রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ৫ বছর পর কাল কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন: বিতর্কিত নেতৃত্ব চান না নেতাকর্মীরা তুরস্ক থেকে এসেছে দুই হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ রাজধানীতে দুই বাসে আগুন সৌদিতে জগন্নাথপুরের কিশোরীকে আটককে রেখে অমানবিক নির্যাতন চলছে, মেয়েকে ফিরে পেতে মায়ের আহাজারি জগন্নাথপুরে আমনের বাম্পার ফলন হলেও, ন্যায্য দাম নিয়ে সংশয়ে কৃষকরা জগন্নাথপুরে আনন্দ হত্যাকাণ্ডের রহস্য অজানা, নেই গ্রেফতার

বৃটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী তেরেসার অধ্যায়ের সুচনা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৪ জুলাই, ২০১৬
  • ২৮ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: সবাইকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে উন্নততর এক বৃটেন গড়ার প্রত্যয় ঘোষণা করলেন বৃটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে। আনুষ্ঠানিকভাবে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়ে তিনি পূর্বসুরি ডেভিড ক্যামেরনের ভূয়সী প্রশংসা করলেন। বাকিংহাম রাজপ্রাসাদ থেকে প্রধানমন্ত্রিত্ব নিশ্চিত হয়ে তিনি ফিরে যান ১০ ডাউনিং স্ট্রিটে। সেখানে আগে থেকেই অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের সামনে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে প্রথম বক্তব্য রাখেন। এ সময় তিনি ডেভিড ক্যামেরনকে আধুনিক মানের একজন নেতা হিসেবে আখ্যায়িত করেন। সংক্ষিপ্ত এ বক্তব্যের সময় তেরেসা মে’কে বেশ স্মার্ট, হাস্যজ্বল দেখায়। বক্তব্য শেষ করে তিনি স্বামী ফিলিপ জন মে’কে নিয়ে ছবি তোলার জন্য পোজ দেন। মুহূর্তেই শত ক্যামেরার ফ্লাশ জ্বলে ওঠে। তারপর প্রবেশ করেন প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত ১০ ডাউনিং স্ট্রিটের ভিতরে। সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ হয়ে যায়। এভাবেই গতকাল বৃটেনের ইতিহাসে দ্বিতীয় কোন নারী প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় আরোহণ করলেন। দিনটি ছিল উত্তেজনায় ঠাসা। দিনভর আলোচনা। বিকেল ঘনিয়ে আসতেই ১০ ডাউনিং স্ট্রিটের সামনে বিশ্বের নামকরা সব সাংবাদিকের ভিড়। তারা অপেক্ষা করছিলেন কখন বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন বেরিয়ে আসেন। অবশেষে স্থানীয় সময় বিকাল ৪টা ৪৭ মিনিটে তিনি স্ত্রী সামান্থা ক্যামেরন ও তিন সন্তানকে নিয়ে বেরিয়ে আসেন। স্ত্রী সন্তানদের পাশে রেখে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেষবারের মতো বক্তব্য রাখেন। মুখে হাসি থাকলেও বুকে তার এক চাপা কষ্ট। সেই অবস্থায়ই তিনি বললেন, তার জীবনের সবচেয়ে বড় পাওয়া প্রধানমন্ত্রিত্ব। এর মাধ্যমে তিনি মানুষের সেবা করতে পেরে গর্বিত। বক্তব্য শেষ করে তিনি সোজা চলে যান তার জন্য অপেক্ষমাণ গাড়িতে। ভিতরে প্রবেশ করার আগে পিছন ফিরে স্টাফ, অন্যদের উদ্দেশে হাত নাড়েন। এরপরই তাকে নিয়ে গাড়ি ছুটে চলে