শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৩:০০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
মুসলিমবিদ্বেষী আইনের বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে বিক্ষোভ আমি স্বাধীনতা বিরুধী পরিবারের সন্তান নই- চেয়ারম্যান আব্দুল হাশিম জগন্নাথপুরে বাংলা মিরর সম্পাদক আব্দুল করিম গনি সংবর্ধিত জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও

ফসলডুবিতে সংকটে হাওরাঞ্চলের ব্যবসায়ীরা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৪ জুন, ২০১৭
  • ৬১ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: ফসল ডুবির কারণে কৃষক ও কৃষি শ্রমিকদের পাশাপাশি সংকটে পড়েছেন হাওরাঞ্চলের ব্যবসায়ীরাও। ধান-চালের আড়ত থেকে ভূষিমাল ও কাপড়ের ব্যবসায়ী সকল ব্যবসায়-ই মন্দাবস্থা বিরাজ করছে। জেলার সবচেয়ে বড় ধানের আড়ত মধ্যনগরের ৪৫ জন আড়তদারের মধ্যে ৩৫ জনই নিজেদের আড়ত বন্ধ করে দিয়েছেন। জেলার বড় বড় হাটগুলোর ব্যবসায়ীরাও এবার ক্রেতা সংকটে পড়েছেন। মধ্যনগরের ধানের আড়তদার গোপেশ সরকার বলেন, ‘গত বছর বৈশাখ জ্যৈষ্ঠ মাসে খাতা-পত্রের হিসাব অনুযায়ী ৫ লক্ষ বস্তা ধান ক্রয়-বিক্রয় করেছি আমরা। পৌণে দুই মনের ৫ লক্ষ বস্তার ধানের মূল্য প্রায় ৮৭৫ কোটি টাকা। এই টাকা সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলের কৃষকদের কাছেই গেছে এবং এই টাকার ভাগ খেওয়া নৌকার মাঝি, পান দেকানদার সকলেই পেয়েছে এবং দৈনন্দিন খরচ মিটিয়েছে। এবার এটি নেই। এজন্যই হাওরাঞ্চলের ব্যবসায়ীরা খারাপ অবস্থায় পড়েছেন।’
জেলার জামালগঞ্জ উপজেলার সাচনাবাজারের শ্রী কৃষ্ণ ভা-ারের মালিক অরুন তালুকদার বলেন, ‘অবস্থা খুবই খারাপ, বিক্রি অন্যান্য বছরে এই সময়ে যা হতো, এখন এর অর্ধেকের চেয়েও কম। ২-৩ জন স্টাফ দোকানে না থাকলেও বেচা-কেনায় কোন সমস্যা হয় না। স্টাফ খরচ চালাতেই হিমসিম খেতে হচ্ছে। কিন্তু দীর্ঘদিনের পুরোনো বিশ্বস্ত মানুষদের বিদায় করাও ঠিক হবে না।’
সাচনাবাজারের সিটি গার্মেন্টেসের মালিক স্বপন রায় বলেন, ‘ব্যবসায় কী পরিমাণ স্থবিরতা চলছে, বুঝানো যাবে না। ষোলআনা বাকী’র দুই আনাও পহেলা বৈশাখে আদায় হয়নি। বাধ্য হয়ে ব্যাংক লোন নিয়েছি। অন্য বছর এই সময়ে ৫০-৬০ হাজার টাকা বিক্রি হতো, এবার হচ্ছে ১৫-২০ হাজার টাকা। এতো মন্দাভাব এর আগে কোনদিন দেখিনি। মধ্যবিত্ত কোন ক্রেতা দোকানেই আসে না।’
তাহিরপুরের বাদাঘাটের ভূষিমালের পাইকারী ব্যবসায়ী তাবারক হোসেন বলেন, ‘অনেকে দোকান বন্ধ করে দিয়ে অন্যত্র কাজের সন্ধানে চলে গেছে। পাইকাররা মাল নিতে আসেই না। খুচরা ক্রেতাও নেই। বড় বেশি বেকায়দার পড়েছি এবার।’
জাউয়াবাজারের ভূষিমালের ব্যবসায়ী রানা দে বলেন, ‘হালখাতা অনুষ্ঠানে সারা বছরের বাকী’র কিছু টাকা ওঠে। এবার একেবারেই ওঠেনি। ব্যবসা রুলিং করতেই সমস্যা হচ্ছে। বৈশাখী ফসল ওঠার পর সুনামগঞ্জে ধান বিক্রির কমপক্ষে দেড় হাজার কোটি টাকা কৃষকের হাত হয়ে বাজারে আসে। এবার এই টাকা নেই। মানুষ আপাতত গরু-ছাগল বিক্রি’র টাকা দিয়ে চলছে। কিছুদিন পর আরো খারাপ অবস্থা হতে পারে।’
জেলার সবচেয়ে বড় ধানের আড়ৎ মধ্যনগর ধান-চাল আড়তদার সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোপেশ সরকার বলেন,‘মধ্যনগরের ৪৫ জন আড়তদারের মধ্যে ৩৫ জন তাদের আড়ত বন্ধ করে দিয়েছে। আমার আড়তসহ ১০ জনের আড়ত খোলা আছে, এই মৌসুমে অন্য বছর আমরা প্রথম সারির আড়তদাররা দিনে কমপক্ষে ১ হাজার মন ধান কিনেছি। দ্বিতীয় সারির আড়তদাররা ৪-৫’শ মন ধান কিনেছে। তৃতীয় সারির আড়তদাররা ২-৩’শ মন ধান কিনেছে। এবার আমরা যারা আড়ত খোলা রেখেছি ৫০ থেকে ১০০ মন ধান কোন কোন দিন কিনতে পারছি, কোন দিন একেবারেই কেনা যাচ্ছে না। এসব ধান সুনামগঞ্জ অঞ্চলের নয়। নেত্রকোনার কলমাকান্দা ও বারহাট্টা থেকে ব্যাপারিরা এনে বিক্রি করছে। সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ, তাহিরপুর, ধর্মপাশা, বিশ্বম্ভরপুর, দিরাই-শাল্লা থেকে গত বছর বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে খাতা পত্রের হিসাব অনুযায়ী আমরা এক মন ৩০ কেজির বস্তায় ৫ লাখ বস্তা ধান কিনেছি। টাকার অংকে প্রায় ৮৭৫ কোটি টাকার ধান। এবার এই অঞ্চলের এক ছটাক ধানও কেনা যায়নি।
বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ এমএম আকাশ হাওরাঞ্চলের অর্থনৈতিক এই দুরাবস্থা কাটিয়ে ওঠার জন্য যাদের আয় মাসে ১০ হাজার টাকার নিচে ছিল তাদের রিলিফ দেওয়া, ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা যাদের আয় ছিল তাদের কনজামসন ক্রেডিটের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন উল্লেখ করে বলেন,‘এটি সরকারকেই করতে হবে।’ তিনি বলেন,‘২০ হাজার টাকার উপরে যাদের আয় ছিল, তারা কিছুটা কষ্ট হলেও খেয়ে-বেঁচে থাকতে পারবে।’ এমএ আকাশ বলেন,‘ভবিষ্যতে অর্থাৎ পরের মৌসুমে ফসল যাতে হয়, সেজন্য উপকরণ দিয়ে সহায়তা দিতে হবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24