শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৪০ পূর্বাহ্ন

মানবপাচারকারীর খপ্পরে পড়ে লেবাননে জগন্নাথপুরের তরুণীর মানবেতর জীবনযাপন-দেশে ফেরার আকুতি

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৬ আগস্ট, ২০১৫
  • ১৫০ Time View

অমিত দেব:: মানব পাচারকারী দালালদের চক্রান্তে পড়ে লেবাননের জেলেবন্দি থাকা জগন্নাথপুরের এক তরুণী মানবেতর জীবন যাপন করছে। সেখান থেকে দেশে ফেরার আকুতি জানালেও আইনি জটিলতার কারণে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা যাচ্ছে না। এমনকি পাচারকারী দালালরাও এবিষয়ে তরুণীর পরিবারকে কোন সহায়তা না করায় দরিদ্র পরিবারটি দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।
জানা গেছে, জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের নাদামপুর গ্রামের শরিফ উল্যার মেয়ে ফারজানা বেগম কে তার খালাত্বো ভাই দিরাই উপজেলার সুরিয়ারপাড় গ্রামের রায়হান মিয়া চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে প্রায় দুই বছর আগে লিবিয়া পাঠানের নামে ৯৬ হাজার টাকা নিয়ে লেবানন পাঠান। মাসে ২৫ হাজার টাকা বেতনের চাকুরীর লোভ দেখিয়ে ২১দিন ঢাকা শহরে প্রশিক্ষন দেয়া হয়। ওই প্রশিক্ষনকালীন সময়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে খালাত্বো ভাই রায়হান ফারজানা বেগমের সাথে দৈহিক সর্ম্পকে মিলিত হন। প্রশিক্ষন শেষে লেবাননে যাওয়ার পর সেখানে বিমানবন্দর থেকে এক নারী তাকে তার বাড়িতে নিয়ে যান। সেখানে কয়েক মাস বসবাস করার পর ওই নারী তাকে দিয়ে বিভিন্ন কাজ করালেও কোন টাকা পয়সা না দিয়ে দেশে থাকা স্বজনদের সাথেও যোগাযোগ করতে দেননি। এমনকি টাকা পয়সা চাইলে মারধর করতেন। সাত মাস পর ওই নারী যখন বুঝতে পারেন বাংলাদেশ থেকে আসা ফারজানা সন্তানসম্ভবা তখন তিনি নানা অভিযোগে তাকে ঘর থেকে বের করে দেন। পরে তার স্থান হয় লেবাননের একটি সেল্টার হোমে। সেখানে তার সন্তানের জন্ম হয়। এখন সে সেখানে মানবেতর জীবন যাপন করছে। পার্সপোটরে ফটোকপি না থাকা ও আর্থিক কোন সংগতি না থাকায় তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হচ্ছে না বলে তার ভাই দাবী করেন। এদিকে লেবানন সফরকালে বাংলাদেশের ‘অভিবাসী কর্মী উন্নয়ন প্রোগাম’ ( অকাপ) নামের একটি এনজিও সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ওমর ফারুকের সাথে মেয়েটির দেখা হলে তিনি বিস্তারিত জানতে পারেন। তখন পাসপোর্ট না থাকা ও দালাল কর্তৃক তাকে লেবানন পাঠানোর করুণ কাহিনী ও সন্তানের জনক দালালের বিষয়টি অবহিত হন। এবং বাংলাদেশে মেয়েটির পরিবারের সাথে যোগাযোগ করেন।
বেসরকারী এনজিও সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ওমর ফারুক জানান, রমজানের প্রথম দিনে মেয়েটির সাথে আমার কথা হয়েছে। মেয়েটি মানবপাচারকারী দালালদের খপ্পরে পরে এখন মানবেতর জীবন যাপন করছে। আমরা তাকে দেশে ফিরিয়ে আনতে আইনি প্রক্রিয়া শুরু করেছি। পাসপোর্টের ফটোকপি না থাকায় দেশে ফিরিয়ে আনতে বিলম্ভ হচ্ছে।
ফারাজানা বেগমের ভাই মোহাম্মদ সিপন মিয়া জানান, খালাত্বো ভাইকে বিশ্বাস করে সব কিছু বিক্রি করে ৯৬ হাজার টাকা তুলে দিয়েছিলাম। কথাছিল খালু(দালালের বাবা) লেবাননে তাকে দেখে শুনে রাখবে এবং মাসে ২৫ হাজার টাকা বেতনে চাকুরী দিবে। কিন্তুু লেবানন যাওয়ার পর অজ্ঞাত নারী আমার বোনকে নিলেও একবারও দালাল রায়হানের বাবা তাকে দেখতে যায়নি। আমার বোন মুঠোফোনে আমাদেরকে তার করুণ কাহিনী ও সন্তানের পিতা দালাল রায়হানের বিষয়টি অবহিত করেছে। এখন আমরা নিঃস্ব আমাদের কোন টাকা পয়সা নেই তাই যোগাযোগ করে বোনকে দেশে আনতে পারছি না। আমরা সেই দালারের সাথে যোগাযোগ করলে সে এখন কোন পাত্তা দেয় না। এমনকি পাসপোর্টের ফটোকপিও দেয় না। তাই আমরা নিরুপায় হয়ে আল্লার ওপর ভরসা করে বসে আছি।
জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) খান মোহাম্মদ মাইনুল জাকির বলেন, মানবপাচারকারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা নেব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24