বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:১৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
মানবতাবিরোধী অপরাধ:টিপু সুলতানের ফাঁসি আদেশ চালকদের প্রতি ইসলামের নির্দেশনা জগন্নাথপুরে সংগ্রামী সেই মেয়েটির পরিবারে উপজেলা পরিষদের সেলাই মেশিন প্রদান জগন্নাথপুরে মোটরযান ও ভোক্তা আইনে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা সৌদিতে নির্যাতিতা জগন্নাথপুরের কিশোরীকে দেশে ফেরাতে পরিকল্পনামন্ত্রীর ডিও লেটার কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি আইসিজেতে গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী-মিয়ানমারের গণহত্যা কোনোভাবেই গ্রহণ করা যায় না জগন্নাথপুরে মানবাধিকার দিবসে র‌্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে মাকে হত্যা করল পাষান্ড ছেলে ঘৃনার বদলে অমুসলিমদের মধ্যে ১০ হাজার কোরআন বিতরণ করবে নরওয়ের মুসলিমরা

ফসলডুবি – মন্ত্রণালয়ের তদন্ত প্রতিবেদন-কৌশলে ছাড় পাচ্ছে দায়ীরা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৩০ জুন, ২০১৭
  • ৮০ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কার কাজে অনিয়ম, দুর্নীতি, ধীরগতি সংক্রান্ত অভিযোগ তদন্তের জন্য পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি’র প্রতিবেদনে বাঁধ দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের কৌশলে ছাড় দেওয়া হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনে সার্বিক বিশ্লেষণে যে সকল কর্মকর্তা এবং ঠিকাদারদের গাফিলতি, অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে হাওরবাসীর অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা উল্লেখ থাকলেও দায়ীদের চিহ্নিত করা হয়নি। তদন্ত প্রতিবেদনে বাঁধ নির্মাণে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) দুর্নীতি, অনিয়ম ও অবহেলা ছিল উল্লেখ করা হলেও, একই সঙ্গে বলা হয়েছে, অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে হাওরে পানি ঢুকে ফসল নষ্ট হয়নি, অতিবৃষ্টির কারণে বাঁধ উপচে হাওরে পানি ঢুকেছিল।
হাওরাঞ্চলে ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙে শতভাগ ফসলহানির ঘটনা তদন্ত করার জন্য পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি ১৯ পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদন পানিসম্পদমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদের কাছে হস্তান্তর করেছে। গত ২৩ জুন এই তদন্ত প্রতিবেদন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ওয়েভসাইডেও প্রকাশ হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনে এটিও বলা হয়েছে, পানি সরে গেলে বাঁধের কাজ কী পরিমাণ হয়েছিল? তা আবারও সরেজমিনে তদন্ত করতে হবে।
গত ৩০ এপ্রিল সুনামগঞ্জসহ আগাম বন্যায় প্লাবিত অন্যান্য জেলার হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কার কাজে অনিয়ম, দুর্নীতি, ধীরগতি সংক্রান্ত অভিযোগ তদন্তের জন্য পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় তদন্ত কমিটি গঠন করেছিল। প্রথম চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠিত হলেও পরে আরো ২ জনকে যুক্ত করে ছয় সদস্যর তদন্ত কমিটি করা হয়।
