রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ১১:৫২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে বিতর্কিতদের আওয়ামী লীগে স্হান না দিতে তৃণমূল নেতাদের দাবি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা:জগন্নাথপুরে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২৬০ যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি

‘প্রধানমন্ত্রীই পারেন হাওরে কৃষকের কান্নার জলের ‘নিদানের’ ঢেউ থামাতে’

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৭ এপ্রিল, ২০১৭
  • ২২০ Time View

সুনামগঞ্জ সহ ৭টি জেলার কোটি মানুষের বাঁচার একমাত্র অবলম্বন একফসলি রবি শস্য বুরো ধানচৈত্রে অপ্রত্যাশিত অবিরাম অাগামবৃষ্টি,ঘুর্ণিঝড়,শিলাবৃষ্টি,পাহাড়ী ঢলের তান্ডবে কাঁচা থাকতেই তলিয়ে গেছে। গত বছরে কৃষকরা অাশানুরূপ ফসল তুলতে না পারার কষ্ট তো অাছেই। সবচেয়ে বেশী ক্ষতি হয়েছে সুনামগঞ্জ জেলার। এখানে প্রায় সব কৃষকরা হয়েছেন সর্বস্বান্ত।
প্রাপ্ত তথ্যে এখানে ২লাখ ২৩ হাজার ৮৫০ হেক্টর জমির প্রায় সব ফসল তলিয়ে গেছে।
শরীরের ঘামে -শ্রমে,ঋণকরে,সুদ করে নিজের ও দেশের মানুষের পেঠে অন্ন যোগানোর মহান ব্রতে এই কৃষকরা সৎ ভাবে জীবন যাপনে অভ্যস্থ থেকে অর্ধাহারে,অনাহারে,শত গ্রামীণ-হাওরী প্রতিকূলতার মধ্যেও স্বপ্ন দেখে এবারের বাম্পার ফলন হয়তো তাঁদের পুরাতন ও নতুন দু:খ গোচাবে। প্রকৃতির খাম খেয়ালী, বৈশ্বিক জলবায়ুর পরিবর্তন,তাদের জীবন নিয়ে কিছু মানুষের ব্যবসা এগুলো তাঁরা চিন্তা করার সময়নেই। দুমুটো পেটের ভাত,সসম্মানে জীবন যাপনের ব্যবস্থা যে সরকার করতে পারে তাঁকে তাঁরা কৃতজ্ঞচিত্তে সমীহ করার দারুণ ক্ষমতা তাঁদের অাছে। বুরো ধান তাঁদের সন্তান; ফসলের সোনালী হাসিই জীবনের হাসি অানন্দ। সেই ফসল ডুবে যাওয়া ;সন্তান পানিতে ডুবে যাওয়ার
কষ্টের মতো। বৈশাখ মাস তাঁদের জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময়; সারাবছরের অন্নের সংস্থান,অানন্দ হাসি,স্বপ্ন পুরণের উৎস। এই মাসে
অসুখ হলে ও তা দেখার সময় হাতে নেই। প্রিয় জনের মৃত্যুর সংবাদ ও তাঁদের কাছে শোকের বার্তা নিয়ে অাসেনা; ‘ মা মরা কুলা অাওর’ ( মা মারা গেলে ও কুলা দিয়ে লুকিয়ে রাখতে হয় যাতে বৈশাখের কাজে বিপত্তি না ঘটে)। সেই হাওর পারের কৃষকরা অাজ সন্তান সম ফসল হারিয়ে
হাউমাউ করে কাঁদছে হাওরে, কৃষাণীরা গৃহে ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছে। সন্তানের অনাহারের কষ্টে,জৈষ্ঠ মাসে বিয়ের তারিখ ঠিক করে রাখা মেয়েটি নিজেকে অলক্ষী-হতভাগী ভেবে লুকিয়ে কান্নার কষ্টে অাহত কৃষাণ-কৃষাণীর অার্তনাদ বলে শেষ করার মতো নয়। হাওরের ভাষাণ পানি অাজ কৃষকের কান্নার জল ; যে জলে ‘নিদান’ ( হাভাত)এর ঢেউ জেগেছে। সেই সর্বনাশা নিদানের ঢেউকে থামানোই এখন সময়ের দাবি।

