শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ১২:১৭ পূর্বাহ্ন

বজ্রপাতে পুড়ল পাটের গুদাম

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৯ মে, ২০১৮
  • ২৭ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::  ঠাকুরগাঁও শহরের সেনুয়া এলাকায় বজ্রপাতে পুড়েছে সুপ্রিয় পাটকলের গুদাম। এতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

আজ বুধবার সকালে এ ঘটনাটি ঘটেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঝড় বৃষ্টির কারণে বৈদ্যুতিক তারের উপর বজ্রপাত হলে পাটের গোডাউনে আগুন লেগে যায়। স্থানীয়রা ঠাকুরগাঁও ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট এসে দুই ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।

সুপ্রিয় জুট মিলের মালিক বাবলু রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সকাল ৭ টার দিকে ঝড়-বৃষ্টির সময় গুদামের বাঁশের বৈদ্যুতিক খুঁটিতে বজ্রপাত হয়। এতে আগুন ধরে পাটসহ অন্যান্য মালামাল পুড়ে যায়। এছাড়াও বাতাসে গোডাউনটি উল্টে যায়।

খবর পেয়ে ঠাকুরগাঁও ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে প্রাথমিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরুপণ করা সম্ভব না হলেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

উল্লেখ্য, বজ্রপাতে মানুষের মৃত্যুর মিছিল বাড়লেও এবারই প্রথম অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। চলতি বছরের মার্চ থেকে মে পর্যন্ত বজ্রপাতের ঘটনায় সারাদেশে মৃতের সংখ্যা এক শ ছাড়িয়েছে। আগামী কয়েকমাস বজ্রপাত অব্যহত থাকলে এ সংখ্যা আরো বাড়বে।

বজ্রপাত বেড়ে যাওয়ার কারণ কী, সেটি নিয়ে বাংলাদেশে বিস্তারিত কোনো গবেষণা নেই। তবে আন্তর্জাতিকভাবে বিভিন্ন গবেষক এর নানা কারণ তুলে ধরেন। কোনো কোনো গবেষক বলেন, তাপমাত্রা এক ডিগ্রি বাড়লে বজ্রপাতের আশঙ্কা ১০ শতাংশ বেড়ে যায়। পৃথিবীর যে কয়েকটি অঞ্চল বজ্রপাতপ্রবণ, তার মধ্যে দক্ষিণ এশিয়া অন্যতম। যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ সংস্থা নাসা ও মেরিল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় উঠে এসেছে, বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি বজ্রপাত হয় সুনামগঞ্জে। হাওরাঞ্চলেই সবচেয়ে বেশি প্রাণহানি ঘটে বজ্রপাতে।

২০১৬ সালে বজ্রপাতে অন্তত সাড়ে তিন শ মানুষ মারা যাওয়ার পর বজ্রপাতকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ হিসেবে চিহ্নিত করে সরকার। এরপর বজ্রপাত রোধে নেওয়া হয় বিশেষ পরিকল্পনা এবং শুরু হয় সতর্কীকরণ কর্মসূচি। কিন্তু তাতে ভাটা পড়েনি মৃত্যুর মিছিলে।

২০১০ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত বজ্রপাতের ক্ষয়ক্ষতি বিশ্লেষণ করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে সুনামগঞ্জ পর্যন্ত বিস্তৃত হাওর এলাকায় এককভাবে বেশি বজ্রপাতপ্রবণ এলাকা। এছাড়া যশোর-সাতক্ষীরা অঞ্চল এবং উত্তরাঞ্চলের চাঁপাইনবাবগঞ্জ, দিনাজপুর ও লালমনিরহাট এলাকাতেও বজ্রপাতে হতাহতের একটা প্রবণতা লক্ষ করা যায়।

ইদানীং প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যে বজ্রপাতেই বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে। এই প্রবণতা ভারত ও নেপালেও ক্রমশ দৃশ্যমান হচ্ছে। দুর্যোগ ও আবহাওয়া পণ্ডিতদের অনেকেই মনে করেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বজ্রপাত হচ্ছে, এটা বলার সময় এখনো আসেনি। তবে তাপমাত্রার সঙ্গে বজ্রঝড়ের সম্পর্ক নিয়ে কোনো বিতর্ক নেই।

বজ্রপাতে মৃতের সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে, তাতে বিষয়টিকে উপেক্ষা করার সুযোগ নেই। ২০১৬ সালে বজ্রপাতকে দুর্যোগের তালিকাভুক্ত করার পর সারা দেশে ব্যাপক হারে তালগাছ লাগানোর কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। প্রাথমিকভাবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় থেকে সারাদেশে ১০ লাখ তালগাছ রোপণ করা হচ্ছে।

আমার সংবাদ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24