মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

মানবতাবিরোধী অপরাধে রাজাকার ফোরকান মল্লিকের ফাঁসি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০১৫
  • ৯৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের পাঁচ অভিযোগে পটুয়াখালীর ফোরকান মল্লিকের বিরুদ্ধে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন অান্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুানাল-২। তার বিরুদ্ধে করা ৫টি অভিযোগের মধ্যে ৩টি অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এ আদেশ দেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন ট্রাইব্যুনাল-২ । এর মধ্যে ২টি অভিযোগে মৃত্যুদণ্ড ও একটি অভিযোগে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয়।
এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে তাকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়। ২০১০ সালের ২৫ মার্চ ট্রাইব্যুনাল গঠনের মধ্য দিয়ে যুদ্ধাপরাধের বিচার শুরুর পর এটি বিশতম রায়। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় পটুয়াখালীর ফোরকান মল্লিক মুসলিম লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন।
ওই সময় তার বিরুদ্ধে আটজনকে হত্যা, গণহত্যা, ৪ জনকে ধর্ষণ, ৩ জনকে ধর্মান্তরে বাধ্য করা, ১৩টি পরিবারকে দেশান্তরে বাধ্য করা, ৬৪টি বসতবাড়ি ও দোকানে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ- এ পাঁচটি অভিযোগ আমলে নেন ট্রাইব্যুনাল-২। গত বছরের ১৮ ডিসেম্বর অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে ফোরকান মল্লিকের বিচার শুরু হয়।
২০০৯ সালে ২১ জুলাই পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ থানায় আবদুল হামিদ নামের এক ব্যক্তি ফোরকানের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এরপর ২০১৪ সালের ২৫ জুন ফোরকানকে বরিশালের রূপাতলী বাসস্ট্যান্ড থেকে গ্রেফতার করে পটুয়াখালীর গোয়েন্দা পুলিশ। ৩ জুলাই ট্রাইব্যুনাল মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার গ্রেফতার দেখিয়ে ফোরকান মল্লিককে কারাগারে পাঠান। তার বিরুদ্ধে মামলার তদন্ত করেন প্রসিকিউশনের তদন্ত কর্মকর্তা সত্যরঞ্জন রায়। ২ ডিসেম্বর ফোরকান মল্লিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেন ট্রাইব্যুনাল-২।
প্রসিকিউশনের প্রারম্ভিক বক্তব্যের মধ্য দিয়ে ১৯ জানুয়ারি শুরু হয় সাক্ষ্যগ্রহণ। প্রসিকিউশনের পক্ষে মোট ১৪ জন সাক্ষ্য দেন। অন্যদিকে ফোরকান মল্লিকের পক্ষে সাফাই সাক্ষ্য দেন চারজন। পরে আসামিপক্ষে আবদুস সালাম খান ও প্রসিকিউটর মোখলেসুর রহমান বাদল আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। বিচারিক কার্যক্রম শেষে মামলাটি রায়ের পর্যায়ে আসে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24