শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:২১ অপরাহ্ন

মহসীন আলীর উত্তরসূরী হতে মনোনয়ন যুদ্ধ শুরু

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৩৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: তৃণমুলের জনপ্রিয় নেতা সদ্য প্রয়াত সমাজ কল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর আসনে কে হচ্ছেন তার উত্তরসূরি এনিয়ে চলছে জোর আলোচনা। মহসিন আলীকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ তৃণমুলের নেতাকমীরা কী আরেক মহসিন আলী পাবেন? আওয়ামী লীগ দলীয়ভাবে কাকে সমর্থন দেবে? উপনির্বাচনের দিনক্ষণ ঠিক না হলেও এমন সরব আলোচনা এখন মৌলভীবাজার জেলা জুড়ে। মৌলভীবাজার-৩ আসনের এমপি মৌলভীবাজারের জনপ্রিয় রাজনীতিবিদ সমাজ কল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী গত ১৪ই সেপ্টেম্বর সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। মহসিন আলীর মৃত্যুর পর থেকে শোকাহত তার ভক্ত, সমর্থক, শুভাকাঙ্ক্ষী, শুভানুধ্যায়ীসহ দলীয় নেতাকর্মীরাও তাদের প্রিয় নেতার স্থলাভিষিক্ত যোগ্য একজন কাণ্ডারীকে খুঁজছেন। আওয়ামী ঘরনার রাজনীতির অভিভাবক মহসিন আলীর স্বপ্ন পূরণ ও তার মতো জনকল্যাণে মানুষের পাশে থেকে কে কাজ করতে পারবেন? এমন নেতার সন্ধান করছেন তৃণমূলের কর্মীরা। আলোচনায় উঠে আসা নেতাদের পক্ষে বিপক্ষে আলোচনা সমালোচনাও চলছে। উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকা ও ভোটারদের আলোচনায় যারা রয়েছেন তারা হলেন সৈয়দ মহসিন আলীর সহধর্মিণী সৈয়দা সায়রা মহসিন, মেয়ে সৈয়দা সাবরিনা শারমিন, জেলা পরিষদ প্রশাসক ও সাবেক এমপি আজিজুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. ফিরোজ, সাধারণ সম্পাদক নেছার আহমদ, পুলিশের সাবেক এআইজি সৈয়দ বজলুল করীম, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও মৌলভীবাজার চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি কামাল হোসেন, জেলা যুবলীগের সভাপতি ফজলুর রহমান, স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সুব্রত পুরকায়স্থ ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ নেতা এম এ রহিম শহীদ। মৌলভীবাজার সদর ও রাজনগর উপজেলা নিয়ে মৌলভীবাজার-৩ আসন। জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায় মৌলভীবাজার সদরে ভোটার ২ লাখ ১৭ হাজার ৪ শ’ ৭৮ জন ও রাজনগর উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৪৬ হাজার ৯শ’ ৪৩ জন। ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনে সৈয়দ মহসিন আলী চারদলীয় জোট প্রার্থী সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানকে প্রায় ৩৩ হাজার ভোটে পরাজিত করে বিজয়ী হন। ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারির সংসদ নির্বাচনে সৈয়দ মহসিন আলী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দ্বিতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রীর দায়িত্ব পান। মন্ত্রী থাকাবস্থায় তিনি সাধারণ মানুষের সঙ্গে সহজেই মিশে গেছেন। আগের মতোই আপন করে নিতেন সবাইকে। এমন নেতার মৃত্যুর পর যদিও নির্বাচন কমিশন উপনির্বাচনের শিডিউল ঘোষণা করেনি; তারপরও গ্রাম থেকে শহর সর্বত্র অনিবার্য আলোচনার অংশ শূন্য হওয়া আসনে উপনির্বাচন। মহসিন আলীর পরিবারের কোন সদস্য প্রার্থী থাকছেন নাকি অন্য কেউ নমিনেশন পাচ্ছেন- এ নিয়ে সরব আলোচনা এখন মৌলভীবাজার-রাজনগরে। উপনির্বাচনে বিএনপির কেউ অংশ গ্রহণ করবে না, ভোটারদের কাছে এটি স্পষ্ট; তবে মূলত এই আসন আওয়ামী লীগের। তাই প্রার্থী দেয়া হবে ১৪ দলীয় জোটের প্রধান দল আওয়ামী লীগ থেকেই। এমন বিশ্বাস থেকে সাধারণের আলোচনা এখন সীমাবদ্ধ আওয়ামী পরিবারের মনোনয়ন প্রার্থীদের নিয়েই।
মহাজোট সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদের সরকারে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মতো বড় একটি মন্ত্রণালয়ের পূর্ণমন্ত্রীর দায়িত্ব পান সৈয়দ মহসিন আলী। স্থানীয় রাজনীতিতে আলোচনা ছিল ব্যক্তিগত সততা এবং ২০০৮ সালে এম সাইফুর রহমান-এর মতো হেভিওয়েট প্রার্থীকে হারানোর কৃতিত্বের জন্য তাকে এই দায়িত্ব দিয়ে পুরস্কৃত করা হয়। দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে নানা কারণে দেশজুড়ে আলোচনায় ছিলেন সৈয়দ মহসিন আলী। এই নিয়ে মিডিয়ায়ও তার একটি অবস্থান তৈরি হয়। তাছাড়া মৌলভীবাজারে আওয়ামী লীগ পরিবার থেকে তিনিই প্রথম মন্ত্রী। তার জনপ্রিয়তা বোঝা যায় তার মন্ত্রিত্ব পাওয়ার পর এবং তার মৃত্যুর পর জানাজায় মানুষের উপস্থিতি দেখে।
তবে জেলা আওয়ামী লীগ দীর্ঘদিন দুই ধারায় বিভক্ত থাকায় সৈয়দ মহসিন আলী যে গ্রুপে নেতৃত্ব দিয়েছেন সেই গ্রুপে বড় করে আলোচনা চলছে সৈয়দ মহসিন আলীর সহধর্মিনী সৈয়দা সায়রা মহসিনকে নিয়ে। মহসিন সমর্থকদের ধারণা সায়রা মহসিন মনোনয়ন সহজে পাবেন। এ প্রসঙ্গে রাজনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান এবং প্রয়াত মন্ত্রীর পরিবারের অত্যন্ত ঘনিষ্ট রাজনীতিক আছকির খান বলেন, উপনির্বাচনে মূলত প্রার্থী ঘোষণা করবেন দলীয় সভানেত্রী। তিনি জোর দিয়ে বলেন, মনোনয়ন পাওয়ার বেশি সম্ভাবনা সৈয়দা সায়রা মহসিনের। তার কথা সায়রা মহসিন প্রার্থী থাকলে এ গ্রুপ থেকে আর কেউ প্রার্থী হবেন না। এ দিকে একটি সূত্রের দাবি এ আসনে উপনির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়ার দৌড়ে ভাল অবস্থানে আছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নেছার আহমদ। তার সমর্থক নেতাকর্মীদের যুক্তি, তিনি একজন পরীক্ষিত নেতা। জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক নেছার আহমদ ছাত্রলীগ, যুবলীগের দায়িত্বশীল পদে থেকে যোগ্যতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে পরে জেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। সর্বশেষ কাউন্সিলরদের ভোটে ২০০৬ সালে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। নেছার আহমদও স্বীকার করেছেন উপনির্বাচনে তিনি মনোনয়ন চাইবেন দলের কাছে। এ ছাড়া আলোচনায় রয়েছে প্রবীণ রাজনীতিক সাবেক এমপি বর্তমান মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ প্রশাসক মো. আজিজুর রহমানও। এই নেতার পারিবারিক সূত্র নিশ্চিত করেছে তিনিও মনোনয়ন চাইবেন। শেষ পর্যন্ত দেখার বিষয়, কে পাচ্ছেন উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24