রাজপ্রাসাদে। সে যাত্রা আবেগঘন। ক্যামেরন ক্ষমতার মেয়ার শেষ না হতেই ব্রেক্সিট প্রভাবে পদত্যাগ করতে যাচ্ছেনÑ রাস্তার পাশে অপেক্ষমাণ মানুষ হয়তো অশ্রুসিক্ত চোখে তাকিয়ে তাকিয়ে তাই অবলোকন করেছেন। এ সময় আকাশে হেলিকপ্টার নিরাপত্তা টহল দিতে থাকে। নামী, পরিচিত আন্তর্জাতিক টেলিভিশন চ্যানেলগুলো তাদের নিয়মিত সম্প্রচার বন্ধ করে দিয়ে সরাসরি দেখাতে থাকে বৃটেনের রাজনৈতিক পালাবদল। ডেভিড ক্যামেরন রাজপ্রাসাদে প্রবেশ করে রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন। রাণী তা গ্রহণ করেন। এর মধ্য দিয়ে সমাপ্তি ঘটে ডেভিড ক্যামেরন অধ্যায়ের। স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রধানমন্ত্রী হয়ে যান তেরেসা মে। কিন্তু বৃটেনের আইন অনুসারে তাতে সম্মতি প্রয়োজন হয় রাণীর। ডেভিড ক্যামেরন পদত্যাগ করার পর পরই রাজপ্রাসাদে ছুটে যান তেরেসা। সঙ্গে তার স্বামী। রাণী তাকে সরকার গঠনের অনুরোধ করেন। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রাজপ্রাসাদ থেকে বেরিয়ে আসেন তেরেসা। সোজা ছুটে যান ১০ ডাউনিং স্ট্রিটে। এটাই এখন তার ঠিকানা। এর মধ্য দিয়ে বৃটেনে শুরু হলো তেরেসা অধ্যায়।এর আগে হাউস অব কমন্সে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেষবারের মতো প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশ নেন ক্যামেরন। প্রশ্নোত্তরপর্ব শেষে পার্লামেন্টের এমপিরা দাঁড়িয়ে করতালি দিয়ে ক্যামেরনকে বিদায় জানান। পরে ডাউনিং স্ট্রিটে গিয়ে কর্মকর্তাদের কাছ থেকে বিদায় নেন ক্যামেরন। সেখান থেকে রানীর কাছে ইস্তফানামা জমা দিতে চলে যান বাকিংহাম প্যালেসে।
প্রসঙ্গত, ব্রেক্সিট ইস্যুকে কেন্দ্র করে বিরাট পরিবর্তন প্রত্যক্ষ করছে বৃটিশ রাজনৈতিক অঙ্গন। ২৩শে জুন গণভোট হওয়ার পর মাত্র ৩ সপ্তাহে পাল্টে গেছে হিসাবনিকাশ। ওই গণভোটে ক্যামেরনের অবস্থান ছিল ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকার পক্ষে। কিন্তু বৃটিশ ভোটাররা ইইউ ছাড়ার পক্ষে রায় দেন। এর পরই ক্যামেরন ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দেবেন তিনি। ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ দল বেছে নেবে নতুন উত্তরসূরি। আর তার হাত ধরেই শুরু হবে বৃটেনের ইইউ ত্যাগের আনুষ্ঠানিকতা। কনজারভেটিভ দলের পরবর্তী নেতা এবং প্রধানমন্ত্রী পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মাঠে নামেন ক্যামেরন ক্যাবিনেটে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করা তেরেসা মে। তার অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন ব্রেক্সিট শিবিরের অন্যতম নেতা মাইকেল গোভ। আরো ছিলেন জ্বালানি মন্ত্রী অ্যান্দ্রিয়া লিডসম, শ্রম ও অবসর ভাতাবিষয়কমন্ত্রী স্টিফেন ক্র্যাব ও সাবেক মন্ত্রী লিয়াম ফক্স। প্রথম দফা ভোটে বাদ পড়েন লিয়াম ফক্স। সরে দাঁড়ান স্টিফেন ক্র্যাব। দ্বিতীয় দফা ভোটে ছিটকে পড়েন মাইকেল গোভ। এরপর সোমবার সরে দাঁড়ান বৃটিশ জ্বালানি মন্ত্রী অ্যান্দ্রিয়া লিডসম। এতে করে তেরেসা মে’র পরবর্তী বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী হওয়া নিশ্চিত হয়ে যায়।
