শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ১২:০৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
‘মার্টিন স্বপ্নে ইসলামের কোনো এক নবীর কথা বারবার উচ্চারণ করছিল’ জগন্নাথপুরের নয়াবন্দর-শংকপুর সড়ক উদ্বোধন করলেন পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুরে পরিকল্পনামন্ত্রী-ক্ষমতায় আসতে না পেরে একটি মহল গুজব ছড়াচ্ছে মিরপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শেরীন শপথ নেবেন ২৫ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমার একাধিক মামলার আসামি গ্রেফতার সাহাবাদের যুগে শিশুদের শিক্ষায় অধিক গুরুত্ব দেওয়া হতো জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী

মাতার ভিতর শিক, তবু অলৌকিতভাবে বেঁচে গেল শিশুটি!

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ৯৫ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: রাখে আল্লাহ মারে কে—এই প্রবাদই যেন সত্যি হলো ছোট্ট হাভিয়ার কানিংহামের জীবনে। না হলে নাকের পাশ থেকে মাথা বরাবর ছয় ইঞ্চি শিক বিঁধে যাওয়ার পরও বেঁচে থাকে সে! অলৌকিক এই ঘটনা বিস্মিত করেছে চিকিৎসকদেরও। খবর বিবিসি অনলাইনের।

গত শনিবার যুক্তরাষ্ট্রের মিজৌরি অঙ্গরাজ্যে ঘটনাটি ঘটে। বাড়ির সামনের গাছঘরে খেলায় মগ্ন ছিল ১০ বছরের হাভিয়ার। হঠাৎ গাছে থাকা কিছু বোলতা আক্রমণ করে তাকে। এতে গাছঘর থেকে নিচে পড়ে যায় হাভিয়ার। তার মুখ সোজা গিয়ে পড়ে মাটিতে গেঁথে থাকা একটি কাবাব বানানোর শিকের ওপর। শিকটা তার নাকের পাশ দিয়ে ঢুকে মাথার পেছন পর্যন্ত গেঁথে থাকে।

ওই অবস্থায় বাড়ির দিকে ছুটে যায় হাভিয়ার। মা গ্যাব্রিয়েল মিলার ছেলের ছুটে আসা দেখেই আঁচ করেন কিছু হয়েছে। তবে ঘটনা যে এত ভয়াবহ, তা তাঁর কল্পনাও করতে পারেননি। মায়ের কাছে এসেই ঢলে পড়ে হাভিয়ার। কাঁদতে কাঁদতে বলতে থাকে, ‘মা, আমি বাঁচব না, বুঝতে পারছি বাঁচব না।’ মিলার দ্রুত ছেলেকে নিয়ে ছোটেন হাসপাতালে।

প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে যান মিলার। সেখান থেকে কানসাস সিটি হাসপাতালে পাঠানো হয় হাভিয়ারকে। পরে ক্যানসাস বিশ্ববিদ্যালয়ের হাসপাতালে তার অস্ত্রোপচার হয়।
হাসপাতালের চিকিৎসক কজি এবারসোল বলেন, ‘শিকটি মুখের ভেতর থেকে মাথার পেছন পর্যন্ত গেঁথে থাকলেও রক্তপাত খুব বেশি হয়নি। সবচেয়ে বিস্ময়কর ছিল যে ওই লোহার শিকটি শিশুটির চোখ, ব্রেইনস্টেম, স্পাইনাল কর্ড ও রক্তনালিতে আঘাত করেনি। শিকটি নাকের পাশ দিয়ে ঢুকে মাথার ভেতর প্রায় ৫ থেকে ৬ ইঞ্চি গেঁথে থাকে। অথচ এসব স্পর্শকাতর স্থানে কোনো আঘাত করেনি, যা অলৌকিকই বলা যেতে পারে। এমন সৌভাগ্য ১০ লাখে একজনের হয় কি না সন্দেহ।’
প্রথম আলো

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24