শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০২:১১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১ জেলা আ.লীগের গণমিছিল ৫ বছরেও শেষ হয়নি জগন্নাথপুরের ভবেরবাজার-গোয়ালাবাজার সড়কের কাজ,দুর্ভোগ লাখো মানুষের “জুম্মু কাশ্মীরে,গণতহ্যা শুরু করেছে মোদী সরকার”

বিশ্ব শান্তি কামনায় সম্পন্ন প্রথম পর্বের ইজতেমা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ১৬৬ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
সারাবিশ্বের সকল মুসলিম উম্মাহর শান্তি, ঐক্য সমৃদ্বি, কল্যাণ, ভ্রাতিত্ববোধ, ইহকাল, পরকাল, মুক্তি, হেদায়েত, রহমত, মাগফেরাত, নাজাত, দেশ ও জাতির কল্যাণ ও মানবতার শান্তি কামনা করে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে সম্পন্ন হয়েছে রাজধানীর অদূরে টঙ্গী তুরাগ নদীর তীরে অনুষ্টিতব্য ৫৪তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। আগামীকাল রোববার বাদ ফজর দ্বিতীয় পর্ব শুরু হয়ে সোমবার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের বিশ্ব ইজতেমা। শনিবার (১৬ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে মোনাজাত শুরু হয়। ভারতের মাওলানা সাদ কয়েক বছর ধরে ইজতেমায় আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করলেও এবার তাঁর পরিবর্তে বাংলাদেশের কাকরাইল মসজিদের ইমাম হজরত ওমালানা জোবায়ের হাসান আখেরি মোনাজাত করেন। মোনাজাতে অংশ নেন দেশি-বিদেশি লাখো মুসল্লি। প্রায় আধা ঘণ্ট ধরে চলা আখেরি মোনাজাতের সময় আমিন আমিন ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে তুরাগের দুই পাড়। মোনাজাতে অংশ নেন সকল বয়সের নারী-পুরুষ। এসময় দুই হাত তুলে অনেকে কান্নায় ভেঙে পড়েন। ইজতেমায় গভীর আবেগপূর্ণ আখেরি মোনাজাতে গোটা দুনিয়ায় পথভ্রষ্ট মুসলমানের সঠিক পথের দিশা এবং তাবলিগের কাজে সবাইকে নিয়োজিত হওয়ার তওফিক কামনা করে মহান আল্লাহ রহমত, মাগফিরাত ও নাজাত প্রার্থনা করা হয়। ইহলৌকিক ও পারলৌকিক কল্যাণ কামনায় দেশ বিদেশের লাখ লাখ মুসল্লি আল্লাহর দরবারে কান্নাকাটি করেন। মহামহিম ও দয়াময় আল্লাহ’র সন্তুষ্টি লাভে আকুতি ব্যক্ত করেন। ধনী-গরিব, মালিক-শ্রমিক নির্বিশেষে সর্বস্তরের লাখ লাখ মুসল্লি সবকিছু ভুলে দু’হাত তোলে আল্লাহর দরবারে ফরিয়াদ করেন। টঙ্গী তুরাগ পাড়ে আখেরী মোনাজাত চলাকালে লাখো লাখো ধর্মপ্রাণ মুসল্লির কন্ঠে আওয়াজ উঠে ” হে আল্লাহ,ইয়া আল্লাহু আমিন আমিন” সুম্মা আমিন ধবনিতে মুখরিত হয়ে উঠে টঙ্গী তুরাগ নদীর আকাশ বাতাস ও তুরাগ পাড়। আখেরি মোনাজাতে গোটা দুনিয়ার মুসলমানদের পাপের ক্ষমা, সঠিত ও সত্য পথের আলোর দিশারী হয়ে তাবলিগ তথা ইসলামের দ্বীনের দাওয়াতের কাজে নিজেকে নিয়োজিত হওয়ার তওফিক কামনা করে মহান আল্লাহতায়ার নিকট বিনম্র সূরে প্রার্থনা করা হয়।