মন্ত্রিসভায় থাকবে নারীদের প্রাধান্য: প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়ার পর নিজের মন্ত্রিপরিষদ গঠনে মনোযোগ দেবেন মে। মন্ত্রিসভায় নারীদের প্রাধান্য থাকবে বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। এমনটাই ইঙ্গিত দিচ্ছেন তার ঘনিষ্ঠজনেরা। বৃটেনের দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট জানিয়েছে, তার মন্ত্রিসভায় নারীদের সংখ্যা হবে কনজারভেটিভ পার্টির ইতিহাসে সর্বোচ্চ। প্রতি তিনটি বড় মন্ত্রণালয়ের একটির দায়িত্বে থাকবেন একজন নারী। খবরে বলা হয়েছে, বৃটেনের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থ্যাচারের সঙ্গে এ জায়গায় বেশ অমিল থাকবে তেরেসা মে’র। থ্যাচারের প্রধানমন্ত্রিত্বের প্রায় পুরোটা সময় মন্ত্রিসভায় কোনো নারীই ছিলেন না। কিন্তু তেরেসা মে’র ঘনিষ্ঠ সূত্রসমূহ জানিয়েছে যে, সরকারের শীর্ষপদে সবসময়ই অধিকতর লিঙ্গসমতার পক্ষপাতী ছিলেন তিনি। তার প্রতিফলন ঘটবে মন্ত্রিসভার সদস্য নির্ধারণেও।
সদ্য-সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের বর্তমান মন্ত্রিসভায় তেরেসা মে ছাড়াও পাঁচজন নারী সদস্য রয়েছেন। এরা হলেনÑ জাস্টিন গ্রিনিং, নিকি মরগ্যান, অ্যাম্বার রাড, লিজ ট্রাস, তেরেসা ভিলিয়ের্স। মন্ত্রিসভায় পদোন্নতি হতে পারে যাদের, তাদের মধ্যে রয়েছেন ওয়ার্কস অ্যান্ড পেনসন্স মিনিস্টার প্রীতি প্যাটেল, যিনি ব্রেক্সিট প্রচারাভিযানে ভালো ভূমিকা রেখেছেন। সম্ভাবনা আছে বিজনেস মিনিস্টার অ্যানা সৌব্রির, যিনি ব্রেক্সিটের বিপক্ষে ছিলেন।
ইন্ডিপেন্ডেন্টের খবরে বলা হয়েছে, দলীয় নেতা নির্বাচনে সাবেক প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যান্ড্রিয়া লিডসমকেও মন্ত্রিসভায় জায়গা দেয়ার কথা বিবেচনা করবেন তেরেসা। তার এক মুখপাত্র বলেন, ‘তেরেসাই পার্লামেন্টে আরো বেশি নারী সদস্য নির্বাচিত করার প্রচারাভিযান চালু করেছিলেন। তিনি সবসময়ই বিশ্বাস করে আসছেন যে, প্রভাবশালী সরকারি পদে আরো নারীর স্থান হওয়া উচিত।’ শীর্ষ তিন মন্ত্রণালয়ের একটিতে নারী কাউকে স্থান দিতে হলে, অর্থমন্ত্রী জর্জ অসবোর্ন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফিলিপ হ্যামন্ড কিংবা হাউস অব কমন্সের নেতা ক্রিস গ্রেলিংÑ এ তিনজনের যেকোনো একজনকে সরে দাঁড়াতে হবে। ইন্ডিপেন্ডেন্টের খবরে আরো বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর তেরেসা মে’র অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কাজ হবে এমন একজন মন্ত্রী নিয়োগ দেয়া, যিনি ইইউ থেকে বৃটেনের প্রস্থানের ব্যাপারে সমঝোতায় নেতৃত্ব দেবেন। ইতিমধ্যেই, সরকারি কর্মকর্তাদের ‘ব্রেক্সিট ডিপার্টমেন্ট’-এর জন্য নতুন ভবন খুঁজে বের করতে বলা হয়েছে।
তেরেসা মে’র সংক্ষিপ্ত পরিচিতি
