রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ভারতীয় মুসলিমদের পাশে থাকার আহবান ভারত থেকে ৯ পণ্য আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার বাংলাদেশের সমাজ মেরামতের দায়িত্ব আলেমদের জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের রিসোর্স সেন্টারের কাজ পরিদর্শনে ট্রাস্টের প্রতিনিধিদল জগন্নাথপুরে একদিনে ১১ জন ডাক্তারের যোগদান জগন্নাথপুরে বেড়িবাঁধের ৩০ প্রকল্প অনুমোদন কাল কাজ শুরু হতে পারে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবসে জগন্নাথপুরে প্রশাসনের উদ্যোগে শ্রদ্ধা নিবেদন ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে আ.লীগের উদ‌্যোগে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবসে আলোচনাসভা ও শ্রদ্ধা নিবেদন দিরাইয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন মুসলিমবিদ্বেষী আইনের বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে বিক্ষোভ

ব্রিটিশ পার্লামেন্ট বাংলাদেশ বিতর্ক এবং দু’পক্ষের ফরিয়াদ

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৩১ জুলাই, ২০১৬
  • ৯২ Time View

ফারুক যোশী::

ব্রিটেনের পার্লামেন্টে হয়ে গেলো বাংলাদেশ নিয়ে বিতর্ক গত ১৯ জুলাই। এ বিতর্কেও হয়েছে হৈ-হুল্লুড়। একজন জামায়াত নেতার বক্তৃতাকে কেন্দ্র করে এ বিশৃঙ্খলার সূত্রপাত। জামায়াত নেতাকে বক্তৃতা দেয়ার সুযোগ দেয়ায় বাংলাদেশের মন্ত্রী তারানা হালিম জোর গলায় প্রতিবাদ করেছেন। আমরা সাধুবাদ জানাই তার এই প্রতিবাদে। যারা যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে কথা বলবে, এদের বিচার নিয়ে কটাক্ষ করবে কিংবা ভবিষ্যতে এদের বিচারের কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন তুলবে, স্বাভাবিকভাবেই মন্ত্রীতো বটেই, বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী যেকোনো লোকই এর প্রতিবাদ করবে। দেশের বাইরে এসেও ব্রিটিশ পার্লামেন্টে এসে স্বাধীনতা আর মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কট‚ক্তি করা কোনোভাবেই আমরা মেনে নিতে পারি না। বক্তৃতা করার জায়গা আছে। খোলা মাঠে কিংবা সংবাদ সম্মেলনে বলে যাক তারা, রাজনৈতিক দলগুলোও এর বিপরীতে কথা বলবে এবং এটা মীমাংসিত যে, এখন আর মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীরা কল্কে পাবে না কোনোভাবেই দেশে কিংবা বিদেশে।
দুই.
জঙ্গিবাদের কথা বলতে বলতে শেষ পর্যন্ত দেশীয় আধুনিক জঙ্গিতে ভরে গেছে দেশ। মাদ্রাসা পাড়ি দিয়ে এখন জঙ্গিত্বের চাষ হয় দেশের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে। প্রতিদিন ঘটছে ছোট-বড় অনেক ঘটনা। তটস্থ অবস্থায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়, অশান্ত গোটা দেশ। দেশের এই অস্থিতিশীল সময়ে কথা উঠেছে একটা জাতীয় ঐক্যের। জাতীয় ঐক্য বলতে কি। সোজাসাপ্টা কথা বিএনপির সঙ্গে একটা সংলাপ। কিন্তু এটা হওয়ার নয়। কারণ সরকার বলেছে যারা জামায়াতীদের সঙ্গে যোগসাজশ করে এদের সঙ্গে সংলাপ হওয়ার নয়। যারা সন্ত্রাসের মদদ দেয়, তাদের সঙ্গে সংলাপ চালানো যায় না। কিন্তু আমরা কি চিহ্নিত করতে পারছি আমাদের প্রকৃত শত্রুদের?
জঙ্গিবাদ এখন একটা আন্তর্জাতিক ইস্যু। প্রতিদিন পৃথিবীর কোথাও না কোথাও ভীতিকর অবস্থা সৃষ্টি করছে জঙ্গিরা। জঙ্গিরা অরণ্যে থাকে না, লোকালয়েই এদের অবস্থান। সত্যি কথা হলো ধর্মীয় উন্মাদরাই এই লোকালয়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে। কিন্তু এই বলে পৃথিবীর কোনো দেশই বসে নেই। প্রতিটা দেশেই এ নিয়ে জাতীয় একটা ঐক্য আছে। জাতির এ অস্থিতিশীল অবস্থায় সবাই এক কাতারে দাঁড়ায়। বাংলাদেশে ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের পুরোহিতদের হত্যা করা হয়েছে কিংবা এদের হত্যা করার প্রয়াস চালাচ্ছে দুবর্ৃৃত্তরা। সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে কিংবা জনগণের একটা ব্যাপক অংশ মনে করছে এসব জঙ্গি গোষ্ঠীর দ্বারাই সংঘটিত হচ্ছে। কিন্তু এর সবগুলো কি তাই? প্রতি সপ্তাহে আমরা দেখছি সংখ্যালঘুদের নির্যাতনের চিত্র