বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন

ভালবাসার মানুষ এত নিষ্ঠুর হয় ?

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৩ জুন, ২০১৭
  • ৪৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ফরিদকে ভালোবেসেই বিয়ে করেছিলেন আকলিমা। তবে অত্যাচার সইতে না পেরে আকলিমা মাস খানেক আগে স্বামীকে তালাক দেন। এরপর স্বামী আবার স্ত্রীকে ফিরে পেতে মরিয়া হয়ে ওঠেন। তবে আকলিমা আর ফিরতে চাননি। এ কারণে স্ত্রীর ওপর পাশবিক নির্যাতন চালান স্বামী—ধারালো ছুরি দিয়ে গোপনাঙ্গ ও স্তনে গভীর ক্ষত করেন।

গত রোববার রাতে রাজধানীর মুগদার উত্তর মান্ডায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর আকলিমার খালা প্রথমে তাঁকে স্থানীয় হাসপাতালে নেন। সেখান থেকে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
মঙ্গলবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ার্ডে গেলে আনুমানিক ২৩ বছর বয়সী আকলিমা প্রতিবেদকের হাত জড়িয়ে ধরে কাঁদতে থাকেন। বারবার ব্যান্ডেজে মোড়ানো স্তনের জায়গায় হাত চলে যাচ্ছিল তাঁর। শারীরিক ব্যথার সঙ্গে যোগ হয়েছে মানসিক যন্ত্রণা। একটু কথা বলেই হাঁপিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি।

নির্যাতনের বর্ণনা দিয়ে আকলিমা বলেন, ‘আমার ওড়না দিয়াই আমার মুখ বান্ধে। এরপর ছুরি দিয়া মারতে থাকে। দম বন্ধ হইয়াই মইরা যাইতেছিলাম। শরীলের নানান জায়গায় মারতাছে, তারে আর কেমনে ফিরামু। একবার খালি মনে হইছিল, আমার বুকের অনেকটুকু জায়গা কাইট্যা ফালাইছে। আমার গোঙানি কেউ শুনে না।’

আকলিমার ভাষ্য, তালাকের নোটিশ পাঠানোর পর হুমকি দিতে থাকেন স্বামী। আবার তাঁর ঘরে ফিরে না গেলে অঙ্গহানি ঘটাবেন বলে হুমকি দিতেন। স্বামী সত্যিই সেটা করেছেন, তাঁর ওপর নিষ্ঠুর নির্যাতন করেছেন। তাঁর একটাই কথা এখন, ‘আমি আর তারে স্বামী মানি না। তার শাস্তি চাই।’ তিন বছর বয়সী মেয়েকে স্বামী নিজের কাছে নিয়ে রেখেছেন, ১০-১২ দিন ধরে তাঁকে দেখেন না—এ অভিযোগ জানালেন তিনি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের স্ত্রীরোগ ও প্রসূতিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক নিলুফার সুলতানা বলেন, ‘হাসপাতালের ক্যাজুয়ালটি বিভাগ থেকে আকলিমার যে স্তনে ক্ষত, তা ব্যান্ডেজ করে পাঠিয়েছে। ক্যাজুয়ালটি বিভাগ থেকেই এ ব্যান্ডেজ খোলা হবে। তাই সে জায়গায় ক্ষত কতটুকু তা আমরা বলতে পারছি না। আমাদের এখানে আসার পর রোগীকে অজ্ঞান করে পরীক্ষা করা হয়। মাসিকের রাস্তা ভেদ করে ছুরি মূত্রথলিতে আঘাত করেছে। আমরা অস্ত্রোপচার করেছি। এখন আকলিমা আশঙ্কামুক্ত। তবে সংক্রমণ দেখা দিলে অবস্থা খারাপ হতে পারে।’ তিনি আরও বলেন, আকলিমাকে কমপক্ষে তিন সপ্তাহ ক্যাথেটার ব্যবহার করতে হবে। তিনি আকলিমাকে যেভাবে জখম করেছেন, তা অত্যন্ত অমানবিক বলে উল্লেখ করে বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে, যিনি এ ঘটনা ঘটিয়েছেন, তিনি ইচ্ছাকৃতভাবে ঠান্ডা মাথায় কাজটি করেছেন।’

আকলিমার বাবা আরফান মিয়া গতকাল সোমবার রাতে মুগদা থানায় মামলা করেছেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মুগদা থানার উপপরিদর্শক রেজাউল আলম আজ দুপুরের দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আকলিমাকে দেখতে যান। টেলিফোনে তিনি জানান, ধারালো অস্ত্র দিয়ে গুরুতর আঘাত করে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে দণ্ডবিধির আওতায় মামলা হয়েছে। আসামির ভাইকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। আসামিকে ধরার চেষ্টা চলছে।

হাসপাতালে আকলিমার ভাই মো. চয়ন বলেন, আকলিমা বাসাবাড়িতে ছুটা বুয়ার কাজ করে সংসার চালাতেন। স্বামী মন চাইলে রিকশা চালাতেন, না হলে কোনো কাজ করতেন না। মাদকাসক্ত তিনি। টাকাপয়সা নিয়ে প্রায়ই মারধর করতেন আকলিমাকে। অত্যাচারে আকলিমা নিজেই স্বামীকে তালাক দিয়ে মেয়ে নিয়ে চলে আসেন তাঁদের কাছে। তবে মেয়েকে নিয়ে যান ফরিদ। ঘটনার দিন আকলিমা পাশেই এক বোনের বাসায় যাচ্ছিলেন। ওই বাসার গেট থেকে আকলিমাকে জোর করে বালুর মাঠে নিয়ে যান ফরিদ। রাত নয়টার দিকে আকলিমার ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে তিনি সেখান থেকে পালিয়ে যান।

মো. চয়ন কমলাপুর রেলস্টেশনে মুঠোফোনের চার্জারসহ বিভিন্ন জিনিস ফেরি করে বিক্রি করেন। তিনি বললেন, ‘বইন আমার ব্যথায় কাটা গরুর মতোন ছটফট করতাছে। আর খালি চিৎকার করে। সাত ব্যাগ রক্ত দিতে হইছে। ২০ হাজার টাকার মতন খরচও হইয়া গেছে।’ ভাইয়ের কথা চলার মধ্যেই ব্যথা, যন্ত্রণায় ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে গেলেন আকলিমা। চয়ন গভীর মমতায় বললেন, ‘কেউ ডিস্টার্ব কইরো না। ও একটু ঘুমাক।’সুত্র প্রথম আলো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24