এই কমিটির আহ্বায়ক ছিলেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (এনডিসি) ড. মোহাম্মদ আলী খান। অন্য সদস্যরা হলেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব হাওলাদার জাকির হোসেন, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের চীফ মনিটরিং কাজী তোফায়েল হোসেন, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. খলিলুর রহমান, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব কাজী ওবায়দুর রহমান, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম প্রধান মন্টু কুমার বিশ্বাস।
তদন্ত কমিটি গঠনের সময় কার্যপরিধি নির্ধারণ করে দেয়া হয়। কার্যপরিধি চারটি ছিল-সুনামগঞ্জসহ আগাম বন্যায় প্লাবিত হাওরাঞ্চলের অন্যান্য জেলার হাওররক্ষা বাঁধের নির্মাণ ও সংস্কার কাজে অনিয়ম, দুর্নীতি ও ধীরগতি হয়েছে কি না এবং হয়ে থাকলে তার কারণ খুঁজে বের করা, দায়ীদের চিহ্নিত করা এবং আগাম বন্যা থেকে হাওর রক্ষায় সুপারিশ প্রদান।
পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি যে প্রতিবেদন পেশ করেছে, তাতে বলা হয়েছে, সুনামগঞ্জ জেলায় ২০১৬-১৭ অর্থ বৎসরে ৮০৪.৭৮২ কি.মি ডুবন্ত বাঁধ পুনরাকৃতি করার জন্য ৪৮ কোটি ৮৯ লক্ষ টাকা চুক্তিমুল্যে ৭৬টি প্যাকেজের কার্যাদেশ দেয়া হয়েছিল। চলতি বছরের মার্চ মাসের মধ্যে প্যাকেজসমূহের কাজ সমাপ্তির জন্য নির্ধারণ করে দেয়া হয়্। প্যাকেজের কোন কাজই যথাসময়ে শেষ হয়নি। তবে এ সকল প্যাকেজের বিপরীতে ইতোমধ্যে ৯ কোটি ২১ লক্ষ ১৫ হাজার টাকা পরিশোধ করা হয়। বাঁধ নির্মাণে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) দুর্নীতি, অনিয়ম ও অবহেলা ছিল। আবার একই সঙ্গে বলা হয়েছে, অনিয়ম-দুর্নীতি’র কারণে হাওরে পানি ঢুকে ফসল নষ্ট হয়নি, অতিবৃষ্টির কারণে বাঁধ উপচে হাওরে পানি ঢুকেছিল। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, চলতি বছরের ২৯ মার্চ পানির উচ্চতা ছিল ২.৪০ এমপিডব্লিউডি। চারদিনের ব্যবধানে ১ এপ্রিল পানির উচ্চতা বেড়ে ৭.০৬ এমপিডব্লিউডি তে উন্নীত হয়। অথচ. এই প্রতিবেদনেই ২৯ মার্চের আগেও কিছু কিছু হাওর ডুবেছে এমন কথাও উল্লেখ রয়েছে।
আবার প্রতিবেদনে বলা হয় সুনামগঞ্জসহ হাওর অধ্যুষিত ছয়টি জেলায় ফসলহানির কারণ প্রাকৃতিক ও মনুষ্যসৃষ্ট।
হাওর রক্ষা বাঁধের সার্বিক কর্মকা-ে দুর্বল ও ক্ষতিগ্রস্ত সেকশনে কাজ না করে ভালো সেকশনে কাজ করার প্রমাণ, সমন্বয়হীনতার অভাব, কাজে বারবার ব্যর্থ হয়েছেন এমন ঠিকাদারদের পাউবো কর্তৃক আবারও কাজ দেয়া, কাজ নিয়ে কাজ শুরু না করা, হাওরের মাটির কাজে জেলার বাইরের ঠিকাদারদের ভয়াবহ নেতিবাচক প্রভাব, জেলার ৬টি হাওরে (মাটিয়ান হাওর ঠিকাদার মেসার্স গুডম্যান এন্টারপ্রাইজ ও মেসার্স খন্দকার শাহীন আহমদ, নাইন্দার হাওর-মেসার্স খন্দকার শাহীন আহমদ, খাই হাওর-মেসার্স খন্দকার শাহীন আহমদ, গুরমার হাওর-সজীব রঞ্জন দাশ, টাংগুয়া হাওর-মাহীন কনস্ট্রাকশন, ঘোড়াডোবা হাওর-সজীব রঞ্জন দাশ, টাংগুয়ার