এসময় পুরো ইজতেমা ময়দান সহ তার চারপাশ এলাকা জুড়ে লাখো লাখো মানুষ চোখের দু’ নয়নের জ্বল ফেলে কেঁদে কেঁদে আল্লাহর সস্তুষ্টি লাভের আশায় আকুতি ব্যস্ত করে সর্বস্তরের মুসল্লিরা। আত্মশুদ্বি ও নিজ নিজ গুনাহ মাফের পাশাপাশি দুনিয়ার সকল বালা মুসিবত থেকে হেফাজতোর আশায় মুসল্লিরা দু’হাত তুলে অস্ত্রসিক্ত চোখের পানি ফেলে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের দরবারের ফরিয়াদ করেন বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে অংশ নেয়া দেশী বিদেশী সকল মুসলামান ও ইজতেমায় আগত লাখো লাখো মুসল্লি। এর আগে দেশের দূর দূরাস্ত থেকে ছুঁটে আসা হাজার হাজার মুসল্লি ও নারী-পুরুষ টঙ্গীতে আসতে থাকে। নানা বয়সী ও নানা পেশায় মানুষ এমনকি প্রায় ২ লাখ নারী ও ভিড় ঠেলে রাস্তার পাশে ও বাড়ির সামনে ও ছাদ সহ বিভিন্ন স্থানে খবরের কাগজ, সিমেন্ডের বস্তা, পলিথিন ও চাদও বিছিয়ে বসে পড়েন। বসে মোনাজাত করেন। মাঠের মধ্যে জায়গা না পেয়ে এসব মুসল্লি ও সাধারণ মানুষ ইজতেমা মাঠের চারপাশে রাস্তা, অলি, তুরাগ নদীর ওপর নৌকা, গাড়ির ছাদে, গলি ও আশুলিয়া বন্যা নিয়ন্ত্রন মাঠ ও টঙ্গী, উত্তরা, তুরাগের বাড়ির ছাদে ও শিল্প কলকারখানা ছাদে বসে অবস্থান নেয় এবং তারা সেখানে বসে আখেরি মোনাজাতে শরীক হতে দেখা যায়। ইজতেমার আয়োজকদের সূত্রে জানা গেছে, তুরাগ তীরে একটানা ৪দিনব্যাপী ৫৪তম ইজতেমায় দু’টি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) আখেরি মোনাজাতসহ প্রথম দু’দিন ইজতেমা পরিচালনা করেন মাওলানা জোবায়ের অনুসারীরা। পরের দু’দিন সাদ অনুসারীরা ইজতেমা পরিচালনা করবেন। সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের ৫৪তম বিশ্ব ইজতেমার আনুষ্ঠানিকতা।

যেভাবে বাংলাদেশে স্থায়ী হলো মুসলমানদের অন্যতম বড় এই জমায়েত
বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার ঠিক লাগোয়া উত্তর দিকে টঙ্গীতে তুরাগ নদীর তীরে প্রতি বছর তাবলীগ জামাতের বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয় শীতের সময়টায়।সাধারণত ডিসেম্বরের কিংবা জানুয়ারি মাসে এই জমায়েত বাংলাদেশে হয়ে আসছে ৫০ বছরের বেশি সময় ধরে – লক্ষ লক্ষ মানুষ এতে অংশ নেন, যাদের মধ্যে বিদেশীদের সংখ্যা উল্লেখ করার মতো। সবচেয়ে বড় ধর্মীয় জমায়েত হজের পর এই বিশ্ব ইজতেমাকে বলা হয় মুসলমানদের দ্বিতীয় বড় জমায়েত। এর গোড়াপত্তন হয় ভারতে, কিন্তু পরবর্তী সময়ে এটা অর্ধ শতকের বেশী সময় ধরে বাংলাদেশে হয়ে আসছে। বাংলাপিডিয়ায় দেয়া তথ্য বলছে, “১৯২৬ সালে হযরত মাওলানা ইলিয়াস (রহঃ) ভারতের উত্তর প্রদেশের মেওয়াত এলাকায় তাবলীগী আন্দোলনের গোড়াপত্তন করেন এবং একই সঙ্গে এলাকাভিত্তিক সম্মিলন বা ইজতেমার আয়োজন করেন। কালক্রমে তাবলীগ সমগ্র উপমহাদেশে বিস্তার লাভ করে এবং উপমহাদেশের বাইরেও এর প্রভাব পড়ে। “১৯৪৭ সালে ভারত বিভাগের সূত্র ধরে উপমহাদেশের ভারত, পশ্চিম পাকিস্তান ও পূর্ব পাকিস্তান – এ তিনটি অঞ্চলে মুসলমানদের অবস্থান সাপেক্ষে তাবলীগের তিনটি কেন্দ্র স্থাপিত হয়”। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষক এবং লেখক এ কে এম খাদেমুল হক বিবিসি বাংলাকে বলেন, “১৯২০ সালের দিকে যখন এটি শুরু হয়েছিল তখন এটা একটা আন্দোলন হিসেবে শুরু হয়েছিল ভারতে।” তিনি বলেন, “একটা বিশেষ পরিস্থিতিতে এটা শুরু হয়েছিল। তখন হিন্দুদের মধ্যে একটা সংস্কার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। হিন্দু ধর্ম থেকে যারা অন্য ধর্মে চলে যাচ্ছিল তাদেরকে আবারো হিন্দু ধর্মে ফিরিয়ে নেয়ার একটা চেষ্টা ভারতবর্ষে বিভিন্ন প্রদেশে শুরু হয়। “এটা একটা প্রক্রিয়া যেটাকে আন্দোলন বলা যায়। তখন মুসলমানদের সংখ্যা কমে যাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল। তখন দেওবন্দ কেন্দ্রীক মুসলমানেরা চিন্তা করলেন মুসলমানদের ইসলাম সম্পর্কে আরো সচেতন করে তুলতে হবে। এটাকে আন্দোলন বলা হয় এই অর্থে যখন একটা গোষ্ঠী অনেক লোক নিয়ে একটা নির্দিষ্ট উদ্দেশ্য নিয়ে সংগঠিত করে তখন সেটা আন্দোলনের রূপ নেয়”। খাদেমুল হক বলেন, যখন এই আন্দোলন শুরু হয়েছিল তখন ব্রিটিশরা ভারতবর্ষ শাসন করছে। তাবলীগ জামাত কখনোই নিজেদেরকে ব্রিটিশ বিরোধী হিসেবে প্রচার করতে চায়নি।

ইজতেমার বাংলাদেশ পর্ব শুরু যেভাবে
বাংলাদেশে এর সূত্রপাত হয় চট্টগ্রামকে কেন্দ্র করে ১৯৪০-এর দশকের শেষের দিকে। চট্টগ্রামের সমুদ্রবন্দর দিয়ে হজে যাওয়ার জন্য মানুষ সেখানকার হজ ক্যাম্পে জড়ো হতেন, আর সেখান থেকেই শুরু হয়েছিল আঞ্চলিক ইজতেমার প্রক্রিয়াটা। বাংলাদেশে প্রথম তাবলীগের জামাত নিয়ে আসেন তাবলীগ আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ ইলিয়াসের ছেলে মোহাম্মদ ইউসুফ। ভারতের বাইরে বিভিন্ন দেশে ইসলাম প্রচারের কাজ করছিলেন মোহাম্মদ ইউসুফ। ভারত এবং পাকিস্তান দুটি আলাদা দেশ হওয়ার পর মোহাম্মদ ইউসুফ দুই দেশেই জামাত পাঠানো শুরু করলেন ইজতেমা আয়োজনের জন্য। তবে তখন ছোট আকারে ইজতেমা হত।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্ট্যাডিজ বিভাগের শিক্ষক এবং গবেষক ড. আব্দুর রশিদ বলেন, “১৯৪৬ সালে বাংলাদেশে ঢাকার রমনা পার্কের কাছে কাকরাইল মসজিদ – যেটা সে সময় মালওয়ালি মসজিদ নামে পরিচিত ছিল – সেখানে এই সম্মেলনটা হয়। এরপরে হয়েছে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে”।বাংলাদেশ যখন পূর্ব পাকিস্তান হিসেবে পরিচিত ছিল, তখন ১৯৬৫ সালে ঢাকার কাকরাইল মসজিদে একটি জামাত আসে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন মো. খান শাহাবুদ্দিন নাফিস। তখনকার সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র খান শাহাবুদ্দিন নাফিস বর্তমানে তাবলীগ জামাতের শুরা কমিটির একজন উপদেষ্টা।এখন যেভাবে বিদেশ থেকে প্রচুর মুসলমান ইজতেমায় অংশ নেন, সেই সময়ে অবশ্য অন্যান্য দেশ থেকে লোবজন আসেনি বলে জানান খান শাহাবুদ্দিন নাফিস। “ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা ছিল, আর ছিল গ্রামের মানুষ”।ঢাকার পর মোহাম্মদ ইউসুফ বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সফর করেন।খান শাহাবুদ্দিন নাফিস বলেন, তাবলীগের জমায়েতে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা বাড়তে থাকার কারণে এর পরের বছর অর্থাৎ ১৯৬৬ সালে ইজতেমা হয় টঙ্গীর মনসুর জুট মিলের কাছে। এর পরের বছর ঠিক করা হয় ইজতেমা হবে টঙ্গীর তুরাগ নদের কাছে। আরো পরে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবর রহমান টঙ্গীতেই ১৬০ একর জমি নির্ধারণ করে দেন ইজতেমার জন্য, জানাচ্ছিলেন খান শাহাবুদ্দিন নাফিস।

বিশ্ব ইজতেমা নাম কীভাবে হল?
