রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে বিতর্কিতদের আওয়ামী লীগে স্হান না দিতে তৃণমূল নেতাদের দাবি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা:জগন্নাথপুরে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ২৬০ যুক্তরাজ্য বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে জগন্নাথপুর বিএনপির অভিনন্দন পেঁয়াজ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করলেন কাদের সিদ্দিকী ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশী হুজহু’র প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানের বারোতম আসর বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি:প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড আ.লীগের কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে অগ্নিকাণ্ডে নি:স্ব ৮ পরিবার আশ্রয় নিলেন স্কুলে.মানবেতর জীবন যাপন মিশর থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আসছে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি

ফসলে কৃষকের চোখের জল

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৭ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৫৯ Time View

অশেষ কান্তি দে:: একটি সপ্তাহ কোনক্রমে পার করে দিতে পারলেই শনির হাওর থেকে সোনার ফসল ঘরে তুলতেন কৃষকরা। সেজন্য তাদের চেষ্ঠা ছিল দিবানিশি। বাঁধ রক্ষায় প্রায় পঁচিশ দিন সফল লড়াই ছিল তাদের। শেষমেশ তাদের শেষ রক্ষা হয়নি। স্বপ্ন এবার ভেসে গেছে জলে। বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে নিজের চোখের সন্মুখে হু হু করে ফসলে পানি ঢুকতে দেখছেন কৃষক। অন্যভাবে দেখছেন নিজের সর্বনাশ হতে। বলা যায় তীরে এসে তরী ডোবা। অন্যান্য হাওরের অবস্থায় প্রায় তাই। হাওরঅঞ্চলের অনেক কৃষকরা এবার ধারদেনা করে ধান লাগিয়েছিলেন। অনেকে গত বোরো মৌসুমের ধারের টাকা শোধ করে উঠতে পারেনি। ভাবছিলেন এ মৌসুমে ফসল ঘরে তুলে সব দেনা এক সাথে পরিশোধ করবেন। এখন কপালে তাদের চিন্তার ভাঁজ। শোধ করবেন কী তারা রিক্ত,নিঃস্ব। নিজেদের ঘরেই এখন অন্নের সংস্থান নেই। মানুষ তাদের অদৃষ্টকে দোষারোপ করতে পছন্দ করে। যেন নিয়তি সব ঠিক করে দেয়। ফসল রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভূমিকা কী ছিল ? কী ভূমিকা ছিল ঠিকাদার গোষ্ঠীর ও ফসল রক্ষা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির ? এই ত্রয়ী কোনভাবেই তাদের দায় এড়াতে পারে না। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ করছেন কী। গ্রামের লোকজনকে সাংবাদিক মশিউল আলম জিঞ্জাসা করেছেন এ ফসল হানির কারণ কী তারা উত্তর দিয়েছেন বেড়িবাঁধে যারা গাফিলতি দুর্নীতি করেছে তারাই কারণ। এই যে কৃষকের স্বপ্ন নিয়ে চিনিমিনি খেলা এর শেষ কোথায়। অণ্যদিকে ধান পচে পানিতে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে গেছে। বেড়েছে অ্যামোনিয়া গ্যাসের মাত্রা। মরে গেছে মাছ ও অন্যান্যা জলজ প্রাণী। মারা গেছে দশ হাজার হাঁস। সরকারি হিসেবে সুনামগঞ্জের হাওরের ৫০ মেট্রিকটন মাছ মারা গেছে। এখানেই কোটি কোটি টাকার ক্ষতি। যেন মড়ক লেগেছে। একজন মাছ বিক্রেতা দুঃখ ভরে বলেছেন তার সংসারে অভাব শুরু হয়েছে। মাছ বিক্রি করে তিনি জীবিকা নির্বাহ করেন। এখন কেউ মাছ কিনছে না। প্রশাসন থেকে মাইকিং করে জানিয়ে দেয়া হয়েছে মাছ না খাওয়ার জন্য। তার বিক্রি নেই। সুনামগঞ্জের সবগুলো হাওরের ফসল এখন ডুবে গেছে। সর্বশেষ বাকি চিল পাকনার হাওর। না পাকনার হাওরের পাকা ধান কৃষকের তোলা সম্ভব হয়নি। তেইশ দিনের বিরামহীন লড়াই শেষে এই হাওরও তলিয়ে গেছে। ফসলের মাঠে আজ কৃষকের হাসি উধাও। তার পরিবর্তে ফসল হারানো শোক। কৃষকরা হয়েছেন সর্বস্বান্ত। হাওরঅঞ্চল মিলিয়ে এত দুর্গতি সঙ্গে ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি। সুনামগঞ্জের হাওরঅঞ্চলের অবস্থা তো চরম অবস্থা। এত কিছুর পরও দুর্গত এলাকা ঘোষনা যত দ্বিধা। আমাদের ত্রাণ সচিব বলেছেন এত এ মানুষ মারা না গেলে দুর্গত এলাকা ঘোষনা করা যায় না। একী হৃদয়বিদারক উক্তি নয়। হাওর অঞ্চলের মানুষ এখন তো মরেই বেঁচে আছে। কাছাকাছি থেকেই না হয় উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষ বুঝুন বেঁচে থাকা কারে কয়। আমাদের আগে এটি উপলব্ধিতে আসুক-বাঁধ ভেঙ্গে যেখানে গেছে জল সে কৃষকের চোখের জল। ফসল ডুবে একাকার হয়ে গেছে যে পানি সে তো কৃষকের চোখের পানি।
লেখক- অশেষ কান্তি দে প্রভাষক জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24