সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:৫৭ অপরাহ্ন

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও সাংগঠনিকের নাম ঘোষনা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১০ এপ্রিল, ২০১৬
  • ৩৪ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: কাউন্সিলের ২০ দিন পর নতুন কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির যুগ্ম-মহাসচিব ও সাংগঠনিক সম্পাদকের নাম ঘোষণা করেছে বিএনপি। সাতজন যুগ্ম-মহাসচিব ও নয় সাংগঠনিক সম্পাদকের মধ্যে ১৩ জনই নতুন মুখ। প্রথমবারের মতো সাংগঠনিক সম্পাদক পদে দু’জন মহিলা নেত্রীকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। শনিবার বিকালে নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ নির্বাহী কমিটির নবনির্বাচিত এসব নেতার নাম ঘোষণা করেন।
যুগ্ম-মহাসচিব পদে যে সাতজনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে, তাদের মধ্যে ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন ছাড়া বাকি সবাই নতুন। তারা হলেন- মজিবর রহমান সরোয়ার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবীর খোকন, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, হারুন-অর রশীদ ও লায়ন আসলাম চৌধুরী। সরোয়ার গত কমিটিতে বরিশাল বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। যুবদল সভাপতি আলাল ছিলেন যুববিষয়ক সম্পাদক। ডাকসুর সাবেক জিএস খায়রুল কবির খোকন শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সোহেল ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিবের দায়িত্বেও রয়েছেন। হারুন-অর রশীদ রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। আসলাম চৌধুরী চট্টগ্রাম উত্তর জেলার আহ্বায়ক। বিগত আন্দোলনেও তার ভূমিকা ছিল প্রশংসনীয়।
এছাড়া নতুন কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদকরা হচ্ছেন- ফজলুল হক মিলন (ঢাকা), নজরুল ইসলাম মঞ্জু (খুলনা), অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু (রাজশাহী), আসাদুল হাবিব দুলু (রংপুর), শাহাদাত হোসেন (চট্টগ্রাম), সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স (ময়মনসিংহ), ডা. সাখাওয়াত হোসেন জীবন (সিলেট), বিলকিস জাহান শিরীন (বরিশাল) ও শামা ওবায়েদ (ফরিদপুর)।
এর আগে কাউন্সিলের ১১ দিন পর ৩০ মার্চ মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে মহাসচিব, রুহুল কবির রিজভীকে সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব ও মিজানুর রহমান সিনহাকে কোষাধ্যক্ষ করে তিনজনের নাম ঘোষণা করা হয়েছিল।
জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন যুগান্তরকে জানান, ত্যাগী এবং যোগ্যদের কমিটিতে জায়গা দেয়া হবে বলে চেয়ারপারসন যে ঘোষণা দিয়েছিলেন ঘোষিত কমিটিতে তারই প্রতিফলন ঘটেছে। এতে নেতাকর্মীরাও উজ্জীবিত হবেন বলে আশা করেন তিনি। বিএনপির সাবেক মহাসচিব কেএম ওবায়দুর রহমানের মেয়ে শামার এ পদে আসাটা চমক হিসেবে দেখছেন নেতাকর্মীরা। কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে কয়েক বছর ধরে সক্রিয় তিনি। ১৯ মার্চের কাউন্সিলে সিদ্ধান্ত হয় ইতিমধ্যে যেসব নতুন বিভাগ হয়েছে তা সাংগঠনিক বিভাগ হিসেবে গণ্য করা হবে। এছাড়া নতুন যেসব বিভাগ হবে সেখানে নতুন করে এ পদ সৃষ্টি