মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট চলছে জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি

পাবেল কে নিয়ে স্বপ্ন দেখে দিরাই-শাল্লাবাসী

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৬ জুলাই, ২০১৭
  • ১২৮ Time View

স্টাফ রিপোর্টার::

শিক্ষিত, সৎ ও মেধাবী তরুণ বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট তাহির রায়হান চৌধুরী পাবেলের জন্ম দিরাই উপজেলার একটি রাজনৈতিক পরিবারে। তাঁর বাবা আব্দুস শহীদ চৌধুরী দিরাই উপজেলা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। পরবর্তীতে তিন বারের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ছাত্র জীবনে আব্দুস শহীদ চৌধুরী সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ শাখার ভিপিও নির্বাচিত হয়ে ছিলেন। তাই উত্তরাধীকার সুত্রেই পাবেলে রক্তে রাজনীতির ধারা বহমান। তাইতো এসএসসি পাশের পরই জড়িয়ে পড়েন সরাসরি ছাত্র রাজনীতিতে। তিনি ছোটবেলা থেকে জাতীয়তাবাদী রাজনীতি এবং শহীদ জিয়া ও খালেদা জিয়ার ভক্ত। ১৯৯১ সালে সিলেট সরকারি কলেজে ভর্তি হন পাবেল। লেখাপড়ার পাশাপাশি জড়িয়ে পড়েন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের রাজনীতিতে। হয়ে ওঠেন দলটির সক্রিয় ও নিষ্টাবান কর্মী। সরকারি কলেজের ছাত্রবাসে থাকতেন। যখনই শহরে যখনই বড় মিছিল সমাবেশের প্রয়োজন পড়ত ডাক পড়ত পাবেলের। হোস্টেল থেকে শতাধিক ছাত্রদলের কর্মী সমর্থক নিয়ে তিনি ওইসব মিছিলে অংশগ্রহণ করতেন। ১৯৯৩ সালে এইচএসসি পাশ করে ভর্তি হন সিলেটের ঐতিহ্যবাহী এমসি কলেজে। সেখান থেকেই তিনি মাস্টার্স ডিগ্রী লাভ করেন। ওই সময় তিনি এমসি কলেজ শাখা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। সিলেট থাকলেও এলাকার রাজনীতি থেকে দুরে থাকেননি। ১৯৯৫-২০০২ সাল পর্যন্ত তিনি দিরাই উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি পদে দায়িত্বপালন করেন। ওই সময় সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন। সিলেট জেলা ছাত্রদলের কার্যনির্বাহী কমিটির প্রথম সদস্য হিসাবেও নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০০৯-২০১২ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্য বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন। ২০১৩-২০১৫ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্য বিএনপির যুগ্ম সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন।
(ছোটবোনের বিয়ের অনুষ্ঠানে তারেক রহমানের সাথে পাভেলের বাবা-মা ও পরিবারের লোকজন )

বর্তমানে যুক্তরাজন্য বিএনপির সিনিয়র সদস্য হিসাবে আছেন। রেষ্টুরেন্ট ব্যবসায়ী পাবেল এলাকাবাসীর সুখ দুঃখের সঙ্গে ছোটবেলা থেকেই জড়িত। তাঁর পরিবারও রাজনীতির করেন এলাকার গরীর দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য বলে জানিযেছেন স্থানীয় এলাকার বাসিন্দারা। জাতীয়তাবাদী রাজনীতির প্রতি অবিচল পাবেল এলাকার দুঃখী মানুষের প্রতি সংবেদনশীল। তাই সম্প্রতি অকাল বন্যায় ফসলহারা কৃষকদের জন্য খালেদা জিয়ার ও তারেক রহমানের পক্ষ থেকে সামথ্যানুযায়ী ব্যাপক ত্রাণ তৎপরতা চালিয়েছেন। এ সময় প্রশাসনের বিভিন্ন বাঁধাও তাকে ত্রাণ তৎপরতা থেকে দুরে রাখতে পারেনি। দিরাই ও শাল্লার একাধিক যুবক,ছাত্র ও কৃষকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পাবেল ও তাঁর পরিবার শহীদ জিয়ার রাজনীতির প্রতি দৃঢ় ও অবিচল। তাঁরা মানুষ হিসাবে সজ্জ্বন ও পরোপকারী। এলাকার গরীব দুঃখীর প্রতি সবসময়ই সংবেদনশীল। এ রকম পরিবারের ছেলে হিসাবে পাবেল রাজনীতিতে ভাল অবস্থান পেলে এলাকাবাসী মুল্যায়িত হবে। রাজনীতি হবে সৎ ও গণমুখী। আর অবহেলিত দিরাই-শাল্লাবাসী পাবে উন্নয়ন আর অগ্রগতি।

তাহির রায়হান চৌধুরী পাবেল বলেন, যখন থেকে বুঝতে শিখেছি তখন থেকেই ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে যুক্ত হয়েছি। আজো দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে অবিচল। আর তারুণ্যে অহংকার তারেক রহমানকে আমার আইডল। তাঁর ভাষায় সকল বাঁধা ডিঙ্গিয়ে গণতন্ত্রের বিজয় খুব সন্নিকটে। দল মনোনয়নে দিলে তিনি ধানের শীষের প্রার্থী হবেন। তবে তিনি মনে করেন এই মুহুর্তে সকল জাতীয়তাবাদী শক্তির মুল কাজ ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণতন্ত্রকে মুক্ত করা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24