বুধবার, ২২ মে ২০১৯, ০৩:০৮ পূর্বাহ্ন

প্রাথমিক বৃত্তির ফলাফল নির্ধারণ ও কিছু কথা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ মে, ২০১৯
  • ১৯০ Time View

 

বর্তমান  শিক্ষা ব্যবস্থা সহ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়নে যাঁদের অবদান স্মরণ না করলেই নয় তাঁরা হলেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তাঁরই সুযোগ্য তনয়া জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং প্রথমিক শিক্ষায় জড়িত নীতি-নির্ধারকবৃন্দ। তাঁদের সুদূরপ্রসারী ধ্যান-ধারণাকে বাস্তবায়নের জন্য মধ্য মেয়াদী ও দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা করে  শিক্ষা ব্যবস্থাকে বিশ্বের উন্নত রাস্ট্রের সাথে তাল মিলিয়ে এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে।

শিক্ষাবান্ধব সরকারে অর্থায়নে বিদ্যালয়ে ভৌত অবকাঠামো, স্যানিটেশন ব্যবস্থা, বাউন্ডারী নির্মাণ, শিক্ষা উপকরণ, শিক্ষক নিয়োগ, বিভিন্ন প্রশিক্ষণ, খেলাধুলা ব্যয়, স্লিপ অনুদান,রুটিন মেন্টেইনেন্স,ক্ষুদ্র মেরামত, প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণি সজ্ঞিতকরণ, কন্টিজেন্সি, উপবৃত্তি ইত্যাদি সমগ্র দেশেই বাস্তবায়িত হচ্ছে। আমার ধারণায় শুধু বৃত্তি কোটা বণ্টনের ক্ষেত্রে দ্বৈতনীতি পরিচালিত হচ্ছে। হয়তো যাঁরা এ কাজে জড়িত তাঁদের চিন্তা-চেতনা কাজে লাগিয়েই এ ব্যবস্থা গ্রহন করেছেন। আমার জানামতে সরকারি প্রাথমিক বৃত্তি চালু থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত প্রতিটি ইউনিয়ন/পৌরসভায় ১জন ছেলে ও ১জন মেয়ে সাধারণ গ্রেডে বৃত্তি পেয়ে থাকতো। ২০০৯ সাল থেকে  প্রতি  ইউনিয়ন্/পৌরসভার প্রতি ওয়ার্ড কোটায় ২জন ছেলে ও ২জন মেয়ে এবং ২০১৬ সালে ৩জন ছেলে ও ৩জন মেয়ে সাধারণ কোটায় বৃত্তি পেয়ে আসছে। সাথে সাথে বৃত্তির টাকার পরিমান ট্যালেন্ট মাসিক ৭৫ টাকা ও সাধারন ৫০ টাকা থেকে পর্যায়েক্রমে  বৃদ্ধি করে ৩০০ ও ২২৫ টাকা করা হয়।

এবার আসি মূল বিষয়ে-বৃত্তি কোটা নির্ধারণের কারণে  সমগ্র দেশে এ অবস্থা না হলেও প্রায় ক্ষেত্রেই পৌরসভার ওয়ার্ড কোটায় ৩০-১০০ জন শিক্ষার্থীর বিপরীতে ইউনিয়ন পর্যায়ে ৩০০-৫০০ জন শিক্ষার্থী প্রতিযোগিতা করে আসছে। এ ছাড়াও ইউনিয়ন পর্যায়ে জিপিএ-৫ বা ৪.৮৩ পেয়েও বৃত্তি পাচ্ছে না । অথছ কোন কোন পৌরসভায় জিপিএ ৩.৫ বা ৪ পেয়েও বৃত্তি পাচ্ছে।এতে শিক্ষার্থীর এক বৃহৎ অংশ হতাশাগ্রস্থ ও ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত।

এ কোটা নির্ধারণে যে সকল ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান উপেক্ষিত হচ্ছে-প্রতি বছর জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠত্বের সনদ অর্জনের প্রতিযোগিতার জন্য উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ এসএমসি সভাপতি, শ্রেষ্ঠ বিদ্যোৎসাহী,শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয়, শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ও শিক্ষিক্ষা,শ্রেষ্ঠ সহকারি উপজেলা শিক্ষা অফিসার নির্বাচন করা হয় এবং এ নির্বাচনের একটি মাপকাঠি হচ্ছে প্রাথমিক বৃত্তির ফলাফল। এ ছাড়াও উর্ধতন কর্মকর্তাগণের পরিদর্শন মন্তব্যে বিদ্যালয়ের মান নির্ধারণ এর সাথে জড়িত।

বিষয়টি সুবিবেচনার জন্য প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা সংক্রান্ত জাতীয় স্টিয়ারিং কমিটির সভাপতি, মাননীয় মন্ত্রী, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং নির্বাহী কমিটির সভাপতি, মহাপরিচালক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ও সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতায় পৌরসভার সুবিধাবঞ্চিত ইউনিয়ন   G বৃহৎ জনগোষ্ঠির কথা চিন্তা করে প্রতিটি ইউনিয়নে বৃত্তির কোটা সংখ্যা বৃদ্ধি করে সমতা আনয়নের জন্য সুদৃষ্টি কমনা করচ্ছি।

লেখক-ধীরেন্দ্র তালুকদার,

প্রধান শিক্ষক,

হাছনফাতেমাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,

জগন্নাথপুর, সুনামগঞ্জ।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24