সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

ফাজিলপুর বালি মহাল ইজারা দেয়ার ঘটনায় সুনামগঞ্জে তোলপাড় : প্রধান বিচারপতির হস্তক্ষেপ কামনা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০১৫
  • ১৮৫ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : নামমাত্র মূল্যে সুনামগঞ্জ জেলায় সরকারের জাতীয় রাজস্ব আয়ের প্রধান ক্ষেত্র তাহিরপুর উপজেলার ফাজিলপুর বালিমহালটি ইজারা দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগটি দায়ের করেছেন ইজারা বঞ্চিত আব্দুল হেকিম। অভিযোগে প্রকাশ, ৩জন আবেদনকারীর মধ্যে সবচেয়ে কমমূল্যের রাজস্বদাতা তোফাজ্জল হোসেনকে মাত্র ২৭ লক্ষ টাকা ইজারামূল্যে মহালটি লীজ দেয়া হয়েছে। মহামান্য হাইকোর্টের ২৭৭০/২০১৫ নং রিট পিটিশন মামলার ২৭/৫/২০১৫ ইং তারিখের আদেশ এর আলোকে ১/৭/২০১৫ইং তারিখে জেলা প্রশাসনের সাথে তোফাজ্জলের চুক্তিপত্রও সম্পাদিত হয়েছে। অথচ ২৭৭০/২০১৫ নং রিট মামলার বাদী তোফাজ্জল হোসেন মহামান্য হাইকোর্ট ও সরকারের কাছে একই মহাল বিষয়ে মহামান্য হাইকোর্টের ৮৩৭৪/২০০৯ নং রিট পিটিশন মামলার ২৭/১/২০১১ ইং তারিখের চুড়ান্ত রায় গোপন করিয়াছেন। তোফাজ্জল হোসেনের উক্ত ইজারা আদেশ উদ্দেশ্যমূলক বেআইনী,পারস্পরিক যোগাযোগীমূলক ও মহামান্য হাইকোর্টের রায়ের বিরোধী আদালত অবমাননাকর পদক্ষেপ ছাড়াও সরকারী রাজস্বের স্বার্থবিরোধী হওয়ায় তথাকথিত এই অবাঞ্চিত আদেশ প্রত্যাহার বা বাতিলের জন্য প্রয়োজনে সরকার পক্ষে আপীল করার জন্য জেলা প্রশাসকের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন,বঞ্চিত এটিএম হায়দার বখত রবিন। তিনি বলেন,বালি মহাল ইজারাদানের ক্ষেত্রে কতগুলো নিয়ম কানুন ও বিধি বিধান আছে। বিশেষ করে সুনামগঞ্জ জেলা বালি মহাল ব্যাবস্থাপনা কমিটি নামে একটি সরকারী কমিটি এই মহাল ইজারা দেয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা। উক্ত কমিটিতে সুনামগঞ্জ ১ নির্বাচনী এলাকার মাননীয় সংসদ সদস্য পদাধিকার বলে উপদেষ্টা হন। কিন্তু ফাজিলপুর বালিমহাল ইজারা দেয়ার ব্যাপারে সিদ্বান্ত গ্রহনের লক্ষ্যে জেলা কমিটির কোন সভায় মাননীয় সংসদ সদস্যদেরকে ডাকা হয়নি। আমরা সুনামগঞ্জ-১ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন সাহেবের সাথে আলাপ করে জানতে পেরেছি মহাল ইজারা দেয়ার ব্যাপারে মাননীয় এমপি সাহেবের কাছ থেকে কোন লিখিত বা মৌখিক মতামত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নেয়নি। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দেবজিৎ সিংহ মোটা অঙ্কের আর্থিক সুবিধা নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী সিন্ডিকেট এর প্রতিভূ হয়ে বালিমহাল ব্যাবস্থাপনা কমিটির কোনধরনের সভা ও সিদ্বান্ত এমনকি পত্র পত্রিকায় ওপেন টেন্ডার আহবাণ ছাড়াই সর্বোচ্চ দরদাতাদেরকে উপেক্ষা করে তোফাজ্জল হোসেনের কাছ থেকে নামমাত্র ইজারামূল্য নিয়ে তার কাছে মহালটি সম্পূর্ণ বেআইনীভাবে তুলে দিয়েছেন। সরকারকে সর্বাধিক রাজস্ব পাইয়ে প্রকাশ্য নীলামে মহালটি ইজারা দেয়ার সদিচ্ছা থাকলে তিনি অবশ্যই কমিটির সকলের মতামত নিতেন বা কম লীজমানী সংক্রান্ত যেকোন আদেশের বিরুদ্ধে আপীল দায়েরের ব্যাবস্থা গ্রহন করতেন।
