রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ১২:৪৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের এবার বর্ষসেরা প্রতিনিধি হলেন আশিক মিয়া বঙ্গবন্ধুকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড, হিসেবে আখ্যা দিল জাতিসংঘ জগন্নাথপুরে তিন লাখ টাকা মূল্যের সরকারি গাছ ‘কেটে’ নিলেন যুবলীগ নেতা।

মন্ত্রনালয়ের গাফিলতির কারনেই জগন্নাথপুরসহ সুনামগঞ্জের হাওরে সর্বনাস

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৫ মে, ২০১৭
  • ৩০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের গাফিলতির কারণেই পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জের হাওর তলিয়ে স্থানীয় মানুষ সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েছেন। ফসলহানি, মাছ, হাঁস-মুরগি, গবাদিপশুর মৃত্যুসহ ১৩ হাজার কোটি টাকার ক্ষতির শিকার হয়েছেন তারা। আগে থেকে পাহাড়ি ঢল মোকাবেলায় প্রস্তুতি না থাকায় আকস্মিকভাবে ওই দুর্যোগ নেমে আসে হাওর অঞ্চলের মানুষের ওপর। ঘটে সর্বনাশ। দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সূত্রে এ খবর জানা গেছে।

এদিকে, জগন্নাথপুরসহ সুনামগঞ্জের হাওরে বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কারে নিজেদের ব্যর্থতার কথা স্বীকার করেছেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় ও পাউবোর দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা। গতকাল বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয় ও পাউবোর সাত কর্মকর্তাকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদে তারা ওই ব্যর্থতার কথা স্বীকার করেন।

দুদক সূত্র জানায়, সুনামগঞ্জের হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধের বিষয়ে গত বছরের

এপ্রিলেই দুদক পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়কে সতর্ক করেছিল। দুদকের ওই সতর্কতা অনুযায়ী চলতি বছরে বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হলে এবার সুনামগঞ্জের হাওরগুলোতে ফসলহানিসহ এত ক্ষতি হতো না।

সূত্র জানায়, গত বছরের এপ্রিলের শেষ দিকে সুনামগঞ্জের শহর রক্ষা বাঁধে ভাঙন দেখা দেয়। এ নিয়ে গত বছরের ২১ এপ্রিল গণমাধ্যমে প্রকাশিত ছোট একটি খবরের বরাত দিয়ে ওই দিনই বাঁধের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে লিখিত চিঠি পাঠিয়ে প্রতিবেদন চেয়েছিল দুদক। দুদকের লিখিত ওই চিঠি পাওয়ার ২৫ দিন পর গত বছরের ১৬ মে মন্ত্রণালয় থেকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) কাছে বাঁধ নিয়ে প্রতিবেদন চাওয়া হয়। পরে সাত মাস পর পাউবো থেকে গত বছরের ২০ ডিসেম্বর মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন পাঠানো হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, বাঁধের বিষয় নিয়ে দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এর পর মন্ত্রণালয় থেকে বাঁধের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে কোনো ধরনের সুপারিশ, মন্তব্য, পর্যালোচনা ছাড়া চলতি বছরের ২০ ফেব্রুয়ারি তারিখ উল্লেখ করে দুদকের কাছে প্রতিবেদন পাঠানো হয়। প্রতিবেদনটি রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে পেঁৗছায় গত ২৮ ফেব্রুয়ারি।

এ প্রসঙ্গে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ সমকালকে বলেন, ১০ কার্যদিবসের মধ্যে রিপোর্ট চেয়ে তা পাওয়া গেছে ১০ মাস পর। পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় দুদকের চিঠি গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করলে এবং বাঁধ নির্মাণ সংস্কারে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হলে সুনামগঞ্জে এত বড় বিপর্যয় নেমে আসত না।

মন্ত্রণালয় থেকে কোনোরূপ পর্যালোচনা ও দিকনির্দেশনা ছাড়া প্রতিবেদন পাঠানোয় হতাশা প্রকাশ করেন দুদক চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ‘মানুষের দুর্দশার বিষয়টি আমলে না নিয়ে মন্ত্রণালয় শুধু পোস্ট অফিসের কাজ করেছে। পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় সঠিকভাবে কাজ করছে না। সঠিকভাবে কাজ করা হলে হাওরবাসী আজ এই নিদারুণ কষ্টের শিকার হতো না।’

মন্ত্রণালয় ও পাউবোর সাত কর্মকর্তার ব্যর্থতা স্বীকার

সুনামগঞ্জের হাওরে বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কারে নিজেদের ব্যর্থতার কথা স্বীকার করেছেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় ও পাউবোর দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয় ও পাউবোর সাত কর্মকর্তাকে গতকাল দুদকের জিজ্ঞাসাবাদে তারা ওই ব্যর্থতার কথা স্বীকার করেন। গতকাল জিজ্ঞাসাবাদ শেষে দুদক মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মদ মুনীর চৌধুরী সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান। মুনীর চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি বিশেষ টিম রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে ওই সাত কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।

