মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

পেটে গজ রেখে সেলাই: ক্লিনিক মালিক ও ২ চিকিৎসককে হাইকোর্টের তলব

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৪ জুলাই, ২০১৭
  • ১০২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: পটুয়াখালীর বাউফলে এক প্রসূতির অস্ত্রোপচারের সাড়ে তিন মাস পর তার পেট থেকে গজ বের করার ঘটনায় স্থানীয় একটি ক্লিনিকের মালিক ও সংশ্লিষ্ট দুই চিকিৎসককে তলব করেছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রোববার স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে রুলসহ এই আদেশ দেন।

যাদের তলব করা হয়েছে তারা হলেন- বাউফলের নিরাময় ক্লিনিকের স্বত্বাধিকারী, পটুয়াখালীর সিভিল সার্জন এবং বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজের গাইনি বিভাগের প্রধান। তাদের আগামী ১ আগস্ট হাইকোর্টে হাজির হয়ে এ ঘটনার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

রুলে ক্লিনিকের মালিক ও সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ কেন আনা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে। আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে স্বাস্থ্য সচিব ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকসহ নয় বিবাদীকে এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

গত ২২ জুলাই বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে মাকসুদা বেগম (২৫) নামের এক ভুক্তভোগী প্রসূতিকে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, অস্ত্রাপচারের সাড়ে তিন মাস পর তার পেট থেকে গজ বের করা হয়েছে। গত মার্চে সন্তান প্রসবের জন্য মাকসুদাকে বাউফলের নিরাময় ক্লিনিকে নেওয়া হয়। অস্ত্রোপচার করে তার একটি মেয়ে হয়। কয়েক দিন ক্লিনিকে থাকার পর তারা বাড়ি ফেরেন। এক মাস পর মাকসুদা পেটে তীব্র ব্যথা অনুভব করায় আবারও ওই ক্লিনিকে যান।

চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ওষুধ দিয়ে ব্যথা কমানোর চেষ্টা করেন। দুই মাস পর খিঁচুনি দিয়ে জ্বর ওঠে। তখন খাওয়া-দাওয়াও বন্ধ হয়ে যায়। গত জুনে মাকসুদাকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বহির্বিভাগে দেখানো হয়। তখন আলট্রাসনোগ্রাফিতেও কিছু ধরা পড়েনি।

এরপর পটুয়াখালীর এক চিকিৎসক তাকে হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেন। ১২ জুলাই হাসপাতালে মাকসুদার পেটে অস্ত্রোপচার হয়। তখন তার পেটের ভেতর থেকে গজ বের করা হয়। পত্রিকায় প্রকাশিত এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদন রোববার আদালতের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. শহিদ উল্লা।
সুত্র-সমকাল

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24