লৗহমানবী খ্যাত বৃটেনের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থেচারের প্রধানমন্ত্রিত্বের মাঝামাঝি সময় তখন। নিজের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন উদীয়মান তেরেসা মে। সেখান থেকে সাফল্যম-িত উত্থান। টোরি দলের তৃণমূল পর্যায়ে সমাদৃত তেরেসা কঠোর এবং অভিজ্ঞ একজন রাজনীতিক হিসেবে সুনাম অর্জন করেন। অবশেষে উঠলেন সাফল্যের চূড়ায়, হয়ে গেলেন বৃটেনের ইতিহাসের দ্বিতীয় নারী প্রধানমন্ত্রী।
বেড়ে ওঠা: ১৯৫৬ সালে বৃটেনের ইস্টবোর্নে জন্ম তেরেসা মে’র। রেভারেন্ড হুবার্ট ব্রেসারের একমাত্র সন্তান। স্কুল জীবনে পড়েছেন গুইটলি পার্ক কম্প্রিহেন্সিভ স্কুলে। অল্প সময়ের জন্য পড়েছেন সেন্ট হিউ’জ কলেজে। পরে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেন অক্সফোর্ড থেকে। সেখানেই পরিচয় স্বামী ফিলিপের সঙ্গে। ফাইন্যান্স নিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করার আগে জিওগ্রাফি নিয়ে পড়াশোনা করেন মে। কর্মজীবন শুরু ব্যাংক অব ইংল্যান্ডে। ১৯৮১ সালে কয়েক মাসের ব্যবধানে পিতা-মাতা’র মৃত্যুতে কঠিন সময় পার করেন তিনি। পিতা হুবার্ট একটি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন। অসুস্থতার সঙ্গে লড়াই করে মারা যান তার মা জাইদি।
রাজনৈতিক অঙ্গনে পদার্পণ: ৮০’র দশকের মাঝামাঝি লন্ডনের মার্টন বরো’র স্থানীয় কাউন্সিল দিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে পা রাখেন তেরেসা মে। ১৯৯৭ সালে মেইডেনহেড এলাকার সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন।
পার্লামেন্টে দ্রুত উত্থান: নিজ দলের মধ্যে খুব দ্রুত গুরুত্বপূর্ণ নানা পদে উঠে আসেন তেরেসা মে। দলের হয়ে শিক্ষা, কর্মসংস্থান, কর্ম ও ভাতা ছায়া মন্ত্রণালয়সমূহের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। অল্প সময়ের জন্য কনজারভেটিভ দলের প্রথম নারী চেয়ারম্যানও হন তিনি। ২০১০ সালের নির্বাচনের পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পান মে। ৬ বছর ধরে এ দায়িত্ব পালন করেছেন। ৫০ বছরের মধ্যে এই পদে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় দায়িত্ব পালন করা ব্যক্তি তিনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনের সময়ে কঠোরচিত্তের রাজনীতিক হিসেবে পরিচিতি পান। সরকারি নীতি সমুন্নত রাখতে শত্রু তৈরি করতেও দ্বিধা করেন নি এমন একজন রাজনীতিক হিসেবে তাকে অনেকে আখ্যা দিয়ে থাকেন।
দলের ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাষ্য: দলীয় প্রধান নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি বলেন, ‘দেশের সর্বোত্তম স্বার্থে আমাদের দলকে একতাবদ্ধ হওয়া এবং পরিচালনা করা দেশপ্রেমের দায়িত্ব পালন থেকে কম কিছু নয়। দেশের ভবিষ্যতের জন্য আমাদের প্রয়োজন সাহসী, নতুন এক ইতিবাচক লক্ষ্য। এমন একটি দেশ যা শুধু সুবিধাপ্রাপ্ত অল্পসংখ্যক মানুষের জন্য নয় বরং আমাদের জন্য কাজ করবে।’ ব্রেক্সিট ইস্যুতে বিভক্ত হয়ে পড়া দলকে একতাবদ্ধ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নবনির্বাচিত এই প্রধানমন্ত্রী। সুত্র- দৈনিক মানব জমিন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24