বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

বিশ্বনাথে ‘ডাকাত’কে মারধরের অভিযোগে মামলা, অতঃপর হামলায় আহত ১০

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৫৩ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::

ডাকাতি-চুরির ঘটনার একাধিক মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামী ‘হারিছ আলী’কে থানা পুলিশে সোপর্দ ও মামলা দায়ের করার জের ধরে সিলেটের বিশ্বনাথে জনসম্মুখে অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বাদী পক্ষের দুই বৃদ্ধ সহোদরের উপর হামলা করার অভিযোগ করেছে আসামী পক্ষের লোকজন।

হারিছ আলীর বিরুদ্ধে বিশ্বনাথ থানায় ২০১৬ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারী দায়ের করা ডাকাতি মামলা নং ২৯ ও ২০১৪ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর দায়ের করা সিএনজি চুরির মামলা নং ১৩। উভয় মামলাই হারিছের বিরুদ্ধে চার্জশিট প্রদান করা হয়েছে।

রোববার জেল থেকে মুক্তি পাওয়া হারিছ আলী উপজেলার ছত্রিশ গ্রামের মৃত ছৈইদ উল্লার পুত্র। জেল থেকে মুক্তি পেয়েই মঙ্গলবার রাতে হারিছের পক্ষ নিয়ে ছত্রিশ গ্রামবাসী হাবড়া বাজারে আসা পার্শ্ববর্তি হাবড়া (রমজানপুর) গ্রামের গৌছ মিয়া (৬০) ও নূর উল্লাহ (৫৮)’র উপর ধারালো অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে হামলা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গুরুতর আহত অবস্থায় এলাকাবাসী আহত দুই ভাইকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এদিকে নিজেদের লোকজনের উপর প্রতিপক্ষ কর্তৃক হামলা করার খবর পেয়ে হাবড়া গ্রামবাসী বাজারের দিকে এগিয়ে আসতে থাকলে পথিমধ্যে উভয় পক্ষের লোকজনের মধ্যে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ শুরু হয়। এতে ছত্রিশ গ্রামের আজফুন নেছা, আয়শা বেগম’সহ কমপক্ষে ৮ জন আহত হয়েছেন। এরপর থানা পুলিশ, জনপ্রতিনিধি ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে। এঘটনায় এলাকায় চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে ও আবারও ছত্রিশ গ্রামবাসী হাবড়া গ্রামবাসীর উপর হামলা করতে পারেন এমন আশংঙ্কায় বুধবার বাজারের ব্যবসায়ীরা নিজেদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলেননি বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) গভীর রাতে উপজেলার চরচন্ডী গ্রামের মৃত আফতার আলীর পুত্র আল-আমিন সদ্য কাটা ধান পাহাড়া দেওয়ার সময় এলাকাবাসীর সহযোগীতায় চোর সন্দেহে ছত্রিশ গ্রামের মৃত ছৈইদ উল্লাহর পুত্র হারিছ আলীকে আটক করে। হারিছকে আটকের পর তাৎক্ষণিক সেখানে বিশ্বনাথ থানা পুলিশের একটি দল উপস্থিত হলে হাবড়া-চরচন্ডী গ্রামবাসী হারিছকে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেন। থানায় আসার পথিমধ্যে পুলিশকে ফাঁকি দিয়ে হারিছ পালিয়ে যায় কিংবা পুলিশ হারিছকে ছেড়ে দেয়। এনিয়ে এলাকায় উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এরপর যে কোন ভাবেই পুলিশ শুক্রবার আবার হারিছকে আটক করতে সক্ষম হয়।

উভয় পক্ষের মধ্যে বিরাজমান বিরোধ আপোষ-মিমাংশায় নিষ্পত্তি করার জন্য শুক্রবার সন্ধ্যায় থানাতে পুলিশের উদ্যোগে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বার ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় থানা পুলিশ ‘হারিছ আলী’কে মারধর করার অভিযোগে তার ভাই একলাছ মিয়া বাদী হয়ে ৮ জনকে অভিযুক্ত করে দায়ের করার মামলায় (নং ২, তাং ১/১২/১৭ইং) সেই সালিশ-বৈঠকে উপস্থিত হওয়া ‘হাবড়া গ্রামের মৃত হারিছ আলীর পুত্র বাবুল মিয়া, মৃত ওয়ারিছ আলীর পুত্র ইসলাম উদ্দিন ও চরচন্ডী গ্রামের মৃত আফতার আলীর পুত্র আল-আমিন’কে গ্রেপ্তার করে। অন্যদিকে আল-আমিনের দায়ের করা আরেকটি মামলায় (নং ১, তাং ১/১২/১৭ইং) হারিছ আলীকেও গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
হারিছকে পুলিশে সোপর্দ করা ও তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের জের ধরেই মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) রাতে হাবড়া গ্রামের ‘গৌছ মিয়া ও নূর উল্লাহ’ নামের দুই ভাই পুরাতন হাবড়া বাজারে গেলে হারিছ আলীর পক্ষ নিয়ে ছত্রিশ গ্রামের লোকজন তাদের উপর হামলা করে। মসজিদে মাইকিং করে হাবড়া গ্রামবাসীর উপর হামলা করার প্রস্তুতি নেয় ছত্রিশ গ্রামবাসী। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হওয়া বড় ধরণের অনাকাঙ্খিত ঘটনা সংগঠিত হয়নি।

এব্যাপারে আহত নূর উদ্দিনের ভাতিজা আশরাফ উদ্দিন বলেন, হারিছ চুরি করতে এসে হাতে নাতে ধরা পড়লে এলাকাবাসী তাকে (হারিছ) বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে পুলিশে দেন। পর দিন শুক্রবার আমাদের পক্ষের লোকজন থানায় আপোষ-মিমাংশার সভায় গেলে সেই সভা থেকে আমাদের পক্ষের ৩ জনকে হারিছের ভাইয়ের দায়ের করা একটি মামলায় গ্রেপ্তার করে থানা পুলিশ। চুর ধরে দিয়েও আমাদেরকে আসামী হতে হয়। এরপর আজ (মঙ্গলবার রাতে) আমার চাচারা বাজারে হারিছ-একলাছ গংরা ধারালো সস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে তার উপর হামলা করে। এতে তারা গূরুত্বরও আহত হয়েছেন।

হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে একলাছ আলী বলেন, আমার ভাইকে মিথ্যা অভিযোগে মারধর করায় থানায় মামলা দায়ের করি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আজ (মঙ্গলবার রাতে) ‘আমি ও আমার ভাই’ বাড়িতে না থাকায় আমাদের বাড়িতে হামলা করেছে। এসময় মসজিদে মাইকিং করা হলে গ্রামবাসী এগিয়ে আসতে দেখে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

পরিস্থিত শান্ত রয়েছে ও হামলার ঘটনায় অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা বলে দাবি করে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, হারিছ আলীর বিরুদ্ধে যেমন মামলা দায়ের করা হয়েছে, তেমনি তাকে (হারিছ) মারধর করার অভিযোগেও মামলা দায়ের করা হয়েছে। কেউ আইন নিজের হাতে নিতে পারেন না, আইনের জন্য পুলিশ আছে। বৃহস্পতিবার রাত থেকেই হারিছকে পুলিশের হেফাজতে ছিল। তাকে ছাড়া হয়নি কিংবা বা সে পালিয়ে যায়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24