সুনামগঞ্জের জামতলা আবাসিক এলাকার অজবিথী ৩/১ নং বাসভবনের বাসিন্দা এটিএম হায়দার বখত রবিন বলেন, মহামান্য হাইকোর্টের ৮৩৭৪/২০০৯ নং রিট পিটিশন মামলার বাদী হিসেবে আমাকে ফাজিলপুর মহাল ইজারা দেয়ার জন্য বিজ্ঞ বিচারপতি এ.এইচ এম সামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিজ্ঞ বিচারপতি শেখ মোঃ জাকির হোসেন সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রায় প্রদান করেন। বিজ্ঞ বিচারপতি গনের ২৭/১/২০১১ ইং তারিখের প্রদত্ত রায়ে ফাজিলপুর কোয়ারী বা মহালটি আমাকে সমজিয়ে দিয়ে সতর্কতার সহিত চুক্তিপত্র সম্পাদনের জন্য রীট মামলার ৪ নং বিবাদী সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দেয়া হয়। ভূমি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব মো: আব্বাছ উদ্দিন ৪/৮/২০১১ ইং তারিখে ৮৩৭৪/২০০৯ নং রীট পিটিশন মামলার রায়ের কপি সহকারে আমার ৩১.০০.০০০০.০৪২.৬৭.০০২.১১-১০৫৪ নং স্মারক সম্বলিত আবেদন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কাছে প্রেরন করেন। আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় হতে আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ মহোদয় গত ২/১২/২০১২ ইং তারিখে,আইন প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম মহোদয় ২৮/১১/২০১২ ইং ,আইন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় সচিব আবু সালেহ শেখ মো: জহিরুল হক মহোদয় ২৭/১১/১০১২ ইং, যুগ্ম সচিব (মতামত) আবু আহমেদ জমাদার ও উপসচিব (মতামত) মোহাম্মদ আমির উদ্দিন মহোদয়গণ ২৬/১১/২০১২ইং তারিখে বাদী হিসেবে আমি এটিএম হায়দার বখতকে মহালটি (কোয়ারী) প্রদানের জন্য মতামত প্রদান করে খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবরে পত্র প্রদান করেন। তৎপ্রেক্ষিতে জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় এক বৎসরের মঞ্জুরীপত্র জারী করেন। এরই মধ্যে বালু মিশ্রিত পাথর মহালগুলোর গেজেটও প্রকাশিত হয়। ১৭/০২/২০১৩ইং তারিখে জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব মোহাম্মদ আমিনুর রহমান মহোদয়, ২৮.০০.০০০০.০১৮.৩৩.০৩৭.১২.৫৮ নং স্মাারকে “ জনাব এটিএম হায়দার বখত এর অনুকুলে সুনামগঞ্জ জেলাধীন তাহিরপুর উপজেলার অন্তর্গত ফাজিলপুর বালিমিশ্রিত পাথর কোয়ারীর ৬০ হেক্টর জমি হতে বালিমিশ্রিত পাথর উত্তোলনের নিমিত্তে কোয়ারী ইজারা প্রসঙ্গে” খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরোর পরিচালক ও সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কাছে নির্দেশসুচক পত্র প্রেরন করেন। কিন্তু মোটা অঙ্কের টাকা ঘুষের দাবী পূরণ না করার কারণে ফাজিলপুর মহালটি আমাকে সমজিয়ে দেয়া হয়নি। ৬০ লাখ টাকা মূল্যে দুটি ইজারা আদেশে ফাজিলপুর বালি পাথর মহালটির ৬০ হেক্টর জায়গার ইজারামূল্য নির্ধারন করে খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরো। সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসন ৬০ হেক্টর মহাল এলাকার ৬০ লাখ টাকা ইজারামূল্য ডিসিআরের মাধ্যমে আমি এটিএম হায়দার বখত এর কাছ থেকে গ্রহন না করে একই মহালটির ১৭৭ হেক্টর এলাকার ইজারামূল্য মাত্র ২৭ লক্ষ টাকা ডিসিআরের মাধ্যমে তোফাজ্জল হোসেন এর কাছ থেকে গ্রহন করে শুধু অনিয়মের আশ্রয় গ্রহন করেনি বরং মহামান্য হাইকোর্টের রায়ের প্রতিও চরম অবজ্ঞা প্রদর্শন করেছে। যা আদালত অবমাননাকর অপরাধের সামিল বটে। মুক্তিযোদ্ধা ব্যাবসায়ী ও শ্রমিকরা বলেন, অবৈধ ইজারাদার তোফাজ্জল হোসেন বৈধ ইজারাদার না হওয়ার পরও মহালটিকে কেন্দ্র করে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসনের (রাজস্ব) শাখার অসাধূ কর্মকর্তা কর্মচারীদের ছত্রছায়ায় গত ১লা বৈশাখ ১৪২২ বাংলা থেকে ১/৬/২০১৫ইং পর্যন্ত সরকারকে রাজস্ব বঞ্চিত করে লক্ষ লক্ষ টাকা চাঁদা উত্তোলন করেছেন। তার চাঁদা আদায়ের একাধিক রসিদ ইতিপূর্বে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে দাখিল করা আছে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দেবজিৎ সিংহ, তোফাজ্জল হোসেনকে ফাজিলপুর বালি মহালের ইজারাদার হিসেবে লীজমানি নিয়ে দখলদেহী সমজিয়ে দিলেও তিনি কোন পাথর মহালের ইজারাদার নন। অথচ বালুর পরিবহনের পাশাপাশি তিনি পাথরের পরিবহণ হতেও চাঁদা উত্তোলন করে যাচ্ছেন। যা আইনত তিনি পারেননা। অভিযোগকারী আব্দুল হেকিম বলেন, তোফাজ্জল হোসেনের চাইতে এক লক্ষ টাকা বর্ধিত মূল্যে মহালটির খাস কালেকশনের অনুমতি বা ইজারাদানের জন্য গত ৬/৫/২০১৫ইং তারিখে জেলা প্রশাসক বরাবরে আমি লিখিত আবেদন করি। কর্তৃপক্ষ আমার আবেদনটিও আমলে নেননি। অথচ আমি তোফাজ্জলের চাইতে আমার এলাকার বালিমহালটির লীজমানী বেশি দিতে এখনও প্রস্তুত। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দেবজিৎ সিংহ বলেন,মঙ্গলবার জনৈক আব্দুল হেকিমের একটি অভিযোগ দায়ের করা হলে আমরা জাজমেন্ট এর বিষয়টি জানতে পেরেছি। কোন কর্মচারী যদি এরকম একটি গুরুত্বপূর্ণ জাজমেন্ট এর বিষয় গোপন রাখেন তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়ার পাশাপাশি জাজমেন্ট এর বিষয়টিও খতিয়ে দেখা হবে। অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি ও সুনামগঞ্জ ১ আসনের এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, হাইকোর্টের রায় বা আদেশ এর ব্যাপারে আমাদের জ্ঞান কম। তবে এটুকু বলতে পারি বালিমহাল ব্যাবস্থাপনা কমিটির কোন সভায় আমরা বসিনি এবং কোন সিদ্ধান্তও হয়নি। কেউ যদি কমিটিকে পাশ কাটিয়ে ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তে কোন মহাল বিশেষ ব্যাক্তি বা সিন্ডিকেট এর হাতে নামমাত্র মূল্যে লীজ দেন তাহলে এর দায় দায়িত্ব তাকেই বহন করতে হবে। বালিমহাল নিয়ে কোন ধরনের দূর্নীতি বরদাশত করা হবেনা। জেলা পরিষদের প্রশাসক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন মন্ত্রী এমপির বক্তব্যের সাথে একমত পোষন করে বলেন,হাইকোর্টের আদেশের চাইতে রায় বা জাজমেন্ট বড়। কারো পক্ষে