শনিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২০, ০৬:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়ছে

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৮ আগস্ট, ২০১৫
  • ১২৭ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানির দাম কমলেও দেশে গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছে। বিদ্যুতের দাম গ্রাহক পর্যায়ে গড়ে ২ দশমিক ৯৩ শতাংশ এবং গ্যাসের দাম গড়ে ২৬ দশমিক ২৯ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে।
বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) কার্যালয়ে এ ঘোষণা দেন কমিশনের চেয়ারম্যান এ আর খান। এ মূল্যবৃদ্ধি আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হবে। বর্ধিত মূল্য অনুসারে এক চুলা ও দুই চুলার গ্যাসের মূল্য এক লাফে বেড়েছে ২০০ টাকা করে। দাম বাড়ানোর কারণে এখন থেকে দুই বার্নারের চুলা ব্যবহারকারীকে প্রতি মাসে ৬৫০ টাকা এবং এক বার্নারের জন্য ৬০০ টাকা দিতে হবে, যা আগে ছিল যথাক্রমে ৪৫০ ও ৪০০ টাকা। আর আবাসিকে যেসব গ্রাহক মিটার ব্যবহার করেন তাদের জন্য ইউনিটপ্রতি (ঘনমিটার) গ্যাসের দাম ৫ টাকা ১৬ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৭ টাকা করা হয়েছে। ভোক্তা ছাড়াও বিদ্যুতের পাইকারি মূল্যও বেড়েছে। এক্ষেত্রে সব বিতরণ কোম্পানির জন্য গড়ে দাম বাড়ানো হয়েছে ইউনিটপ্রতি ২৩ পয়সা। একই সঙ্গে সঞ্চালন চার্জ বাড়ানো হয়েছে ৫ পয়সা। এদিকে সংকুচিত প্রাকৃতিক গ্যাসে (সিএনজি) প্রতি ইউনিটে (ঘনমিটার) দাম বেড়েছে ৫ টাকা। আগে এই দাম ছিল প্রতি ইউনিট ৩০ টাকা। এখন বেড়ে হয়েছে ৩৫ টাকা। তবে সিএনজি গ্যাসে ৩৫ টাকা মূল্যের মধ্যে ফিড গ্যাসের মূল্য ২৭ টাকা আর অপারেটরের মার্জিন ধরা হয়েছে ৮ টাকা।
চা বাগানে গ্যাসের দাম ইউনিটপ্রতি বেড়ে ৬ টাকা ৪৫ টাকা করা হয়েছে। আগে ছিল প্রতি ইউনিট ৫ টাকা ৮৬ পয়সা। শিল্প-কারখানায় আগে প্রতি ইউনিট গ্যাসের ব্যয় ছিল ৫ টাকা ৮৬ পয়সা। সেটা বেড়ে ৬টা ৭৪ পয়সা করা হয়েছে। তবে সার কারখানা ও বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ব্যবহৃত গ্যাসের দাম আগের মতোই আছে। যেখানে সার কারখানা ও বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ছিল যথাক্রমে ২ টাকা ৫৮ পয়সা ও ২ টাকা ৮২ পয়সা।
সবচেয়ে বেশি বাড়ানো হয়েছে ক্যাপটিভ পাওয়ার প্লান্টের (জেনারেটর) গ্যাসের দাম। ক্যাপটিভে প্রতি ইউনিট গ্যাসের দাম করা হয়েছে ৮ টাকা ৩৬ পয়সা। আগে ছিল ৪ টাকা ১৮ পয়সা। এক্ষেত্রে দাম বেড়েছে এক লাফে দ্বিগুণ। আর বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত গ্যাসের দাম ইউনিট প্রতি করা হয়েছে ১১ টাকা ৩৬ পয়সা। আগে বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত গ্যাসের দাম ছিল প্রতি ইউনিট ৯ টাকা ৪৭ পয়সা। দাম বেড়েছে ১ টাকা ৮৯ পয়সা।
