শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:৩৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই

‘মাকরূহ’ ও রোজা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৯ জুন, ২০১৮
  • ৯৩ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::এই পবিত্র মাসে আমরা রোজা রেখে অনেক কাজ করি, যা ইসলামী শরিয়তের দৃষ্টিতে মাকরূহ, তথা অপছন্দনীয়। হয়তো আমরা জেনে করি কিংবা না জেনে। একটু সচেতন হলেই রোজার মাকরূহ এড়ানো যায়। এতে সঠিকভাবে রোজা পালনও হয়। আর রোজা আদায় ইসলামী শরিয়ত মতে হলেই ‘আল্লাহর মকবুল বান্দা’ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার সৌভাগ্য অর্জিত হবে। আজকে মাগফিরাতের এ দিনে ‘রোজার মাকরূহ সমুহ নিয়ে আলোকপাত করবো। যে সব কাজ করলে রোজা মাকরূহ হবে।
‘মাকরূহ’ শব্দের অর্থ অপছন্দনীয়। আর রোজা (সওম) এর মাকরূহ হল রোজা পালন অবস্থায় যেসব কাজ করা অপছন্দনীয়। কিন্তু রোজা ভঙ্গ হবে না বরং আদায় হয়ে যাবে। মূলত রোজা ভঙ্গ না হলেও রোজাদারের এসব কাজ করা উচিত নয়। কারণ এসব কাজ কখনও কখনও রোজা ভঙ্গের কাছাকাছি নিয়ে যায়।
সাহাবি সৈয়দুনা হযরত আবু হুরায়রা (রাদি.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, সৈয়্যদুনা মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি (রোজা রেখে) খারাপ কথা ও খারাপ কাজ পরিহার করেনি, তার ক্ষুধার্ত থাকা আলাহ পাকের কাছে কোনো প্রয়োজন নেই। (সহিহ বুখারী, ১ম খ-, হাদিস-১৯০৩)
সৈয়্যদুনা আবু হুরায়রা (রা.) থেকে আরো একটি হাদিস বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, মহানবী (সা.) বলেছেন, রোজা হচ্ছে ঢাল, যতক্ষণ না সেটাকে ছিদ্র করে দাও। জিজ্ঞেস করা হলো- হে রাসূল (সা.) কোন জিনিস দিয়ে ছিদ্র করা হয়? রাসূল (সা.) উত্তর দিলেন মিথ্যা কিংবা গীবত দ্বারা।(আত্তারগীব ওয়াত্তারহীব, ২য় খ-)
রোজার মাকরূহসমুহ :
মিথ্যা বলা, চোগলখোরি করা, কুদৃষ্টি দেওয়া, গালিগালাজ করা, শরিয়তের অনুমতি ব্যতীত কাউকে কষ্ট দেওয়া, দাঁড়ি মুন্ডানো ইত্যাদি কাজ এমনিতেই ইসলামে হারাম (কঠোরভাবে নিষিদ্ধ) করা হয়েছে। আর এসব কাজ যদি কেউ রোজা রেখে করেন তাহলে রোজা মাকরূহ হবে।
রোজাদার যদি কোনো খাবারের জিনিস বিনা কারণে স্বাদ গ্রহণ করে কিংবা চিবানো মাকরূহ। তবে কোনো নারীর স্বামী যদি বদমেজাজি হয়ে তরকারিতে লবণ কম বেশি হলে রাগ করবে কারণ দেখিয়ে রোজাদার স্বাদ গ্রহণ করতে পারবে। মাকরূহ হবে না।
তবে চিবানোর জন্য ওজর (কারণ) হচ্ছে, ছোট শিশু নরম খাদ্য চিবাতে না পারলে তাকে খাওয়ানো যাবে। এসময় এমন কেউ তার পাশে নাই -যার জন্য রোজা ভাঙ্গার শরীয় হুকুম রয়েছে (হায়েজ নিফাস সম্পন্ন মহিলা) যে একটু চিবিয়ে খাইয়ে দেবে। এক্ষেত্রে রোজাদার তার শিশুকে রুটি চিবিয়ে খাইয়ে দিতে পারবে। এতে রোজা মাকরূহ হবে না। তবে এতটাই সতর্ক থাকতে হবে চিবানোর সময় যাতে তার কণ্ঠনালীর নিচে নেমে না যায়। তাহলে রোজা ভঙ্গ হয়ে যাবে। (দূররে মোখতার ৩য় খ-)
তবে অযথা খাবার জাতীয় জিনিসের স্বাদ পরীক্ষা করলে রোজা মাকরূহ হবে। তবে স্বাদ পরীক্ষা করা। না করলে ক্ষতি হতে পারে, এমতাবস্থায় স্বাদ গ্রহণ করলে রোজা মাকরূহ হবে না। (দূররে মোখতার ৩য় খ-)
স্ত্রীকে আলিঙ্গন করা, চুমু দেওয়া কিংবা স্পর্শ করার মধ্যে যদি বীর্যপাতের আশঙ্কা থাকে কিংবা সহবাসের আকাঙ্ক্ষা তীব্র হয় তাহলে রোজা মাকরূহ হবে। তাছাড়া রোজা রাখাবস্থায় ঠোট ও জিহ্বা শোষণ করা নি:শর্তভাবে মাকরূহ। (রদ্দুল মুহতার, ৩য় খ-)
রোজা রাখাবস্থায় বারবার থুথু এলে তা গিলে ফেলা অনেকেই রোজা ভঙ্গ হয়ে যাবে মনে করেন। একারণে অনেকেই রোজা রাখা অবস্থায় বারবার থুথু ফেলে। এভাবে রোজাবস্থায় থুথু ফেলা মাকরূহ।
রোজা রাখা অবস্থায় মিসওয়াক করা মাকরূহ নয়, তবে মিসওয়াক করতে গিয়ে যদি মিসওয়াকের আঁশ কণ্ঠনালীর ভেতরে চলে যায় তাহলে রোজা ভেঙ্গে যাবে।
আমরা অনেকেই মনে করি, রোজা রাখাবস্থায় মিসওয়াক করা যাবে না। বরং রোজা রেখে রাসূলুল্লাহ (সা.) মিসওয়াক করতেন।
সাহাবি সৈয়্যদুনা আমের ইবনে রবীআহ থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি অনেকবার রাসূলুল্লাহ (সা.) কে রোজাবস্থায় মিসওয়াক করতে দেখেছি। (তিরমিযী, ২য় খ-)। রোজা অবস্থায় গোলাপ কিংবা মেশক ইত্যাদির ঘ্রাণ নেওয়া, দাঁড়ি-গোঁফে তেল লাগানো ও সুরমা লাগানো মাকরূহ নয়।
তাই আসুন, এসব অপছন্দনীয় কাজ সমূহ বর্জন করে সঠিকভাবে সিয়াম সাধনার মাধ্যমে মহান আল্লাহ পাক ও তার প্রিয় হাবিব (সা.) এর সন্তুষ্টির্জন করি। আল্লাহ আমাদের সবাইকে রোজার মাকরূহ হতে সতর্ক ও সচেতন থাকার তওফিক দিন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24