মুনীর চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, সুনামগঞ্জের হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কারে মন্ত্রণালয় ও পাউবোর দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা পুরোপুরিভাবে ব্যর্থ হয়েছেন। দুদক এ বিষয় অত্যন্ত গুরুত্বসহকারে অনুসন্ধান করছে। অনুসন্ধানে যাদের বিরুদ্ধে ইচ্ছাকৃত গাফিলতি, অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া যাবে, তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকরা পাউবোর মহাপরিচালক প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর কবীরের বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, তদন্তের জন্য আমাদের ডেকেছিল। এ কথা জানিয়ে তিনি অন্যান্য প্রশ্ন এড়িয়ে যান।

গতকাল দুপুর ১২টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ওই সাত কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। যাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তাদের মধ্যে অন্য ছয় কর্মকর্তা হলেন_ পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (প্রশাসন) খলিলুর রহমান, পাউবোর প্রধান প্রকৌশলী আবদুল হাই, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম, সুনামগঞ্জ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আফসার উদ্দিন। এ ছাড়া পাউবো কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটির দুই সদস্য অতিরিক্ত মহাপরিচালক প্রকৌশলী আবদুল হাই আল বাকী ও তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হারুন উর রশীদকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

অনুসন্ধানে দুদকের বিশেষ টিম

গত ২০ এপ্রিল দুদক পরিচালক বেলাল হোসেনের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি বিশেষ টিম সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার করচার হাওর, জামালগঞ্জ উপজেলার হালির হাওর, তাহিরপুর উপজেলার শনির হাওরের বাঁধ নির্মাণে গাফিলতি, অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধানে নামে। টিমের অন্য দুই সদস্য হলেন উপপরিচালক প্রকৌশলী আবদুর রহিম ও সহকারী পরিচালক সেলিনা আখতার মণি।

সূত্র জানায়, গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আড়াই মাসে সুনামগঞ্জে এক হাজার ৫০০ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণে ১০১ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। অনুসন্ধানে অনিয়ম-দুর্নীতির নানা তথ্য-প্রমাণ মিলছে। বাঁধ নির্মাণে ১৬০ ঠিকাদারের মধ্যে ১৫১ জন ২০ থেকে সর্বোচ্চ ৩০ শতাংশ কাজ করেছেন। বাকি নয়জন কোনো কাজই করেননি। ২৩৯টি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটিকে (পিআইসি) ২৫ কোটি টাকার কাজ দেওয়া হয়েছে। সে কাজও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। গত বছর সুনামগঞ্জে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে যে দুই ঠিকাদারের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছিল, এবার ওই দুই ঠিকাদারকেও বাঁধ নির্মাণের কাজ দেওয়া হয়েছে। এবার পানি উন্নয়ন বোর্ডের দায়িত্বশীল কর্মকর্তা ও ঠিকাদারের যোগসাজশে কাজ না করেই বাঁধ নির্মাণে বরাদ্দকৃত অর্থ আত্মসাতের তথ্য পেয়েছে দুদকের অনুসন্ধান টিম।

জানা গেছে, সুনামগঞ্জের পাউবোর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, পিআইসি ও ঠিকাদারদের গাফিলতির কারণে অসময়ে হাওর রক্ষা বাঁধের কাজ শুরু করায় হাওরের বাঁধ ভেঙে ফসল তলিয়ে যায়। গত ২৯ মার্চ থেকে অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে পিআইসি কর্তৃক নির্মিত দুর্বল বাঁধ ভেঙে একে একে জেলার সবক’টি হাওরের বোরো ধান পানিতে তলিয়ে যায়।

পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, পাহাড়ি ঢলের পানিতে ১৩ হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে হাওর অঞ্চলের সাত জেলায় গড়ে ৭৫ ভাগ ফসল তলিয়ে গেছে। ২২ লাখ টন ধান ধ্বংস হয়েছে। প্রায় দুই হাজার টন মাছ ও ৩০ হাজার হাঁস মারা গেছে। প্রায় এক হাজার টন সবজি নষ্ট হয়েছে। সার্বিকভাবে ক্ষতির শিকার হয়েছে ১১ লাখ ৩৪ হাজার ৬০০ পরিবার।

মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি

পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মোহাম্মদ আলী খানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি সুনামগঞ্জ ও সিলেটের হাওর রক্ষা বাঁধের নির্মাণ ও সংস্কারকাজ তদন্ত করছে গত ৯ এপ্রিল থেকে। মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম প্রধান মন্টু কুমার বিশ্বাস কমিটির সদস্য সচিবের দায়িত্বে আছেন। সুত্র-সমকাল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24