হবে। ফরিদপুর বিভাগ হওয়ার প্রস্তাব থাকলেও এখনও বিভাগ হয়নি। বিভাগ হওয়ার আগেই সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে শামার নাম ঘোষণা করা হয়েছে। আসাদুল হাবিব দুলু ও ফজলুল হক মিলনকে কোনো পদোন্নতি না দিয়ে সাংগঠনিক সম্পাদক পদেই বহাল রাখা হয়েছে। মিলন আগে ঢাকা বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। কিন্তু বর্তমানে ঢাকা বিভাগ ভেঙে ঢাকা, ফরিদুপর ও ময়মনসিংহ বিভাগ করা হয়েছে। সে হিসেবে মিলনের পদোন্নতি হয়নি।
সাবেক সংসদ সদস্য বিলকিস জাহান শিরীন জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। বরিশাল বিভাগে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে এবিএম মোশাররফ হোসেন ও মাহবুবুল হক নান্নু শক্তিশালী প্রার্থী ছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বিলকিসকেই সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে। এ নিয়ে চরম ক্ষুব্ধ মোশাররফ ও নান্নু সমর্থকরা। নান্নু ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, সাংগঠনিক সম্পাদক রাজনৈতিক পদ। কিন্তু বরিশালের মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি বিভাগে সারাক্ষণ ঢাকায় বসে থাকা একজন মহিলাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তিনি কি কাজ করবেন। তার কথা কে শুনবে। এতে দল সাংগঠনিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।
চট্টগ্রাম বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে শাহাদাত হোসেনকে। তিনি চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক। ওই বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিলেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান শামীম। কাক্সিক্ষত পদ না পেয়ে তিনিও হতাশ। শামীম যুগান্তরকে বলেন, দীর্ঘদিন রাজনীতি করার পরও সুবিধাবাদীদের কারণে দলে অনেকের মূল্যায়ন হচ্ছে না।
আগের সাংগঠনিক সম্পাদকদের মধ্যে মিলন ও দুলুকে এবারও একই পদে রাখা হয়েছে। তারা দু’জনই যুগ্ম-মহাসচিব হওয়ার দৌড়ে লবিং করেছিলেন। আসাদুল হাবিব দুলুকে সংস্কারপন্থী আখ্যা দিয়ে তার বিরুদ্ধে কেন্দ্রে নানা অভিযোগ আনা হয়। পদোন্নতি না দিয়ে শেষ পর্যন্ত তাকে একই পদে রাখা হয়। তবে দলের একটি সূত্র জানায়, রংপুর বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক থেকে দুলুকে সরিয়ে দেয়া হলে ওই পদে বসানোর মতো কোনো যোগ্য নেতা পাওয়া যাবে না। এ বিবেচনায় সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে গতি আনতেই তাকে ওই পদে রাখার সিদ্ধান্ত নেন খালেদা জিয়া। গত কমিটিতে মঞ্জু সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। গত আন্দোলনে তিনি সক্রিয় ছিলেন। পুরস্কার হিসেবে পদোন্নতি পান তিনি। রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু স্বনির্ভরবিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। তিনি যুগ্ম-মহাসচিব প্রার্থী হতে আগ্রহী ছিলেন। যুগ্ম-মহাসচিব হিসেবে তার নাম প্রায় চূড়ান্ত ছিল। কিন্তু দলের এক প্রভাবশালী সিন্ডিকেট এতে বাদ সাধে। দলের চেয়ারপারসনকে নানাভাবে ভুল বুঝিয়ে তার যুগ্ম-মহাসচিব হওয়া আটকে দেয়। শেষে তাকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়। কাক্সিক্ষত পদ না পেয়ে দুলুও কিছুটা মনোক্ষুণ্ণ। তার ঘনিষ্ঠ একজন যুগান্তরকে বলেন, তিনি (দুলু) আক্ষেপ করে বলেছেন, প্রতিদ্বন্দ্বিতা বা যোগ্যতার কারণে পদ না পেলে কোনো দুঃখ ছিল না। কিন্তু দলের কোনো সিন্ডিকেট যদি তার ব্যক্তিগত স্বার্থে যোগ্য ও ত্যাগীদের দূরে ঠেলে দেয় সেটা দুঃখজনক।