হাওর-মেসার্স খন্দকার শাহীন আহমদ) নিয়োগকৃত ঠিকাদারদের কাজ শুরু না করার তথ্য এবং পানি-সমতল ও বাঁধের উচ্চতা ডিজাইন অনুসারে সুষ্ঠুভাবে সময়মত না হওয়া, প্রকল্প পরিচালকসহ মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের অনিয়ম-দুর্নীতি, ধীরগতি ও গাফিলতি লক্ষণীয় বলা হয়। এছাড়া প্র্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, বাঁধ পুনরাকৃতির কাজের কোন ইতিবাচক ফল নেই। কারণ প্রতিবছরই বাঁধ তলিয়ে যায় এবং পরের বছর আবার নতুন করে কাজ শুরু করতে হয়। এক্ষেত্রে দুর্নীতির সুযোগ সুষ্টি হয়। তাছাড়া বিগত বছরের সকল দরপত্রের কাজও সম্পূর্ণ করা হয় না।
এডিপিভূক্ত প্রকল্পসমূহের কাজের উপর সুশীল সমাজ, হাওর এলাকার জনসাধারণের অভিযোগ সম্পর্কে সার্বিক বিশ্লেষণে যে সকল কর্মকর্তা এবং ঠিকাদারদের গাফিলতি, অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে হাওরবাসীর অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি এবং তদন্তু কমিটির কার্যপরিধির অন্তর্ভূক্ত ফসলহানীর জন্য দায়ীদের চিহ্নিত করার কথা উল্লেখ থাকলেও প্রতিবেদনে দায়ীদের চিহ্নিত করা হয়নি।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা যেমন স্থানীয় কৃষকদের আস্থা অর্জন করতে পারেননি তেমনি যথা সময়ে টেন্ডারের কার্যাদেশ না দেয়া, ঠিকাদারদের উপর কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণের শিথিলতা এবং ঠিকাদারদের অবহেলা কৃষকদের সর্বনাশ করেছে। আর কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা) কর্মসূচির আওতায় স্থানীয় সাংসদ ও উপজেলা চেয়ারম্যানের প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে গঠিত প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটিকে (পিআইসি) বাঁধের বিভিন্ন স্থান মেরামতের যে দায়িত্ব দেওয়া হয়, তা পালনে অনিয়ম-অবহেলার অভিযোগও পুরোনো। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে তাঁদের কথাও উল্লেখ করা হয়েছে।
প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, অসময়ে হাওর অঞ্চলের কৃষকের ফসলহানি পানি উন্নয়ন বোর্ডের সুনামকে ব্যাপকভাবে ক্ষুন্ন করেছে। এই ঠিকাদারী প্রক্রিয়াকে নিবিড়ভাবে পর্যালোচনা করা প্রয়োজন। হাওর এলাকায় ফসল রক্ষার কাজের সঙ্গে সময়ের সম্পর্ক অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। সম্পূর্ণ কাজকে ভিন্নভাবে ও বিজ্ঞানভিত্তিক দৃষ্টিতে বিবেচনার দাবি রাখে। স্থানীয় জনগণ ঠিকাদারি প্রথার পুরো বাতিল চেয়েছেন, যা প্রণিধানযোগ্য। স্থানীয় জনগণ উপজেলা পরিষদের মাধ্যমে ও জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে কাজটি সম্পাদিত হোক, এমন দাবি করেছে, যা বিবেচ্য।
পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটির প্রতিবেদনে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়, পানি উন্নয়ন বোর্ড, ওয়ারবো, হাওর ও জলাভূমি উন্নয়ন অধিদপ্তরের নিয়ে আরেকটি তদন্ত পরিচালনার কথা বলা হয়। কারণ হিসেবে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি অভিযুক্ত তিনজন প্রকৌশলীসহ উপবিভাগীয় প্রকৌশলী ও সেকশন অফিসারদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করার ক্ষেত্রে আরো তথ্য সংগ্রহ করে অভিযোগ গঠনের কথা বলেছেন। তবে যাদের সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে তা অব্যাহত রাখা এবং ছয় জেলায় কর্মরত প্রকৌশলী ও সেকশন অফিসারদের পর্যায়ক্রমে প্রত্যহারের কথা বলা হয়েছে প্রতিবেদনে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, ফসলহানি ঘরে ঘরে সংকট ডেকে এনেছে। হাওরের কৃষকের মনের কথা প্রকাশ করতে তদন্ত কমিটি বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার শিবাহী সাহা নামে এক গৃহবধূর কথা তুলে ধরা হয়। তদন্ত কমিটির সদস্যদের কাছে শিবাহী বলেন, ‘হাওরের একজন বউ আমি, আমার স্বামী কৃষক। আমাদের একটি মেয়ে আছে। আমার মতো আগাম বন্যায় হাজার হাজার কৃষক যখন বন্যায় ভাসে, তখন চোখের জল মানে না। সময়মতো বাঁধের কাজটি যদি পানি উন্নয়ন বোর্ড করত, তাহলে তাদের দোষারোপ কেউ করত না।’
বোরো ধানের বীজ পরিবর্তনের পরামর্শ দিয়ে তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্তমানে যে বোরো ফসলের চাষ হয় তা পরিপ হতে দীর্ঘ সময় নেয়। তাতে আগাম বন্যা বা ঢলে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা সবসময়ই থাকে। এই জুয়া খেলা থেকে বেরিয়ে আসতে না পারলে প্রকৃতির বিরুদ্ধে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে এককভাবে দায়িত্ব দিলে কাক্ষিত ফল আসবে না। সে জন্য টেকসই বীজের উদ্ভাবন প্রয়োজন। এ বিষয়ে কৃষি মন্ত্রণালয় উদ্যোগ নিতে পারে। তবে তাতে সময়ের দরকার হবে। এটি প্রণিধানযোগ্য যে, কৃষকদের স্থানীয় জাতের বা ট্রাডিশনাল জাতের বোরো ফসলে উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টায় লাভ নেই। কারণ, এতে যে ফসল হয় তাতে খরচ উঠবে না। বিকল্প ফসলের ব্যবহারের জন্য সুনির্দিষ্ট গবেষণা অপরিহার্য।
এদিকে তদন্ত প্রতিবেদনে ফসলহানি থেকে রক্ষা পেতে হাওর এলাকার স্থানীয় জনসাধারণের সাথে সভা, সেমিনার, নদী, খাল ও হাওর সমূহে ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের কথা বলা হয়েছে।
ধর্মপাশার বাদশাগঞ্জের বাসিন্দা কৃষক সংগ্রাম সমিতি’র কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক কৃষক নেতা খায়রুল বাশার ঠাকুর খান এই তদন্ত প্রতিবেদন প্রসঙ্গে বলেন,‘যারা তদন্ত করেছেন তারা চাচ্ছেন না দুর্নীতির সঙ্গে সম্পৃক্তদের শাস্তি হোক। অতিবৃষ্টি হয়েছে সত্যি, কিন্তু সময় মতো বাঁধ না হওয়ায় বিনা বাধায় পানি হাওরে ঢুকে কৃষকদের সর্বশ্বান্ত করেছে। তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পানি সরে গেলে আবারও সরেজমিনে বাঁধের অবস্থা দেখা হবে। এই মন্তব্যও হাস্যকর। প্রকৃতপক্ষে বাঁধ বা বাঁধে সংস্কার হলেও পানি আসার সময়ই প্রতিবছর ঐ বাঁধ ভাসিয়ে নিয়ে যায়। সুতরাং পানি সরার পর আবার তদন্ত করার অর্থই হচ্ছে দুর্নীতিবাজকে রক্ষা করার চেষ্টা করা। দুর্নীতিবাজ ঠিকাদার বা পাউবো কর্মকর্তারা সকল স্থানেই কাজ হয়েছে বা করেছে এটিই প্রমাণ করার চেষ্টা করবে।’সুত্র- সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24