এবং এই নির্যাতনের মূল নায়করা হচ্ছেন সরকার দলীয় প্রভাবশালীরা। এমনকি গুলশান হামলায় পর্যন্ত দেখা গেছে সরকার দলীয় একজন প্রভাবশালী নেতার ছেলের জঙ্গি হিসেবে নিহত হওয়ার চিত্র। নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে কি শুধুই জামায়ত-বিএনপির ছেলেমেয়েরা পড়াশোনা করে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এই ছেলেগুলো নাকি আখেরের হুর-পরীদের জন্য পাগল হয়ে গেছে। মেনে নিলাম কিন্তু জঙ্গি মেয়েগুলো কিসের পাগল? শ্লীল-অশ্লীল কথা বলে লাভ নেই, গোড়ায় হাত দিতে হবে। দেখাই যাচ্ছে জঙ্গিত্ব এখন আর একক কোনো দলের সমস্যা নয়। এটা এখন এক সামগ্রিক সামাজিক দায়ও বটে। জঙ্গি ইন্ধনে জামায়াতকে দায়ী করার অনেক প্রেক্ষিত আছে কিন্তু দেশের বর্তমান চিত্র কি বলে দেয় না, এর দায় স্বাধীনতার পক্ষেরই শক্তিও এড়াতে পারেন না।
বলা হচ্ছে, বিএনপি-জামায়াতের সংঘ ত্যাগ না করলে বিএনপির সঙ্গে ঐক্য হবে না। কিন্তু বিএনপির সংঘ ত্যাগ করলেই কি এ ঐক্য হবে। রিপোর্ট বেরিয়েছে আওয়ামী লীগ কোনো অবস্থাতেই বিএনপির সঙ্গে সংলাপ করবে না। মন্ত্রী-নেতাদের কথা থেকে তা স্পষ্ট। সত্যি কথা হলো বিএনপি ছেড়ে বাংলাদেশের রাজনীতিও পূর্ণতা পাবে না। ভোটের মাঠে এখনো অন্তত ৩০ শতাংশ জনগণ বিএনপির সমর্থক। আর দেশে এটা যেমন সত্য, ঠিক তেমন বিদেশেও প্রতিষ্ঠিত। এরশাদ কিংবা তার দল সংসদে বিরোধী দল হলেও বিদেশিরা এদের সংসদ সদস্য কিংবা দু’একজন মন্ত্রীকে সরকারের পাপেট হিসেবেই জানে। সে কারণে বিদেশিরা আলোচনায় বসতে গেলেই বিএনপির কথাই ভাবে।
তিন.
মন্ত্রী তারানা হালিম বলেছেন, জামায়াত অংশ নিচ্ছে জানলে ব্রিটিশ সংসদ সদস্য এইন ম্যানের উদ্যোগে তারা সাড়া দিতেন না। কিন্তু এ সাড়া না দেয়া কি তার কিংবা সরকারের দ্বারা সম্ভব? মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে ‘দেড় কড়ার মানুষ’ বললেও ঘোরে- ফিরে তাদের তো এড়িয়ে চলা যাচ্ছে না। তবু কেন শাক দিয়ে মাছ ঢাকা। বাংলাদেশে যেখানে জাতীয় ঐক্যের ব্যাপারে বিএনপিকে নিতে অনীহা, কোনো আলোচনায় বসতেই জঙ্গিত্বের অভিযোগ তুলে এদের সঙ্গে না বসা, সেখানে ব্রিটিশ এমপিদের ডাকে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে এসে দু’দলের মধ্যে দেন-দরবার কতটা যৌক্তিক এ প্রশ্ন থেকেই যায়। ব্রিটিশ এমপিদের দ্বারা যেকোনো সেমিনারে বিএনপি আসবেই, কারণ তাদের এখন আনুষ্ঠানিক ফরিয়াদ জানানোর আন্তর্জাতিক প্লাটফর্ম প্রয়োজন। এইন ম্যানের এই উদ্যোগের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট আছেন নর্থ ইংল্যান্ডের রচডেলের এমপি সাইমন ডেনচাক। আমরা সবাই জানি, এর আগে ডেনচাক বাংলাদেশকে একটা অস্থিতিশীল রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত করতে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বাংলাদেশ নিয়ে আলোচনাও করেছেন। তারানা হালিম কি এসব জানেন না। সবকিছু জেনে-শুনেই ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বিএনপির ফরিয়াদের পাশাপাশি আত্মপক্ষ সমর্থন করতে এসেছেন মন্ত্রী কিংবা অন্যরা। অর্থাৎ প্রকৃত অর্থে বিএনপি যেমন ফরিয়াদের জায়গা হিসেবে বেছে নিচ্ছে ব্রিটিশ কিংবা ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট, সেখানে সরকার কিংবা আওয়ামী লীগও সেই একই জায়গায়, একই মঞ্চে মুখোমুখি।
যেহেতু ফরিয়াদ কিংবা আত্মপক্ষ সমর্থনের একটা নেপথ্য দায়বোধ কাজ করে সবার মাঝেই, অতএব কেন দেশে বসে এটুকু করা সম্ভব নয়। জোর গলায় বলা যায় বিএনপির সঙ্গে বসা নয়, অন্যদিকে মাত্র কয়েকজন ব্রিটিশ এমপির কাছে দেশ নিয়ে কথা বলা কতটুকু যৌক্তিক তা কি আমরা ভেবে দেখছি? বিএনপি দেশকে অস্থিতিশীল করেছে, এ অভিযোগ অনেকটা প্রতিষ্ঠিত সত্য। সে কারণেই এদের রাজনৈতিক ভিত খুবই দুর্বল। এই সুযোগে অন্তত গণতন্ত্রকে মজবুত ভিত দিতে ক্ষমতাসীনরা কি পারে না বিদেশে এসে ফরিয়াদ না জানিয়ে, সারা বিশ্বকে না জানিয়ে দেশের অভ্যন্তরেই একটা গণতান্ত্রিক পরিবেশ সৃষ্টি করা? এ চাওয়াটুকু কি খুব বেশি কিছু?
ফারুক যোশী : কলাম লেখক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24