হাইকোর্ট কোন বিষয়ে সুনির্দিষ্ট রায় দিলে সেই রায়ের বিরুদ্ধে আপীল আদেশ পাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত ঐ রায় কার্যকর করতে প্রশাসন বাধ্য। সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসন রায় কার্যকর অথবা রায়ের বিরুদ্ধে যদি আপীল না করে থাকে তাহলে এটা আদালত অবমাননাকর পর্যায়ে পড়ে। ক্ষতিগ্রস্থরা বিষয়টি আদালত অবমাননাকর অপরাধে মামলা করলে তারা উচ্চ আদালতের কাছে অবশ্যই ন্যায় বিচার পাবেন। অভিযোগের ব্যাপারে জেলা প্রশাসকের বক্তব্য জানতে চেয়ে তার মুঠোফোনে কল করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। ইজারা গ্রহীতা তোফাজ্জল হোসেনও ফোন রিসিভ করা থেকে বিরত থাকেন। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হাজী আবুল কালাম,জেলা আওয়ামী লীগ নেতা আমির হোসেন রেজা, পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদের আহবায়ক জসিম উদ্দিন দিলীপ,ব্যাবসায়ী একেএম আবু নাছার,সাবেক পৌর কাউন্সিলর শামীম চৌধুরী সামু,ব্যাবসায়ী শান্তি মিয়া ও ব্যাবসায়ী ছদরুল হক বলেন, তোফাজ্জল হোসেনকে যেহেতু ২০ সদস্য বিশিষ্ট জেলা বালিপাথর মহাল ব্যাবস্থাপনা কমিটি কর্তৃক বৈধভাবে ইজারা দেয়া হয়নি বা ইজারা সংক্রান্ত বিষয়ে জেলা প্রশাসন কোন দরপত্রও আহবাণ করেনি সেহেতু সে কোনভাবেই ফাজিলপুর বালিপাথর মহালের বৈধ ইজারাদার হতে পারেনা। এছাড়া মহামান্য হাইকোর্টের ৮৩৭৪/২০০৯ নং রিট পিটিশন মামলায় বাদী হিসেবে এটিএম হায়দার বখত কে ফাজিলপুর মহাল ইজারা দেয়ার জন্য বিজ্ঞ বিচারপতি এ.এইচ এম সামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিজ্ঞ বিচারপতি শেখ মোঃ জাকির হোসেন সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ গত ২৭/১/২০১১ ইং তারিখে যে রায় প্রদান করিয়াছেন তোফাজ্জুলের পক্ষের ইজারা আদেশ সেই ঐতিহাসিক রায়ের সাথে সাংঘর্ষিক। এছাড়া ৬০ লক্ষ টাকা ইজারাদাতাকে উপেক্ষা করে ২৭ লক্ষ টাকা মূল্যের ইজারাদাতা প্রপেশনাল টাউটকে মহালটি তুলে দিয়ে জেলা প্রশাসন প্রমান করেছে মহামান্য হাইকোর্ট ও সরকারের চাইতে তাদের কাছে সিন্ডিকেট বড়। বঞ্চিত ব্যাবসায়ী এটিএম হায়দার বখত আরো বলেন,তোফাজ্জল হোসেনের কাছ থেকে সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যমূলক বেআইনীভাবে যে ইজারামূল্য গ্রহন করা হয়েছে এবং তার পক্ষে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কর্তৃক ২০০৪ (৪) তারিখ ০১/০৬/২০১৫ ইংরেজির স্মারক মূলে তাহিরপুর উপজেলাধীন ফাজিলপুর বালু মহালের সরজমিন দখল প্রদান করার মর্মে যে আদেশ দেয়া হয়েছে মহামান্য হাইকোর্টের ৮৩৭৪/২০০৯ নং রিট পিটিশন মামলার রায়ের প্রতি শ্রদ্ধা পোষনক্রমে তা প্রত্যাহার বা বাতিল করার জন্য আমি মহামান্য সুপ্রীম কোর্টের মাননীয় প্রধান বিচারপতি, মাননীয় আইনমন্ত্রী,মাননীয় অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান ও এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন সাহেবেরও কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24