শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ১০:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের তিন রাজনীতিবীদ জেলা আ,লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মনোনীত হলেন জগন্নাথপুরে দুইপক্ষের বিরোধে বলি হলো মাদ্রাসার ছাত্র সাব্বির জগন্নাথপুরে ছিনতাইকৃত গ্রামীণফোনের রিচার্জ কার্ড-অর্থসহ ডাকাত গ্রেফতার জগন্নাথপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে শিশু নিহত জগন্নাথপুরে অটোচালককে হত‌্যা করে লাশ ডোবায় ফেলে দিল দুবৃর্ত্তরা জগন্নাথপুরে ‘ভুয়া’নাগরিক সনদধারীদের ঠেকাতে জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে স্থানীয়রা জগন্নাথপুরে মেধাবী শিক্ষার্থীদের সম্মাননা প্রদান যুবলীগ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী রোববার মিটিং ডেকেছেন : ওবায়দুল কাদের দেশে দারিদ্র কমলেও বৈষম্য বাড়ছে:পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুরে শুক্রবার সকাল ৬টা ১২টা ও শনিবার ৮ থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকবে না

মধ্যরাতে ২০ ছাত্রীকে হল থেকে বের করে দেওয়ায় বিকালে বিক্ষোভ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২০ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৫১ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::কোটা সংস্কার আন্দোলনে জড়িত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) কবি সুফিয়া কামাল হলের ২০ ছাত্রীকে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে হলত্যাগে বাধ্য করার ঘটনায় সারা দেশে বিক্ষোভ করার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

শুক্রবার ভোররাত সোয়া ৩টার দিকে এ কর্মসূচির ঘোষণা দেয় কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্লাটফর্ম সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।

ছাত্রীদের বের করে দেয়ার খবরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলের ছাত্ররা সুফিয়া কামাল হলের সামনে অবস্থান নিলে তাদের নিবৃত্ত করে শুক্রবার বিকালে বিক্ষোভের ঘোষণা দেন সংগঠনটির যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নূর।

তিনি বলেন, অন্যায়ভাবে সুফিয়া কামাল হল থেকে ছাত্রীদের বের করে দেয়ার প্রতিবাদে বিকাল ৪টায় প্রতিটি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হবে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর মধ্যরাত পর্যন্ত হল কর্তৃপক্ষ একে একে ২০ ছাত্রীকে হল থেকে বের করে দেয়। ছাত্রীদের স্থানীয় অভিভাবকরা সুফিয়া কামাল হল থেকে তাদের সন্তানকে এসে নিয়ে যান। ছাত্রীদের নিয়ে যাওয়ার সময় তাদের (অভিভাবক) কারও সঙ্গে কথা বলতে নিষেধ করে দেয়া হয়। ফলে অভিভাবকরা সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

এর আগে ছাত্রী নিপীড়নের ঘটনায় গঠিত হলের ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটির বিরুদ্ধেও সাক্ষাৎকার গ্রহণের নামে ছাত্রীদের হয়রানির অভিযোগ ওঠে।

বৃহস্পতিবার হলটির একাধিক ছাত্রী ও তাদের পরিবার যুগান্তরকে হয়রানির বিষয়ে জানিয়েছে।

ছাত্রী নিপীড়নের অভিযোগে হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইফফাত জাহান এশার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার ঘটনায় সম্পৃক্তদের ডেকে নিয়ে এমন হয়রানি করা হয়েছে বলে অভিযোগ সংশ্লিষ্টদের।

ছাত্রীদের ডেকে হলত্যাগে বাধ্য করা, মুঠোফোন জব্দ, মামলায় জড়িয়ে দেয়ার হুমকি এবং অভিভাবকদের ফোন দিয়ে হয়রানি ইত্যাদি অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে সাধারণ ছাত্রীদের মধ্যে ভয় ও নিরাপত্তাহীনতা তৈরি হয়েছে।

জানা গেছে, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী রিমির বাবা রাত সাড়ে ৮টায় ফোন পেয়েছেন হল কর্তৃপক্ষের। ঝড়বৃষ্টির কথা বলে তিনি রক্ষা পাননি। কর্তৃপক্ষের নির্দেশ রাতেই মেয়েকে নিয়ে যেতে হবে। ফলে সাভারের ধামরাই থেকে রওনা হয়ে রাত পৌনে ১টায় হল গেটে পৌঁছান।