নিজের চোখে দেখা কৃষকের অাহাজারি ভুলা কঠিন। ইতো মধ্যে কোথাও কোথাও সহস্র কৃষকরা বিক্ষুব্ধ হতে শুরু করেছেন,প্রশাসনকে স্মারক লিপি দিচ্ছেন, পাউবো অার পিঅাইসি সংশ্লিষ্ট দূর্ণীতিবাজদের লুটপাঠের জন্য বিচার দাবী করছেন কৃষকরা,কোথাও অাবার তাঁদের ধরে মারপিঠ ও করছেন কৃষকরা বিচ্ছিন্ন ভাবে।কৃষকের এন্টিথেসিস হচ্ছে লুটেরা কর্মকর্তা,দলীয়কর্মী,কৃষক না হয়েওসাজা ভন্ড কৃষকনেতা/ নেত্রী ও তাদের দোসররা ( যাদেরকে ব্ঙ্গবন্ধু ও মনে প্রাণে ঘৃণা করতেন)। প্রশাসন সক্রিয় ভাবে খেয়াল রাখছে কৃষকের এই সাময়িক শ্রেণী সচেতনতা যেন শ্রেণী সংগ্রামে রূপ না নেয়। কারণ এই সাধারণ কৃষকরা তেভাগা অান্দোলন,মহান মুক্তি যুদ্ধ করার মতো অসাধারণ সংগ্রামের অতীত ইতিহাস অাছে। আপাতত সেদিকে যাওয়ার ইচ্ছে অামার নেই।
অাবেগে ব্যস্ত থাকা,ব্যস্ত রাখা কৃষকদের পেঠের ক্ষুধা নিবারনে রাষ্ট্রীয় অনুকম্পা ছাড়া এই মূহুর্তে বাস্তবিক অর্থে অন্য কোন পথ নাই। সেই জন্য এই কলম ধরা।
অার চরম দূর্যোগ কালে জীবনের প্রতিকূলতা মোকাবিলায় পথ দেখানো নায়ক সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনকবঙ্গবন্ধু শেখমুজিবুর রহমানের জীবন দর্শনই অামাদের একমাত্র শেষ ঠিকানা। তাঁর ‘ অসমাপ্ত অাত্মজীবনী’ তে বর্ণিত
দু:খ দূর্দশা এদেশে অার দ্বিতীয় কেউ ভোগ করেছেন বলে জানা নেই। শত কান্নার ভীড়ে ও অামি এই গ্রন্থটি পড়তে পড়তে বুকে নিয়ে ঘুমিয়ে
পড়ে শান্তি পাই। যার ভূমিকায় তাঁর সুযোগ্যা তনয়া, গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী,দেশ রত্ন শেখ হাসিনার স্মৃতি চারণটি হাওয়ের কৃষকের দু:খ নিয়ে লিখতে ভেসে উঠল, “তাঁর জীবনে জনগণই ছিল অন্ত: প্রাণ। মানুষের দু:খে তাঁর মন কাঁদত।বাংলার দু:খী মানুষের মুখে হাসি ফুটাবেন,সোনার বাংলা গড়বেন- এটাই ছিল তাঁর জীবনের একমাত্র ব্রত। অন্ন,বস্ত্র,বাসস্থান, শিক্ষা,স্বাস্থ্য – এই মৌলিক অধিকারগুলো পূরণের মাধ্যমে মানুষ উন্নত জীবন পাবে,দারিদ্র্যের কশাঘাত থেকে মুক্তি পাবে, সেই চিন্তাই ছিল প্রতিনিয়ত তাঁর মনে। যে কারণে তিনি নিজের জীবনের সব সুখ অারামঅায়েশ ত্যাগকরে জনগণের দাবি অাদায়ের জন্য এক অাদর্শবাদী ও অাত্মত্যাগী রাজনৈতিক নেতা হিসেবে অাজীবন সংগ্রাম করে গেছেন,বাঙ্গালী জাতিকে দিয়েছেন স্বাধীনতা”।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,অাপনি যে রক্তের উত্তরসূরি,যার স্বপ্ন বাস্তবায়নে অাপনি দিন রাত জীবনবাজি রেখে কাজ করছেন; অাপনিই পারেন দেশের মোট জনসংখ্যার ১/৮ ভাগ হাওরপারের কৃষকের কান্নার জলের নিদানের ঢেউ থামাতে।
অাপনি সারা দেশেরই খবর রাখেন এবং অাপনি কিছু একটা করবেন নিশ্চয়ই। ‘ভাত দে,কাপড়দে’ মিছিল কিংবা মঙ্গায় পেটেরদায়ে ‘ভুখা মিছিল’ সেটা ছোট পরিসরে ও হোক অাপনি ক্ষমতায় থাকতে সেটা অামরা দেখতে চাইনা।

মো. অাব্দুল মতিন
প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ
শাহজালাল মহাবিদ্যালয়
জগন্নাথ পুর,সুনামগঞ্জ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24