সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৫২ অপরাহ্ন

বৃষ্টি হলেই জগন্নাথপুর পৌর শহর জলমগ্ন, জনদুর্ভোগ চরমে

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২১ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১০৭ Time View

আজহারুল হক ভূঁইয়া শিশু/আজিজুর রহমান আজিজ:: জগন্নাথপুর পৌর শহরে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই পৌর এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ে। বিশেষ করে পৌর সভার গুরত্বপূর্ণ জায়গা পৌর পয়েন্টে সামনে রানীগঞ্জ সড়কে মোবাইল মার্কেট এলাকায় সামান্য বৃষ্টির পানিতে সড়ক জলমগ্ন হয়ে পড়ায় জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। ব্যবসায়ীরা জানান, বৃষ্টি হলেই দীর্ঘদিন ধরে পৌরসভার সামনের সড়কে পানি জমে চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। উক্ত সড়কের মধ্যে মোবাইল মার্কেট, হাজী আব্দুল মতলিব মার্কেট,মিনারা মার্কেটসহ কয়েকটি মার্কেটে ব্যাংক বীমা, সহ বেশ কয়েকটি বড় বড় সুরম্য দোকান রয়েছে। এছাড়াও চালের আড়ৎদাতারগনের চালের দোকান থাকায় সড়কটি ব্যবসায়ীদের অন্যতম প্রাণকেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। উক্ত সড়ক দিয়ে রানীগঞ্জ,শিবগঞ্জ বাজার এলাকার লোকজন প্রতিনিয়ত চলাচল করেন। সড়কটি সংষ্কারে পৌর কর্তৃপক্ষ কোন ভূমিকা না নেয়ায় জনদুর্ভোগ উঠেছে চরমে।
মোবাইল মার্কেটের ব্যবসায়ী সুহেল মিয়া জানান, বৃষ্টি হলেই আমাদের পুরো মার্কেটে যাতায়াত বন্ধ হয়ে যায়। বৃষ্টির পানিতে মার্কেটের সামনের সড়ক জলমগ্ন হয়ে পড়ায় জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে।
হাজী আব্দুল মতলিব সুপার মার্কেটের ব্যবসায়ী কাওছার মিয়া বলেন, পৌরসভার সামনের সড়কে এরকম জলমগ্ন অবস্থা পৌর কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা আমাদেরকে পীড়া দেয়। পৌর কর্তৃপক্ষ ইচ্ছে করলে কিছু সংষ্কার কাজ করাতে পারতেন। তিনি অবিলম্বে উক্ত সড়কে সংস্কার কাজ করার দাবী জানান।
মিনারা মার্কেটের ব্যবসায়ী শামীম মিয়া জানান, সামান্য বৃষ্ট্ িহলেই সড়ক দিয়ে যান চলাচল বিঘিœত হয়। ছোট ছোট যানবাহনাও চলাচল করতে চায় না। ফলে পরিবহন খরচও বেড়ে যায়। ব্যবসায়ীরা সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছেন।
সফর উল্যা ট্রেডার্স এর মালিক ছালিকুর রহমান জানান, বৃষ্টি হলেই পানি জমে সড়কে পুকুর হয়ে যাওয়ায় ক্রেতারা আর দোকানে আসতে চান না। এলেও অতিরিক্ত পরিবহন খরচ দিতে হয় তাদেরকে। আমরা এনিয়ে চরম দুর্ভোগে আছি।
সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী সিএনজি চালক ইমন মিয়া জানান, বৃষ্টির পর একবার এ রাস্তা দিয়ে গেলে গাড়িতে পানি ও ময়লা ঢুকে গাড়ি নষ্ট হয়ে যায়। পরে সার্ভিসিং করাতে হয়। এছাড়াও রাস্তাজুড়ে শুধু গর্ত আর খানাখন্দে ভরা। এছাড়াও উক্ত সড়কে সিএনজি,লেগুনা ও লাইটেস স্ট্যান্ড রয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পাগলা-জগন্নাথপুর-আউশকান্দি আঞ্চলিক মহাসড়কের অংশ বিশেষ এ জায়গাটি পৌরসভার সামন হলেও মুল সড়কটি কাজ সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর বাস্তবায়ন করে থাকে। সড়কের মোবাইল মার্কেটের সামন ও মৎস্য আড়তের সামনের জায়গা ও রানীগঞ্জ বাজারে ঢুকার অংশের বেহাল দশা বিরাজ করছে। দীর্ঘদিন ধরে ওই অংশে কোন সংস্কার কাজ না হওয়ায় জনদুর্ভোগ চরমে উঠেছে।
জগন্নাথপুর পৌরসভার প্রকৌশলী সতীশ গোস্বামী বলেন, পৌরসভার সামনে হলেও সড়কের অংশ বিশেষ সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের তাই আমাদের কিছু করার নেই। তিনি বলেন, সড়কের পাশে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর ড্রেন নির্মাণ করেছিল। বর্তমানে উক্ত ড্রেনগুলো অকেজো হয়ে পড়ে আছে। যে কারণে পানি নিস্কাশনের সুব্যবস্থা না থাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে।
সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ারুল আমীন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সড়কটিতে পানি নিস্কাশনের সুব্যবস্থা না থাকায় পানি জমে যানচলাচল বিঘিœত হচ্ছে। পৌরসভা ড্রেন পরিস্কার করে পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করে দিলেই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। এছাড়াও তিনি শ্রীঘ্রই উক্ত অংশে সংষ্কার কাজ করাবেন বলে জানান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24