রিমির বাবা ফারুক হোসেন জানান, সুফিয়া কামাল হলে মারামারির সময় রিমি সাভারে ছিল। কারণ ওই দিন তার নানা মারা যান। মাত্র দুদিন আগে সে হলে এসেও রক্ষা পায়নি। হলত্যাগ করতে হয়েছে।

রাত সাড়ে ৯টার দিকে হলের এক ভুক্তভোগী ছাত্রীর বড়ভাই আবদুল আউয়ালের সঙ্গে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। তিনি তার বোনের নাম ও পরিচয় যুগান্তরকে দিলেও তা প্রকাশ না করতে অনুরোধ করেন।

তৈরি পোশাক কারখানায় কাজ করা ওই ব্যক্তি জানান, তিনি রাত সাড়ে ৮টার দিকে তার বোনকে ফোন দেন। এ সময় ফোনটি রিসিভ করেন এক শিক্ষিকা। ওই শিক্ষিকা বলেন, ‘হলে সমস্যা হয়েছে। আপনার বোনকে হল থেকে নিয়ে যান, তার ফোন জব্দ করা হয়েছে।’

আবদুল আউয়াল জানান, তিনি ওই শিক্ষিকাকে অনুরোধ করেন তার বোনকে ফোনটি দেয়ার জন্য। পরে বোন ফোন রিসিভ করে কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথা বলেন। এ সময় সে তাকে বাসায় নিয়ে যেতে অনুরোধ করে ফোনটি কেটে দেন। এর পর থেকে আর তার বোন ফোন রিসিভ করছে না।

তিনি উদ্বিগ্ন কণ্ঠে বলেন, আমার বোন যদি কোনো অপরাধ করে থাকে, তা হলে তার বিচার হতেই পারে কিংবা আমাদের কাছেও অভিযোগ জানাতে পারে। কিন্তু সে ফোন রিসিভ করছে না কেন? আমি আমার বোনের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় আছি।

এ ছাড়া পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের এক ছাত্রীসহ কয়েকজনকে হল থেকে বের হয়ে যেতে বলা হয়েছে বলেও অভিযোগ এসেছে। ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের অনি্ত নামে এক ছাত্রীকে হাউস টিউটরদের কক্ষে আটকে রেখে হয়রানি করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরবর্তী সময়ে রাত ১০টার দিকে তার ব্যবহৃত টেলিটক নম্বরে ফোন দেয়া হলে অন্য একজন কল রিসিভ করে বলেন, এখন অনি্তকে দেয়া যাবে না। পরে ফোন করেন।

ঘটনার বিষয়ে জানতে হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. সাবিতা রেজওয়ানা রহমানকে ফোন করা হয়। ফোনে ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে কল কেটে দেন তিনি। এর পর একাধিকবার ফোন দেয়া হলেও তিনি আর কল রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান যুগান্তরকে বলেন, ছাত্রীদের হয়রানির অভিযোগ সত্য নয়। এগুলো গুজব। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে একটি দুষ্টচক্র গভীর ষড়যন্ত্রে নেমেছে। হয়রানির মতো কিছু হচ্ছে না।

গভীর রাতে হল থেকে ছাত্রীদের বের করে দেয়ার সময় সংবাদকর্মীসহ বাইরের কাউকে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। ছাত্রীরা অভিযোগ করে জানান, বিভিন্ন বিভাগের মেয়েরা এ সময় হলের মাঠে জড়ো হন। কর্তৃপক্ষ তাদের নাম-ঠিকানা জোগাড় করে মাঠত্যাগ করতে নির্দেশ দেন। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানানো হয়।

প্রসঙ্গত এর আগে সুফিয়া কামাল হল কর্তৃপক্ষ ছাত্রী লাঞ্ছনাসহ ১১ এপ্রিল সংঘটিত ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে। সেই কমিটি ছাত্রী লাঞ্ছনার অভিযোগ থেকে ছাত্রলীগ নেত্রী এশাকে অব্যাহতি দিয়ে উল্টো ২৬ ছাত্রীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে। অথচ এশা ছাত্রীদের ডেকে নিয়ে বিভিন্ন হুমকি-ধমকি ও হয়রানি করলেও তাতে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24