বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:১৪ পূর্বাহ্ন

বঙ্গবন্ধু : দুর্দিনে অনন্তকাল এ জাতির পথপ্রদর্শক-অধ্যক্ষ মো. অাব্দুল মতিন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৫ আগস্ট, ২০১৭
  • ৩৬ Time View

বিশ্বাস ঘাতকদের হাতে বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌলার পরাজয় হওয়ার পর এই বাংলা মা যে অকুতোভয় বীর সন্তানের জন্ম দিয়েছিল ; যিনি তাঁর সুদক্ষ নেতৃত্বে বাঙ্গালী জাতিকে পাকিস্তানী শাসন শোষনের বেড়াজাল ছিন্ন করে লাল সবুজের পতাকা সুভিত মানচিত্রের একটি দেশ,বাংলাদেশ উপহার দিয়েছিলেন;তিনি জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ।

একটি স্বাধীন জাতির মুক্তির জন্য ভাষাঅান্দোলন, ছয়দফা অান্দোলন, অাগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা,৬৯ এর গণ অভ্যুত্থান,৭০ এর নির্বাচন,৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ এবং নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ শেষে স্বাধীনতারস্বপ্ন পূরণ ;সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে যিনি অামৃত্যু লড়েছেন;যিনি ৪হাজার ৬৭৫ দিনই শুধু জেল খেটেছেন,নির্যাতন সহ্য করেছেন,সেটা করার মতো জনসমর্থনযোগ্য ক্যারিসম্যাটিক নেতা বিশ্বে বঙ্গববন্ধু ছাড়া অার কেউ নেই। বন্দীদশায় নিজের কবর খুঁড়তে দেখে ও যিনি অবিচল থেকে কোন সন্ধি বা সমযোতায় সম্মত হননি। নিজের তরবারীর নেশায় কিংবা মুক্তির অন্বেশায় তিনি একমুহুর্তের জন্য বাংলার স্বার্থ বিসর্জন দেননি বলে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ তাঁকে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধী দিয়েছিল।
৮ই জানুয়ারিঅান্তর্জাতিক চাপে তাঁকে পাকিস্তান সরকার মুক্তি দেয়। ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হিথের রয়েল জেট বিমানে ঢাকায় পৌছলে তাঁকে অবিস্বরণীয় সম্মাননা প্রধান করা হয়। ১৪ডিসেম্বর বাংলাদেশের প্রথম সংবিধানে বঙ্গবন্ধু স্বাক্ষর করেন এবং ১৬ ডিসেম্বর সংবিধান কার্যকর হয়। তিনি কার্যকর পদক্ষেপ নিয়ে শিক্ষা,শিল্প,অর্থনীতি,অবকাঠামো উন্নয়নে বাংলাদেশকে একটি সমৃদ্ধ রাষ্ট্রে পরিণত করার প্রয়াস
চালান।
১৯৭৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ জাতিসংঘের সদস্যভুক্ত হয় এবং ২৫ সেপ্টেম্বর তিনি জাতিসংঘে প্রথম বাংলায় ভাষণ দেন। ১৯৭৫ সালের ২৫ জানুয়ারীতিনি রাষ্ট্রপতি পদ্ধতির সরকার ব্যবস্থা চালুকরেন রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ২৪ ফেব্রুয়ারি তিনি দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিকদলের সমন্বয়ে জাতীয় দল বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক অাওয়ামীলীগ গঠন করেনএবং ৬জুন তিনি ঐ দলের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। স্বাধীনতার পর নিজের দল অাওয়ামীলীগই বঙ্গবন্ধুর জন্য সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়। এসময় মুজিব বুঝতে পেরেছিলেন ঔপনিবেশিক প্রশাসন নিয়ে তিনি দেশের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারবেননা। ঐসময়ে সৃষ্ট শহুরে অতিরিক্ত সুবিধা ভোগী শহুরেএলিট শ্রেণী এবং সিভিল ও মিলিটারি ব্যুরোক্রাসির স্বার্থসুবিধায় টান পড়লে তারা তাঁকে হত্যা করবে। তাই তিনি সরকার পদ্ধতি পরিবর্তনে অাগ্রহী হন। কিন্তু এই পদ্ধতির সম্পুর্ণ প্রয়োগের অাগেই তাঁকে অাঘাত করে বসে। অাশংকার জয় হয়।
এই অাঘাতে দেশীয় ও অান্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়াশীল দের যোগ সাজস ছিল,ঠিক যেন দ্বিতীয় পলাশী।

অাজ ১৫ ই অাগস্ট, । ইতিহাসের সেই মহানায়কের মহাপ্রয়াণের দিন। ভাবতেই গা শিউরে উঠে। যেদিন কারবালার ঘটনাকে ও হারমানানো পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে নির্মম,নৃশংস,পাশবিক,বিশ্বাস ঘাতকতাপুর্ণ হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছিল।
১৯৭৫ সালের ১৫ই অাগস্ট ভোরে মসজিদে যখন মোয়াজ্জিনের সুমধুর অাযানের ধ্বনি- প্রতিধ্বনি অনুরণিত হচ্ছিল তখন তাঁকে নিজ বাস ভবনে সেনাবাহিনীর কতিপয় উচ্চাবিলাসী বিশ্বাসঘাতক অফিসাররা হাতে হত্যা করে। সাথে তাঁর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা মহিয়সী নারী বেগম ফজিলাতুননেছাসহ ১৬জন জনকেও নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। দেশে সামরিক অাইন জারী করা হয়। কেড়ে নেয়া হয় ভাতও ভেটের অধিকার। ২৬সেপ্টেম্বর,১৯৭৫ সামরিক অধ্যাদেশে বঙ্গ বন্ধুহত্যার বিচার বন্ধ করা হয়খুনিদের পুরস্কৃত জরাহয়! বঙ্গবন্ধু হত্যার পর মানবাধিকার অান্দোলনের অাজীবন সংগ্রামী নেতা Lord Brockway মন্তব্য করেছিলেন,” His(BangaBandhu) assassination was more than a crime against one man,it was a crime against whole nation. ” ঘাতকরা সাময়িক উপকৃত হয়,বীরেরা অনন্তকাল বীরই থাকে।অাজ জীবিত বঙ্গবন্ধুর চেয়ে মৃত বঙ্গবন্ধু অনেক বেশী শক্তিশালী। চিরঞ্জিব বঙ্গবন্ধু তুমি। তুমি দুর্দিনে অনন্তকাল বাঙ্গালি জাতির শক্তি- সাহসের উৎস ও পথ প্রদর্শক ।

লেখক-মো. অাব্দুল মতিন প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ শাহজালাল মহাবিদ্যালয় জগন্নাথপুর,সুনামগঞ্জ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24