অপরদিকে বিদ্যুতের মূল্য লাইফ লাইন ক্রেডিটের (নিু আয়ের মানুষদের জন্য) ক্ষেত্রে দাম বাড়েনি। অর্থাৎ যেসব গ্রাহক মাসে ১ ইউনিট থেকে ৫০ ইউনিট পর্যন্ত বিদ্যুৎ ব্যবহার করেন তাদের ক্ষেত্রে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়নি। এক্ষেত্রে আগের মতো এই শ্রেণীর শহরের গ্রাহককে ইউনিটপ্রতি ৩ টাকা ৩৩ পয়সা এবং গ্রামের গ্রাহককে ৩ টাকা ৩৬ পয়সা হারে বিল দিতে হবে।
গ্রাহক পর্যায়ে ১-৭৫ ইউনিটের জন্য নতুন মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩ টাকা ৮০ পয়সা। আগে এই মূল্য ছিল প্রতি ইউনিট ৩ টাকা ৫৩ পয়সা। দাম বেড়েছে ইউনিটপ্রতি ২৭ পয়সা। ৭০ থেকে ২০০ ইউনিটের গ্রাহকদের জন্য বেড়েছে ১৩ পয়সা। আগে এই শ্রেণীর গ্রাহকদের প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের জন্য দাম দিতে হতো ৫ টাকা ১ পয়সা। এখন তা বেড়ে হয়েছে ৫ টাকা ১৪ পয়সা। ২০১-৩০০ ইউনিটের জন্য দাম বাড়িয়ে করা হয়েছে ৫ টাকা ৩৬ পয়সা। আগে এই দাম ছিল ৫ টাকা ১৯ পয়সা। এতে ইউনিটপ্রতি বেড়েছে ১৭ পয়সা। ৩০১-৪০০ ইউনিটের মূল্য আগে ছিল ৫ টাকা ৪২ পয়সা, এখন হয়েছে ৫ টাকা ৬৩ পয়সা। বেড়েছে প্রতি ইউনিটের জন্য ২১ পয়সা। ৪০১-৬০০ ইউনিটের জন্য ৮ টাকা ৫১ পয়সা থেকে বেড়ে ৮ টাকা ৭০ পয়সা করা হয়েছে। এতে দাম বেড়েছে ইউনিটপ্রতি ১৯ পয়সা। ৬০০ ইউনিটের ওপরে ৯ টাকা ৯৩ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৯ টাকা ৯৮ পয়সা করা হয়েছে। এক্ষেত্রে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের জন্য দাম বেড়েছে ৫ পয়সা।
কৃষি কাজে ব্যবহৃত সেচ পাম্পের জন্য শহরে দাম ছিল ইউনিটপ্রতি ২ টাকা ৫১ পয়সা। এখন বেড়ে হয়েছে ৩ টাকা ৮২ পয়সা। দাম বেড়েছে প্রতি ইউনিট ১ টাকা ৩১ পয়সা। অপরদিকে পল্লী বিদ্যুতে বিতরণ কোম্পানিভেদে ৩ টাকা ৩৯-৯৬ পয়সা থেকে বেড়ে ৩ টাকা ৮২ পয়সা করা হয়েছে।
ক্ষুদ্র শিল্পে বিদ্যুতের দাম ফ্ল্যাট রেটে ৭ টাকা ৪২ পয়সা থেকে বেড়ে ৭ টাকা ৬৬ পয়সা করা হয়েছে। অফ পিকে এই হার ৬ টাকা ৬৪ পয়সা থেকে বেড়ে হয়েছে ৬ টাকা ৯০ পয়সা। আর পিক আওয়ারে ৯ থেকে বেড়ে হয়েছে ৯ টাকা ২৪ পয়সা। অনাবাসিক বাতি ও বিদ্যুতে (দাতব্য, মসজিদ, মন্দির, ক্লাব ইত্যাদি) ৪ টাকা ৯৮ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৫ টাকা ২২ পয়সা করা হয়েছে। দাম বেড়েছে প্রতি ইউনিট ২৪ পয়সা। রাস্তার বাতির জন্য ৬ টাকা ৯৩ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৭ টাকা ১৭ পয়সা করা হয়েছে।
বাণিজ্যিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে বিদ্যুতে দাম ফ্ল্যাট রেটে ইউনিটপ্রতি ৯ টাকা ৫৮ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৯ টাকা ৮০ পয়সা করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে ২২ পয়সা। অফ পিকে এই রেট আগে ছিল ৮ টাকা ১৬ পয়সা। এখন বাড়িয়ে করা হয়েছে ৮ টাকা ৪৫ পয়সা। আর পিক আওয়ারে আগে ছিল ১১ টাকা ৮৫ পয়সা। এখন বাড়িয়ে করা হয়েছে ১১ টাকা ৮৫ পয়সা (আরইবি) ১১ টাকা ৯৮ পয়সা (ডিপিডিসি, ডেসকো ও ওজোপাডিকো)।