আগের কমিটিতে এমরান সালেহ প্রিন্স সহ-প্রচার সম্পাদক ছিলেন। গত নির্বাহী কমিটির পর থেকে দলে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু একটি অংশের বিরোধিতার কারণে পুরোপুরি সক্রিয় হতে পারেননি। ২ বছর ধরে তিনি দলের পক্ষে বেশ সক্রিয়। বিগত পৌর ও চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন। এছাড়া ডা. শাখাওয়াত হোসেন জীবন আগের কমিটিতে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন।
কমিটি ঘোষণার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু, এমরান সালেহ প্রিন্স যুগান্তরের কাছে প্রতিক্রিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেয়ায় দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। নতুন পথচলায় সবার সহযোগিতা কামনা করেন তারা। বিএনপির নীতি-নির্ধারণী সূত্রে জানা গেছে, ভিশন-২০৩০ বাস্তবায়নের লক্ষ্য নিয়ে এগোচ্ছে বিএনপি। এ লক্ষ্যে তরুণ, সাহসী এবং উদ্যমীদের নিয়ে নতুন নির্বাহী কমিটি গঠনে দলটির চেয়ারপারসন যে ঘোষণা দিয়েছিলেন সেটারই বাস্তব রূপ পাচ্ছে। দলটির মহাসচিব থেকে শুরু করে আংশিক নির্বাহী কমিটিতে যোগ্য এবং ত্যাগীরাই স্থান পেয়েছেন। আংশিক কমিটি নিয়ে দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরাও উজ্জীবিত। শনিবার ঘোষিত মুগ্ম-মহাসচিব ও সাংগঠনিক সম্পাদকদের সবাই যোগ্যতা ও ত্যাগের পরীক্ষায় উন্নীত। দল মূল্যায়ন করায় তারাও খুশি। তবে দু-একজন কাঙ্ক্ষিত পদ না পেয়ে কিছুটা মনোক্ষুণ্ণ। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ত্যাগ ও যোগ্যরাই স্থান পাবেন বলে প্রত্যাশা সব স্তরের নেতাকর্মীদের।
দলের দু’জন স্থায়ী কমিটির সদস্য ও খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ঠ এক নেতার সঙ্গে আলোচনা করে জানা গেছে, ভবিষ্যতে তারেক রহমান দলের মূল নেতৃত্ব নেবেন সেই চিন্তা থেকেই কমিটি করা হচ্ছে। দলের কাঠামো এমন ভাবে সাজানো হবে যাতে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের একচ্ছত্র আধিপত্য থাকে। তারেক রহমানের আস্থাভাজনদেরই দেয়া হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ পদ। লন্ডনে অবস্থিত তারেক রহমানের পাঠানো খসড়া ও পরামর্শেই কমিটি করা হচ্ছে। অযোগ্য এবং সুবিধাবাদীরা যাতে দলে ঢুকতে না পারেন সেজন্য কমিটি গঠনে গোপনীয়তার আশ্রয় নেয়া হয়। কোনো নেতা যাতে তদবির করতে না পারেন সেজন্য চেয়ারপারসন সহজে কাউকে দেখা করার সুযোগও দেননি। মুগ্ম-মহাসচিব ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে যারা দায়িত্ব পেয়েছেন তাদের অতীত রাজনৈতিক ইতিহাসও রয়েছে। সফলতার সঙ্গে ছাত্রদল এবং যুবদলের নেতৃত্ব দিয়েছেন তারা। দলের প্রতি কমিটমেন্টের কোনো ঘাটতি নেই। ওই নেতারা জানান, ভবিষ্যতে কেউ যাতে দলের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা করতে না পারে কমিটি করার ক্ষেত্রে এ বিষয়টিও প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। তাই কথিত সংস্কারপন্থীদের গুরুত্বপূর্ণ পদে আনা হয়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24