মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

মিশরে বাংলাদেশিদের অনুপ্রবেশ, ধরপাকড় চলছে

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৪৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::মিশরে প্রবেশের অনুমতি নেই বাংলাদেশি কর্মীদের। কড়াকড়ি টুরিস্ট ভিসায়ও। ২০১৫ সালের ৩১শে ডিসেম্বর থেকে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করে দেশটির সরকার। তারপরও থেমে নেই মিশরে বাংলাদেশি কর্মীদের গমন। এক শ্রেণির দালাল সে দেশে পাচার করছে বাংলাদেশিদের। রুট হিসেবে ব্যবহার করছে মিশরের পার্শ্ববর্তী দেশ সুদানকে।
তিন লাখ টাকার বিনিময়ে এসব কর্মীদের প্রথম সুদান পাঠানো হয়। দালাল ও এক শ্রেণির অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজশে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দর দিয়ে তাদের সুদান পাঠানো হয়। এরপর সীমান্ত দিয়ে পাঠানো হয় মিশরে। সেখানে মোটা অঙ্কের টাকা গুনতে হয় কর্মীদের। অনেকে এই টাকা যোগাড় করতে না পেরে দিনের পর দিন সুদানে মানবেতর জীবনযাপন করেন। আগে অবৈধভাবে প্রবেশ করে মিশরে কাজ পেলেও এখন আর সে সুযোগ পাচ্ছেন না বাংলাদেশিরা। চলছে ধরপাকড়। ন্যাশনাল সিকিউরিটি ফোর্স ও স্টেট সিকিউরিটি যৌথভাবে অবৈধ বিদেশি নাগরিকদের বিরুদ্ধে এই অভিযান চালাচ্ছে। ২০১৮ সালে সেদেশের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে সামনে রেখে এই অভিযান চলছে। ইতিমধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী শতাধিক বাংলাদেশিকে আটক করে দেশে ফেরত পাঠিয়েছে। এরমধ্যে সেপ্টম্বরেই ফেরত এসেছে ১৫ জন। এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানিয়ে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে মিশরে অবস্থিত বাংলাদেশি দূতাবাস। দূতাবাসের প্রথম সচিব (শ্রম) জুবাইদা মান্নান স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে সামনে মিশরের শ্রমবাজারকে যথাযথ কাজে লাগোনোর সুবিধার্থে সুদানে বাংলাদেশি কর্মী প্রেরণে প্রয়োজনীয় সতর্কতা অবলম্বনের অনুরোধ জানিয়েছেন।
গত ১৯শে নভেম্বর দূতাবাসের ওই চিঠিতে সুদান ও মিশরের বর্তমান পরিস্থিতি তুলে ধরে বলা হয়, পার্শ্ববর্তী দেশ সুদান থেকে বাংলাদেশি নাগরিক নিয়মিতভাবে মিশরে প্রবেশ করছে। এদের মধ্যে কিছু সংখ্যক মিশরের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আটক হচ্ছেন। অন্যরা বাংলাদেশি ও স্থানীয় দালালদের মাধ্যমে মিশরের বিভিন্ন গভর্নরেটের বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে নিয়োজিত হয়েছেন। ইতিমধ্যে সুদান থেকে অনুপ্রবেশকারী দেশটির সাদাত সিটি ও পোর্ট সাইদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে কর্মরত বাংলাদেশি কর্মীদের সঙ্গে কথা হয়েছে। তারা জানিয়েছেন, বাংলাদেশি কিছু অসাধু দালালের প্ররোচনায় প্রায় তিন লাখ টাকা দিয়ে সুদানে আসে। সেখানে দিনের পর দিন কাজ না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছিল। এই অবস্থায় তারা মিশরে প্রবেশ করেছেন। এখানে তাদের দালালদের অর্থ দিতে হয়েছে। দূতাবাসের চিঠিতে আরো বলা হয়েছে, এসব অনুপ্রবেশকারীদের অনেকেই জানিয়েছেন, তারা চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দর দিয়ে কোনো স্মার্টকার্ড ছাড়াই সুদানে পাড়ি জমান। পাশাপাশি হওয়ায় সুদানে আসা বাংলাদেশি কর্মীদের মিশরে পালিয়ে আসার প্রবণতা অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ৭ই সেপ্টেম্বর সুদান থেকে অবৈধভাবে মিশরে প্রবেশের সময় বেশ কয়েকজন মিশরীয় পুলিশের হাতে আটক হয়েছে। যাদের ১৫ জন ইতিমধ্যে বাংলাদেশি ফেরত এসেছে।
চিঠিতে আরো বলা হয়, ২০১৫ সালের মার্চ মাসে মিশর সরকার অবৈধভাবে কর্মরত বাংলাদেশি কর্মীদের ওয়ার্ক পারমিট নবায়ন বা বৈধকরণের ঘোষণা দেয়। এরপর থেকে দেশটিতে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংলাদেশি বৈধভাবে সততা ও দক্ষতার সঙ্গে কাজ করছেন। এ ধারা অব্যাহত থাকলে সম্ভাবনাময় এ শ্রমবাজারটি মিশরীয় সরকার পুনরায় খুলে দিতে পারে। ২০১৫ সালের ৩১শে ডিসেম্বরের পর থেকে সুদান থেকে প্রবেশকারী বাংলাদেশিদের মিশরে বৈধভাবে কাজ করার সুযোগ নেই। ধারণা করা হচ্ছে, বাংলাদেশ থেকে বৈধ ভিসা নিয়ে মিশরে কাজ করতে আসার ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকায় এবং টুরিস্ট ভিসা প্রদানে কড়াকড়ি আরোপ করায় কিছু অসাধু দালাল এদের সুদান নিয়ে সেখানে থেকে মিশরে প্রবেশ করাচ্ছে। এ অবস্থায় চলতি বছরের সেপ্টেম্বর থেকে মিশরের ক্রমাবনতিশীল আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ন্যাশনাল সিকিউরিটি ফোর্স ও স্টেট সিকিউরিটি যৌথভাবে অবৈধ বিদেশি নাগরিকদের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনা করছে। ২০১৮ সালের মার্চ মাসে অনুষ্ঠিতব্য প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে এ অভিযানের তীব্রতা আরো বৃদ্ধি পাবে। ইতিমধ্যে অবৈধভাবে কর্মরত প্রায় একশ বাংলাদেশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক হয়ে দেশে ফিরেছেন। সম্প্রতি সুদান থেকে যে হারে বাংলাদেশি কর্মীরা অবৈধভাবে মিশরে প্রবেশ করেছে তাতে দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে অনেক বাংলাদেশি আটক হতে পারেন বলে দূতাবাসের চিঠিতে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়। এ ধরনের অবৈধ অনুপ্রবেশ ও অবৈধভাবে বসবাস করার ফলে সম্ভাবনাময় শ্রমবাজারটি সম্প্রসারণে মিশরীয় সরকারের পুনর্বিবেচনার বিষষয়টি বাধাগ্রস্ত হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ অবস্থায় মিশরে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে দেশটির শ্রমবাজারকে যথাযথভাবে কাজে লাগানোর সুবিধার্থে সুদানে বাংলাদেশি কর্মী প্রেরণে সতর্কতা অবলম্বনের অনুরোধ জানানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24