বৃহৎ শিল্প : ১১ কিলোভোল্টের (কেভি) ক্ষেত্রে ফ্ল্যাট রেটে দাম ৭ টাকা ৩২ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৭ টাকা ৫৭ পয়সা করা হয়েছে। এক্ষেত্রে অফ পিকে ৬ টাকা ৬২ পয়সা থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ৬ টাকা ৮৮ পয়সা। আর পিক আওয়ারে ৯ টাকা ৩৩ পয়সা থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ৯ টাকা ৫৭ পয়সা। ১৩২ কিলোভোল্টের (কেভি) ফ্ল্যাট রেটে ৬ টাকা ৯৬ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৭ টাকা ৩৫ পয়সা করা হয়েছে। অফ পিক আওয়ারে ৬ টাকা ৩৫ পয়সা থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ৬ টাকা ৭৪ পয়সা। পিক আওয়ারে ৯ টাকা ১৯ পয়সা থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ৯ টাকা ৪৭ পয়সা। ২৩০ কিলোভোল্টের ক্ষেত্রে ফ্ল্যাট রেটে করা হয়েছে ৭ টাকা ২৫ পয়সা। অফ পিক আওয়ারের ৬ টাকা ৬৬ পয়সা আর পিক আওয়ারের ৯ টাকা ৪০ পয়সা করা হয়েছে। ৩৩ কিলোভোল্টের জন্য ফ্ল্যাট রেটে ৭ টাকা ২০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৭ টাকা ৪৯ পয়সা করা হয়েছে। অফ পিক আওয়ারে এই রেট ৬ টাকা ৫৫ পয়সা থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ৬ টাকা ৮২ পয়সা। আর পিক আওয়ারে ৯ টাকা ২৮ পয়সা থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ৯ টাকা ৫২ পয়সা। বর্তমানে গ্রাহক পর্যায়ে বিভিন্ন বিতরণ কোম্পানির জন্য বিভিন্ন মূল্য হার ছিল। তবে এবার সবার জন্য একই হার নির্ধারণ করা হয়েছে।
গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর কোনো যৌক্তিক কারণ উল্লেখ করতে পারেননি বিইআরসি চেয়ারম্যান। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়লেও তাতে সাধারণ মানুষের কোনো সমস্যা হবে না বলে মনে করছেন বিইআরসি চেয়ারম্যান এ আর খান। তার মতে, যেহেতু মানুষের আয় বেড়েছে, কিছুদিনের মধ্যে পে-স্কেল ঘোষণা করা হবে তাই এ মূল্যবৃদ্ধি কোনো সমস্যা তৈরি করবে না। তিনি উল্টো বলেন, ভোক্তাদের স্বার্থ সংরক্ষণ করার জন্যই গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়ছে। অস্ট্রেলিয়ার উদাহরণ টেনে বিইআরসির চেয়ারম্যান বলেন, সেদেশে মাথাপিছু আয়ের ১০ শতাংশ টাকা গ্যাস-বিদ্যুৎ খাতে ব্যয় করা হয়। তার মতে, বাংলাদেশেও যেটুকু বাড়ানো হয়েছে তা কোনোভাবেই অযৌক্তিক হয়নি। চেয়ারম্যান বলেন, ফেব্র“য়ারি মাসে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়ানোর ওপর গণশুনানি হওয়ার পর থেকে প্রত্যেক জিনিসের দাম বেড়ে গেছে। কিন্তু সে হিসেবে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়েনি।
সাংবাদিকরা এ আর খানের কাছে প্রশ্ন রাখেন- দাম বাড়ানোর কারণে সাধারণ মানুষের সমস্যা হবে কিনা? জবাবে চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমরা অনেক চিন্তাভাবনা করে যতটুকু না বাড়ালে নয় ততটুকুই দাম বাড়িয়েছি। ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতা বেড়েছে। আমরা অনেক বিবেচনা করে দেখেছি তারা অ্যাফোর্ড করতে পারবে। মানুষের আয় বেড়েছে, বাড়তি চাপ পড়বে না।’ – See more at: http://www.jugantor.com/first-page/2015/08/28/314796#sthash.VtcuXeju.dpuf

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24