়েন। কিন্তু ঘাতক পুত্র জীবন তার হাতে থাকা অস্ত্র দিয়ে বুক লক্ষ করে গাই মারে নিজ পিতাকে। ঘটনাস্থলেই তিনি মৃত্যুর কুলে ঢলে পড়েন। এর পর প্রতিবেশীরা তা আচ করতে পেরে মুক্তার উল¬ার নিথর দেহ দেখতে পেয়ে নবীগঞ্জ থানা পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরন করেন। এর পর নিহতের পুত্র সুমন বাদী হয়ে তার ভাই ঘাতক জীবনকে প্রধান আসামী করে নবীগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এমন কি ওই মামলায় সন্ধেহজনক ভাবে আসামী করা হয়েছে মৌলভীবাজার সরকারী কলেজে অর্নাস এ অধ্যায়নরত মৃত আহমদ আলীর পুত্র আব্দুর রহমানকে। কলেজ ছাত্রকে আসামী করায় দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

নবীগঞ্জে ভাই ভাইয়ের বিরোধ লাগিয়ে ফায়দা
হাসিলের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়েছেন কু-চক্রি মহল ॥
নবীগঞ্জের এক পরিবারের মধ্যে ভাই ভাইয়ে বিরোধ লাগিয়ে ফায়দা হাসিলের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়েছে একটি কু-চক্রি মহল। সাংবাদিকদের বিচক্ষন্নতার ফলে ওই এলাকার মধ্যে শান্তি ফিরে আসল। ঘটনাটি ঘটেছে নবীগঞ্জ উপজেলার পাহাড়ী অঞ্চল গজনাইপুর ইউনিয়নের মুড়াউড়া গ্রামে।
সরেজমিনে গিয়ে জানাগেছে, মুড়াউড়া গ্রামের মৃত আব্দুল মতিন খাঁনের ৪ পুত্র ও ২ কন্যা। তারা একে অন্যে মিলেমিশে পারিবারিক ভাবে শান্তিতে বসবাস করে আসছেন। ওই আব্দুল মতিন খাঁনের পুত্রের মধ্যে ৩য় পুত্র আমিন উদ্দিন খাঁনকে ফুসলিয়ে ভাই ভাইয়ের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টির লক্ষ্যে একই গ্রামের মৃত ছইফ উল¬্যার পুত্র আব্দুল হান্নান এর ইন্দনে মৃত আব্দুল মতিন খাঁনের বাড়ির উত্তর দিকের সরকারি রাস্তা ভূমি জোরপূর্বক মাঠি কেটে শত্র“তার নীল নকশা করা হয়। এমন কি ওই গ্রামের জন সাধারনের চলাচলের রাস্তা ও ক্ষমতার বাহাদুরী দেখিয়ে আমিন উদ্দিন খাঁন ও শায়েল খাঁন গংরা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির লক্ষে মনগড়া সরকারি রাস্তায় বাঁেশর খুটি দিয়ে সিমানা নির্ধারন করে। এরই প্রতিবাদে মৃত আব্দুল মতিন খাঁনের পুত্রদের পক্ষ থেকে নবীগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়। এর ফলে গোপলার বাজার তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে আসে।
অপর দিকে গত সোমবার দুপুরে সরকারি রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করলে ওই এলাকায় উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করার খবর পেয়ে সাংবাদিকরা সংবাদ সংগ্রহ করতে ওই এলাকায় গেলে এতে থলের বিড়াল বেরিয়ে আসে। গ্রামবাসীর মধ্যে নেতৃস্থানীয় লোকজন তাদের অভিমত প্রকাশ করলেও তার পিছনের মদদ দাতারা সাংবাদিকদের সামনে আসেন নি। এক পর্যায়ে ওই গ্রামের মৃত ছইফ উল¬ার পুত্র আব্দুল হান্নান সাংবাদিকদের নিকট রহস্যজনক বক্তব্য প্রদান করেন। সাংবাদিকদের উপস্থিতি ও স্বাক্ষাতকারের ফলে তাৎক্ষনিক ভাবে ঘটনাকারী আমিন উদ্দিন খাঁন গংরা তাদের ভুল বুঝতে পেরে সরকারি রাস্তায় মনগড়া সীমানা ও মাঠি কাটা বন্ধ করে তাৎক্ষনিক পূর্বের ন্যায় করে দেয়। এ ঘটনায় এলাকায় উভয় পক্ষের মধ্যে বিরোধ নিরসন হলে এতে ওই এলাকায় স্বস্থি ফিরে আসে।

নবীগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৭তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত
রাকিল হোসেন নবীগঞ্জ থেকে : হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৭তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন করা হয়েছে।
“শিশু গড়বে নতুন দেশ বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ” এ প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা পরিষদের আয়োজনে দিনটি উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। র‌্যালীটি উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে শুরু করে শহরের গুরুত্বপূর্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে শেষে পরিষদের হল রুমে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ মাসুম বিল¬াহ‘র সভাপতিত্বে ও শিক্ষক আলী আমজদ মিলনের পরিচালনায় এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, নবীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী। অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য রাখেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আনোয়ার হোসেন।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা বেগম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নূর উদ্দিন (বীর প্রতিক), উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইমদাদুর রহমান মুকুল, সাধারন সম্পাদক সাইফুল জাহান চৌধুরী, উপজেলা জাসদের সভাপতি আব্দুর রউফ, উপজেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব মাহমুদ চৌধুরী, জেলা তথ্য অফিসার গিয়াস উদ্দিন। এতে বক্তব্য রাখেন, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ছাদেক হোসেন, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক, নবীগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি উত্তম কুমার পাল হিমেল, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শাহাদৎ হোসেন, শিক্ষক রাজিব চন্দ্র দাশ, শিক্ষিকা শাহানুর আক্তার পান্না, সাংবাদিক মতিউর রহমান মুন্না, ছাত্রী সাহেলা রহমান তিশা, মৌ মিথা তাবাস্সুম ইসরাত প্রমুখ। এতে সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারী ছাড়াও বিভিন্ন স্কুলের শত শত শিশু শিক্ষার্থী অংশ নেয়।
অনুষ্টানের শেষে মেধাবী প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহনকারী বিজয়ীদের মধ্যে পুরুস্কার তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

বড়ইউরি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী
ইয়াওর মিয়ার সমর্থনে মতবিনিময় সভা

: বানিয়াচং উপজেলার ৭নং বড়ইউরি ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি চেয়ারম্যান প্রার্থী ইয়াওর মিয়ার সমর্থনে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহষ্পতিবার বিকেলে কালাইনজুড়া ইউনিয়ন অফিস সংলগ্ন স্থানে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় এলাকাবাসী, গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ সহস্রাধিক লোক উপস্থিতি ছিলেন। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ইওয়ার মিয়াকে স্বতস্ফূর্ত সমর্থন জানানো হয়। সাবেক মেম্বার ওয়াহিদ মিয়ার সভাপতিত্বে ও মাজহারুল ইসলাম মিঠুর উপস্থাপনায় মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ঠ মুরুব্বী হাজী নছর উদ্দিন, অলিমুল¬া, মুকিদ মিয়া, বশির মিয়া, মদন হাজী, খুরশেদ মিয়া, ইদন মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওদুদ, মাষ্টার আব্দুল মজিদ, কামাল মিয়া, ইউপি সদস্য লুৎফুর রহমান, জিয়াউদ্দিন মেম্বার, আব্দুল মোছাব্বির, সাইফুল ইসলাম সেকুল, আকিকুর রহমান সেলিম, ফজলু মিয়া, আনোয়ার মিয়া, হেলাল আহমদ, আব্দুল মতিন, সেফুল ইসলাম, শিব্বির আহমদ, আলমগীর, ওদুদ, জমশেদ, সৈয়দ আমিন সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24