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্ট্যাডিজ বিভাগের শিক্ষক এবং গবেষক ড. আব্দুর রশিদ বলছিলেন, ‘বিশ্ব ইজতেমা’ তাবলীগের দেয়া নাম নয়, বরং তাবলীগের লোকজন এটাকে বার্ষিক সম্মেলন বলতেন।খান শাহাবুদ্দিন নাফিস জানান, তাবলীগ জামাতের পক্ষ থেকে বিদেশীদের পাঠানো শুরু হয় এক সময়। “যখন বিদেশ থেকে লোক আসা শুরু করলো, তখন গ্রামের লোক এটাকে বিশ্ব ইজতেমা বলা শুরু করলো। শুরার একজন প্রবীণ ব্যক্তি বললেন জনগণের চাহিদার উপর আল্লাহতায়ালা বিশ্ব ইজতেমা করে দিয়েছেন”। ‘বিশ্ব ইজতেমা’ নাম নিয়ে তাবলীগ জামাতের মধ্যেই শুরুতে বিতর্ক ছিল। তবে সময়ের সাথে সাথে বিশ্ব ইজতেমা নামটি প্রচলিত হয়ে যায়।

কেন বাংলাদেশ বিশ্ব ইজতেমার স্থান হিসেবে নির্ধারিত হল?
ইজতেমার ধারণা শুরু হয়েছিল ভারতে। ভারত ভাগের পর পূর্ব পাকিস্তানে ইজতেমা হতো। কিন্তু বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর এটি ভারত, পাকিস্তান বা অন্য কোন দেশে না হয়ে বাংলাদেশেই স্থায়ী হয়েছে।খান শাহাবুদ্দিন নাফিস বলছিলেন, “এর একটা কারণ ছিল সে সময়ে বাংলাদেশের ভিসা পাওয়া সহজ ছিল। ইজতেমার নামে কেউ ভিসা আবেদন করলে কেউ ফেরত যেত না। এটা সরকারের একটা ভালো পলিসি ছিল”।তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি সরকার এই ইজতেমাকে সমর্থন করেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতির শিক্ষক এবং লেখক একেএম খাদেমুল হক বলেন যে দুটো কারণে বিশ্ব ইজতেমার স্থায়ী ঠিকানা বাংলাদেশে হয়েছে।”একটি বিশ্ব রাজনীতির মেরুকরণ। আরেকটি তাবলীগ জামাতের যে আন্দোলন সেটা পুরো দক্ষিণ এশিয়া-কেন্দ্রীক। যদিও ভারতে এর শুরু কিন্তু ভারতে মুসলিম-প্রধান দেশ না হওয়ার কারণে অনেক দেশের মুসলিমরা সেদেশে যেতে কমফোর্ট ফিল করেননি। আবার পাকিস্তানকে নিয়ে ভূরাজনৈতিক প্রেক্ষাপট আছে।”মি. হক আরও বলেন, তাবলীগের জমায়েত বাংলাদেশে শুরু থেকে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা যতটা পেয়েছে ততটা ভারত বা অন্য কোথাও পায়নি। এছাড়া সবচেয়ে কম খরচে মানুষ বাংলাদেশে আসতে পারতো।গবেষকরা বলছেন, বাংলাদেশে বিশ্ব ইজতেমা হওয়ার পিছনে কিছু রাজনৈতিক কারণও ছিল।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. আব্দুর রশিদ বলেন, ভারতের কিছু স্থানে তখনো মুসলমানদের মধ্যে শিয়া-সুন্নি মতবিরোধ ছিল। সে তুলনায় বাংলাদেশে মুসলমানদের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান ছিল, যাকে একটা নিরাপদ পরিবেশ বলে মনে করেছিলেন তারা।তবে তিনি এও বলেন যে তাবলীগের এক সম্মেলনে ইজতেমার স্থান হিসেবে লটারির মাধ্যমে বাংলাদেশের উঠে আসে বলে অনেকে উল্লেখ করেন। অবশ্য এই তথ্য নিরপেক্ষভাবে যাচাই করা সম্ভব হয়নি বলে তিনি জানান। ভারত এবং পাকিস্তান – এই দুটি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ তুলনামূলক নিরপেক্ষ একটা স্থান ছিল।কারণ হিসেবে বলা হয়, রাজনৈতিক কারণে তখন ভারতের নাগরিকরা যেমন সহজে পাকিস্তানে যেতে পারতেন না, তেমনি পাকিস্তানের নাগরিকদের জন্য ভারতে পাওয়া ছিল কঠিন একটি বিষয়। ফলে বাংলাদেশই ছিল ওই দেশ যেখানে সহজে সবাই আসা-যাওয়া করতে পারতেন বলে গবেষকরা মনে করেন।তবে তাবলীগের ইজতেমা যে বিশ্বের অন্য কোথাও হচ্ছে না তা নয়। পাকিস্তানের রাইবেন্ড এবং ভারতের ভোপালে বড় আকারে ইজতেমা হয় বাংলাদেশের বিশ্ব ইজতেমার ঠিক আগে ও পরে। তবে যে সংখ্যায় বিদেশীরা বাংলাদেশের ইজতেমায় আসেন, তাতে করে তুরাগ তীরের ইজতেমাই ‘বিশ্ব ইজতেমা’ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়ে গেছে।
সৌজন্যে- আমার সংবাদ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24